ভারতে চোরাই গরুসহ বাংলাদেশি আটক, থানায় হস্তান্তর



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নওগাঁ
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নওগাঁয় ভারতের অভ্যন্তরে গরুসহ মনিরুল ইসলাম (২৮) নামে এক বাংলাদেশিকে আটক করেছে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)। আটকের পর ভারতের মালদা জেলার হবিপুর থানায় মামলা দায়ের শেষে পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে বিজিবিকে নিশ্চিত করা হয়েছে বিএসএফর পক্ষে থেকে।

পোরশা উপজেলার বিজিবি-১৬ ব্যাটলিয়নের আওয়াতাধীন হাঁপানিয়া বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় শনিবার (২৭ নভেম্বর) ভোর রাতে ভারতের ২ কিলোমিটার অভ্যন্তরে ভুতপাড়াগ্রাম এলাকায় তাকে আটক করা হয়েছে। আটককৃত মনিরুল ইসলাম পোরশা উপজেলার নিতপুর ইউনিয়নের বিষ্ণুপুর গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে।

জানা গেছে, শুক্রবার রাতে পোরশায় ভারতীয় সীমান্ত দিয়ে স্থানীয় ৭/৮ জন চোরাকারবারি অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশ করে গরু-মহিষ আনতে যান। শনিবার ভোর রাতে ১৫/২০টা গরু-মহিষ নিয়ে তারা বাংলাদেশে ফেরার পথে ভারতের মালদা জেলার হবিপুর থানার ভুতপাড়াগ্রাম এলাকায় কেদারিপাড়া ক্যাম্পের সদস্যরা তাদের ধাওয়া করে। এ সময় অন্যরা গরু-মহিষ ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে আসতে পারলেও মনিরুল ইসলামকে কয়েকটি গরুসহ সীমান্ত থেকে ভারতের ২ কিলোমিটার অভ্যন্তরে মালদা জেলার ভুতপাড়াগ্রাম এলাকায় আটক করা হয়।

বিজিবি-১৬ (নওগাঁ) ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল রেজাউল কবির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাটি জানতে পেরে দ্রুত বিএসএফের সাথে যোগাযোগ করা হয়। বিএসএফের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে মনিরুল ইসলামকে ভারতের ২ কিলোমিটার অভ্যন্তরে কয়েকটি গরুসহ আটক করা হয়েছে। অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশ ও চোরাকারবারির দায়ে মালদা জেলার হবিপুর থানায় মামলা দায়ের শেষে পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে মনিরুল ইসলামকে।

উইল না থাকলে বাবার সম্পত্তি পাবে হিন্দু মেয়েরা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম,ঢাকা
ছবি: সংগ্রহীত

ছবি: সংগ্রহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

হিন্দু উত্তরাধিকার আইনে এক চাঞ্চল্যকর রায় দিয়েছেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। রায়ে মূল বিষয় ছিল হিন্দু বিধবা ও মেয়েদের সম্পত্তির অধিকার।  

মৃত্যুর আগে কোন উইল বা ইচ্ছাপত্র রেখে না গেলেও এখন থেকে বাবার মৃত্যুর পর তার সম্পত্তির ওপর পূর্ণ অধিকার পাবে ভারতের হিন্দু ধর্মাবলম্বী নারীরা। এক্ষেত্রে মৃত ব্যক্তির ভাতিজাদের চেয়ে মেয়েদের অধিকার অগ্রগণ্য হবে।

বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) ভারতের সুপ্রিম কোর্ট এ রায় ঘোষণা করেছেন। রায়ে বলা হয়েছে, হিন্দু মেয়েরা বাবার নিজের অর্জিত এবং অন্যান্য সম্পত্তির অধিকারী হবে। হিন্দু নারী ও বিধবাদের সম্পত্তির উত্তরাধিকার নিয়ে মাদ্রাজ হাইকোর্টের এক রায়ের বিরুদ্ধে করা আপিলের নিষ্পত্তি করে দেশটির সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতি এস আবদুল নাজির এবং বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারীর বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালত জানায়, উইল করার আগে মৃত্যু হলে বাবার সম্পত্তির ওপর পরিবারের অন্য সদস্যদের তুলনায় মেয়েদের বেশি অধিকার হবে। উইল করার আগে কোন হিন্দু পুরুষ যদি মারা যান, তাহলে তার সম্পত্তি সব সম্পত্তির উত্তরাধিকারীদের মধ্যে বণ্টন করা হবে। তবে মৃত হিন্দু ব্যক্তির মেয়ে তার অন্যান্য আত্মীয়দের তুলনায় সম্পত্তির উত্তরাধিকারের ক্ষেত্রে বেশি প্রাধান্য পাবেন।

