লোক দেখানো কোরবানি নয়



মাওলানা ফখরুল ইসলাম, অতিথি লেখক, ইসলাম
কোরবানি হোক একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর জন্য, ছবি: সংগৃহীত

কোরবানি হোক একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর জন্য, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

কোরবানি ইসলামের গুরুত্বপূর্ণ বিধান ও মহিমান্বিত ইবাদত। ত্যাগ, নিষ্ঠা, প্রেম ও ভালোবাসার স্মারক। শর্তহীন আনুগত্যের আলোকবর্তিকা, অনুপম আদর্শ। সামর্থ্যবান মুমিন বান্দারা আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভের জন্য শরিয়ত নির্দেশিত পন্থায় তাদের কোরবানির পশু দয়াময় আল্লাহর নামে জবেহ করবে এবং মহান প্রভুর উন্মুক্ত আপ্যায়ন গ্রহণের সৌভাগ্য অর্জন করবে।

তাওহিদের ধর্ম ইসলাম। কোনো একটি আমল মহান মালিকের দরবারে কবুল হওয়ার জন্য প্রথম শর্ত, ইখলাসের (একনিষ্ঠতার) সঙ্গে হওয়া এবং শিরকমুক্ত হওয়া। ইরশাদ হয়েছে, ‘সুতরাং যে কেউ নিজ রবের সঙ্গে মিলিত হওয়ার আশা রাখে, সে যেন সৎকর্ম করে এবং নিজ প্রতিপালকের ইবাদতে অন্য কাউকে শরিক না করে।’ -সুরা কাহাফ : ১১০

শিরকের রয়েছে নানান রূপ এবং প্রকৃতি। রিয়া বা লোক দেখানোও এক প্রকার শিরক, যাকে ‘শিরকে আসগর’ বা ছোট শিরক বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। এমন আরও অনেক ছোট ছোট শিরক মিশে আছে আমাদের বিভিন্ন আচরণ-উচ্চারণে। মুমিনের দায়িত্ব, হক্কানি আলেমদের থেকে এ সব শিরকের বিষয়ে সঠিক জ্ঞান অর্জন করা এবং সেগুলো থেকে বেঁচে থাকা।

কোরবানির ক্ষেত্রে ইখলাসের বিষয়টি আরও উজ্জ্বলভাবে প্রকাশিত। ইখলাসই যেন সব- কোরবানির আমলের ক্ষেত্রে। ইখলাস নেই, কোরবানি নেই। কোরবানি সংক্রান্ত এ আয়াত যেন এ আমলের ক্ষেত্রে আমাদের ইখলাসকে জাগ্রত করার জন্যই, ‘আল্লাহর নিকট এদের (কোরবানির পশুর) গোশত এবং রক্তের কিছুই পৌঁছে না, কিন্তু তার নিকট পৌঁছে তোমাদের তাকওয়া।’ -সুরা হজ : ৩৭

ইবাদতের আরেক বৈশিষ্ট্য ইহসান। সদা-সর্বদা আল্লাহর জিকির ও স্মরণ হৃদয়ে জাগ্রত থাকা। হাদিসের ভাষায়, ‘আল্লাহর ইবাদত এমনভাবে করা, যেন তুমি তাকে দেখতে পাচ্ছ। তা যদি সম্ভব না হয়, তো এতটুকু অনুভূতি হৃদয়ে অবশ্যই জাগ্রত রাখ যে, আল্লাহ তোমাকে দেখছেন।’ -সহিহ বোখারি : ৫০

মুমিনের ইবাদত আল্লাহর দরবারে গৃহীত হওয়ার আরেকটি শর্ত, ইবাদতটি সুন্নাহসম্মত পন্থায় হওয়া। হজরত রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যে ইবাদত যে পদ্ধতিতে আদায় করেছেন এবং সাহাবিদের শিখিয়েছেন সেই পদ্ধতিতেই ইবাদতটি সম্পন্ন হওয়া।

মোটকথা, ইখলাস, ইহসান ও সুন্নাহসম্মত ইবাদতই কেবল প্রাণবন্ত ইবাদত। বলাবাহুল্য, ইবাদতের উপরোক্ত শর্ত এবং বৈশিষ্ট্যসমূহ কোরবানির আমলে সর্বোচ্চ পর্যায়ে কাম্য।

