কোরবানি: ইসলামের বিধান, ধর্মীয় ঐতিহ্য, সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার



ড. মাহফুজ পারভেজ, অ্যাসোসিয়েট এডিটর, বার্তা২৪.কম
কোরবানি মুসলমানদের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট বিধান, ছবি: সংগৃহীত

কোরবানি মুসলমানদের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট বিধান, ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

‘কিন্তু মনে রেখো কোরবানির গোশত বা রক্ত আল্লাহর কাছে পৌঁছায় না, আল্লাহর কাছে পৌঁছায় শুধু তোমাদের নিষ্ঠাপূর্ণ আল্লাহ সচেতনতা। এই লক্ষ্যেই কোরবানির পশুগুলোকে তোমাদের অধীন করে দেওয়া হয়েছে। অতএব আল্লাহ তোমাদের সৎপথ প্রদর্শনের মাধ্যমে যে কল্যাণ দিয়েছেন, সেজন্যে তোমরা আল্লাহর মহিমা ঘোষণা করো। হে নবী! আপনি সৎকর্মশীলদের সুসংবাদ দিন যে, আল্লাহ বিশ্বাসীদের রক্ষা করবেন। নিশ্চয়ই আল্লাহ কোনো বিশ্বাসঘাতক, অকৃতজ্ঞকে পছন্দ করেন না।’ -সূরা হজ: ৩৭-৩৮

কোরবানি ইসলামের বিধান, ধর্মীয় ঐতিহ্য ও সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার। কোরবান বা আদ্বহা বা আজহাকে ইসলামি বিধান হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে, যা পবিত্র ঈদুল আজহার উৎসবকালে আল্লাহতায়ালার জন্য পশু উৎসর্গের মাধ্যমে প্রতিপালন করতে হয়। আরবিতে যার অর্থ, ‘কারও নিকটবর্তী হওয়া।’

পবিত্র কোরআনে একাধিক জায়গায় কোরবানির উল্লেখ আছে। যার মধ্যে পশু কোরবানি এবং অন্য সাধারণ ভাবনার বা কাজের কথাও বলা হয়েছে, যা দ্বারা আল্লাহর নিকটবর্তী হওয়া যায়।

ইসলামে কোরবানির ইতিহাস বেশ প্রাচীন। পবিত্র কোরআনে হাবিল এবং কাবিলের ঘটনার উল্লেখ পাওয়া যায়, যাতে হাবিল প্রথম মানুষ যিনি আল্লাহর জন্য একটি পশু কোরবানি করেন। ধর্মীয় বিবরণ অনুযায়ী, হাবিল একটি ভেড়া এবং তার ভাই কাবিল তার ফসলের কিছু অংশ স্রষ্টার উদ্দেশ্যে নিবেদন করেন।

তৎকালে আল্লাহর নির্ধারিত শরিয়ত বা পদ্ধতি ছিল এই যে, আগুন আকাশ থেকে নেমে আসবে এবং গ্রহণযোগ্য কোরবানি কবুল বা গ্রহণ করবে। তদনুসারে, আকাশ থেকে আগুন নেমে আসে এবং নেককার হাবিলের জবেহকৃত পশুটির কোরবানি গ্রহণ করে। অন্যদিকে কাবিলের ফসলস্বরূপ প্রদত্ত কোরবানি প্রত্যাখ্যাত হয়।

কাবিল এই ঘটনায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তার ভাই হাবিলকে হত্যা করে, যা মানব ইতিহাসের প্রথম হত্যাকাণ্ডরূপে পরিচিত। কাবিল তার কৃতকর্মের জন্যে অনুতপ্ত না হওয়ায় আল্লাহ তাকে ক্ষমা করেননি। পবিত্র কোরআনে ঘটনাটির বিস্তারিত বিবরণ মানবজাতির জন্য উপদেশ আকারে উপস্থাপিত হয়েছে।

পরবর্তীতে আল্লাহতায়ালা ইসলামের নবী ও রাসূল, মুসলিম জাতির পিতা, হজরত ইবরাহিম আলাইহি ওয়াসাল্লামকে স্বপ্নযোগে তার সবচেয়ে প্রিয় বস্তুটি কোরবানি করার নির্দেশ দেন। ‘তুমি তোমার প্রিয় বস্তু আল্লাহর নামে কোরবানি করো,’ মর্মে তিনি আদিষ্ট হয়ে সঙ্গে সঙ্গে আল্লাহর জন্য ১০টি উট কোরবানি করেন। কিন্তু পুনরায় তিনি কোরবানি করার জন্য আদেশ প্রাপ্ত হন। নবী ইবরাহিম এবার ১০০টি উট কোরবানি করেন।

এরপরেও তিনি একই আদেশ পেয়ে ভাবলেন, আমার কাছে তো এ মুহূর্তে প্রিয় পুত্র ইসমাইল (আ.) ছাড়া আর কোনো প্রিয় বস্তু নেই। তখন তিনি পুত্রকে কোরবানির উদ্দেশ্যে মিনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন। যখন নবী ইবরাহিম তার পুত্রকে কোরবানি দেওয়ার জন্য গলদেশে ছুরি চালানোর চেষ্টা করেন, তখন তিনি বিস্মিত হয়ে দেখেন যে তার পুত্রের পরিবর্তে একটি প্রাণী কোরবানি হয়েছে এবং তার পুত্রের কোন ক্ষতি হয়নি।

এই ঐতিহাসিক ধর্মীয় ঘটনাকে স্মরণ করে সারাবিশ্বের মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য প্রতি বছর এই দিবসটি ঈদ উল আধহা/আজহা নামে উদযাপন করেন।

