পবিত্র রমজানের পবিত্রতম রজনী



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র রমজান মাসের পবিত্রতম রজনী হলো লাইলাতুল কদর বা শবে কদও, যা রমজানে রোজার মাসের এক অনন্য উপহার স্বরূপ। আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালার পক্ষ হতে এমন গুরুত্বপূর্ণ ও বরকতময় রজনী মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উম্মতদের ছাড়া অন্য কোনো উন্মতকে প্রদান করা হয় নি। মুসলমান তথা উম্মতে মুহাম্মদী এই অপরিসীম সৌভাগ্যের অধিকারী হয়েছে।

আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা উম্মতে মুহাম্মদীকে শ্রেষ্ঠ উম্মতের মর্যাদা দিয়েছেন। কিন্তু এই শ্রেষ্ঠ উম্মতের হায়াত বা জীবনকাল অতীতের পূর্ববর্তী উম্মতগণের চেয়ে অনেক কম। কারণ, অতীতে অনেক নবীর উম্মত শত শত বছর বেঁচে ছিলেন। ফলে সুদীর্ঘ হায়াত পেয়ে তারা অনেক বেশি নেক আমল করেছেন। কম হায়াতের অধিকারী হলেও যাতে বেশি আমল ও সাওয়াব হাসিল করতে পারে, এজন্য উম্মতে মুহাম্মদীকে আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা শবে কদরের মতো মহান রাত্রি ইবাদতের জন্য দান করেছেন। এক রাত্রির ইবাদতের মাধ্যমে হাজার মাসের ইবাদতের চেয়েও অধিক সাওয়াব পাওয়ার সুযোগ একমাত্র উম্মতে মুহাম্মদীতে দান করেছেন আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা।

পবিত্র কোরআনে ‘কদর’ শিরোনামে একটি পূর্ণাঙ্গ সুরা অবর্তীণ করার মাধ্যমে মাসটির গুরুত্ব ও মর্যাদা সম্পর্কে ধারণা করা যায়। আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেন যে, ‘আমি লাইলাতুল কদরে কোরআন অবর্তীণ করেছি। আপনি কি জানেন লাইলাতুল কদর কী? লাইলাতুল কদর হলো হাজার মাসের চেয়েও উত্তম’ (সুরা কদর)।

অতএব, শবে কদরে ইবাদত করা হাজার মাস ইবাদত করার চেয়েও উত্তম। হাজার মাসে ৮৩ বছর ৪ মাস। এ হিসাবে কেউ যদি জীবনে ১২টি শবে কদর পায় ও ইবাদত করতে পারে, তাহলে তার এক হাজার বছর ইবাদতের সাওয়াবের সমতুল্য হবে। উল্লেখ্য, পবিত্র কোরআনে এ কথা বলা হয় নি যে, ‘শবে কদর হাজার মাসের সমান’, বরং বলা হয়েছে ‘শবে কদর হাজার মাসের চেয়ে উত্তম’। কাজেই এটা স্পষ্ট যে, শবে কদরে ইবাদত করতে পারলে হাজার মাস নয়, বরং হাজার মাসের চেয়েও অধিক ইবাদতের সাওয়াব হাসিল করা সম্ভব।

শবে কদরের রাত্রিটির মর্যাদা ও গুরুত্ব সম্পর্কে, বিশেষত এ রাত্রিতে আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালার বিশেষ রহমত ও দয়া সম্পর্কেও ইঙ্গিত প্রদান করা হয়েছে। আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালা ইরশাদ করেছেন:

‘সে রাতে ফেরেশতাগণ ও রূহ তথা জিবরাইল (আ.) অবতরণ করেন, প্রত্যেক কাজে তাদের রবের অনুমতি নিয়ে’ (সুরা কদর)।

পবিত্র হাদিসেও শবে কদরের মর্যাদা ও গুরুত্ব সম্পর্কে একাধিক বর্ণনা রয়েছে। হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন:

