অন্তরের রোজা



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

শরীর বা দেহ এবং এর বিভিন্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের মতোই অন্তর ও হৃদয়কে রোজায় শামিল করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। অন্তর ও হৃদয়কে পাপাচার, কুচিন্তা, বক্রতা, শত্রুতা, কুটিলতা থেকে সরল, সোজা ও পবিত্রতায় ভরপুর ঈমানের পথে রাখাই ঈমানদারের কর্তব্য এবং রোজার দাবি। অন্তরের রোজার বিষয় অনুধাবণ করার জন্য প্রথমে অন্তর/মন/হৃদয় সম্পর্কে জানা প্রয়োজন। আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেছেন:

‘যে আল্লাহর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে, আল্লাহ তার অন্তরকে সরল পথ দেখান’ (সুরা তাগাবুন: আয়াত ১১)।

বস্তুত পক্ষে অন্তরের সরল পথ বা হেদায়েত হলো সকল হেদায়েতের মূল এবং তাওফিকের শিকড় তথা সকল সুকর্মের অনুপ্রেরণার উৎস। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন:

‘শোন, দেহের মধ্যে একটি মাংসপি- রয়েছে, যখন তা সুস্থ থাকে তখন গোটা দেহটাই সুস্থ থাকে আর যখন তা অসুস্থ হয়ে যায়, তখন গোটা দেহটাই অসুস্থ হয়ে যায়। জেনে রাখো, তা হলো অন্তর’ (বোখারি শরিফ: ৫২)।

অন্তর সুস্থ থাকা কেবল মানুষের শরীর বা দেহের জন্যেই নয়, মানুষের যাবতীয় কল্যাণের জন্যেই গুরুত্বপূর্ণ। একজন মানুষের সুস্বাস্থ্য, শান্তি, কল্যাণ বহুলাংশে নির্ভর করে তার অন্তর, মানসিকতা ও মনের সুস্থতার উপর। দুনিয়া এবং আখেরাতের সাফল্য ও কল্যাণের প্রয়োজনে দেহের পাশাপাশি অন্তরকেও সুস্থ, সচল, পবিত্র রাখতে হয়। কারণ, শারীরিক অসুস্থতার মতোই অন্তরের অসুস্থতা ও সমস্যা মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এবং দুনিয়ার কাজে এবং আখেরাতের কাজে পিছিয়ে দেয়। অন্তরকে গুরুত্ব দেওয়ার বিষয়টি পবিত্র কোরআনেও বলা হয়েছে। আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেন:

‘নিশ্চয় এর মাঝে যে ব্যক্তির জন্য প্রচুর শিক্ষণীয় বিষয় রয়েছে, যার একটি জীবন্ত অন্তর রয়েছে, অথবা যে ব্যক্তি একাগ্র চিত্তে শুনতে চায়’ (সুরা কাফ: আয়াত ৩৭)।

ফলে জীবন্ত, আগ্রহী, সুস্থ অন্তর একজন মানুষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। কারণ শুধু অন্তর থাকলেই হবে না, একে জীবন্ত, সুস্থ ও পবিত্র রাখতে হবে। যদিও প্রতিটি মানুষেরই অন্তর আছে তথাপি অন্তর পবিত্র, সুস্থ ও জীবন্ত না হলে সেই অন্তর কোনো কাজে আসবে না।

সাধারণভাবে মানুষের মধ্যে দুই ধরনের অন্তরের উপস্থিতি দেখা যায়। একটি হলো জীবন্ত অন্তর, যা ঈমানের নূরে উজ্জ্বল, তাকওয়া ও বিশ্বাসে ভরপুর। আরেক প্রকার অন্তর হলো মৃত, যা বেখেয়ালী, বেপরোয়া এবং ধ্বংস, অসুস্থতা ও অকল্যাণের কারণ। এরূপ অন্তর সত্য, কল্যাণ, আলো ও সুস্থতা থেকে বিমুখ হয়ে ধ্বংসের পথে গমনকারী। যাদের সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করা হয়েছে:

‘মূলত এদের অন্তরে রয়েছে মারাত্মক ব্যাধি, অতঃপর আল্লাহ তায়ালা এদের সে রোগ বৃদ্ধি করে দিয়েছেন। তাদের জন্য রয়েছে আল্লাহর পক্ষ থেকে পীড়াদায়ক শাস্তি। কেননা, তারা মিথ্যা বলেছিল’ (সুরা বাকারা: আয়াত ১০)।

এইসব মৃত, অসুস্থ ও পথভ্রষ্ট অন্তর সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে আরো ইরশাদ করা হয়েছে:

‘তারা বলে আমাদের অন্তরের দরজা বন্ধ হয়ে গেছে। মূলতঃ তাদের ক্রমাগত অস্বীকার করার কারণে আল্লাহ তায়ালা তাদের উপর অভিসম্পাত করেছেন। অতঃপর তাদের সামান্য পরিমাণ লোকই ঈমান গ্রহণ করেছে।’ (সুরা বাকারা: আয়াত ৮৮)।

‘তবে কি তারা এ কোরআন সম্পর্কে কোনো রকম চিন্তা গবেষণা করে না! নাকি এদের অন্তরসমূহের উপর তালা ঝুলে আছে!’ (সুরা মুহাম্মদ: আয়াত ২৪)।

‘তারা বলে, যে বিষয়ের দিকে তুমি আমাদের ডাকছো, তার জন্য আমাদের অন্তরসমূহ আবরণে আচ্ছাদিত হয়ে আছে, আমাদের কানেও রয়েছে বধিরতা’ (সুরা হা-মীম সাজদা: আয়াত ৫)।

