ফিতরা কি টাকা দিয়ে আদায় করা যাবে?



মাওলানা ফখরুল ইসলাম, অতিথি লেখক, ইসলাম
ঈদুল ফিতর একটি তাৎপর্যময় অঙ্গ হলো ফিতরা, ছবি : সংগৃহীত

ঈদুল ফিতর একটি তাৎপর্যময় অঙ্গ হলো ফিতরা, ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আমাদের দেশে প্রায় সবাই টাকা দিয়ে সদকাতুল ফিতর তথা ফিতরা আদায় করে থাকেন। যুগ যুগ ধরে প্রজন্মের পর প্রজন্ম সবাই এভাবেই ফিতরা আদায় করে আসছেন। কিন্তু ইদানিং কেউ কেউ বলছেন, টাকা দিয়ে ফিতরা প্রদান করলে; তা আদায় হবে না। বরং খেজুর, যব, আটা ইত্যাদি খাবার দিতে হবে। কারণ, হাদিসে পাঁচটি জিনিস দিয়ে ফিতরা আদায়ের কথা বলা হয়েছে। সেগুলো হলো- খেজুর, যব, কিসমিস, পনির ও আটা।

এ সম্পর্কে হাদিস এসেছে, হজরত ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) ফিতরা হিসেবে খেজুর হোক অথবা যব হোক এক সা পরিমাণ আদায় করা আবশ্যক করেছেন এবং লোকজনের ঈদের নামাজে বের হওয়ার পূর্বেই তা আদায় করার নির্দেশ দিয়েছেন। -সহিহ বোখারি : ১৫০৬

অন্য হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, হজরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) ফিতরা হিসেবে খেজুর হোক অথবা যব হোক এক সা পরিমাণ আর গম আধা সা পরিমাণ আদায় করা আবশ্যক করেছেন। -সুনানে আবু দাউদ : ১৬২২

বর্ণিত হাদিসে খেজুর, যব ইত্যাদি দ্বারা ফিতরা আদায় করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু টাকা কিংবা মূল্য দিয়ে তো ফিতরা আদায় করার কথা কোথাও বলা হয়নি; অথচ নবীজীর সময়ে দিরহাম ও দিনারের প্রচলন ছিল।

যদি মূল্য দিয়ে ফিতরা আদায় করা বৈধ হত, তাহলে নবীজী (সা.) খেজুর, যব ইত্যাদির সঙ্গে এত দিরহাম কিংবা এত দিনার হবে, এটাও বলে দিতেন।

মোটাদাগে এই হচ্ছে তাদের বক্তব্য। কিন্তু বাস্তবতা কি তাই? বাস্তবেই কি টাকা দিয়ে ফিতরা আদায় হবে না?

না, বাস্তবতা এমন নয়। দেখুন, হাদিসে পাঁচটি বস্তু দ্বারা ফিতরা আদায়ের কথা বলা হয়েছে এটা ঠিক। কিন্তু হাদিসের উদ্দেশ্য কি শুধু এই পাঁচটি বস্তুই? নাকি ওই পাঁচটি বস্তু কিংবা এর সমমূল্য উদ্দেশ্য?

বিষয়টি স্পষ্ট করার জন্য একটি উদাহরণ দেওয়া যাক। হাদিসে উটের জাকাত উট দিয়ে, বকরির জাকাত বকরি দিয়ে, শস্যের জাকাত শস্য দিয়ে ও পণ্যের জাকাত পণ্য দিয়ে দেওয়ার কথা এসেছে।

হজরত মুয়াজ ইবনে জাবাল (রা.)-এর হাদিসে বিষয়টি সস্পষ্টভাবে ফুটে ‍উঠেছে। নবীজী (সা.) তাকে ইয়েমেনে প্রেরণ করার সময় বলেছিলেন, ‘ফসল থেকে ফসল, বকরিপাল থেকে ছাগল, উটপাল থেকে উট, গরুর পাল থেকে গরু জাকাত হিসেবে গ্রহণ করবে।’ -সুনানে আবু দাউদ : ১৫৯৯

