রমজানে ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্য



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

  • Font increase
  • Font Decrease

রমজান মাসের রোজা ব্যক্তিগত আমল হলেও তা মুসলিম উম্মাহ এবং সমাজের সকল মানুষকে নানাভাবে উজ্জীবিত ও উদ্বেলিত করে এবং সৃষ্টি করে ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্য। কারণ, মতাদর্শগত দিক থেকে, বিশ্বের সকল মুসলমান এক দেহ, এক প্রাণ, এক অন্তর। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মুসলিমদের একটি শরীরের মতো বলেছেন। কারণ, নানা দেশের নানা রকমের মানুষগুলো ইসলামের আদর্শে একতাবদ্ধ রয়েছেন। ঈমান ও আমল তাদেরকে করেছে নিকটবর্তী ও পরস্পরের স্বজন।

পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করা হয়েছে:

‘আর তিনি তাদের অন্তরসমূহের মাঝে পারস্পরিক সম্প্রীতির বন্ধন স্থাপন করে দিয়েছেন। অথচ তুমি যদি দুনিয়ার যাবতীয় সম্পদও ব্যয় করতে, তবুও এ মানুষগুলোর অন্তরের মাঝে পারস্পরিক ভালোবাসার বন্ধন স্থাপন করতে পারতে না। কিন্তু আল্লাহ তায়ালা এদের মাঝে প্রীতি স্থাপন করে দিয়েছেন। অবশ্যই তিনি পরাক্রমশালী, প্রজ্ঞাময়’ (সুরা আনফাল: আয়াত ৬৩)।

‘হে মানব সম্প্রদায়, আমি তোমাদের একজন পুরুষ ও একজন নারী থেকে সৃষ্টি করেছি। তারপর আমি তোমাদের জন্য জাতি ও গোত্র বানিয়েছি, যাতে করে তোমরা একে অপরের সাথে পরিচিত হতে পারো। কিন্তু আল্লাহর কাছে সর্বাধিক মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তি হচ্ছে সে, যে আল্লাহ তায়াকে বেশি ভয় করে। নিশ্চয় আল্লাহ তায়ালা সবকিছু জানেন, সবকিছুর খবর রাখেন’ (সুরা হুজুরাত: আয়াত ১৩)।

‘তোমরা রুকুকারীদের সাথে রুকু করো’ (সুরা বাকারা: আয়াত ৪৩)।

ফলে ইসলাম গোষ্ঠী, বর্ণ, অঞ্চল, গোত্র নয়, ঈমান ও আমলের ভিত্তিতে সমগ্র মুসলিম জাতিকে ঐক্যবদ্ধ ও একাকার হওয়ার আহ্বান ও অনুপ্রেরণা জাগায়। তৌহিদের ভিত্তিতে সুন্নাহর আলোকে বিশ্বের সকল মুসলমানের মধ্যে প্রীতি, সম্প্রীতি, সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বের চেতনা সৃষ্টি করে ইসলাম। সেই ঐক্যবদ্ধ মুসলিম জাতিসত্ত্বার কাছে আল্লাহ সোবহানাহু তায়ালার বিশেষ নেয়ামত হলো মাহে রমজান। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করা হয়েছে:

‘হে বিশ্বাসীগণ, তোমাদের জন্য রোজার বিধান দেওয়া হলো, যেমন বিধান তোমাদের পূর্ববর্তীদের প্রদান করা হয়েছিল, যাতে তোমরা সংযমশীল হতে পারো’ (সুরা বাকারা: আয়াত ১৮৩)।

‘তোমরা সবাই মিলে আল্লাহ রজ্জুকে শক্তভাবে আঁকড়ে ধরো এবং কখনো বিচ্ছিন্ন হয়ো না। তোমরা তোমাদের উপর দেওয়া আল্লাহর নেয়ামতের কথা স্মরণ করো, যখন তোমরা একে অপরের শত্রু ছিলে, অতঃপর তিনি তোমাদের মনের মাঝে ভালোবাসার সঞ্চার করে দিলেন। অতঃপর তোমরা তাঁর অনুগ্রহে একে অপরের ভাই হয়ে গেলে’ (সুরা বাকারা: আয়াত ১৯৮)।