আফসোস, বর্তমানে এই কোরবানিকে ঘিরে ইখলাস ও ইহসান পরিপন্থী, রিয়া ও লৌকিকতাসূলভ নানান জিনিসের বিস্তার ঘটছে সমাজে। একসময় ছিল, কেবল পশুর গলায় সুন্দর সুন্দর মালা পরানো হত এবং লোকের ঈর্ষাকাতর দৃষ্টি কামনা করা হত। তারপর আরেকটু অগ্রসর হলো- নামি-দামি হাঁটের সেরা পশুটি কিনে প্রিন্ট কিংবা ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় ঢাকঢোল পেটানো এবং লোকের ‘বাহবা’ কুড়ানো! এখন অবস্থা আরও শোচনীয়, পশুকে স্পর্শ করে তার ছবি, ভিডিও কিংবা সেলফি তোলা এবং সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করা। এমনকি নিরীহ পশুটির একদম কাঁধে চড়ে ছবি তোলার মতো অমানবিক দৃশ্যও নজরে পড়ে! আরও দুঃখজনক বিষয় হলো, পশু জবাইয়ের সময় আনন্দ-উল্লাসে মেতে ওঠা এবং জবাইয়ের ছবি-ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার করা! যা কখনও কখনও অমুসলিমদের জন্য ভুল বুঝাবুঝিরও কারণ হতে পারে।

আমাদের ভেবে দেখা উচিত, এসব আচরণের দ্বারা নিজের ইবাদত-বন্দেগিটা বিনোদনে পরিণত করা হয়ে গেল কি না? বা ইবাদতটা হাস্যরস ও ক্রীড়া-কৌতুকে পর্যবসিত হয়ে গেল কি না? অথচ পবিত্র কোরআন ইবাদতকে বিনোদনে পরিণত করা কাফের এবং জাহান্নামীদের স্বভাব বলে চিহ্নিত করেছে। কোরআনে কারিমের ভাষায়, ‘যারা নিজেদের দ্বীনকে তামাশা এবং ক্রীড়া-কৌতুকরূপে গ্রহণ করেছিল এবং পার্থিব জীবন ওদের ধোঁকায় ফেলেছিল। সুতরাং আজ আমি তাদেরকে ভুলে যাব যেভাবে তারা এই দিনের সাক্ষাৎকে ভুলে গিয়েছিল।’ -সুরা আরাফ : ৫১

কাজেই মুমিনের জন্য কখনও সমীচীন নয়- ইবাদতকে বিনোদন ও খেল-তামাশার বস্তুতে পরিণত করা।

সত্য কথা হলো, সেলফি তোলা, ভিডিও করা, কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করা ইত্যাদি- এর মাধ্যমে ইবাদতের মূল আবেদনটাই ক্ষুণ্ণ হয়ে যায়। এটা বোঝার জন্য খুব বেশি বোধ-বুদ্ধির প্রয়োজন হয় না।

আলেমরা বলেন, কোরবানির পশু জবাইয়ের ছবি নয়, হৃদয়ে জাগ্রত হোক পিতা-পুত্রের ত্যাগ ও সমর্পণের ছবি! কারণ, কোরবানি-হজ এগুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও সংবেদনশীল ইবাদত। যদিও আজ আত্মপ্রচার প্রবণতার উন্মাদনা থেকে হজ ও কোরবানির মতো ইবাদতগুলো রক্ষা পাচ্ছে না!

আমরা যদি একটি বারের জন্যও ভেবে দেখি, এতে আমার হজ-কোরবানির মতো গুরুত্বপূর্ণ আমল ইখলাস ও তাকওয়াশূন্য হয়ে পড়ছে না তো? একথা তো সবারই জানা, কোরবানির এ সুন্দর সুঠাম পশুর রক্ত-গোশত কিছুই আল্লাহর কাছে পৌঁছবে না; পৌছবে কেবল আমাদের নেক নিয়ত ও অন্তরের তাকওয়া। হাদিসেও এ মর্ম বর্ণিত হয়েছে, ‘নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের চেহারা-আকৃতি ও সম্পদের দিকে তাকান না। তিনি তাকান তোমাদের অন্তর ও আমলের দিকে। -সহিহ মুসলিম : ২৫৬৪