হজরত মুয়াজ (রা.) কি করলেন? তিনি সেখানে গিয়ে ইয়েমেনবাসীদের বললেন, তোমরা যব ও ভুট্টার পরিবর্তে চাদর বা পরিধেয় বস্ত্র আমার কাছে জাকাতস্বরূপ নিয়ে আসো। ওটা তোমাদের পক্ষেও সহজ এবং মদিনায় নবীজীর সাহাবিদের জন্যেও উত্তম। -সহিহ বোখারি : ২৮০

দেখুন, নবীজীর স্পষ্ট নির্দেশনা সত্ত্বেও হজরত মুয়াজ (রা.) যব এবং ভুট্টার পরিবর্তে চাদর এবং পরিধেয় বস্ত্র গ্রহণ করলেন। তাহলে কি হজরত মুয়াজ (রা.) নবীজীর নির্দেশ অমান্য করলেন? না, তিনি নবীজীর নির্দেশ অমান্য করেননি। তাহলে?

যেকোনো বিবেকবান মানুষ এটাই বলবে যে, তিনি নবীজীর নির্দেশ অমান্য করেননি। বরং তিনি ভালো করেই বুঝেছেন নবীজীর নির্দেশের বাহ্যিক অর্থ অর্থাৎ হুবহু উট, বকরি ও শস্য গ্রহণ করাই এখানে তার উদ্দেশ্য নয়। বরং নবীজীর উদ্দেশ্য হচ্ছে, ওই সব বস্তু কিংবা এর সমমূল্য।

ফিতরার ক্ষেত্রে একই রকম ঘটেছে। অর্থাৎ নবীজী (সা.) ফিতরা আদায়ের জন্য নির্ধারিত কয়েকটি বস্তুর নাম বলেছেন। কিন্তু এর উদ্দেশ্য কখনোই এই নয় যে, হুবহু এই বস্তুগুলোই দিতে হবে; এগুলোর মূল্য কিংবা সমমূল্যের বস্তু দিলে আদায় হবে না। বিষয়টি এমন নয়। বরং নবীজীর উদ্দেশ্য হচ্ছে, হুবহু ওই বস্তুগুলো দিলে যেমন ফিতরা আদায় হবে, ওইগুলোর মূল্য হিসেব করে আদায় করলেও আদায় হয়ে যাবে।

সাহাবায়ে কেরাম রা. সাদাকাতুল ফিতর সংক্রান্ত নির্দেশনাটি এভাবেই বুঝেছেন। এ কারণেই সাহাবায়ে কেরাম (রা.) থেকে হাদিসে বর্ণিত খাদ্যশস্য দিয়ে ফিতরা আদায়ের কথা যেমন পাওয়া যায়, তেমনি মূল্য দিয়ে ফিতরা আদায়ের প্রমাণও তাদের কাছ থেকেই পাওয়া যায়।

হজরত আবু সাঈদ খুদরি (রা.) বলেন, ‘আমরা সদকাতুল ফিতর আদায় করতাম এক সা খাদ্য (গম) দ্বারা অথবা এক সা যব অথবা এক সা খেজুর, কিংবা এক সা পনির বা এক সা কিসমিস দ্বারা।’ -সহিহ বোখারি : ১৪৭২

এই বর্ণনায় হাদিসে বর্ণিত বস্তুগুলো দিয়ে ফিতরা আদায়ের বিষয়টি ফুটে উঠেছে।

অপরদিকে হজরত আবু ইসহাক আস সাবিয়ি (রহ.)-এর বর্ণনায় সাহাবায়ে কেরামের মূল্য দিয়ে ফিতরা আদায়ের বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে ফুটে উঠেছে।

তিনি বলেন, আমি সাহাবায়ে কেরাম (রা.)-কে এই অবস্থায় পেয়েছি যে, তারা রমজানে ফিতরা আদায় করতেন খাবার সমমূল্যের দিরহাম দিয়ে। -মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ১০৪৭২

এই বর্ণনা থেকে এটা স্পষ্ট যে, সাহাবায়ে কেরাম (রা.) দিরহাম (টাকা) দ্বারা ফিতরা আদায় করতেন। অর্থাৎ সাহাবায়ে কেরাম জাকাতের হাদিসকে যেমন বাহ্যিক অর্থে প্রয়োগ না করে নবীজীর মূল উদ্দেশ্য বুঝে নির্ধারিত বস্তুর পাশাপাশি মূল্য ধরে জাকাত দিতেন, তেমনিভাবে ফিতরার ক্ষেত্রেও নবীজীর মূল উদ্দেশ্য বুঝে হাদিসে বর্ণিত বস্তু দিয়ে যেমন ফিতরা আদায় করতেন, এগুলোর মূল্য ‍দিয়েও ফিতরা আদায় করতেন।