ইসলামে হিজরি ক্যালেন্ডারের ১২তম চন্দ্রমাসের জিলহজ মাসের ১০ তারিখ সকাল থেকে ১২ তারিখ সূর্যাস্ত পর্যন্ত কোরবানি করার সময় হিসাবে নির্ধারিত। এ দিনে বিশ্বজুড়ে মুসলমানরা আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য কোরবানি দেন।

কোরবানি শব্দটি ব্যাপকার্থে আল্লাহর পথে শহীদ হওয়াকে বোঝাতেও ব্যবহৃত হয়। আবার ব্যক্তির সম্পদ, সময়, চেষ্টা, উদ্যম আল্লাহর বিধান মতে ধর্মীয় উদ্দেশ্যে বিলিয়ে দেওয়াকেও আল্লাহর রাস্তায় কোরবানি বলা হয়। পবিত্র কোরআনে কোরবানি সম্পর্কে একাধিক সূরায় উল্লেখ আছে। যেমন-

‘অতএব হে মানুষ! আল্লাহ সচেতন হও। আল্লাহতায়ালার ধর্মবিধান লঙ্ঘন হতে দূরে থাকো। জেনে রাখো, আল্লাহ মন্দ কাজের শাস্তিদানে কঠোর।’ -সূরা বাকারা: ১৯৬

‘হে নবী! কিতাবিগণকে আদমের দুই পুত্র হাবিল ও কাবিলের ঘটনা ভালো করে বর্ণনা করো। তারা যখন কোরবানি করেছিল, তখন একজনের কোরবানি কবুল হলো। কিন্তু অন্যজনের কোরবানি কবুল হলো না। ক্ষিপ্ত হয়ে সে বলল, আমি তোমাকে খুন করবো। অপরজন বলল, প্রভু তো শুধু আল্লাহ সচেতনদের কোরবানিই কবুল করেন।’ -সূরা মায়েদা: ২৭

‘হে নবী! ওদের বলুন, আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন, আমার মরণ- আমার সবকিছুই বিশ্বজাহানের প্রতিপালক আল্লাহরই জন্যে। তিনি একক ও অদ্বিতীয়। এ আদেশই আমি পেয়েছি। আমি সমর্পিতদের মধ্যে প্রথম।’ -সূরা আনআম: ১৬২-১৬৩

‘আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের জন্যে কোরবানিকে ইবাদতের অংশ করেছি। যাতে জীবনোপকরণ হিসেবে যে গবাদি পশু তাদেরকে দেওয়া হয়েছে, তা জবাই করার সময় তারা আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে আর সব সময় যেন মনে রাখে একমাত্র আল্লাহই তাদের উপাস্য। অতএব তার কাছেই পুরোপুরি সমর্পিত হও। আর সুসংবাদ দাও সমর্পিত বিনয়াবনতদের, আল্লাহর নাম নেওয়া হলেই যাদের অন্তর কেঁপে ওঠে, যারা বিপদে ধৈর্যধারণ করে, নামাজ কায়েম করে আর আমার প্রদত্ত জীবনোপকরণ থেকে দান করে।’ -সূরা হজ: ৩৪-৩৫

‘কোরবানির পশুকে আল্লাহ তাঁর মহিমার প্রতীক করেছেন। তোমাদের জন্যে এতে রয়েছে বিপুল কল্যাণ। অতএব এগুলোকে সারিবদ্ধভাবে বাঁধা অবস্থায় এদের জবাই করার সময় আল্লাহর নাম উচ্চারণ করো। এরপর এরা যখন জমিনে লুটিয়ে পড়ে, তখন তা থেকে মাংস সংগ্রহ করে তোমরা খাও এবং কেউ চাক না চাক সবাইকে খাওয়াও। এভাবেই আমি গবাদি পশুগুলোকে তোমাদের প্রয়োজনের অধীন করে দিয়েছি, যাতে তোমরা শোকরিয়া আদায় করো।’ -সূরা হজ: ৩৬

‘ছেলে যখন পিতার কাজকর্মে অংশগ্রহণ করার মতো বড় হলো, তখন ইবরাহিম একদিন তাকে বলল, ‘হে আমার প্রিয় পুত্র! আমি স্বপ্নে দেখেছি যে, তোমাকে কোরবানি দিতে হবে। এখন বলো, এ ব্যাপারে তোমার মত কী? ইসমাইল জবাবে বলল, ‘হে আমার পিতা! আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে, তাই করুন- ইনশাল্লাহ! আল্লাহর ইচ্ছায় আপনি আমাকে বিপদে ধৈর্যশীলদের একজন হিসেবেই পাবেন।’ -সূরা সাফফাত: ১০২

‘মনে রেখো, এ ছিল এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা। আমি তাকে সুযোগ দিলাম এক মহান কোরবানির। পুরো বিষয়টি স্মরণীয় করে রাখলাম প্রজন্মের পর প্রজন্মে। ইবরাহিমের প্রতি সালাম। এভাবেই আমি সৎকর্মশীলদের পুরস্কৃত করি।’ -সূরা সাফফাত: ১০৬-১১০

‘অতএব তুমি তোমার প্রতিপালকের জন্যেই নামাজ পড়ো ও কোরবানি দাও। নিশ্চয়ই তোমার প্রতি যেই বিদ্বেষ পোষণ করবে, বিলুপ্ত হবে ওর বংশধারা।’ -সূরা কাওসার: ১০৮

ফলে কোরবানি মুসলমানদের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট বিধান, যার সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইসলাম তথা একেশ্বরবাদী ধর্মের সুপ্রাচীন ইতিহাস ও ঐতিহ্য আর সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকারের সুমহান পরম্পরা।