নবী মুহাম্মদ সা. ও তার উম্মতের বৈশিষ্ট্য



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
হজরত রাসূলুল্লাহ বিশ্ববাসীর জন্য রহমত, ছবি: সংগৃহীত

হজরত রাসূলুল্লাহ বিশ্ববাসীর জন্য রহমত, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সোমবার (১৯ অক্টোবর) থেকে শুরু হবে পবিত্র রবিউল আউয়াল মাস। বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ মাসেই পৃথিবীতে আগমন করেন। এ মাসের ১২ তারিখে ইহজগতের মানুষের কল্যাণে পথ প্রদর্শন করতে আল্লাহতায়ালা দুনিয়াতে প্রেরণ করেন এ মহামানবকে। গোটা জিন্দেগি তিনি নানা প্রতিকূলতার সম্মুখীন হওয়া সত্ত্বেও আল্লাহর একত্ববাদ প্রচার করে যান। তার জীবনে বহু ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। তিনি আল্লাহর জমিনে আল্লাহর বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনা করেছেন। মদিনায় মদিনা সনদ প্রণয়নের মাধ্যমে গোটা বিশ্বে সর্বপ্রথম লিখিত সংবিধান প্রণেতা হিসেবে হিসাবে চির স্মরণীয় হয়ে আছেন। নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনী প্রত্যেক মুসলমানের জানা দরকার।

বিশিষ্ট সাহাবি জাবির ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, আমাকে পাঁচটি বস্তু দেওয়া হয়েছে যা আমার পূর্বে কাউকে দেওয়া হয়নি। শত্রুর মনে ভীতি সঞ্চার করে আমাকে সাহায্য করা হয়েছে, যা এক মাসের রাস্তার সীমা পর্যন্ত প্রযোজ্য। জমিনকে আমার জন্য মসজিদ তথা নামাজ আদায়ের যোগ্য ও পবিত্রতা অর্জনের যোগ্য করে দেওয়া হয়েছে। আমার উম্মাতের যেকোনো ব্যক্তি যেকোনো স্থানে নামাজের সময় হলেই নামাজ আদায় করতে পারবে। আর আমার জন্য গনিমত তথা যুদ্ধলব্ধ সম্পদ হালাল করা হয়েছে, যা আমার পূর্বে কারও জন্যই হালাল ছিলো না। আমাকে (কিয়ামত দিবসে) শাফায়াত তথা সুপারিশ করার ক্ষমতা প্রদান করা হয়েছে। প্রত্যেক নবীকে বিশেষভাবে তার সম্প্রদায়ের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে আর আমি সব মানুষের কাছে প্রেরিত হয়েছি।’ –সহিহ বোখারি: ৩৩৫

হাদিসে হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিশেষ কিছু মর্যাদার কথা বর্ণিত হয়েছে। যা তিনি ব্যতীত অন্যকোনো নবী-রাসূলকে দেওয়া হয়নি। বৈশিষ্ট্যসমূহের অন্যতম হলো- আল্লাহতায়ালা তার প্রিয় রাসূলের (সা.) শত্রুদের মনে এমন অস্থিরতা ও ভীতি সঞ্চার করে দেন যাতে তারা এক মাসের দূরত্বের রাস্তায় থাকলেও রাসূলের ভয়ে তটস্থ ও বিচলিত থাকে। একজন নবী বা রাসূলের দাওয়াতি মিশনে সফলতা লাভের জন্য এ ধরনের বিশেষত্ব খুবই তাৎপর্য বহন করে। আর এটি শেষ নবীর প্রতি তার রবের পক্ষ থেকে অন্যতম উপহার।

দ্বিতীয় বৈশিষ্ট্য হলো- পূর্ববর্তী উম্মত বিশেষ করে আহলে কিতাব ও অন্যান্যদের নির্দিষ্ট ইবাদতখানায় ইবাদত করা অপরিহার্য হলেও শেষ নবী ও তার উম্মতের জন্য পুরো জমিনকে নামাজের স্থান হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে এবং মাটি দ্বারা তায়াম্মুমের মাধ্যমে পবিত্রতা অর্জনের বিধান দেওয়া হয়েছে। (হজরত ঈসা আ.-কে যেকোনো মাটিতে নামাজের অনুমতি দিলেও তা দ্বারা পবিত্রতা অর্জনের অনুমতি দেওয়া হয়নি) নিঃসন্দেহে এ দুর্লভ সুযোগ তাদের দ্বীন পালনে অত্যন্ত সহায়ক ও আরামদায়ক। অতএব যখন যেখানে নামাজের সময় হবে তখন সেখানে নামাজ আদায় করা যাবে। (অবশ্য পরবর্তীতে অন্য হাদিস দ্বারা কবরস্থান, গোসলখানা ও অপবিত্র স্থানে নামাজ আদায় করতে নিষেধ করা হয়েছে) এ ছাড়া মাটিকে পবিত্র করা হয়েছে, যাতে তা দ্বারা তায়াম্মুমের মাধ্যমে পবিত্রতা অর্জন করা যায়। এটিও এই উম্মতের জন্য আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে বিশেষ পুরস্কার।