তাবেয়িনদের সময়ে তো টাকা দিয়ে আদায় করার বিষয়টি এক পর্যায়ে ব্যক্তি বিশেষে সীমাবদ্ধ থাকেনি, বরং রাষ্ট্রীয়ভাবেই ফিতরা মূল্য দিয়ে আদায় করার নিয়ম চালু হয়।

এ সম্পর্কে কুররা ইবনে খালিদ বলেন, ‘আমাদের নিকট খলিফাতুল মুসলিমিন হজরত উমর বিন আব্দুল আযিযের পক্ষ থেকে পত্র আসল যে, প্রত্যেক ব্যক্তি যেন আধা সা (গম) অথবা তার মূল্য আধা দিরহাম ফিতরা হিসেবে প্রদান করে। -মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ৬/৫০৮

প্রসিদ্ধ তাবেয়ি হজরত হাসান বসরি (রহ.) বলেন, ‘টাকা দ্বারা ফিতরা আদায় করতে কোনো সমস্যা নেই।’ -মুসান্নাফে ইবনে আবি শায়বা : ৬/৫০৮

লক্ষণীয় বিষয় হলো, খলিফা উমর ইবনে আব্দুল আযিয রাষ্ট্রীয় নির্দেশ জারি করলেন এমন এক সময়, যখন অসংখ্য তাবিয়ি জীবিত। কিন্তু একজনও প্রতিবাদ করলেন না যে না, মূল্য দিয়ে তো ফিতরা আদায় হয় না সুতরাং এটা শরিয়তবিরোধী। কেউ কিন্তু এমন কথা বলেননি।

এর মানে কি এই নয় যে, বিষয়টি ওই সময় সবার জানা ছিল এবং সবার কাছেই বিষয়টি স্বীকৃত ছিল যে, হাদিসে বর্ণিত খাদ্য দিয়ে যেমন ফিতরা আদায় করা যায়, তেমনিভাবে টাকা দিয়েও আাদায় করা যায়?

বস্তুত টাকা দ্বারা ফিতরা আদায় করা এটি আমলে মুতাওয়ারিছ তথা সাহাবায়ে কেরাম এবং তাবেয়িনদের কর্মপরম্পরা দ্বারা প্রমাণিত বিষয়। অর্থাৎ সাহাবা এবং তাবেয়িগণ হাদিসে বর্ণিত খাদ্যশস্যের দ্বারা যেমন ফিতরা আদায় করেছেন, তেমনিভাবে এগুলোর মূল্য দিয়েও আদায় করেছেন। অথচ নবীজীর হাদিস তাদের সামনেই ছিল। এর মানে তো এটাই যে, তারা নবীজীর কথার অর্থ এটাই বুঝেছেন যে, শুধু এই খাদ্যশস্যগুলোই উদ্দেশ্য নয়; বরং এগুলো দিলে যেমন ফিতরা আদায় হবে তেমনিভাবে এগুলোর মূল্য দিলেও ফিতরা আদায় হয়ে যাবে।

আরেকটি বিষয়, ইতোপূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে, জাকাতের ক্ষেত্রে নবীজীর সুস্পষ্ট নির্দেশ সত্ত্বেও হজরত মুয়াজ (রা.) মূল্যের প্রতি লক্ষ করে যব এবং ভুট্টার পরিবর্তে চাদর এবং পরিধেয় বস্ত্র গ্রহণ করে বলেছিলেন, ‘ওটা তোমাদের পক্ষেও সহজ এবং মদিনায় নবীজীর সাহাবিদের জন্যেও উত্তম।’

একইকথা সদকাতুল ফিতরের ক্ষেত্রেও। অর্থাৎ নবীজীর সময়ে খাদ্যশস্য মদিনাবাসীর জন্য উপযোগী ছিল এবং এগুলো তাদের খুব প্রয়োজন ছিল তাই তখন খাদ্যশস্য দেওয়ার কথা বলেছিলেন; কিন্তু এখন মানুষের জন্য টাকা বেশি উপযোগী, বেশি প্রয়োজনীয়। সুতরাং এখন ফিতরা হিসেবে টাকা দেওয়াই বেশি উত্তম হবে। এটি দরিদ্রদের জন্যও বেশি উপকারী হবে।

সুতারাং এই প্রশ্নের কোনো অবকাশ নেই যে, খাদ্যশস্যের মতো টাকা দিয়েও যদি ফিতরা আদায় করা বৈধ হয়, তাহলে নবীজী (সা.) কেন দিরহাম দিনারের কথা বললেন না? তখন তো দিরহাম দিনার ছিল।

   

ঈমানের স্বাদ ও মিষ্টতা কী?



