সাজা বাড়লেও কমছে না বাল্য বিয়ে

নাজমুল আহসান রাজু, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

শাস্তিযোগ্য অপরাধ, তবুও কৌশলে হচ্ছে বাল্য বিয়ে। সাজার মেয়াদ বাড়িয়েও লাগাম টানা যাচ্ছে না এ অপরাধের। কোনোমতে গোপনে বিয়ে হয়ে গেলেই তা আর অপরাধ বলে গণ্য হচ্ছে না।

বাল্য বিয়েকে শাস্তিযোগ্য বলা হলেও পাশাপাশি ‘বিশেষ বিধানে’ বাল্য বিয়েকে বৈধতা দেওয়া হয়েছে আইনে। যদিও বিশেষ বিধানের প্রক্রিয়া জটিলতর। বিধি প্রণয়নের গত এক বছরে ওই প্রক্রিয়ায় বিয়ে হয়নি একটিও। তবে সাজার বিধান উপেক্ষা করেই বাল্য বিয়ে হচ্ছে হরহামেশা।

আইন বিশেষজ্ঞ ও মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, অপ্রাপ্তবয়স্কের সর্বোত্তম স্বার্থে ‘বিশেষ বিধান’ বাল্য বিয়ে নিরোধে সহায়ক হবে না। বরং আইনের অপব্যবহারে বাল্য বিয়ে অব্যাহত থাকবে। এটি হতাশাজনক ও শিশু আইনের লঙ্ঘন।

মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বর থেকে চলতি বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৭ হাজার ২৬২টি বাল্য বিয়ে ঠেকিয়েছে প্রশাসন। এর মধ্যে ২০১৮ সালে বন্ধ হয়েছে ১ হাজার ৭৫৬টি বাল্য বিয়ে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্ধ করা হয়েছে ১ হাজার ১৬২টি। স্থানীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বন্ধ করা হচ্ছে বাল্য বিয়ে। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বর-কনে ও অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেকা আদায় এবং কারা ও অর্থদণ্ড দেওয়ার ঘটনাও ঘটছে।

গত ১৮ নভেম্বর (সোমবার) সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া পৌরসভার শ্রীফলগাঁতী গ্রামের কল্পনা আক্তারের (ছদ্মনাম) সঙ্গে আগকয়ডা গ্রামের মাহফুজুর রহমানের (ছদ্মনাম) বিয়ে বন্ধ করে প্রশাসন। কনের বয়স ১৪ বছর। বরের বয়স ২২। বিয়ের দিন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মাহবুব হাসান বর-কনে উভয়পক্ষকে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন বাল্য বিয়ে আইন ভঙ্গ করার অপরাধে। তবে অভিভাবকরা পালিয়ে যান।

বাল্য বিয়ে নিরোধে ২০১৭ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে ‘বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭’। নতুন আইনটি কার্যকর করা হয় ওই বছরের ১১ মার্চ থেকে। এর আগে ১৯২৯ সালের বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন বলবৎ ছিল। বিলোপ করা আইনে বাল্য বিয়ের শাস্তি ছিল এক মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড বা হাজার টাকা অর্থদণ্ড।

নতুন আইনে প্রাপ্তবয়স্ক কোনো ছেলে বা মেয়ে যদি অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে বা মেয়েকে বাল্য বিয়ে করেন, তাহলে অনধিক ২ বছরের কারাদণ্ড বা অনধিক ১ লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ড দেওয়ার বিধান করা হয়েছে। আর অপ্রাপ্তবয়স্ক ছেলে বা মেয়ে বাল্য বিয়ে করলে অনধিক ১ বছর বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড বা উভয়দে দণ্ডিত হবে। বাল্য বিয়ের জন্য অভিভাবকদেরও শাস্তির আওতায় এনে অনধিক ২ বছর ও অন্যূন ৬ মাসের কারাদণ্ড বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রখা হয়েছে।

আইনের বিশেষ বিধানের ১৯ ধারায় বলা হয়েছে ‘এ আইনের অন্যান্য বিধানে যা কিছুই থাকুক না কেন, বিধি দ্বারা নির্ধারিত কোনো বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্তবয়স্কের সর্বোত্তম স্বার্থে, আদালতের নির্দেশ এবং বাবা-মা বা প্রযোজ্য ক্ষেত্রে অভিভাবকের সম্মতিতে, বিধি দ্বারা নির্ধারিত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে, বিয়ে হলে তা এ আইনের অধীনে অপরাধ বলে গণ্য হবে না।’

১ বছর ৭ মাস ২৬ দিন পর ২০১৮ সালের ৬ অক্টোবর সরকার বাল্য বিয়ে নিরোধ, বিধিমালার প্রজ্ঞাপন জারি করে। বিধিমালার ১৭ ধারায় বাল্য বিয়ের বিশেষ বিধান প্রয়োগ শিরোনামে বলা হয়েছে, উভয়পক্ষের অভিভাবকরা উপযুক্ত আদালতে দালিলিক প্রমাণসহ যৌথভাবে আবেদন করবে। আদালত সত্যতা নিরূপনে উপজেলা যাচাই কমিটিতে আবেদনটি পাঠাবে। ৭ সদস্যের উপজেলা যাচাই কমিটি ১৫ দিনের মধ্যে আদালতে মতামত দেবে। এরপর আদালত যদি মনে করে, বিয়ে হওয়া সমীচীন, বা এটাই তার জন্য সবচেয়ে ভালো, তাহলে বিয়ের অনুমতি দিতে পারবেন।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে ইউনিসেফের ‘বাল্য বিয়ের অবসান: অগ্রগতি ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক প্রতিবেদন অনুযায়ী বাংলাদেশে বিবাহিত নারীদের মধ্যে যাদের বয়স ২২ থেকে ২৪ বছর, তাদের ৫২ জনের বিয়ে হয়েছিল ১৮ বছরের আগে। এদের মধ্যে ১৮ জনের বিয়ে হয়েছে ১৫ বছর বয়স হওয়ার আগে।

