পাহাড়ে রেল লাইন স্থাপনে ব্যয় হবে ৮৯২৬ কোটি টাকা



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাঙামাটি
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আট হাজার ৯২৬ কোটি টাকা ব্যয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের অন্যতম বৃহৎ জেলা রাঙামাটিকে সারাদেশের রেল লাইনের সাথে সংযুক্ত করতে যাচ্ছে সরকার। রাঙামাটির কাপ্তাইকে রেল পথের সাথে সংযুক্তকরণে ৪২ কিলোমিটার রেলপথ স্থাপনে ইতিমধ্যেই কাজ শুরু করেছে রেলওয়ে। অর্থায়ন নিশ্চিত হলে আগামী ২০২৬ সালের মধ্যেই এই প্রকল্পের কাজ শেষ করতে চায় রেল কর্তৃপক্ষ। বর্তমান সরকারের আমলে এই উদ্যোগ সফলভাবে সম্পন্ন করা গেলে এটি পাহাড়ের সার্বিক জীবনমানে আমূল পরিবর্তন আনার পাশাপাশি পর্যটন খাতেও ব্যাপক পরিবর্তন ঘটিয়ে নতুন বিনিয়োগের সমূহ সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচিত হবে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

চট্টগ্রামের রাউজান থেকে রাঙ্গুনিয়া হয়ে কাপ্তাই পর্যন্ত ৪২ কিলোমিটার রেলপথের জন্য ৮ হাজার ৯২৬ কোটি টাকা ব্যয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এর মধ্যে ৭ হাজার ১৪১ কোটি টাকার বৈদেশিক ঋণ সংস্থানের জন্য রেলওয়ের অনুরোধে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) বিশ্বব্যাংক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি), জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) মতো একাধিক বৈশ্বিক ঋণদাতার সঙ্গে আলোচনা করছে বলে নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানাগেছে।

অতিসম্প্রতি রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও চট্টগ্রাম-৬ আসনের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডের কুমিরায় আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের (আইআইইউসি) পাশে শাটল ট্রেন সার্ভিসের নতুন স্টেশন ভবন নির্মাণ কাজ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রেলপথের সাথে রাঙামাটিকে সংযুক্ত করার ঘোষণা দেন। কাপ্তাইসহ রাঙামাটির দুর্গম পাহাড়ি এলাকার উৎপাদিত পণ্য সহজে চট্টগ্রামসহ সারাদেশে বাজারজাতকরণ এবং পাহাড়ে আগত পর্যটকদের জন্য জনপ্রিয় রেল ভ্রমণ সুবিধা নিশ্চিত করতে চট্টগ্রাম থেকে কাপ্তাই পর্যন্ত রেল যোগাযোগ স্থাপনের এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ফজলে করিম চৌধুরী।

তিনি জানান. রাঙামাটির পরপরই পার্বত্য অন্য দুই জেলা খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানকেও ট্রেন যোগাযোগের সাথে সংযুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ের।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, রেল মন্ত্রণালয়ের মহাপরিকল্পনার একটি অনুষজ্ঞ হচ্ছে পাহাড়ি অঞ্চলে রেল যাতায়াত সুবিধা পৌঁছে দেওয়া। এ জন্য ‘জানালীহাট-চুয়েট-কাপ্তাই ডুয়েল গেজ সংযোগ রেললাইন নির্মাণ’ শীর্ষক একটি প্রকল্পে হাত দিয়েছি। ইতিমধ্যে এটির প্রাথমিক বিস্তারিত প্রকল্প প্রস্তাব পিডিপিপি তৈরি করা হয়েছে।

২০১৮-২০১৯ সালে প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা সমীক্ষা শেষ হয়েছে এবং ডাবলগেজ রেল ট্র্যাকের একটি পরিকল্পনা নকশাও প্রস্তুত করা হয়েছে। এতে নয়টি স্টেশন থাকবে। রেলওয়ের ৩০ বছর মেয়াদি মাস্টারপ্ল্যান (২০১৬-২০৪৫) এর মধ্যে রয়েছে ২০২২ সালের মধ্যে কাপ্তাই পর্যন্ত রেলপথ স্থাপন করা। রেলওয়ে চলতি বছর প্রকল্পটির কাজ শুরু করে ২০২৬ সালের মধ্যে সম্পন্ন করার পরিকল্পনাও রয়েছে।