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ঈমানের স্বাদ সবাই আস্বাদন করতে পারে না, ছবি : সংগৃহীত

ঈমানের স্বাদ সবাই আস্বাদন করতে পারে না, ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হজরত উমর ইবনুল খাত্তাব (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে এসেছে, হজরত জিবরাইল (আ.) রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে জিজ্ঞাসা করলেন, এবার আমাকে ঈমান সম্পর্কে বলুন, রাসুল (সা.) বললেন, ‘ঈমান হলো, তুমি ঈমান রাখবে আল্লাহর প্রতি, তার (আল্লাহর) ফেরেশতাদের প্রতি, তার কিতাবসমূহের প্রতি, তার রাসুলদের প্রতি এবং শেষ দিবসের (কেয়ামত) প্রতি। (এবং) তুমি ঈমান রাখবে তাককিরের ভালো-মন্দের প্রতি।’ হজরত জিবরাইল (আ.) বললেন, আপনি সত্য বলেছেন। -সহিহ মুসলিম : ৮

ঈমানের স্বাদ
হজরত আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি নবী কারিম (সা.)-কে বলতে শুনেছেন, ঈমানের স্বাদ আস্বাদন করবে ওই ব্যক্তি, যে আল্লাহকে রবরূপে, ইসলামকে দ্বীনরূপে এবং মুহাম্মাদ (সা.)-কে রাসুলরূপে সন্তুষ্টচিত্তে গ্রহণ করবে। -সহিহ মুসলিম : ৩৪

সুস্বাদু খাদ্যের স্বাদ সেই বুঝতে পারে যার জিহ্বায় স্বাদ আছে। রোগ-ব্যাধির কারণে নষ্ট হয়ে যায়নি। তদ্রূপ ঈমান ও যাবতীয় আমলের স্বাদও ওই খোশনসিব ব্যক্তিই অনুভব করে, যে সম্পূর্ণ সন্তুষ্টিচিত্তে ও সর্বান্তকরণে আল্লাহকে রব ও পরওয়ারদিগার এবং মুহাম্মদ (সা.)-কে রাসুল ও আদর্শ এবং ইসলামকে পূর্ণাঙ্গ দ্বীন ও জীবন ব্যবস্থা হিসেবে গ্রহণ করে।

আল্লাহতায়ালা, নবী মুহাম্মদ (সা.) ও ইসলামের সঙ্গে যার সম্পর্ক কেবলই বংশগত ও প্রথাগত বা কেবলই চিন্তাগত ও বুদ্ধিগত পর্যায়েই নয় বরং সে আল্লাহর বন্দেগি, মুহাম্মদ (সা.)-এর আনুগত্য এবং ইসলামের অনুসরণকে মনেপ্রাণে নিজের জীবনে গ্রহণ করে নেবে। সেই ঈমানের স্বাদ আস্বাদন করতে পারবে। -মাআরিফুল হাদিস : ১/৯১

ঈমানের মিষ্টতা
হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী কারিম (সা.) বলেছেন, তিনটি গুণ যার মধ্যে থাকবে সে ঈমানের মিষ্টতা অনুভব করবে। আল্লাহ ও তার রাসুল তার কাছে সবকিছু থেকে অধিক প্রিয় হওয়া, কাউকে ভালোবাসলে শুধু আল্লাহরই জন্য ভালোবাসা, আর কুফুরিতে ফিরে যাওয়াকে এমন ঘৃণা করা, যেমন সে ঘৃণা করে আগুনে নিক্ষিপ্ত হওয়াকে। -সহিহ বোখারি : ১৬