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট আরও জানায়, যৌথ পরিবারে বসবাস করলেও যদি কোন হিন্দু ব্যক্তি কোন ধরনের উইল বা ইচ্ছাপত্র না করেই মারা যান, তবে তার অর্জিত এবং অন্যান্য সম্পত্তি উত্তরাধিকার সূত্রে মেয়েরাই পাবে।

হিন্দু বিধবা ও মেয়েদের উত্তরাধিকার পুরাতন হিন্দু রীতির পাশাপাশি বহু আইনেও সুরক্ষিত আছে বলেও রায়ে উল্লেখ করেন আদালত।

;

চাঁপাইনবাবগঞ্জে অস্ত্রসহ একজন আটক



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালিয়ে মো. খায়রুল ইসলাম (৩৭) নামে একজনকে অস্ত্রসহ আটক করেছে।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) রাতে জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের পলাশবোনা গ্রামে ধৃত ব্যক্তির কাছ থেকে ২টি ওয়ান শুটারগান ও ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে। ধৃত ব্যক্তি হচ্ছে জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার দূর্গাপুর গ্রামের মৃত মাইনুল ইসলামের ছেলে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ক্যাম্প র‌্যাব-৫ সূত্রে জানা গেছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোম্পানী অধিনায়ক মেজর মোঃ সানরিয়া চৌধুরী’র নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল শুক্রবার গভীর রাতে গোমস্তাপুর উপজেলার পলাশবোনা গ্রামের জনৈক জিয়াউর রহমানের বাড়ীর সন্নিকটে বোয়ালিয়া-বড়গাছিগামী এলাকায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ উক্ত ব্যক্তিকে আটক করে।

এ ব্যাপারে গোমস্তাপুর থানায় অস্ত্র আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

;

মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৪৮



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম,ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ৪৮ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. ফারুক হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান,শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) সকাল ছয়টা থেকে শনিবার (২২ জানুয়ারি) সকাল ছয়টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতারসহ মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়।

এ সময় তাদের থেকে ৩হাজার ৯৮৯ পিস ইয়াবা, ১৭০ গ্রাম হেরোইন, ২১ কেজি ২৭০ গ্রাম গাঁজা, ১০টি নেশাজাতীয় ইনজেকশন, ৩ লিটার দেশি মদ ও ১ লিটার ৭৯ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধারমূলে জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৩৯টি মামলা রুজু হয়েছে।

;

করোনার ধাক্কা: কক্সবাজারে বুকিং বাতিলের হিড়িক, শঙ্কায় ব্যবসায়ীরা



এহসান আল কুতুবী, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
ওমিক্রনের ধাক্কা লাগতে শুরু করেছে কক্সবাজারের পর্যটন ব্যবসায়। ছবি: সংগৃহীত

ওমিক্রনের ধাক্কা লাগতে শুরু করেছে কক্সবাজারের পর্যটন ব্যবসায়। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রনের ধাক্কা লাগতে শুরু করেছে কক্সবাজারের পর্যটন ব্যবসায়। কমে আসছে পর্যটকদের আনাগোনা। হোটেল মোটেল ও গেস্ট হাউসগুলোতে স্বাভাবিকের চেয়ে কম রুম বুকিং হচ্ছে। আবার অনেকে রুম বুকিং দিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে বুকিং বাতিল করছে। ভীড় নেই সমুদ্র সৈকত, রেস্টুরেন্ট ও পর্যটন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পণ্যের দোকানসহ স্পটগুলোতে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন ওমিক্রনের কারনে মানুষ আতংকিত। অনেকটা ভীতি সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়াও করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি ও যেকোন মূহুর্তে লকডাউনের ঘোষণা আসতে পারে এমন আতংকে পর্যটকদের আনাগোনা কমেছে।

পর্যটন মৌসুমে স্বাভাবিকভাবে সাপ্তাহিক ছুটির দিন ছাড়াও সবসময় মিনিমাম ৫০% রুম বুকিং থাকে। কিন্তু নতুন করে করোনা সংক্রমণ দিনদিন বেড়ে যাওয়ায় কারনে যা ২০% এ চলে এসেছে। আবার সাপ্তাহিক ছুটির দিনে ৭০-৮০% রুম বুকিং থাকে। সেক্ষেত্রেও ৪০% রুম বুকিং হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ফলে, নতুন করে পর্যটন ব্যবসায় শংকা দেখা দিয়েছে।

