চসিক নির্বাচন: বিএনপি’র প্রচার গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচনে বিএনপি’র দুই প্রার্থীর প্রাচারে ব্যবহৃত দুটি গাড়ি ভাঙচুর এবং নেতাকর্মীদের মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার (সোমবার) বিকেলে ষোলশহর মেয়র গলির সামনে গাড়ি দুটি ভাঙচুর করা হয়।

বিএনপি নেতাকর্মীদের দাবি, এ ঘটনায় আওয়ামী লীগ জড়িত। ভাঙচুর করা দুটি অটোরিকশার একটি থেকে শাহাদাতের ধানের শীষ প্রতীকের জন্য ভোট চাওয়া হচ্ছিল। অপরটি ছিল সংরক্ষিত-৩ নম্বর ওয়ার্ডের নারী কাউন্সিলর প্রার্থী জিন্নাতুন নেছারের প্রচারের গাড়ি। জিন্নাত বিএনপি–সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী।

সন্ধ্যায় বিএনপির পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ করে বিষয়টি জানানো হয়। 

ভাঙচুরের সময় অটোরিকশায় থাকা জিন্নাতের ছেলে সাইমন ইব্রাহিম ও শব্দযন্ত্রের (মাইক) দায়িত্বরত কর্মচারী জয়নাল আবেদিনকে মারধর করা হয়। একইভাবে ধানের শীষের প্রচারে থাকা সিএনজিচালিত অটোরিকশার এক আরোহীকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ভাঙচুর করা অটোরিকশা দুটিসহ আহতদের নিয়ে জিন্নাতুন নেছা বিকেল পাঁচটায় রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে উপস্থিত হন। এ সময় রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মাদ হাসানুজ্জামান ঘটনার বর্ণনা শোনেন।

জিন্নাতুন নেছা বলেন, ‘বেলা সাড়ে তিনটায় শাহাদাত হোসেন ২ নম্বর গেট ও কসমোপলিটন এলাকায় প্রচারে যান। এ সময় তিনিও শাহাদাতের সঙ্গে ছিলেন। একপর্যায়ে পেছন থেকে দা এবং লাঠি নিয়ে দুটি সিএনজি অটোরিকশায় হামলা করা হয়। এ সময় আমার ছেলেসহ আরোহীদের মারধর করা হয়। আওয়ামী লীগই এই হামলা করেছে।’

নগর পুলিশের পাঁচলাইশ অঞ্চলের সহকারী কমিশনার (এসি) শহীদুল ইসলাম জানান, বিএনপি ওই এলাকায় নির্বাচসি প্রচার করবে, তা তাদের আগে থেকে জানায়নি। দুটি মিছিল মুখোমুখি হলে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ব্যাপারে শাহাদাত ও জিন্নাত পৃথক দুটি লিখিত অভিযোগ রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দিয়েছেন। হামলার জন্য দুই প্রার্থীই আওয়ামী লীগকে দায়ী করেছেন।