রেলমন্ত্রণালয় প্রকল্পটি দুই পর্যায়ে বাস্তবায়নের প্রাথমিক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। প্রথম পর্যায়ে বাস্তবায়ন করা হবে চট্টগ্রামের জানালীহাট থেকে রাউজানের চুয়েট পর্যন্ত ১৪ দশমিক ৩১ কিলোমিটার রেল লাইন। পিডিপিপি অনুযায়ী প্রথম অংশের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ১৪২ কোটি টাকা। এতে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে সম্ভাব্য অর্থায়ন ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৩১৩ কোটি টাকা এবং সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে যোগান দেওয়া হবে ৮২৮ কোটি টাকা। দ্বিতীয় পর্যায়ে চুয়েট থেকে কাপ্তাই পর্যন্ত ২৭ দশমিক ৮৬ কিলোমিটারের মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৭৮৪ কোটি টাকা। এরমধ্যে দাতাদের কাছ থেকে ৩ হাজার ৮২৭ কোটি টাকা এবং সরকারের নিজস্ব তহবিল থেকে ৯৫৬ কোটি টাকা পাওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। ৪২ কিলোমিটার ডুয়েল গেজ রেললাইন নির্মাণ এই প্রকল্পটির জন্য মোট ৬৪০ একর জমি অধিগ্রহণের পাশাপাশি প্রকল্পটির আওতায় ৩টি রেলসেতু, ২৫টি কালভার্ট এবং ৯টি স্টেশন নির্মাণ করতে হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ রেলওয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

পার্বত্য জেলা রাঙামাটিকে রেল নেটওয়ার্কের আওতায় আনা হলে রাঙামাটি কেন্দ্রিক পর্যটন সম্ভাবনা বহুগুণ বেড়ে যাবে। সেখানে নতুন বিনিয়োগ যুক্ত হবে। আঞ্চলিক বাণিজ্য ও ব্যবসার প্রসার ঘটবে। বিশেষ করে পাহাড়ে উৎপাদিত পণ্যসামগ্রী সহজে সারাদেশে পাঠানো সম্ভব হবে।

স্বর্ণ উদ্ধার করে চেপে যাওয়ায় চাকরি হারালেন এসপি আলতাফ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বর্ণ উদ্ধার করে চেপে যাওয়ায় চাকরি হারালেন এসপি আলতাফ

স্বর্ণ উদ্ধার করে চেপে যাওয়ায় চাকরি হারালেন এসপি আলতাফ

  • Font increase
  • Font Decrease

১২০ ভরি স্বর্ণ উদ্ধারের পর বিষয়টি চেপে গিয়ে স্বর্ণ কারবারির বিরুদ্ধে মাদকের মামলা করেছিল পুলিশ। সাড়ে পাঁচ বছর আগে সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা থানার এ ঘটনায় চাকরি হারিয়েছেন পুলিশ সুপার (এসপি) আলতাফ হোসেন।

বুধবার ট্যুরিস্ট পুলিশের সিলেট অঞ্চলে দায়িত্বরত আলতাফ হোসেনকে চাকরি থেকে অপসারণের তথ্য জানিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ।

আলতাফ হোসেন ২০১৬ সালের ২৩ জুলাই থেকে পরের বছর ডিসেম্বর পর্যন্ত সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার ছিলেন। তার দায়িত্ব পালনের সময় ২০১৬ সালের ৬ অক্টোবর বিপ্লব চ্যাটার্জি নামে এক স্বর্ণ চোরাকারবারি আটক হন। তার কাছ থেকে ১২০ ভরি স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছিল। পাটকেলঘাটা থানায় উদ্ধার করা সোনার জব্দ তালিকাও করা হয়েছিল। কিন্তু সোনা চোরাচালানের মামলা না হয়ে এ ঘটনায় মাদকের মামলা রেকর্ড করা হয়।

বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আখতার হোসেনের সই করা ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর (খ) অনুযায়ী আনীত ‘অসদাচরণের’ অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এই বিধিমালার ৪(৩) গ বিধি মোতাবেক গুরুতর দণ্ড হিসেবে প্রজ্ঞাপন জারির তারিখ থেকে পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেনকে চাকরি থেকে অপসারণ করা হলো।

পুলিশের পক্ষ থেকে ঘটনাটি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়ায় ২০১৯ সালে আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। এরপর আলতাফ হোসেনের ব্যাখ্যাও নেওয়া হয়। পরে পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি আতাউল কিবরিয়া এ বিষয়ে অধিকতর তদন্ত করেন। সেখানে আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হয়। পরে দ্বিতীয় দফায় আলতাফ হোসেনের ব্যাখ্যা চাওয়া হয়।

;

খাদ্য-আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠতে সু-সমন্বিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
খাদ্য-বিদ্যুৎ-আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠতে সু-সমন্বিত প্রচেষ্টা আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

খাদ্য-বিদ্যুৎ-আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠতে সু-সমন্বিত প্রচেষ্টা আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বব্যাপী সংহতি জোরদার করার এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে খাদ্য, বিদ্যুত ও আর্থিক সংকট মোকাবেলায় সু-সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বৈশ্বিক সংকট কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে ৪টি প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন যার জন্য দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

তিনি বলেন, ‘ইউক্রেনের যুদ্ধ এমন এক সময়ে এসেছে যখন বিশ্ব কোভিড-১৯ মহামারী থেকে উদ্ধার পেতে লড়াই করে চলেছে। এ যুদ্ধ ইতিমধ্যে নাজুক বিশ্ব অর্থনীতিতে গুরুতর চাপ যুক্ত করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে যুক্ত হয়ে ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে শুক্রবার (২০ মে) অনুষ্ঠিত ‘গ্লোবাল ক্রাইসিস রেসপন্স গ্রুপ (জিসিআরজি) এর প্রথম উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে দেয়া ভাষণে একথা বলেন।

শেখ হাসিনা কার্যকরভাবে সংকট মোকাবিলায় উন্নত অর্থনীতি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যকর ভূমিকা কামনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বর্তমান পরিস্থিতিকে অত্যন্ত অস্থিতিশীল করে তুলেছে, যেখানে খাদ্য, জ্বালানি ও অন্যান্য পণ্যের স্বল্প সরবরাহ এবং অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ইতিমধ্যেই সাধারণ মানুষের জীবনে মারাত্মক চাপ সৃষ্টি করেছে। স্বল্পোন্নত দেশ এবং এসআইডিগুলি সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এবং এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য তাদের অবিলম্বে এবং লক্ষ্যমাত্রা ভিত্তিক সহায়তা ব্যবস্থার প্রয়োজন।

এ বিষয়ে তিনি উন্নত দেশসমূহ ও বহুপাক্ষিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুল্কমুক্ত-কোটামুক্ত বাজারে প্রবেশাধিকার এবং আরও সহজলভ্য অর্থায়নের জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ এবং কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে সৃষ্ট চলমান বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলার লক্ষ্যে এই গ্রুপটি গঠন করেছেন।

বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষাপটে শেখ হাসিনা পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য চারটি প্রস্তাব রেখেছেন।

প্রথম প্রস্তাবে তিনি বলেন, ‘প্রথমত, আমাদের অবশ্যই বিশ্বব্যাপী সংহতি জোরদার করতে হবে এবং একটি সু-সমন্বিত প্রচেষ্টা গ্রহণ করতে হবে। জি-৭, জি-২০, ওইসিডি, এবং আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই গ্রুপের স্টিয়ারিং কমিটি সব বড় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে গঠন করায় তিনি খুশি।