লোকের ‘বাহবা’ কুড়ানোর মানসিকতা ইখলাস ও তাকওয়া পরিপন্থী কাজ। আমাদের সবকিছু তো আল্লাহর জন্য; মানুষের বাহবা দিয়ে আমাদের কী লাভ! শুনুন কোরআন মাজিদের ঐশী বাণীতে মুমিনের ভাষ্য, ‘নিশ্চয় আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন ও মরণ আল্লাহরই জন্য। যিনি জগৎসমূহের প্রতিপালক।’ -সুরা আনআম : ১৬২

কোরবানির পশু জবাইয়ের সময় দোয়া হিসেবে ওপরের বাক্যগুলো আমরা উচ্চারণ করি। অথচ এর শিক্ষা ও মর্ম থেকে আমরা অনেকেই গাফেল থাকি।

শেষ কথা, মুসলিমের কোনো আমলই আচারসর্বস্ব নয়। কোরবানিও তেমন নিছক আচার-অনুষ্ঠান নির্ভর কোনো আমল নয়। এতে রয়েছে তাওহিদ ও আল্লাহর বড়ত্ব-মহত্বের প্রকাশ। তার স্মরণ ও আনুগত্যের শিক্ষা, সর্বোচ্চ সমর্পণের দীক্ষা। মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম কীভাবে আল্লাহর হুকুমের সামনে নিঃশর্ত আনুগত্যের নজরানা পেশ করেছেন! কীভাবে ছোট্ট শিশু ইসমাইল মহান প্রভুর নির্দেশের সামনে মাথা পেতে দিয়েছেন! কীভাবে মহান শিশু-নবীর পরিবর্তে জান্নাতি পশু কোরবানি হলো! এসব কার কারিশমা? আমরা যদি কোরবানির সময় নবীদ্বয়ের স্মৃতিচারণ করি। পিতা-পুত্রের সেই ত্যাগ ও সমর্পণের শিক্ষা অন্তরে জাগ্রত করি, ছবি-সেলফি নিয়ে ব্যস্ত না হয়ে যদি আমরা মহান আল্লাহর প্রতি মনোনিবেশ করি এবং মনে মনে দোয়ায় মগ্ন থাকি তাহলে আশা করা যায়, আল্লাহতায়ালা আমাদের কোরবানি কবুল করবেন। সুতরাং পশু জবাইয়ের ছবি নয়, হৃদয়ে জাগ্রত হোক পিতা-পুত্রের ত্যাগ ও সমর্পণের ছবি!

সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ডের নির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশের নির্বাহী কমিটির ৬৭তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে, ছবি: সংগৃহীত

সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশের নির্বাহী কমিটির ৬৭তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সেন্ট্রাল শরীয়াহ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস্ অব বাংলাদেশের নির্বাহী কমিটির ৬৭তম সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (১৪ জুলাই) সকাল ১১টায় স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক পিএলসির প্রধান কার্যালয়ের বোর্ডরুমে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় সদস্য হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- সেন্ট্রাল শরীয়াহ্ বোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন তালুকদার, বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ড. মো. আনোয়ার হোসাইন মোল্লা, সোনালী ব্যাংক পিএলসির শরীয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আব্দুর রশীদ, অগ্রণী ব্যাংক পিএলসি ও দি প্রিমিয়ার ব্যাংক পিএলসির শরীয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির চেয়ারম্যান এবং ইউনিয়ন ব্যাংক পিএলসির শরীয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য সচিব মুফতি মোহাম্মদ মুহিব্বুল্লাহিল বাকী আন নদভি, ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ পিএলসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা, এক্সপোর্ট ইমপোর্ট ব্যাংক অব বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও মোহাম্মদ ফিরোজ হোসেন, শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক পিএলসির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এম সাইফুল ইসলাম এবং ব্যাংক এশিয়া লিমিটেডের শরীয়াহ সুপারভাইজরি কমিটির সদস্য সচিব মাওলানা শাহ্ মোহাম্মদ ওয়ালী উল্লাহ উপস্থিত ছিলেন।