শিশু অধিকার অ্যাডভোকেসি জোটের ২০১৮ সালে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী ১৮ বছরের নিচে বাল্য বিয়ের হার ৫০ শতাংশের বেশি। ১৯টি জেলার ৮৫টি ঘটনা জরিপ করে দেখা গেছে, ১৫ বছরের নিচে ২০১৫ সালে বাল্য বিয়ে ছিল ৬২ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৭ সালে তা ১০ দশমিক ৭ শতাংশ কমেছে। ১৮ বছরের কম বয়সে ২০১৫ সালে বাল্য বিয়ে হয়েছিল ৬২ দশমিক ৮ শতাংশ। পরের বছর কিছুটা কমে হয়েছে ৫৯ দশমিক ৭ শতাংশ।

২০১৮ সালের ১৯ অক্টোবর ‘বাংলাদেশের শিশু: প্রতিশ্রুতি ও অগ্রগতি ২০১৭’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এ তথ্য রয়েছে। ইউনিসেফের সহায়তায় ২০১৬ ও ২০১৭ সালে জরিপটি পরিচালিত হয়েছিল। মানবাধিকার সংগঠন আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক), অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ ও সেভ দ্যা চিল্ড্রেনসহ ৯টি সংগঠন জরিপে অংশ নেয়।

তবে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ ২০১৫ সালের জরিপ অনুযায়ী বাংলাদেশে বাল্য বিয়ের হার কমেছে। এ জরিপে বলা হয়, ২০০৬ সালে দেশে বাল্য বিয়ের হার ছিল ৬৪ দশমিক ১ শতাংশ। ২০১৪ সালে এসে তা কমে দাঁড়ায় ৫২.৩ শতাংশে।

ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী বাল্য বিয়ে রোধ করা গেলে আন্তঃপ্রজন্মের দরিদ্র চক্র থেকে বের হয়ে সমাজে নারীর সক্রিয় অংশগ্রহণ বাড়ানো সম্ভব। নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে শিক্ষিত নারী শিশুর সঠিক পরিচর্যা, ছোটো কিন্তু পরিকল্পিত পরিবার, পরিবারের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে নেতৃত্ব দিতে পারে। যাতে সমাজের সবাই লাভবান হয়।

বাল্য বিয়ের হার প্রসঙ্গে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহারের মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দিয়েও তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ীর ১৪ বছরের কিশোরী কুলসুম বেগম (ছদ্মনাম)। বিয়ে হয়েছে এক বছর হলো। তার স্বাস্থ্য ভঙ্গুর। স্বামী রিয়াজের (ছদ্মনাম) বয়স মাত্র ১৮। পারিবারিক অশান্তির কারণে তাদের নিয়ে বসেছে সালিশ। ৬ দফা সালিশের পর সপ্তম দফার সালিশে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সদস্যরা। কুলসুমের অভিযোগ, স্বামী কোনো কাজ করে না। প্রায়ই মারধর করে। সালিশে সিদ্ধান্ত হয় বিচ্ছেদের।

সরিষাবাড়ীর ১ নম্বর সাতপোয়া ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে ২ পক্ষের উপস্থিতিতে বিচ্ছেদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেন ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবু তাহের। কেন বিচ্ছেদের ফয়সালা জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের বিয়ে হয়েছে ১ বছর। মেয়েটি প্রাপ্তবয়স্ক নয়। বিয়ের এ ১ বছরে ছেলেকে ৬ বার সতর্ক করে মেয়েকে ঘরে তুলে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু কোনো পরিবর্তন হয়নি। ফলে সালিশে মেয়েটির জীবন রক্ষায় বিচ্ছেদের পক্ষে মত দেওয়া হয়।

মানবাধিকার ব্যক্তিত্ব ও জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেড আই খান পান্না বার্তা২৪.কমকে বলেন, বাল্য বিয়ে নিরোধ আইনের কারণে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বেড়েছে। অভিভাবকরা জানেন, বাল্য বিয়ে দিলে শাস্তি পেতে হবে। তবে খারাপ দিক হলো বিশেষ বিয়ের বিধান। বিশেষ বিয়ের সুযোগ রাখায় যারা ‘ধর্ষক’ তারা উৎসাহিত হবে। তারা মনে করবে, শালিসে বিয়ে করলেই পার পাওয়া যাবে। কয়েক দিন পর কারাগার থেকে বের হয়ে আবার একই অপরাধ করবে না, তার নিশ্চয়তা নেই।

জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ বলেছেন, আইন করলেই হবে না। সচেতনতা বাড়াতে জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিটির পাশাপাশি মাধ্যমিক স্কুলে কমিটি করতে হবে। কারণ মাধ্যমিকের মেয়েরাই বাল্য বিয়ের শিকার হয় বেশি। সচেতনতা সৃষ্টি হলে বাল্য বিয়ে নিরোধে সাফল্য আসবে।

আপনার মতামত লিখুন :