‘যে ব্যক্তি ঈমান অবস্থায় সাওয়াবের আশায় রমজানের রোজা রাখবে তার আগের সমস্ত গোনাহ মাফ করে দেওয়া হবে। আর যে ব্যক্তি ঈমান অবস্থায় সাওয়াবের আশায় শবে কদরে ইবাদত করবে, তার পূর্বের সমস্ত গোনাহ মাফ করে দেওয়া হবে’ (বোখারি ও মুসলিম)।

পবিত্র, মর্যাদাবান ও হাজার মাসের চেয়ে উত্তম শবে কদর প্রত্যেক রমজান মাসেই রয়েছে। কিন্তু তাকে সন্ধান করে নিতে হয়। বোখারি ও মুসলিম শরিফের একটি হাদিসে বর্ণিত হয়েছে যে, হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, তোমরা রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতগুলোতে ‘শবে কদর’ খোঁজ কর।

ফলে রমজানের শেষ দশ দিনের  ২১, ২৩, ২৫, ২৭, ২৯ তম তারিখে, অর্থাৎ বেজোড় তারিখের রাতে শবে কদর হতে পারে। এ রাতগুলোতে শবে কদর তালাশ বা সন্ধান করতে হবে। সমান গুরুত্ব দিয়ে রমজানের শেষ দশকের বেজোড় রাতগৃুলোতে শবে কদর পাওয়ার আশায় ইবাদতে মশগুল হওয়াই উত্তম। কেউ কেউ শুধু ২৭ তারিখ দিবাগত রাতে ইবাদত করেন বা মনে করেন যে, ২৭ তারিখ রাতই শবে কদর। এমন ধারণা ভ্রান্ত। ইসলামী শরিয়তে তা সঠিক বলে অনুমোদিত নয়। 

তদুপরি, বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা ও উৎসবের আমেজে শবে কদর পালনের কিছু রেওয়াজ কোথাও কোথাও দেখা যায়, যা সম্পূর্ণভাবে পরিতাজ্য। কারণ, শবে কদর হলো নিজের ব্যক্তিগত আমলের মাধ্যমে সাওয়াব হাসিলের রাত। অহেতুক এবং ইসলাম সমর্থন করে না, এমন কোনো কিছু করার মাধ্যমে এ পবিত্র ও বরকতময় রাতকে নষ্ট করা চরম বোকামি। বরং এ রাতে ফরজ নামাজ তথা মাগরিব, ইশা ও ফজর নামাজ অবশ্যই জামাতের সঙ্গে যথাযথভাবে পালন করতে হবে। কেউ কেউ নফলের পেছনে ছুটে ফরজ নষ্ট করে। ফলে নফলের কারণে রাত জেগে কোনোক্রমেই ফজরের ফরজ নামাজ নষ্ট করা যাবে না। কারণ, সব নফল একত্রিত করলেও ফরজের সমান হয় না। তাই সর্বাবস্থায় ফরজ আমলগুলোকে প্রাধান্য দিতে হবে এবং শবে কদরের রাতেও ফরজ নামাজ সবচেয়ে আগে সুষ্ঠুভাবে আদায় করতে হবে। অতঃপর, শবে কদরের রাতে অধিক পরিমাণে নফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত ও জিকির-আজকার ইত্যাদি ইবাদত বেশি বেশি করতে হবে। এ রাতের নফল নামাজের জন্য আলাদা কোনো নিয়ম নেই। বরং অন্য সময়ের নফল নামাজের মতো এ রাতে নফল নামাজ আদায় করা যায়। বিশেষত তাহাজ্জুদ নামাজ আদায়ের প্রতিও এ রাতে বিশেষ মনোযোগী হওয়া দরকার।

হযরত আয়েশা সিদ্দিকা রাদিয়াল্লাহু আনহুমা মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি হওয়া সাল্লামরকে বলেছিলেন, ‘আমি যদি শবে কদর পাই, তাহলে আমি কী দোয়া করবো?’ মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছিলেন, ‘তুমি এ দোয়া করবে: আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুয়্যুন তুহিব্বুল আফওয়া ফা’ফু আন্নী’ (হে আল্লাহ, আপনি বড়ই ক্ষমাশীল, ক্ষমা করতে ভালোবাসেন, তাই আমাকে ক্ষমা করে দিন)- মুসনাদে আহমাদ/তিরমিজি শরিফ।