লকডাউনে বাল্য বিয়ে, ৩ জনের জেল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবিঃ বার্তা২৪.কম

ছবিঃ বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার কাহালুতে লকডাউনের মধ্যেই আয়োজন করা বাল্য বিয়ে ভন্ডুল করে দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও)। এসময় বর ও কাজীসহ তিনজনের জেল ও চার জনের জরিমানা করা হয় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে।

শুক্রবার (৯ জুলাই) কাহালু উপজেলার মহেশপুর (ভুতগাড়ি) গ্রামে এ বাল্য বিয়ের আয়োজন করা হয়েছিলো।

জানা গেছে, মহেশপুর গ্রামের ইসাহাকের মেয়ে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী মিমের বিয়ের আয়োজন করেন একই গ্রামে তার ভগ্নিপতি রফিকুলের বাড়িতে।

নওগাঁ থেকে বরসহ বর পক্ষের লোকজন হাজির হয়েছিলো ঠিক সময়ে। কাজী সাহেবও উপস্থিত ছিলেন। একদিকে চলছিলো রান্নার কাজ। অন্যদিকে চলছিলো বিয়ের প্রস্তুতি। জুম্মার নামাজের পরপরই কাজী সাহেব বিয়ে রেজিস্ট্রি করবেন। এমন সময়ই বিয়ে বাড়িতে পুলিশ নিয়ে হাজির হন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাছুদুর রহমান। মুহুর্তের মধ্যে যে যে দিকে পারে দৌঁড়ে পালাতে থাকে। এসময় পুলিশ আটক করে বর-কাজী, আয়োজক ও বর পক্ষের ৩ জনসহ ৭জনকে।

পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বর নওগাঁ জেলার খয়রাবাত গ্রামের বেলাল হোসেনের ছেলে মোমিনকে (৩০) ৬ মাস, কাহালুর আখুন্জা গ্রামের মহসিনের ছেলে বিবাহ রেজিস্টার কাজী আব্দুল গফুরকে (৪৬) ১০ মাস, আয়োজক কনের ফুফা মহেশপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামকে (৫০) ৬ মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেছেন।

এছাড়া কনের ফুফু খালেদা খাতুন(৪০), বরের দুলাভাই জাহাঙ্গীর, আত্মীয় সেকেন্দার ও আনিছুর রহমান নামের ৪ জনকে ১৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়।

কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমবার হোসেন বার্তা২৪.কমকে বলেন, করোনা সংক্রমণের মধ্যে কঠোর বিধি-নিষেধ চলছে। সেই সময় বাল্য বিয়ের আয়োজন করা হয়। ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখানে অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে জেল দিয়েছে।