গিলিয়াডের জেনেরিক রেমডেসিভির প্রথম বিক্রি করবে বেক্সিমকো

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য গিলিয়াড সায়েন্সেসের রেমডেসিভিরের জেনেরিক সংস্করণ বিক্রি করা উন্নয়নশীল বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে প্রথম সংস্থা হচ্ছে বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড।

বেক্সিমকোর প্রধান পরিচালনা কর্মকর্তা রাব্বুর রেজা জানান, গিলিয়াডের জেনেরিক ভার্সন রেমডেসিভির বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ৬ হাজার টাকা (৭১ ডলার) করে বিক্রি করবে বেক্সিমকো। তবে সরকারি হাসপাতালে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য বিনামূল্যে এ ওষুধ সরবরাহ করবে। গুরুতর অসুস্থ কোভিড-১৯ রোগীর কমপক্ষে ছয় শিশি রেমডেসিভির লাগবে বলে জানান তিনি।

বাংলাদেশ ওয়ার্ল্ড ট্রেড অর্গানাইজেশন নিয়মের অধীনে বাংলাদেশ পেটেন্টযুক্ত ওষুধের জেনেরিক সংস্করণ তৈরি করতে পারবে। কারণ স্বল্পোন্নত দেশগুলোকে সংস্থাটি বিশেষ ছাড়ে এ লাইসেন্স দিয়ে থাকে।

রেমডেসিভির হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি একটি ওষুধ, যা কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের জরুরি চিকিৎসায় ব্যবহার করা হচ্ছে। এটিই হচ্ছে বিশ্বের প্রথম ওষুধ যা নভোল করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগীদের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে।

রেজা বলেন, আমরা অন্যান্য দেশ থেকেও ওষুধটি সরবরাহের অনুরোধ পাচ্ছি। কিন্তু ওষুধটি চিরাচরিত উপায়ে বিতরণ বা সরবরাহ করা হবে না। যদি কোনো দেশ আমাদের ওষুধটি নিতে আগ্রহী হয়, তবে আমরা এটি রপ্তানি করব।

তিনি বলেন, ওষুধটি উৎপাদনে অংশীদার সন্ধানে গিলিয়াডকে সহায়তা করছে জাতিসংঘের সমর্থিত মেডিসিন পেটেন্ট পুল প্রতিষ্ঠানটি। তারাই বেক্সিমকোর সঙ্গে যোগাযোগ করে। স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে রেমডেসিভির-এর লাইসেন্সে আমরা আগ্রহী কি না জিজ্ঞেস করে তারা।

প্রতিষ্ঠানটির কাছ থেকে ফিরতি জবাবের অপেক্ষায় আছে বেক্সিমকো।

গিলিয়াড পাঁচটি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানকে রয়্যালটি-ফ্রি রেমডেসিভির তৈরির অনুমোদন দেয়।

ব্লুমবার্গের তথ্য অনুসারে, বিশ্বের বৃহত্তম সার্বভৌম তহবিল নরওয়ের নর্জেস ব্যাংক বেক্সিমকো’র ৩ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে। বেক্সিমকো ওষুধটি বেমসিভির ব্র্যান্ড নামে বিক্রি করবে বলে সংস্থাটির এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

 

আপনার মতামত লিখুন :