এই হাদিসের বিষয়বস্তুও আগের হাদিসের বিষয়বস্তুর প্রায় কাছাকাছি। উপস্থাপনায় কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। এই হাদিসে বলা হচ্ছে, ঈমানের মিষ্টতা ওই ব্যক্তিই অনুভব করতে পারবে, যে আল্লাহ ও তার রাসুলের ভালোবাসায় পরিপূর্ণ সমর্পিত থাকবে; আল্লাহ ও তার রাসুলকে জগতের সবকিছু থেকে বেশি ভালোবাসবে। অন্য কারও প্রতি যদি তার ভালোবাসা হয়, তা হবে সম্পূর্ণ এই ভালোবাসার অধীন। আর ইসলাম তার এতই প্রিয় যে, ইসলাম থেকে ফিরে যাওয়া, কুফুরিতে লিপ্ত হওয়া তার কাছে আগুনে নিক্ষিপ্ত হওয়ার সমতুল্য। -মাআরিফুল হাদিস : ১/৯১

;

মসজিদ নির্মাণ করবে দাউদ কিম

কোরিয়ার প্রতিটি গলি থেকে ভেসে আসবে আজানের সুর



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জমি কেনার দলিল হাতে দাউদ কিম, ছবি : সংগৃহীত

জমি কেনার দলিল হাতে দাউদ কিম, ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কয়েক বছর আগে ইসলাম ধর্ম গ্রহণকারী দক্ষিণ কোরিয়ান ইউটিউবার দাউদ কিম মসজিদ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন। এরই মধ্যে মসজিদের জন্য জমিও কিনেছেন তিনি। ইনস্টাগ্রামে ওই জমি ও তার দলিলের ছবি শেয়ার করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিক এই নওমুসলিম। তিনি দেশটির ইঞ্চোন শহরে মসজিদটি নির্মাণ করবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন।

ইনস্টাগ্রামে কিম লিখেছেন, ‘অবশেষে আপনাদের সাহায্যে আমি ইঞ্চোনে মসজিদ নির্মাণের জন্য জমি ক্রয়ের চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছি। খুব শিগগিরই জায়গাটিতে মসজিদ নির্মিত হবে। আমি বিশ্বাস করতে পারছি না আমার এই স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে।’

ওই পোস্টে তিনি আরও লেখেন, ‘ওই জমিতে মসজিদের পাশাপাশি একটি ইসলামিক পডকাস্ট স্টুডিও তৈরির ইচ্ছা আমার। সত্যি এটি একটি দুঃসাহসিক পদক্ষেপ, এতে বহু সমস্যার সম্মুখীন হওয়া লাগতে পারে। তবে আমার বিশ্বাস- আমি এগুলো সম্পন্ন করতে সক্ষম হব।’

দাউদ কিম আশাবাদ ব্যক্ত করে লিখেছেন যে, ‘এমন একটি দিন আসবে, যেদিন কোরিয়ার প্রতিটি গলি আজানের সুমধুর ধ্বনিতে ভরে উঠবে। এ জন্য আমি চেষ্টা করে যাচ্ছি।’

কিম ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ইসলাম গ্রহণের ঘোষণা দেন। এরপর ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোতে তিনি সারাবিশ্বে বিখ্যাত বনে যান। জনপ্রিয় এই ইউটিউবার তার নিয়মিত ব্লগে ইসলামিক বিভিন্ন কনটেন্ট, নামাজ পড়ার ভিডিওসহ নানা কিছুই পোস্ট করে থাকেন। ২০২২ সালে কিম বাংলাদেশ ভ্রমণ করেন। বাংলাদেশ ঘুরে তিনি পবিত্র উমরা পালন করতে সৌদি আরব যান।

দক্ষিণ কোরিয়ার এই গায়ক ইউটিউবিং করতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়ান। ঘুরতে ঘুরতে তিনি ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া ও তিউনিশিয়া যান। দেশগুলোতে গিয়ে ইসলাম ধর্মকে কাছ থেকে দেখে ও বুঝে তিনি আকৃষ্ট হন। ইসলামের জীবনবিধান দেখে তিনি অনুপ্রাণিত হন। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে পুরোপুরি মুসলমান হয়ে যান।