পবিত্র কোরআনের এমন বহু আয়াতের মাধ্যমে মূলতঃ এটাই স্পষ্ট হয় যে, মানুষের অন্তরও অসুস্থ হয়, তালাবদ্ধ হয় এবং সত্য জানতে বিমুখ হলে অন্তর এক সময় মরেও যায়। যদিও খোদাদ্রোহী, পথভ্রষ্ট ও অন্যায়কারীর বুকেও একটি অন্তর আছে, তথাপি সে অন্তর জীবন্ত, কল্যাণকামী, পবিত্র, আলোকিত ও সঠিক পথে বিচরণশীল নয়। এ কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বেশি বেশি করে এই দোয়া পড়তেন:

‘হে আল্লাহ, হে হৃদয়ের পরিবর্তনকারী, আপনি আমার হৃদয়কে দ্বীনের উপর প্রতিষ্ঠিত রাখুন’ (তিরমিজি শরিফ: ২১৪০)।

ফলে হৃদয় বা অন্তরকে সব সময় দ্বীনের দিকে রাখা দরকার এবং রোজার সময় সেটি আরো দৃঢ়ভাবে রাখা জরুরি, যাতে অন্তরের কুচিন্তা ও মন্দ প্ররোচনা দ্বারা ঈমান ও রোজার কোনো ক্ষতি না হয়। ইসলামী স্কলারগণ বলেছেন যে, অন্তরের রোজা হলো অন্তরকে ভ্রান্ত বিশ্বাস, কুমন্ত্রণা, কুচিন্তা, খারাপ ও গর্হিত চিন্তা বা কল্পনা থেকে মুক্ত রাখা।

বিশ্বাসী, ঈমানদার, মুমিন-মুসলমানের অন্তর সর্বদা ঈমানের নূরে আলোকিত থাকতে হবে। ঈমান, দ্বীন ও কল্যাণের চিন্তায় মুমিন-মুসলমানের হৃদয় সর্বদা আলোকিত থাকে। মিথ্যা, কুফর, অসৎ চিন্তা, ষড়যন্ত্র, কুচিন্তা, কুমন্ত্রণা ইত্যাদি অন্ধকার সেখানে স্থান পাবে না। এসব অন্ধকার এবং হিংসা অহংকার, গিবত, বড়ত্ব ইত্যাদি থাকলে অন্তর কালিমাময় হয়ে যায়। সে কারণে রোজার মাধ্যমে শারীরিক কৃচ্ছ্বতা সাধনের পাশাপাশি অন্তর বা হৃদয়কেও অন্ধকারাচ্ছন্ন বিষয় থেকে পরিপূর্ণভাবে সরিয়ে রাখতে হবে।

রোজায় শরীর যেমন পানাহার করবে না, অন্তরও তেমনিভাবে খারাপ চিন্তা থেকে মুক্ত থাকবে। রোজায় শারীরিকভাবে পানাহার বন্ধ করে অন্তরে অসৎ চিন্তা ও পরিকল্পনা বহাল থাকলে রোজার হক আদায় হবে না। পানাহারের কষ্ট হলেও মন-মানসিকতায় উন্নতি এবং অন্তর আলোকিত হবে না। এজন্য রোজার সময় শারীরিকভাবে পানাহার বন্ধ করা, রিপুকে দমন করা যেমন দরকার, তেমনি অন্তরকে ঈমানের চিন্তায় মশগুল রাখা এবং যাবতীয় অন্ধকারময় কুচিন্তাকে পরিশুদ্ধ রাখাও বিশেষভাবে অপরিহার্য্য। কারণ সুস্থ দেহে যেমন সুস্থ মনের অবস্থান, তেমনি সুস্থ মনে বা অন্তরেও তেমনিভাবে সুস্থ দেহের অবস্থান। দেহ ও মন পারস্পরিকভাবে গভীর সম্পর্কযুক্ত। ফলে শরীর ও মন উভয়টিকেই পবিত্র, স্বচ্ছ, নিষ্কলুষ, কালিমাহীন রাখা একজন ঈমানদারের শারীরিক-মানসিক-আত্মীক কল্যাণের জন্য অতীব জরুরি। রোজার সময় এ বিষয়ে অধিক মনোযোগী হতে হবে, যাবে শরীরের পাশাপাশি মনও পবিত্রতা, কৃচ্ছ্বতা আর ঈমানের আলোয় আলোকিত হয়।

একটি হাদিস থেকে জানা যায় যে:

একবার রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক সাহাবি সম্পর্কে তিনবার বললেন, লোকটি জান্নাতি। সেই সাহাবিকে যখন জিজ্ঞাসা করা হয় যে, আপনি কোন আমলের দ্বারা জান্নাতের অধিকারী হলেন? সাহাবি বললেন, আমি যখন ঘুমাই তখন কারো প্রতি কোনো হিংসা, বিদ্বেষ, শত্রুতা থাকে না (খুতবাতুর রামাদান, পৃ. ৭৬)।

অতএব রোজায় দেহের পাশাপাশি মনের পরিশুদ্ধি সাধনের জন্যেও সচেষ্ট হওয়া কর্তব্য। যার মাধ্যমে ঈমানের নূরে অন্তর আলোকিত হবে এবং আধ্যাত্মিকতা বা রুহানিয়্যাতের সৃষ্টি হবে।