সভা পরিচালনা করেন বোর্ডের নির্বাহী কমিটির সদস্য সচিব ও সেক্রেটারি জেনারেল মো. আবদুল্লাহ শরীফ।

সভায় বোর্ডের ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা ও আয়-ব্যয় বাজেট প্রণয়নসহ নীতি-নির্ধারণী বিভিন্ন বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

;

নেশাজাতীয় দ্রব্য পাচারে তিন হজ এজেন্সির অভিনব কৌশল



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
অভিযুক্ত তিন এজেন্সির মালিক (বা থেকে) বাবা মো. আব্দুস সাত্তার চাকলাদার, ছেলে মোহাম্মদ আব্দুস সালাম সনি ও হাফেজ কাওছার আহমাদ, ছবি: বার্তা২৪.কম

অভিযুক্ত তিন এজেন্সির মালিক (বা থেকে) বাবা মো. আব্দুস সাত্তার চাকলাদার, ছেলে মোহাম্মদ আব্দুস সালাম সনি ও হাফেজ কাওছার আহমাদ, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র হজ শেষ হয়েছে। ধীরে ধীরে দেশে ফিরছেন হাজিরা। তীব্র দাবদাহের দরুণ এবার হজে অনেক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ঘটনা ছাপিয়ে বাংলাদেশের হজ কার্যক্রমে এক এজেন্সির মালিককে নিষিদ্ধ করার প্রতিবাদে মক্কাস্থ হজ মিশনের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন, কয়েকটি এজেন্সির বিরুদ্ধে নেশাজাতীয় দ্রব্য পাচারের অভিযোগ এবং নানা অনিয়ম, গাফিলতির মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে বাংলাদেশের হজ কার্যক্রম।

এসব ঘটনায় নড়েচড়ে বসছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যে লাইসেন্স বাতিলের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে অভিযুক্ত হজ এজেন্সিগুলোর।

রোববার (১৪ জুলাই) ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ অনুবিভাগের সহকারী সচিব মো. তফিকুল ইসলাম খিদমাহ ওভারসীজ, জিলহজ্ব ট্রাভেলস ও আত-তাবলীগ হজ সার্ভিসের বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেন। নোটিশে ৩০ জুলাইয়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট অভিযোগের বিষয়ে ব্যাখ্যা প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যথায় হজ লাইসেন্স বাতিলসহ তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানানো হয়।

জানা গেছে, ২০২৪ সনের হজ মৌসুমে খিদমাহ ওভারসীজ (হজ লাইসেন্স নং ১৪০১) নিবন্ধিত ১৪১ জন হজযাত্রীর সঙ্গে সমন্বয়কারী এজেন্সি হিসেবে ৫৬ জন হজযাত্রী নিয়ে জিলহজ্ব ট্রাভেলস (হজ লাইসেন্স নং ০৩২১), ৫৪ জন হজযাত্রী নিয়ে আত-তাবলীগ হজ সার্ভিস (হজ লাইসেন্স নং ১৩৪২) এবং ৪০ জন হজযাত্রী নিয়ে আল-তাকওয়া হজ কাফেলা ট্যুরস এন্ড ট্রাভেলস (হজ লাইসেন্স নং ০৬৭৬) হজ কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে। হজ কার্যক্রম শুরুর পর থেকেই এসব এজেন্সি হজযাত্রী রিপ্লেসমেন্ট নিয়ে নানা টালবাহানা শুরু করে। ২০ শতাংশ রিপ্লেসমেন্ট পাওয়ার পর আরও রিপ্লেসমেন্টের জন্য দেন-দরবার অব্যাহত রাখে। রিপ্লেসমেন্টের জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট নিবন্ধনকারী হজযাত্রীদের উপস্থিত করাতে বললে, সেটাও তারা করতে পারেনি। একপর্যায়ে হাইকোর্টে রিট করে হজযাত্রীদের হজে যাওয়ার ব্যবস্থা করে।