দক্ষিণ কোরিয়া উত্তর-পূর্ব এশিয়ার একটি দেশ। যা কোরিয় উপদ্বীপের দক্ষিণ অংশ নিয়ে গঠিত। সিউল দক্ষিণ কোরিয়ার বৃহত্তম শহর ও রাজধানী। সিউল বিশ্বের শীর্ষ ১০টি ধনী শহরের তালিকায় থাকা একটি শহর।

দক্ষিণ কোরিয়ায় ইসলামের উপস্থিতি খুবই সামান্য। ২০০৫ সালেও দেশটির আদমশুমারিতে মুসলিমদের কোনো বিভাগের সদস্য হিসেবে ধরা হত না। বর্তমানে দেশটিতে ২ লাখ মুসলিম রয়েছে, যাদের বেশিরভাগ বিভিন্ন মুসলিম প্রধান দেশ থেকে আসা অভিবাসী এবং কিছু ধর্মান্তরিত বাসিন্দা। দেশটিতে ২১টি মসজিদ, ১৩টি ইসলামিক সেন্টার ও ১৪০টির মতো নামাজের স্থান রয়েছে।

১৯৬৯ সালে কোরিয়ান সরকার প্রদত্ত জমিতে গড়ে ওঠে সিউল কেন্দ্রীয় মসজিদ ও ইসলামিক সেন্টার। সিউল সেন্ট্রাল মসজিদ দক্ষিণ কোরিয়ার প্রথম মসজিদ। যা হেনামডং সিউলে অবস্থিত। মসজিদটি ইতিমধ্যে বিশ্বের অনন্য সুন্দর মসজিদ হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছে।

;

তীব্র গরম মুমিনকে যা শিক্ষা দেয়



মাওলানা ফখরুল ইসলাম, অতিথি লেখক, ইসলাম
গরম থেকে বাঁচতে ফুটপাতের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাথায় পানি দিচ্ছেন, ছবি : রাজু আহমেদ

গরম থেকে বাঁচতে ফুটপাতের এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মাথায় পানি দিচ্ছেন, ছবি : রাজু আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশে এখন চলছে গ্রীষ্মকাল। ফলে তীব্র গরম অনুভূত হচ্ছে। বস্তুত শীত, গরম, রোদ, বৃষ্টি সবই আল্লাহর দেওয়া। তীব্র শীত আর প্রচণ্ড গরমে রয়েছে মুমিনে জন্য শিক্ষা। জনজীবন অতিষ্ট হওয়া গরম আমাদেরকে স্মরণ করিয়ে দেয় সৃষ্টিকর্তা আল্লাহর আজাবের কথা। তাই তীব্র তাপদাহের সময় দয়াময় আল্লাহতায়ালার কাছে বেশি বেশি তওবা-ইস্তেগফার করা জরুরি।

পৃথিবীতে ইসলামই একমাত্র ধর্ম, যেখানে মানবতার কল্যাণ সাধনকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হয়। ফলে তীব্র গরমের সময় ইবাদত-বন্দেগি সহজ করেছে ইসলাম। হজরত আবু জার (রা.) বলেন, এক সফরে আমরা আল্লাহর রাসুল (সা.)-এর সঙ্গে ছিলাম।
এক সময় মোয়াজ্জিন জোহরের আজান দিতে চেয়েছিল। তখন নবী কারিম (সা.) বলেন, গরম কমতে দাও। কিছুক্ষণ পর আবার মোয়াজ্জিন আজান দিতে চাইলে নবী কারিম (সা.) পুনরায় বলেন, গরম কমতে দাও।
এভাবে তিনি (নামাজ আদায়ে) এত বিলম্ব করলেন যে, আমরা টিলাগুলোর ছায়া দেখতে পেলাম।
এরপর নবী কারিম (সা.) বলেন, গরমের প্রচণ্ডতা জাহান্নামের উত্তাপ হতে। কাজেই গরম প্রচণ্ড হলে উত্তাপ কমার পর নামাজ আদায় করো। -সহিহ বোখারি : ৫৩৯
বর্ণিত হাদিসের আলোকে বিধান হলো, অতীব গরমের সময় কিছুটা বিলম্ব করে জোহরের নামাজ আদায় করা সুন্নত।

গরমের সময় এমন কিছু আমল রয়েছে, যেগুলোর সওয়াব অনেক। একজন মুমিন সেসব আমল করে সহজেই আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করতে পারেন। ওই সব আমলের কয়েকটি হলো-

