প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারী পরিচয়ে লেখককে ফোন, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারী পরিচয়ে লেখককে ফোন, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারী পরিচয়ে লেখককে ফোন, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

  • Font increase
  • Font Decrease

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ফোন করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সহকারী প্রেস সেক্রেটারী পরিচয় দিয়েছিলেন রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতা। অভিযোগ পেয়ে রাজশাহী মহানগরীর রাজপাড়া থানা পুলিশ সাজ্জাদ আলী (২৮) নামে অই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার বেলঘড়িয়া গ্রামে তাঁর বাড়ি। তিনি শহরের কাজীহাটা মহল্লায় ভাড়া থাকতেন।

বুধবার (২৮ জুলাই) দিবাগত রাতে পুলিশ সেখান থেকেই তাঁকে গ্রেফতার করে। এর আগে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) সাইবার ক্রাইম ইউনিট তাঁর পরিচয় নিশ্চিত হয়। সাজ্জাদের বাড়ি থেকে চারটি মোবাইল ফোন ও একটি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়েছে। আরএমপির মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সাজ্জাদ আলী দীর্ঘদিন ধরে নিজেকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সহকারী প্রেস সেক্রেটারী পরিচয় দিয়ে মন্ত্রী, সাংসদ, কেন্দ্রীয় রাজনীতিবিদ এবং সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ফোন করে বিভিন্ন তদবির করতেন। কখনও আত্মীয়-স্বজনের চাকরি কিংবা কখনও টাকা বাগিয়ে নিচ্ছিলেন। ২৭ জুলাই তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সহকারী প্রেস সেক্রেটারী আশরাফ সিদ্দিকী বিটুর নাম ব্যবহার করে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ফোন করেন। তিনি জানতে চান, রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হবে কবে। তিনি দ্রুত কমিটি ঘোষণার নির্দেশ দেন।

পাশাপাশি মহিউদ্দিন মাহমুদ জয় নামের এক ছাত্রলীগ নেতাকে যেন কমিটিতে না রাখা হয় সেই নির্দেশনাও দেন। মহিউদ্দিন মাহমুদ জয় বর্তমানে রাজশাহী মহানগরীর দুই নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। বিষয়টি জানতে পেরে জয় নগরীর রাজপাড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। এর প্রেক্ষিতে আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটের ইনচার্জ উৎপল কুমার চৌধুরী ও তাঁর টিম অভিযোগের সত্যতা যাচাই করেন। পরবর্তীতে তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় অভিযুক্তকে শনাক্ত করা হয়।

আরএমপির মুখপাত্র জানান, সাইবার ক্রাইম ইউনিটের নির্দেশনামতে রাজপাড়া থানা পুলিশ প্রতারক সাজ্জাদকে গ্রেফতার করে। এ নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। আসামিকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারেও পাঠানো হয়েছে।