তিনি বলেন, আমরা সংকট মোকাবেলায় কার্যকর সুপারিশ প্রণয়নের জন্য তাদের প্রচেষ্টায় আমাদের পূর্ণ সমর্থন দেব। দ্বিতীয়ত, অবিলম্বে বিশ্বব্যাপী লজিস্টিক এবং সরবরাহ শৃঙ্খলে বাধাগুলো মোকাবিলা করা প্রয়োজন। এ প্রয়াস পণ্যের ক্রমবর্ধমান মূল্য নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করবে। বিশেষ করে স্বল্পোন্নত দেশ ও অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলির বৈশ্বিক বাণিজ্য ও রপ্তানি আয় পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক সমর্থনও থাকতে হবে। 

তিনি বলেন, উন্নত অর্থনীতি এবং বহুপাক্ষিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে এবং শুল্ক-মুক্ত-কোটা-মুক্ত বাজারে প্রবেশাধিকার এবং আরও সহজলভ্য অর্থায়ন প্রদান করতে হবে।

তৃতীয় প্রস্তাবে, তিনি বলেন, কার্যকর খাদ্য সঞ্চয় ও বিতরণ ব্যবস্থার জন্য কৃষি খাতের জন্য প্রযুক্তি সহায়তা এবং বিনিয়োগের উপর আরও বেশি গুরুত্ব প্রদান করা অপরিহার্য। নবায়নযোগ্য জ্বালানি ক্ষেত্রে বিশেষ করে এলডিসিতে অনেক সম্ভাব্য ব্যবসার সুযোগ রয়েছে।

তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন, ‘এই এজেন্ডাকে এগিয়ে নিতে আমরা বিদ্যমান উত্তর-দক্ষিণ, দক্ষিণ-দক্ষিণ এবং ট্রায়াঙ্গুলার সহযোগিতার সুবিধা নিতে পারি। এই বিষয়ে বেসরকারি খাতের সাথে সম্পৃক্ততাও গুরুত্বপূর্ণ বিবেচিত হবে।’ 

পরিশেষে, তিনি ৪৮-সদস্যের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ ফোরামের সভাপতি হিসেবে উল্লেখ করেন, আমরা অনেক এসআইডি এবং নিম্নাঞ্চলীয় জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশের সাথে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। এসব দেশে কৃষি-খাদ্য ব্যবস্থা গুরুতর চাপের মধ্যে রয়েছে। 

বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ বহুপাক্ষিকতায় দৃঢ় বিশ্বাসী।

তিনি বলেন ‘আমরা সর্বদা বিশ্ব শান্তি, স্থিতিশীলতা এবং উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য জাতিসংঘের আহ্বানে সাড়া দিয়েছি। এই গোষ্ঠীকে সমর্থন করার জন্য আমাদের প্রতিশ্রুতি সেই প্রত্যয় থেকে উদ্ভূত।’

জাতি হিসাবে আমরা সবচেয়ে ভয়ঙ্কর চ্যালেঞ্জগুলির বিরুদ্ধে সহিষ্ণুতার জন্য পরিচিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারী তার সর্বশেষ উদাহরণ। মহামারী কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে আমাদের প্রচেষ্টায় জীবন ও জীবিকার সুরক্ষার মধ্যে সতর্ক ভারসাম্য বজায় রাখা হয়েছে। আমরা আমাদের প্রচেষ্টায় সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার প্রদান করেছি। যারা সবচেয়ে পিছনে রয়েছে তাদের সহায়তা দেয়ার আমরা সামাজিক সুরক্ষার কভারেজ প্রসারিত করেছি।

তিনি উল্লেখ করেন, ভ্যাকসিন সংগ্রহের জন্য সময়মত ব্যবস্থা গ্রহণ আমাদের একটি বড় স্বাস্থ্য সঙ্কট এড়াতে এবং জীবন বাঁচাতে সাহায্য করেছে।

তিনি বলেন, আমরা আমাদের রপ্তানি খাত এবং এসএমইকে সমর্থন করার জন্য বাস্তবসম্মত উদ্যোগ নিয়েছি। ২৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের প্রণোদনা প্যাকেজ চালু করা হয়েছে। আর এই পদক্ষেপগুলি আমাদের গত অর্থবছরে ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার অর্জনে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে এবং জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে।