‘তোমরা তাদের মতো হয়ে যেও না, যাদের কাছে সুস্পষ্ট নিদর্শন আসার পরও তারা বিভিন্ন উপদলে বিভক্ত হয়ে পড়েছে এবং নানা ধরনের মতানৈক্য সৃষ্টি করেছে, এরাই হচ্ছে সেসব মানুষ, যাদের জন্য কঠোর শাস্তি রয়েছে’ (সুরা আলে ইমরান: আয়াত ১০৫)।

মহানবী সাল্লøাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অসংখ্য হাদিসেও মুসলিম উম্মাহর মধ্যে ঐক্য, সংহতি, সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের প্রতি সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। একটি হাদিসে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেছেন:

‘আমার কাছে প্রত্যাদেশ এসেছে যে, তোমরা পরস্পরে বিনয় অবলম্বন করো। কেউ কারো উপর জুলুম করো না। কেউ কারো উপর দম্ভ করো না’ (মুসলিম শরিফ: ৬৪)।

পবিত্র কোরআন ও হাদিসের এসব গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশনায় ব্যক্তি ও ক্ষুদ্র স্বার্থের ঊর্ধ্বে মুসলিম উম্মাহর স্বার্থ দেখার তাগিদ করা হয়েছে। ঈমান ও আমলের ভিত্তিতে প্রতিটি মুসলমান একে অপরের ভাইয়ের মর্যাদা পেয়েছে। তার হক যেমন আদায় করতে হবে, তেমনি তাকে কোনোভাবেই কষ্ট দেওয়া ও দম্ভ করা যাবে না। রমজানের পবিত্র পরিস্থিতিতে কেবল নিজের সাওয়াব ও লাভের চিন্তা না করে মুসলিম উম্মাহর অপর ভাইয়ের কথা চিন্তা

করাও তাই অতীব গুরুত্বপূর্ণ। দরিদ্র ও অসহায়কে সাহায্য করা এবং রোজা পালনের জন্য আর্থিকভাবে সহযোগিতা করাও প্রতিটি সামর্থ্যবান মুসলমানের একান্ত কর্তব্য।

তদুপরি যে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলো সকল মুসলমানের লক্ষ্য রাখা উচিত তা হলো, কোনোভাবেই কোনো মুসলমানকে কষ্ট না দেওয়া বা বিপদে না ফেলা। বিশেষত যারা ব্যবসা-বাণিজ্যে জড়িত, তাদের দ্বারা ভেজাল বা দ্রব্যমূল্য যাতে বৃদ্ধি না পায়, সেটা লক্ষ্য রাখা অপরিহার্য। মানুষকে কষ্ট দিয়ে বা বিপদে ফেলে কখনোই আল্লাহকে খুশি করা সম্ভব নয়। বরং এতে ঈমান ও আমল বরবাদ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। যতই নামাজ, রোজা করা হোক না কেন, উপার্জন যদি হালাল না হয়, ঘুষ, দুর্নীতি, মজুতদারি, মূল্যবৃদ্ধি ও ভেজালের মাধ্যমে  হয়, তবে সেসব আমল কবুল না হওয়ারই কথা।

ফলে রমজানে নিজের সাওয়াব ও আর্থিক লাভের জন্য প্রচ-ভাবে ব্যক্তি স্বার্থের অনুসারী হওয়া ইসলামের ‘উম্মাহ কনসেপ্ট’ এবং ভ্রাতৃত্ব ও সৌহার্দ্য চেতনার সম্পূর্ণ বিরোধী। রোজার সময় নিজের পাশাপাশি মুসলিম উম্মাহর অন্য সদস্যদের স্বার্থের দিকে মনোযোগী হওয়াও কর্তব্য। বিশেষ করে, দরিদ্র ও অসহায়দের আর্থিক ও নানাভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করা একান্ত অপরিহার্য। তদুপরি, চাকরিজীবীরা ঘুষ-দুর্নীতির দ্বারা এবং ব্যবসায়ীরা ভেজাল-মূল্যবৃদ্ধির দ্বারা সমাজের অন্য সদস্যদের বিন্দুমাত্র কষ্ট ও দুর্ভোগের কারণ হলে তাদের রোজা বা ইবাদত নস্যাৎ হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ফলে রমজান মাসে নিজের আমলের প্রতি বিশেষ মনোযোগী হওয়ার পাশাপাশি মুসলিম উম্মাহ, সমাজ ও অপরাপর মুসলমান নর-নারী তথা মানবতার স্বার্থ দেখাও বিশেষ কর্তব্য রূপে বিবেচিত হওয়া দরকার।