হে দয়াময়! ক্ষমা কর আমায়



মাহমুদ আহমদ
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশ্বময় মহামারি করোনায় লাখ লাখ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে এবং এখনও এই সংখ্যা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর শেষ কোথায় আমরা কেউ জানি না।

রমজানের মাগফিরাতের এই দিনগুলোতে আমাদের বিশেষ দোয়া থাকবে দয়াময় আল্লাহ যেন আমাদেরকে ক্ষমার চাদরে জড়িয়ে নেন।

মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের দরবারে হাজার শুকরিয়া, তিনি আমাদেরকে এখনও সুস্থ রেখেছেন এবং রমজানের রোজা রাখার সৌভাগ্য দিচ্ছেন, আলহামদুলিল্লাহ।

আমরা সবাই জানি, পবিত্র মাহে রমজান সিয়াম সাধনার মাস, আল্লাহ রাব্বুল আলামিনকে একান্ত করে পাবার মাস এবং সকল পাপ ক্ষমার মাস। এই বরকত ও আশিষ মণ্ডিত মাসকে লাভ করার জন্য প্রতিটি মুমিন-মুত্তাকী বান্দারা অধির আগ্রহে অপেক্ষামান থাকেন।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা মাহে রমজানের গুরুত্ব সম্পর্কে বলেন, ‘হে যারা ঈমান এনেছো! তোমাদের জন্য সেভাবে রোজা রাখা বিধিবদ্ধ করা হলো, যেভাবে তোমাদের পূর্ববর্তীদের জন্য বিধিবদ্ধ করা হয়েছিল, যেন তোমরা মুত্তাকী হতে পার’ (সুরা বাকারা, আয়াত: ১৮৩)। পবিত্র কোরআনের উক্ত আয়াত থেকে যে বিষয়টি স্পষ্ট হয় তাহলো ধর্মীয় অনুষ্ঠান হিসাবে রোজা অর্থাৎ উপবাসব্রত পালন করা কোন না কোন আকারে সকল ধর্মেই ছিল, আছে এবং দেখতে পাওয়া যায়। তবে ইসলাম এই উপবাস ব্রতের মধ্যে নবরূপ, নব অর্থ ও নবতম আধ্যাত্মিক তাৎপর্য আরোপ করেছে।

পবিত্র মাহে রমজানের এই রোজাকে অর্থাৎ উপবাস পালনকে ইসলাম পূর্ণমাত্রার আত্মোৎসর্গ মনে করে থাকে। যিনি রোজা পালন করেন, তিনি যে কেবল শরীর রক্ষাকারী খাদ্য পানীয় থেকেই বিরত থাকেন তা নয় বরং তিনি সন্তানাদি জন্মদান তথা বংশবৃদ্ধির ক্রিয়াকলাপ থেকেও দূরে থাকেন এবং সমস্ত পাপ কাজ থেকেও বিরক থাকেন। তাই যিনি রোযা রাখেন, তিনি তার অসাধরাণ আত্মত্যাগের এবং তার প্রস্তুতির কথা আল্লাহপাককে জানিয়ে দেন আর তার হৃদয় এই ঘোষণাও দেয় যে, আমি কেবল মাত্র আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের সন্তুষ্টি লাভের আশায় রোজা রাখছি।

এছাড়া তার হৃদয় এটাও বলে যে, যেহেতু আমি আল্লাহর জন্য রোজা রাখছি এবং সকল প্রকারের পাপ কাজ থেকে বিরত থাকার অঙ্গিকার করছি তাই প্রয়োজন বোধে আমি আমার প্রভু ও সৃষ্টিকর্তার খাতিরে আমার সবকিছু, এমনকি আমার জীবন পর্যন্ত কোরবানি করে দিতে দ্বিধাগ্রস্ত হবো না।

পবিত্র মাহে রমজান আসে আমাদের জন্য অবারিত ইবাদত বন্দেগীর বাড়তি সুযোগ নিয়ে। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে আল্লাহর নেক বান্দারা অন্বেষণ করে কিভাবে আল্লাহপাকের নৈকট্য অর্জন করা যায়।

ইসলামে রোজার মাহাত্ম্য অতি ব্যাপক। এই মাহাত্ম্য ও মর্যাদাকে বুঝাতে গিয়ে আমাদের প্রিয়নবী (সা.) বলেছেন, ‘প্রত্যেক জিনিসের জন্য নির্দিষ্ট দরজা থাকে আর ইবাদতের দরজা হচ্ছে রোজা’ (জামেউস সগীর)।

তিনি (সা.) আরো বলেছেন, ‘রোজা ঢাল স্বরূপ এবং আগুন থেকে রক্ষা পাওয়ার একটি নিরাপদ দূর্গ’ (মুসনাদ আহমদ বিন হাম্বল)। যদিও আমরা সবাই জানি যে, পবিত্র রমজান বড়ই কল্যাণমণ্ডিত মাস, দোয়ার মাস। তারপরেও আমরা অনেকেই এই মাসের ইবাদত বন্দেগি থেকে গাফেল থাকি। অন্যান্য মাসের মতই এই পবিত্র মাসটিকে হেলায় কাটিয়ে দেই।

বিশ্বময় মহামারি কোরনাকালেও যারা পবিত্র এই মাসটিকে লাভ করার তৌফিক পেয়েছি, নিশ্চয় তারা অনেক সৌভাগ্যবান। অনেকেই হয়তো আশায় ছিল কিন্তু লাভ করতে পারেননি, না ফেরার দেশে চলে গেছেন। তাই আমাদেরকে এ মাসের পুরো ফায়দা অর্জন করতে হবে। আমাদের প্রত্যেকের উচিত হবে, পবিত্র রমজানের মাহাত্ম্য ও গুরুত্ব বুঝে রমজান থেকে পূর্ণ কল্যাণ মণ্ডিত হওয়া।

মহামারি করোনার আক্রমণে আমাদের প্রতিবেশী দেশের অবস্থাও ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। তাই বিশ্ববাসীকে যেন আল্লাহ করোনা থেকে রক্ষা করেন মাগফিরাতের এই দিনগুলোতে আমাদেরকে বিশেষভাবে দোয়া করতে হবে।

আল্লাহতায়ালা আমাদের সবাইকে ক্ষমা করুন, আমিন।

লেখক: ইসলামী গবেষক ও কলামিস্ট, ই-মেইল- [email protected]