আদালত থেকে দুই সঙ্গীসহ বাড়ি ফিরলেন আবু ত্ব-হা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আলোচিত ধর্মীও বক্তা আবু ত্ব-হা আদনান ও তার দুই সঙ্গীকে পরিবারের কাছে হস্তান্তরের আদেশ দিয়েছে আদালত।

শুক্রবার (১৮ জুন) রাত সাড়ে ১১টার দিকে রংপুর  মেট্রোপলিটন জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক কেএম হাফিজুর রহমান এ নির্দেশ দেন। পরে তাদের নিজ নিজ পরিবারের জিম্মায় দেওয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে কোর্ট ইন্সপেক্টর নাজমুল ইসলাম জানান, রাত সোয়া ৯টার দিকে ধর্মীও বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানসহ তিনজনকে ডিবি কার্যালয় থেকে আদালতে আনা হয়। সেখানে মেট্রোপলিটন জুডিশিয়াল আদালতের বিচারক কেএম হাফিজুর রহমানের আদালতে তারা স্বেচ্ছায় জবানবন্দি দেন। পরে আদালত স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে যাবার বিষয়টি বিবেচনা করে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করার নির্দেশ দেন। পরে আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ, তার সঙ্গী আব্দুল মুকিত ও গাড়ি চালক আমির উদ্দিন ফয়েজকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রশিদ জানান, আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে তারা স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে থাকার বিষয়টি স্বীকার করেন। তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ না থাকায় পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এর আগে বিকাল ৫টার দিকে রংপুর নগরীর ডিবি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার আবু মারুফ হোসেন বলেন, ব্যক্তিগত কারণে গাইবান্ধায় বন্ধুর বাড়িতে আত্মগোপন করেছিলেন বলে পুলিশকে জানিয়েছেন ধর্মীও বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান।

শুক্রবার জুমার নামাজের পর রংপুর নগরীর চারতলা এলাকায় তার প্রথম স্ত্রীর বাবার বাড়িতে ফিরে আসেন বলে জানান ত্ব-হার স্বজনেরা। খবর পেয়ে বেলা ৩ টার দিকে পু্লিশ ওই বাড়ি থেকে আদনানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে আসে।

প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের পর বিকেল ৫টার দিকে পুলিশ জানায়, ১০ জুন রাতে ঢাকার গাবতলী থেকে রংপুরের পথে রওনা হন ত্ব-হা ও তার তিন সঙ্গী। এর পর গাইবান্ধার ত্রি-মোহনিতে শিহাব নামে এক বন্ধুর বাড়িতে আত্মগোপন করেছিলেন তারা। তবে কী সেই ব্যক্তিগত কারণ তা পুলিশ এখনই জানাতে রাজি হয়নি। পরে রাত সোয়া ৯টার দিকে ডিবি কার্যালয় থেকে তাদেরকে আদালতে নেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বিকাল চারটার দিকে তিন সঙ্গীসহ আদনান রংপুর থেকে ভাড়া করা একটি গাড়িতে ঢাকায় রওনা দেন। রাতে মোবাইল ফোনে সর্বশেষ কথা হলে আদনান সাভারে যাচ্ছেন বলে তার মাকে জানান। এরপর রাত ২টা ৩৭ মিনিটে স্ত্রী হাবিবা নূরের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হয় আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানের। এ সময় তিনি ঢাকার গাবতলীতে আছেন বলে জানান। তারপর থেকেই তার ফোন বন্ধ থাকায় আর যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এ সময় ত্ব-হার সঙ্গে আব্দুল মুহিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দীন ছিলেন। ওই রাত থেকে তাদের মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়।

এরপর সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি শেষে তাকে না পেয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় রংপুর কোতয়ালী থানায় জিডি করেন তার মা আজেদা বেগম।