নফল রোজা
গরমের রোজা শীতের থেকে বেশি কষ্টকর। গরমের কষ্ট উপেক্ষা করে যদি নফল রোজা রাখা যায়, তাহলে আল্লাহতায়ালা বেশি নেকি দেবেন। সাহাবায়ে কেরাম ও পূর্ববর্তী বুজুর্গরা বেশি সওয়াবের আশায় গরমকালে রোজা রাখতেন।

পিপাসার্তকে পানি পান করানো
পিপাসার্তকে পানি পান করানো একটি উত্তম কাজ। আর যদি প্রচণ্ড গরমে কাউকে ঠাণ্ডা পানি পান করানো হয়, তাহলে তো কাজটি আরও উত্তম হবে। এক ব্যক্তি হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে প্রশ্ন করলেন, ‘কোন দান উত্তম? তিনি বললেন, ‘পানি পান করানো।’ -সুনানে নাসাই : ৫৪৫৬
ইমাম কুরতুবি (রহ.) বলেন, ‘তৃষ্ণার্তের তৃষ্ণা নিবারণ সর্বোত্তম মহৎ কাজের একটি।’
হাদিসের অন্য এক বর্ণনায় এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘সদকা বা দান জাহান্নামের আগুন নির্বাপণ করে। আর পানি পান করানো উত্তম সদকা।’ -সুনানে আবু দাউদ : ৭৪৩৫

নফল নামাজ
অতিরিক্ত গরম হলো- জাহান্নামের নিশ্বাস, তাই জাহান্নামের ভয়ে বেশি করে এবং লম্বা লম্বা সুরা দিয়ে নফল নামাজ আদায় করা উত্তম। হাদিসে এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘যখন গরম বেশি পড়বে, তখন বেশি নামাজ আদায় করো। কারণ অতিরিক্ত গরম হলো- জাহান্নামের নিশ্বাস।’ -মেশকাত : ৫৯১

গরম থেকে শিক্ষা
গরমের তীব্রতা থেকে মুমিনের জন্য রয়েছে শিক্ষা। কেননা জাহান্নামের আগুনের উত্তাপ পৃথিবীর আগুনের চেয়ে ৭০ গুণ বেশি। তাই এ গরম থেকে জাহান্নামের তীব্রতা অনুমান করে গোনাহ থেকে মুক্ত থাকা। হাদিসে এসেছে, হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘জাহান্নাম তার প্রতিপালকের কাছে এ বলে নালিশ করেছিল, হে আমার প্রতিপালক! (দহনের প্রচণ্ডতায়) আমার এক অংশ আরেক অংশকে গ্রাস করে ফেলছে। ফলে আল্লাহ তাকে দুইটি শ্বাস ফেলার অনুমতি দেন। একটি শীতকালে অপরটি গ্রীষ্মকালে। আর তাই তোমরা গ্রীষ্মকালে প্রচণ্ড উত্তাপ এবং শীতকালে তীব্র ঠাণ্ডা অনুভব করো।’ -সহিহ বোখারি : ৫৪৫৫

গ্রীষ্মকালকে গালমন্দ না করা
আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করার অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে, গরিবদের মাঝে সুমিষ্ট ফল বিতরণ করা। ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য করা। ঘামে ভেজা শরীরে জনসমাগমে গমন না করা। গরমের সময় প্রবাহিত ঘামের গন্ধ যেন অন্যের কষ্টের কারণ না হয়, সেদিকে দৃষ্টি রাখা। গ্রীষ্মকালকে গালমন্দ না করা বিষয়টিও খেয়াল রাখার নির্দেশ দেয় ইসলাম।

বৃষ্টির জন্য নামাজ
প্রচণ্ড গরমে একপশলা বৃষ্টির জন্য মুমিনরা আল্লাহর রহমতের প্রত্যাশী। শস্য ফলানোসহ পশুপাখির খাবারের জন্য যেমন বৃষ্টি দরকার, তেমনি তীব্র তাপদাহে সৃষ্ট নানা জটিলতা ও কষ্ট থেকে মুক্তি পেতেও আল্লাহর রহমতের বৃষ্টি খুব প্রয়োজন। এমন পরিস্থিতিতে দয়াময় আল্লাহতায়ালার দরবারে বৃষ্টি কামনা করে নামাজ পড়া ও দোয়া করা সুন্নত। পরিভাষায় এই নামাজের নাম ‘ইসতিসকা’ বা বৃষ্টির নামাজ।

