সাঈদীর ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশকে কলঙ্কমুক্ত করার লক্ষ্যে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের আগেই যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে দেয়া আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান ও কার্যকরের দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ কর্মসূচী পালন করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে সংগঠনটি।

বিক্ষোভ সমাবেশের বক্তব্যে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ হাসান এমপি বলেন, ‘স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের আগেই কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান ও কার্যকরের দাবি জানাচ্ছি। একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত কুখ্যাত রাজাকার সাঈদী জেলে বসে জনগণের ট্যাক্সের টাকায় বিলাসী জীবন করাকে আমরা কখনোই মেনে নিতে পারি না। তিনি বলেন, ই একজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে মহামান্য আদালতের নিকট আমার দাবি, রাষ্ট্রপক্ষের রিভিউ পিটিশন বিবেচনা করে কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান ও কার্যকর করে লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে কলঙ্কমুক্ত করতে হবে।’

সুপ্রিম কোর্টের আপীল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক বলেন,‘কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে আমি বিচারপতি থাকা অবস্থায় ফাঁসি দেয়ার পক্ষে ছিলাম। রাজাকার সাঈদীর বিরুদ্ধে একাত্তরে গণহত্যার সুস্পষ্ট অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদের পিতাকে সাঈদী নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আজকের এই দাবির প্রতি আমি সমর্থন জানাচ্ছি। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের আগেই একাত্তরের গণহত্যায় জড়িত যুদ্ধাপরাধী সাঈদীকে দেয়া আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে মৃত্যুদণ্ড প্রদান ও কার্যকর করে বাংলাদেশকে কলঙ্কমুক্ত করতে হবে। তাহলে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও লাখো শহীদের রক্তের ঋণ কিছুটা হলেও শোধ করতে পারবো। একাত্তরে গণহত্যার মূলহোতা জেনারেল নিয়াজীর ভাতিজা  পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বাংলাদেশে আসার নাকি চেষ্টা করছে। মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী অপশক্তির দোসর ইমরান খান বাংলাদেশে আসার চেষ্টা করলে বিমানবন্দরে তাকে জীবন দিয়ে হলেও আমরা প্রতিহত করবো। বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে একাত্তরের পরাজিত অপশক্তি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীকে বাংলাদেশে কখনোই ঢুকতে দেয়া হবে না।’

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের যুগ্ম-মহাসচিব অধ্যাপক ডাঃ উত্তম কুমার বড়ুয়া বলেন, ‘কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর ফাঁসির দাবিতে আমাদেরকে আবারও দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে’

সংগঠনের সভাপতি আমিনুল  ইসলাম বুলবুল বলেন, ‘কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে ফাঁসির কাষ্ঠে ঝুলিয়ে লাখো শহীদের রক্তের ঋণ শোধ করতে হবে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের আগেই কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে মৃত্যুদণ্ডের রায় দেখতে চায় বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।’

সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আল মামুন বলেন,‘ ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্ত ও দুই লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত বাংলাদেশে রাজাকাররা থাকতে পারে না। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের আগেই কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধী সাঈদীকে দেয়া আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে ফাঁসির রায় প্রদান ও দ্রুত কার্যকর করতে হবে। অন্যথায় দেশব্যাপী আরোও কঠোর আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষণা করবে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।’