হজযাত্রীদের সৌদি আরব গমনের শেষ পর্যায়ে অর্থাৎ ১১ জুন ভোর ৫টা ৫৫ মিনিটের একটি ফ্লাইটে লিড এজেন্সি খিদমাহ ওভারসীজের ১৯৫ জন হজযাত্রীর মধ্যে ওই এজেন্সির ১১১ জন, সমন্বয়কারী এজেন্সি জিলহজ্ব ট্রাভেলসের ৩৪ জন এবং আত-তাবলীগ হজ সার্ভিসের ৩৭ জন নিবন্ধিত হজযাত্রী ছিলেন।

খিদমাহ ওভারসীজের হজযাত্রীদের চেক ইন চলাকালে তামাক পাতা, জর্দা ও বিড়িসহ একটি লাগেজ সনাক্ত হয়। নেশা জাতীয় সামগ্রীসহ লাগেজ সনাক্ত হওয়ার পর খিদমাহ ওভারসীজের মোনাজ্জেম মুহাম্মদ আবদুস সালাম সনি, জিলহজ ট্রাভেলসের মালিক মো. আবদুস সাত্তার এবং গ্রুপ লিডার মো. বাবুল মিয়া সনাক্তকৃত ওই লাগেজসহ আরও ৩০টি লাগেজ নিয়ে হজক্যাম্প ত্যাগের চেষ্টা করলে ক্যাম্পের মূল ফটকে বাংলাদেশ স্কাউটের সদস্য এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কর্তৃক লাগেজসমূহ জব্দ করা হয়।

ওই ৩০টি লাগেজের মধ্যে ২টি লাগেজের তালা ভেঙে তাতে বিপুল পরিমাণ তামাক পাতা, জর্দ্দা ও বিড়ি পাওয়া যায়। সেখানে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রুপ লিডার মো. বাবুল মিয়া জানান, ৩০টি লাগেজের সবগুলোতেই এমন জিনিস রয়েছে। বর্তমানে ওই লাগেজগুলো আশকোনা হজ অফিসে জব্দ অবস্থায় রয়েছে। এ ঘটনায় বিমানবন্দর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি নং ৭২৯) করা হয়েছে।

অবাক করার বিষয় হলো, ২টি লাগেজ ব্যতিত কোনো লাগেজেই হজযাত্রীর নামসহ কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। লাগেজগুলোর অভ্যন্তরে রক্ষিত অবৈধ পণ্য সামগ্রী হজযাত্রীর নয় বরং সংশ্লিষ্ট ৩টি এজেন্সির। যারা পরিকল্পিতভাবে এই অবৈধ কাজটি করতে চেয়েছিলেন। এ কারণে তারা পরিকল্পনা করে শুরু থেকেই হজযাত্রী রিপ্লেসমেন্ট নিয়ে নানা ধরনের তালবাহানা করতে থাকে।

তাদের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জিলহজ্ব ট্রাভেলসের মালিক মো. আব্দুস সাত্তার চাকলাদার। তার দুই ছেলে আত-তাবলীগ হজ সার্ভিসের মালিক মোহাম্মদ আব্দুস সালাম সনি ও খিদমাহ ওভারসীজের হাফেজ কাওছার আহমাদ। তারা জিলহজ গ্রুপ বাংলাদেশ নামে হজ ও উমরার কার্যক্রম পরিচালনা করেন। আগেও জেদ্দা বিমানবন্দরে তাদের লাগেজ থেকে বিপুল পরিমাণ জর্দা ও গুল উদ্ধার করা হয়।

সৌদি আরবগামী ফ্লাইটে তামাক পাতা, জর্দ্দা ও বিড়ি পরিবহনে সৌদি সরকারের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। জেদ্দা বিমানবন্দরে ইতোপূর্বে হজযাত্রীর লাগেজে তামাক পাতা-জর্দা ও গুল ধরা পড়লে সৌদি সরকারের হজ ও উমরা মন্ত্রণালয় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে লিখিতভাবে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানায়।

এমতাবস্থায় তামাক পাতা, জর্দা ও গুলভর্তি এসব লাগেজ সৌদি বিমানবন্দরে ধরা পড়লে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণ্ণ হতো এবং সৌদি আরব ও বাংলাদেশের মধ্যকার দ্বি-পাক্ষিক সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব পড়তো। এ ধরনের কার্যক্রম হজ এজেন্সির জন্য হজ ও উমরা ব্যবস্থাপনা আইন- ২০২১ এর পরিপন্থী।