গ্লোবাল সাউথের প্রতিনিধি হিসাবে তিনি বলেন, ‘আমি এই সঙ্কটের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ লাখ লাখ মানুষের কণ্ঠস্বর টেবিলে নিয়ে এসেছি। আমাদের জাতীয় উন্নয়ন যাত্রা অনেক উদ্ভাবনী জলবায়ু কর্মের নেতৃত্ব দিয়েছে। আমরা অন্যদের সুবিধার জন্য জলবায়ু পরিবর্তন, জীব-বৈচিত্রের ক্ষতি এবং পরিবেশগত অবনতির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের জ্ঞান, বোঝাপড়া এবং অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চাই।’

;

বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলআরোহী দুই যুবক নিহত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলআরোহী দুই যুবক নিহত

বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলআরোহী দুই যুবক নিহত

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই যুবক নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন আরো এক যুবক।

শুক্রবার (২০ মে) রাত ৯টায় বগুড়া -নওগাঁ মহাসড়কে কাহালু উপজেলার বারমাইল নামক স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহতদের মধ্যে আব্দুল্লাহ (২৫) নামের একজনের নাম জানাগেছে। তিনি নওগাঁ সদর উপজেলার শিকারপুর গ্রামের বাসিন্দা। অপর জনের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

বেলাল হোসেন নামের একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন তিন যুবক মোটরসাইকেল যোগে নওগাঁর দিকে যাচ্ছিলেন। বারমাইল এলাকায় গার্ডেন ভিউ হোটেলের সামনে মোটরসাইকেলটি নওগাঁ গামী একটি ধান বোঝাই ট্রাককে ওভারটেক করে। এ সময় বগুড়াগামী একটি কোচের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী তিন যুবক মহাসড়কে পড়ে গেলে নওগাঁগামী ট্রাক তাদেরকে চাপা দিয়ে মহাসড়কে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুই যুবক মারা যান। গুরুতর আহত অপর এক যুবককে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে দেন। ট্রাকটি মহাসড়কে আড়াআড়ি ভাবে উল্টে থাকায় বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ট্রাকটি মহাসড়ক থেকে সরিয়ে নিলে আধাঘণ্টা পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমবার হোসেন বলেন নিহত দুইজনের মধ্যে একজনের পকেটে থাকা কাগজ অনুযায়ী তার নাম আব্দুল্লাহ বলে জানাগেছে। মরদেহ দুইটি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।

;

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: রাজবাড়ীতে প্রশ্ন জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: রাজবাড়ীতে প্রশ্ন জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: রাজবাড়ীতে প্রশ্ন জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজবাড়ীতে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার(২য় পর্যায়ের) প্রশ্নপত্র জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্যকে আটক করেছে রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পুলিশ। শুক্রবার (২০ মে) দুপুরে রাজবাড়ী পৌর শহরের নতুনবাজার এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

এ সময় তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে প্রশ্নের ফটোকপি, ২০টি মোবাইল ফোন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম।

শুক্রবার (২০ মে) বিকেল সাড়ে ৫টার সময় রাজবাড়ী জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখায় এক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত(ওসি) প্রানবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস।

আটককৃতরা হলেন, ইব্রাহীম হোসেন, সাগর আহম্মেদ, বিজয় বালা, মোঃ নুরুল হক হাওলাদার, মোঃ হারুন সরদার, রেজাউল করিম, আবু সালাম, মুনছুর মন্ডল, রুবেল মাহমুদ, মিজানুর রহমান, রুমান হাসান, মাইনুল ইসলাম, ও ফরিদা বেগম। আটককৃতদের মধ্যে পাচঁ জন প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষক রয়েছে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) প্রানবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস জানান, রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামানের নির্দেশনায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার দুপুরে জেলা শহরের নতুন বাজার এলাকার আবুল খায়েরের ছেলে মিজানুর রহমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। সে সময় তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে প্রশ্নের ফটোকপি, ২০ টি মোবাইল ফোন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম। । এ ব্যপারে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

;