ইসলামের শিক্ষা হলো- সর্বাবস্থায় বান্দা আল্লাহর প্রতি কৃতজ্ঞতা আদায় করবে। প্রচণ্ড গরমের সময়ও এর ব্যতিক্রম নয়। তীব্র তাপদাহের সময় মানুষের উচিৎ জাহান্নামের গরমের কথা স্মরণ করা। জাহান্নাম থেকে বাঁচতে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের লক্ষে আত্মনিয়োগ করা।

একটু শান্তির জন্য দুনিয়ার জীবনে গরমের কষ্ট ও তীব্রতা থেকে বাঁচার জন্য যদি আমরা সম্ভবপর সব উপায় অবলম্বন করতে পারি, তাহলে আখেরাতের আজাব ও ভয়াবহতা থেকে বাঁচার জন্য আমলদার এবং সাধনাকারী হওয়া জরুরি।

;

৪০ বছর ধরে মদিনায় বিনামূল্যে চা-কফি খাওয়ানো বৃদ্ধের মৃত্যু



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
চা-কফি নিয়ে বসে আছেন শায়খ ইসমাইল আল-জাইম আবু আল-সাবা, ছবি : সংগৃহীত

চা-কফি নিয়ে বসে আছেন শায়খ ইসমাইল আল-জাইম আবু আল-সাবা, ছবি : সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র মদিনা জিয়ারতকারীদের অনেকের কাছে পরিচিত নাম শায়খ ইসমাইল আল-জাইম আবু আল-সাবা। গত ৪০ বছর ধরে তিনি পবিত্র হজ-উমরা পালনকারীদের মাঝে বিনামূল্যে চা, কফি, রুটি ও খেজুর বিতরণ করেছেন। অনেক বাংলাদেশি হাজি তার হাতে চা-কফি পান করেছেন।

সদাহাস্য সিরিয়ান এই নাগরিক মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) ৯৬ বছর বয়সে মদিনায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে হারামাইনের খবর সরবরাহকারী ভেরিফায়েড পেইজ ‘ইনসাইড দ্য হারামাইন’ এই খবর জানিয়ে তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে।

জানা যায়, প্রতিদিন ৪০টি ফ্লাস্কে করে চা-কফি আনতেন তিনি। এ জন্য একটি বিশেষ ট্রলি ব্যবহার করতেন, মসজিদে নববিতে যাওয়া অন্যতম পথ জায়েদিয়া এলাকায় বসতেন তিনি। সবুজ চা, লাল চাসহ নানা স্বাদের চা বানিয়ে আনতেন। থাকত চিনিযুক্ত, চিনিমুক্ত চা-কফি। এছাড়া এলাচযুক্ত চা, পুদিনা চা, বিভিন্নরকমের মশলাযুক্ত চা আনতেন।

তিনি রাস্তার পাশে বসে পথচারীদের মধ্যে চা, কফি, খেজুর, রুটি ও বিস্কুট বিনামূল্যে বিতরণ করতেন। এই কাজে তাকে সহযোগিতা করতেন ছেলেরা। কেউ কিছু দিতে চাইলে বিনয়ের সঙ্গে প্রত্যাখান করতেন।

গত বছর সৌদি আরবের প্রভাবশালী পত্রিকা আল আরাবিয়া তাকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

সিরিয়ার নাগরিক শায়খ ইসমাইল প্রায় ৪০ বছর ধরে মদিনায় বসবাস করে আসছিলেন। মদিনার কুবা এভিনিউতে একটি সাধারণ বাড়িতে বসবাস করলেও নিজের সম্পদ পুরোটাই উৎসর্গ করেছিলেন হজ ও উমরা যাত্রীদের খেদমতে।

টানা চার দশক ধরে অনন্য এই সেবার কারণে সবার কাছে তিনি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসার পাত্রে পরিণত হন। তার মৃত্যুতে মদিনায় শোকের ছায়া নেমে আসে। বাংলাদেশের অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্মৃতিচারণের পাশাপাশি শোকপ্রকাশ করে তার জন্য দোয়া কামনা করেছেন।

;