লাভের আশায় হাঁস পালন, মড়কে সর্বনাশ



রাকিবুল ইসলাম রাকিব, উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, গৌরীপুর (ময়মনসিংহ)
লাভের আশায় হাঁস পালন, মড়কে সর্বনাশ

লাভের আশায় হাঁস পালন, মড়কে সর্বনাশ

  • Font increase
  • Font Decrease

লাভের আশায় ঋণ নিয়ে হাঁসের খামার দেন স্বপন মিয়া (৩০)। দুই মাস লালন-পালনে খামারের হাঁসগুলো দ্রুত বেড়ে উঠে। কিন্তু হঠাৎ করে খামারে মড়ক দেখা দিলে খিঁচুনি দিয়ে মারা যেতে থাকে হাঁস। এতে করে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন এই খামারি।

স্বপন মিয়ার বাড়ি ময়মনসিংহের গৌরীপুরের মাওহা ইউনিয়নের নয়ানগর বাউশালী পাড়া গ্রামে। সে ওই গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, হাঁসের খামার দেওয়ার জন্য ৩ মাস আগে এনজিও থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋণ নেন স্বপন। বাড়ির পাশে সুরিয়া নদীর পাড়ে মাচা ও নেটের বেড়া দিয়ে তৈরি করেন খামার। এরপর কেন্দুয়া উপজেলার রামপুর থেকে ৩৬ হাজার টাকায় ১২শ হাঁসের বাচ্চা ক্রয় করে লালন-পালন শুরু করেন। দুই মাস পরিচর্যায় খামারের হাঁসগুলো দ্রুত বেড়ে উঠতে থাকে। কিন্তু গত শনিবার থেকে খামারের হাঁসগুলো খিঁচুনি দিয়ে মারা যেতে শুরু করে। ইতিমধ্যে প্রায় ১ হাজার হাঁস মারা গেছে। বাকি যে হাঁসগুলো আছে সেগুলো আজকালের মধ্যে মারা যেতে পারে বলে জানিয়েছেন খামারি স্বপন।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, খামারের সামনে পড়ে আছে হাঁসের মরদেহের স্তুপ। সেখানে বসে আহাজারি করছেন স্বপন। তার পাশে বিষন্ন মনে বসে আছে সহযোগী ইকবাল। দু-একজন তাদের সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করলেও দুর্গন্ধে সেখানে বেশিক্ষণ টিকতে পারছিলেন না।

স্বপন মিয়া বলেন, মড়ক দেখা দেওয়ার পর পাশ্ববর্তী উপজেলা থেকে ওষুধ এনে প্রয়োগ করেও হাঁস বাঁচাতে পারিনি। মড়কে দেড় লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে। এখন প্রতিমাসে ঋণের কিস্তি ৩ হাজার ৫০০ টাকা। খামারের কর্মচারীর দুই মাসের বেতন পাওনা। এখন কি খাবো, কিভাবে ঋণ পরিশোধ করবো এটাই দুশ্চিন্তা।

গ্রামের বাসিন্দা আজহারুল করিম বলেন, হাঁসের শোকে খামারি স্বপন মিয়া দিশেহারা হয়ে গেছে। এখানে-সেখানে বসে কান্নাকাটি করছে। তার এই দুর্দিনে প্রশাসন ও হৃদয়বানরা সহযোগিতা করলে সে হয়তো ঘুরে দাঁড়াতে পারবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসান মারুফ বলেন, খামারি স্বপনের বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে তাকে সহযোগিতার চেষ্টা করা হবে। পাশাপাশি সে যেনে ঘুরে দাঁড়াতে পারে তাকে লোন দেওয়ার চেষ্টা করা হবে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. আব্দুল করিম বলেন, চিকিৎসকদের সাথে পরামর্শ না করা ও সঠিক নিয়ম-নীতি না জেনে হাঁস পালন করায় অনেক সময় রোগাক্রান্ত হয়ে হাঁস মারা যায়। খামারি স্বপন যদি আমাদের পরামর্শ নিয়ে হাঁস পালন করতো তাহলে হয়তো এই ক্ষতি হত না। আর খামারের হাঁস কি কারণে মারা যাচ্ছে সেগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা না করে বলে যাবে না।