উল্লেখিত এজেন্সিগুলোর এমন কাজ হজ ও উমরা ব্যবস্থাপনা আইন- ২০২১ এর ধারা ১২ (খ) (জ) (ঞ) এবং (ঢ) মোতাবেক অনিয়ম ও অসদাচরণ হিসেবে বিবেচিত। এগুলো ধারা ১৩ (১) ও (২) অনুসারে লিড এজেন্সিসহ সংশ্লিষ্ট সমন্বয়কারী দুই এজেন্সির হজ লাইসেন্স বাতিলযোগ্য।

এ ধরনের কাজকে গুরুতর অন্যায় উল্লেখ করে হজ পরিচালক মুহম্মদ কামরুজ্জামান (উপসচিব) বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘অভিযুক্ত এজেন্সিদের শোকজ করা হয়েছে, শোকজের উত্তর পেলে পরবর্তীতে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আইন আইন লঙ্ঘনকারীদের অবশ্যই শাস্তি পেতে হবে।’

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত হজ এজেন্সি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে একাধিকবার মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

;

আশুরার রোজা কবে রাখতে হবে



মুহাম্মদ ছফিউল্লাহ হাশেমী
আশুরার রোজা অত্যন্ত ফজিলতময়, ছবি: বার্তা২৪.কম

আশুরার রোজা অত্যন্ত ফজিলতময়, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ইসলামের প্রাথমিক যুগে আশুরার রোজা ফরজ ছিলো। হিজরি দ্বিতীয় সনে রমজানের রোজা ফরজের বিধান নাজিল হলে আশুরার রোজা নফল হিসেবে বিবেচিত হয়। আশুরা দিবসে রোজা পালনের জন্য হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘রমজানের পর সর্বাধিক উত্তম রোজা হলো- মহররম মাসের রোজা। আর ফরজের পরে সর্বাধিক উত্তম নামাজ হলো- তাহাজ্জুদের নামাজ।’ -সহিহ মুসলিম

উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, ‘জাহেলি যুগে কুরাইশরা আশুরার দিনে রোজা পালন করতো। হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামও সে সময় রোজা পালন করতেন। মদিনায় এসেও তিনি রোজা পালন করতেন এবং অন্যদেরও নির্দেশ দেন। রমজানের রোজার আদেশ নাজিল হলে আশুরার রোজা শিথিল করা হয়। এখন কেউ চাইলে তা পালন করুক, আর চাইলে তা বর্জন করুক।’ -সহিহ বোখারি

নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আরও বলেছেন, ‘রমজানের রোজার পর মহররম মাসের রোজা আল্লাহতায়ালার কাছে সবচেয়ে বেশি ফজিলতময়।’ -সহিহ বোখারি ও মুসলিম

এভাবে হাদিসের প্রায় সব কিতাবে মহররম মাসের ফজিলত এবং এ মাসের ১০ তারিখ আশুরার রোজা সম্পর্কে হজরত রাসুলে কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে বর্ণিত একাধিক হাদিস রয়েছে।

১০ মহররম আশুরার দিনে রোজার ফজিলত প্রসঙ্গে হজরত রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেছেন, ‘এ আশুরার দিন রোজা রাখার কারণে আল্লাহতায়ালা বান্দার বিগত এক বছরের গোনাহসমূহ মাফ করে দেন।’ -সহিহ মুসলিম

নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশনা অনুযায়ী আশুরার রোজা রাখার সময়টি ঘনিয়ে এসেছে। ১০ মহররম আশুরার দিন ঠিক রেখে আগের কিংবা পরের দিন মিলিয়ে ২ দিন রোজা রাখা উত্তম। সে হিসেবে এ বছর চাইলে ১৬-১৭ জুলাই মঙ্গলবার ও বুধবার রোজা রাখা যায়। আবার চাইলে ১৭-১৮ জুলাই বুধবার ও বৃহস্পতিবার রোজা রাখা যায়।

তবে আশুরার রোজার বিধান প্রসঙ্গে আলেমদের অভিমত হলো, কেউ যদি শুধু মহররম মাসের ১০ তারিখ রোজা রাখেন এবং এর আগে বা পরে একটি রোজা যোগ না করেন, তবে তা মাকরূহ নয়; বরং এতে মুস্তাহাব বিঘ্নিত হবে।