তৃতীয় বৈশিষ্ট্য বা মর্যাদা হলো- নবী ও তার উম্মতের জন্য যুদ্ধলব্ধ গনিমতের মাল (কাফেরদেরকে পরাজিত করার পর তাদের কাছ থেকে নেওয়া সম্পদ) হালাল করা হয়েছে, যা পূর্বে কোনো নবীর জন্য বৈধ ছিল না। পূর্বেকার নবী-রাসূলগণ শত্রুদের পরাজিত করে যে সম্পদ লাভ করতেন তা নির্দিষ্ট এক স্থানে রেখে দেওয়া হতো এবং আগুন এসে সেগুলোকে ভস্মীভূত করে দিত। হাদিসের কোনো কোনো ভাষ্যকার অভিমত দেন যে, এটিকে তাদের জেহাদ তথা আল্লাহর পথে লড়াইয়ে নিয়তের বিশুদ্ধতার প্রমাণ হিসেবে গণ্য করা হতো।

চতুর্থ বৈশিষ্ট্য হলো- হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে কিয়ামত দিবসে শাফায়াত বা সুপারিশ করার অনুমতি দেওয়া হবে এবং তার সুপারিশ গ্রহণ করার ব্যাপারে আল্লাহতায়ালা অঙ্গীকার করেছেন। হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, নবী করিম (সা.)-কে বলা হবে, তুমি সুপারিশ করো, তোমার সুপারিশ গ্রহণ করা হবে। আলোচ্য হাদিসে বর্ণিত এই সুপারিশ দ্বারা কোন সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে তা নিয়ে ইসলামি বিশেষজ্ঞগণ বিভিন্ন উক্তির অবতারণা করেছেন। কেউ কেউ বলেছেন, এই সুপারিশ দ্বারা কিয়ামত দিবসের ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পাওয়ার সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে। কারও মতে এমন সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে, যা আল্লাহতায়ালা কখনও প্রত্যাখ্যান করবেন না। কোনো কোনো আলেমের মতে, এই সুপারিশ দ্বারা যার অন্তরে বিন্দু পরিমাণ ঈমান রয়েছে তাকে জাহান্নাম থেকে বের করে আনার সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে। কেউ কেউ বলেছেন, বেহেশতের মধ্যে স্তর উন্নয়ন বা মর্যাদা বৃদ্ধির জন্য যে সুপারিশ করা হবে তাকে বুঝানো হয়েছে। কারও মতে, যাদের জন্য জাহান্নাম অবধারিত হয়ে গেছে তাদেরকে তা থেকে রক্ষা করার সুপারিশকে বুঝানো হয়েছে। কেউ কেউ বলেছেন, বিনা হিসেবে বিশেষ কোনো দলকে জান্নাতে প্রবেশ করানোর জন্য যে সুপারিশ করা হবে তাকে বুঝানো হয়েছে। -উমদাতুল কারি: ৪/১০

পঞ্চম ও সর্বশেষ বৈশিষ্ট্য হলো- সকল নবীকে তাদের স্ব স্ব সম্প্রদায়ের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে আর আমাদের নবী মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ (সা.)-কে সাদা, কালো, আরব, অনারব নির্বিশেষ সব মানুষের কাছে প্রেরণ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘আর আমি আপনাকে সমগ্র মানবজাতির নিকট সুসংবাদদানকারী ও ভীতি প্রদর্শনকারী হিসেবে প্রেরণ করেছি। কিন্তু অধিকাংশ মানুষই এ বিষয়ে জ্ঞান রাখে না।’ -সূরা সাবা: ২৮

এ আয়াতে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, নবী করিম (সা.)-কে সমগ্র মানবজাতির জন্য পথপ্রদর্শক হিসেবে প্রেরণ করা হয়েছে। আর এটি হচ্ছে- তার জন্য বিশেষ নিয়ামত ও পুরস্কার। কেননা সব নবীকে বিশেষ সম্প্রদায়ের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে, ব্যতিক্রম শুধু শেষ নবীর ক্ষেত্রে।