‘দেড় লাখ ফার্মেসিকে মডেল ফার্মেসিতে রূপান্তর করা হবে’



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নীলফামারী
মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখছেন ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখছেন ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক

  • Font increase
  • Font Decrease

ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মাহবুবুর রহমান বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে প্রত্যেকটি উপজেলায় ১টি করে মডেল ফার্মেসি ও মডেল মেডিসিন শপ চালু করার কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই দেশের ৩৭ হাজার ফার্মেসি মডেলের আওতায় এসেছে এবং ৫০ হাজার ফার্মেসি মডেল মেডিসিন শপের আওতায় রয়েছে। আগামী দুই বছরের মধ্যে দেশের এক লাখ ৫১ হাজার ফার্মেসিকে মডেল ফার্মেসিতে রূপান্তর করা হবে।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) দুপুরে নীলফামারী জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে ‘মুজিববর্ষ উপলক্ষে বাংলাদেশে মডেল ফার্মেসি ও মডেল মেডিসিন শপের প্রয়োজনীয়তা ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক আলোচনা এবং নকল, ভেজাল, আনরেজিস্টার্ড ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ প্রতিরোধে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, শতকরা ৯৮ শতাংশ ওষুধ দেশেই উৎপাদিত হচ্ছে। আর বিশ্বের ১৪৮টি দেশে বাংলাদেশ ওষুধ রফতানি করে। বাংলাদেশ ওষুধ উৎপাদন ও রফতানিতে বর্তমানে ঈর্ষণীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন নীলফামারী জেলা কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান সবুজ,অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী, নীলফামারী সিভিল সার্জন জাহাঙ্গীর কবির, ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. সালাউদ্দিন, সহকারী পরিচালক অজিউল্লাহ, নীলফামারী ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের সহকারী পরিচালক তৌহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

এর আগে সকালে জেলা শহরের বাটার মোড়স্থ সৈকত ফার্মেসিকে মডেল ফার্মেসি এবং বড় বাজার এলাকার রাশেদ, জামান ও করিম ফার্মেসি মডেল মেডিসিন শপ হিসেবে উদ্ধোধন করেন প্রধান অতিথি মেজর জেনারেল মো.মাহবুবুর রহমান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে নীলফামারী জেলায় প্রায় দেড় হাজার ফার্মেসি রয়েছে। এরমধ্যে এক হাজার নিবন্ধিত বাকিগুলো প্রক্রিয়াধীন।