প্রকৃত সুন্নত হলো, আগের ৯ মহররম বা পরের দিনের সঙ্গে ১১ মহররম মিলিয়ে মোট ২ দিন রোজা রাখা। হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত। হজরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘তোমরা মহররমের নবম ও দশম দিবসে রোজা রাখো।’ -জামে তিরমিজি

তবে যে এ আশুরার দিন রোজা রাখতে পারল না, তার জন্য কোনো সমস্যা কিংবা আশাহত হওয়ার কিছু নেই। আবার কেউ যদি যদি মহররমের ৯, ১০ এবং ১১ তারিখ মোট ৩ দিন রোজা রাখেন তবে তা সর্বোত্তম হিসেবে গণ্য হবে। ইমাম ইবনুল কাইয়ুম (রহ.) এ মত উল্লেখ করেছেন।

আল্লাহতায়ালা মুসলিম উম্মাহকে আশুরার এ রোজা পালনের মাধ্যমে নবী কারিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নির্দেশ পালন করার তওফিক দান করুন। আমিন!

লেখক : আলেম, প্রাবন্ধিক ও কলেজ শিক্ষক

;

বরুনা মাদ্রাসার কৃতি ছাত্রদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ, ৪ জন যাবেন উমরায়



ইসলাম ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বক্তব্য রাখছেন বরুনা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শায়খ বদরুল আলম হামিদী, ছবি: সংগৃহীত

বক্তব্য রাখছেন বরুনা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শায়খ বদরুল আলম হামিদী, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বরেণ্য বুজুর্গ আল্লামা শায়খ লুৎফুর রহমান বর্ণভী রহমাতুল্লাহি আলাইহি কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলের বহুমুখী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জামেয়া লুৎফিয়া আনোয়ারুল উলুম হামিদনগর বরুণা মাদ্রাসার মেধাবী শিক্ষার্থীদের পুরস্কৃত করেছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

পুরস্কার হিসেবে বোর্ড পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান লাভ করায় ৪ জন পেয়েছেন পবিত্র উমরা পালনের সুযোগ। অন্য শিক্ষার্থীদের নগদ অর্থ ও কিতাব দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়।

বরুণা মাদ্রাসার মসজিদে আয়োজিত মেধাবৃত্তি ও পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক।

মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শায়খ বদরুল আলম হামিদীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মেধাবৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- সিলেটের কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড আযাদ দ্বীনী এদারার মহাসচিব মাওলানা আবদুল বছির, বানিয়াচং সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আব্দাল হোসেন খাঁন, সিলেট দরগাহ মাদ্রাসার নাজেমে তালিমাত মাওলানা আতাউল হক জালালাবাদী, বরুণা মাদ্রাসার নাজেমে তালিমাত হাফেজ মাওলানা ফখরুজ্জামান, শায়খুল হাদিস মাওলানা খায়রুল ইসলাম, মাওলানা সৈয়দ আতহার জাকওয়ান, মাওলানা রশিদ আহমদ হামিদী, মাওলানা সাইফুর রহমান, মাওলানা আব্দুল হাই উত্তরসুরী, মাওলানা হিলাল আহমদ ও মুফতি হিফযুর রহমান ফুয়াদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের বক্তারা ছাত্র পড়ালেখার মানোন্নয়নে এমন পদক্ষেপ নেওয়ায় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ বিশেষ করে মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা শায়খ বদরুল আলম হামিদীর প্রশংসা করেন।

অনুষ্ঠানে কওমি মাদ্রাসাগুলোর সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আল-হাইয়াতুল উলইয়া এবং কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়াসহ অন্যান্য বোর্ড পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান অর্জনকারী ও মুমতাজ (A+) শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

পুরস্কার হিসেবে ৪ জন পেয়েছেন পবিত্র উমরা পালনের সুযোগ। এছাড়া ১৩২জন শিক্ষার্থীর মাঝে ৩ লক্ষাধিক টাকা ও কিতাব পুরস্কার হিসেবে প্রদান করা হয়।

;