আমিন ইন্টারন্যাশনাল এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর মুহাম্মদ আমিন জানিয়েছেন, তার হোটেলে মোট ৩৫ টি রুম রয়েছে। তার মধ্যে মাত্র ১০ টি রুমে গেস্ট রয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার উপলক্ষে বেশ কয়েকটি রুম বুকিং ছিলো। কিন্তু করোনায় আক্রান্তের অজুহাতে বেশিরভাগ রুমের বুকিং বাতিল করেছে। ভরা মৌসুম হলেও ৫০% ছাড় দিয়ে রুম বুকিং দেওয়া হচ্ছে। তাতেও ৫০% রুম বুকিং হচ্ছে না।

যেকোন মূহুর্তে লকডাউনের ঘোষণা আসতে পারে এমন আতংকে পর্যটকদের আনাগোনা কমেছে।


হোটেল দ্যা গ্র্যাণ্ড স্যান্ডির চেয়ারম্যান আবদুর রহমান জানিয়েছেন, সাপ্তাহিক ছুটির দিন উপলক্ষে ২০০ জনের একটি গ্রুপের দু’দিনের বুকিং ছিলো। হঠাৎ করে তারা বুকিং বাতিল করেছেন। শুক্র ও শনিবার ছাড়া বাকি দিনগুলোর বেশিরভাগ সময় কোন বুকিং থাকে না।

তিনি আরো জানান, সরকার আবার কখন লকডাউন দেয় তা নিয়ে সাধারণ মানুষ আতংকে আছে। এর কারনেও অনেকে আসার সাহস করছে না।

একই অবস্থা নামি-দামি খাবারের হোটেল রেস্তোরাঁয়ও। বিভিন্ন সুস্বাদু খাবারের আইটেম রেডি করলেও ভোজনরসিক পর্যটকদের আনাগোনা কমে যাওয়ায় অনেক খাবার নষ্ট হচ্ছে। এমনকি নতুন করে লকডাউনের ঘোষণা আসলে বড় ধরনের লোকসান আতংক কাজ করছে তাদের মাঝে।

ভরা মৌসুম হলেও ৫০% ছাড় দিয়ে রুম বুকিং দেওয়া হচ্ছে। তাতেও ৫০% রুম বুকিং হচ্ছে না।

কুটুমবাড়ি রেস্তোরাঁর চেয়ারম্যান, আশরাফুল ইসলাম রাকিব জানিয়েছেন, মাত্র ২১ দিন আগে তার প্রতিষ্ঠান কুটুমবাড়ি রেস্তোরাঁর একটি শাখা খুলেছেন। কোটি টাকা ইনভেস্ট করে এখন শংকায় দিন কাটাচ্ছেন। বিশেষ করে পর্যটক নির্ভর হওয়ায় করোনা আতংকের পর থেকে বেচাকেনা কমে গেছে। তবে, শুক্রবার হিসেবে মোটামুটি ভীড় ছিলো।

হোটেল মোটেল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার জানিয়েছেন, শুধু করোনার কারনে নয় বিভিন্ন কারনে পর্যটকদের আনাগোনা কমেছে। করোনার পাশাপাশি এতোদিন স্কুল খোলা ছিলো, স্কুলের ট্যুরও বন্ধ। এখানে যারা আসেন বেশিরভাগ ফ্যামেলি ট্যুরে আসেন। সে হিসেবে ফ্যামেলির কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে আর আসা হয় না।

তিনি আরো জানান, মানুষের মধ্যে আতংক কাজ করছে। বিশেষ করে যারা আগে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সাথে লড়েছেন তারা ভয়ে আসতে চায় না। হোটেল মোটেলে শুক্রবার মোট ৪০% রুম বুকিং ছিলো বলেও জানান তিনি।

প্রতিদিন হু হু করে বাড়ছে করোনা। নতুন করে যুক্ত হয়েছে ওমিক্রন। এ কারনে আতংক কাজ করলেও মাস্ক পড়া নিশ্চিত করাসহ সরকারি নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে প্রতিদিন ৩-৪ টি টিম নিয়ে প্রতিনিয়ত হোটেল মোটেল জোনসহ শহরের বিভিন্ন স্পটে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান।

তিনি জানান, নিয়মিত অভিযান হিসেবে সরকার ঘোষিত স্বাস্থ্যবিধি সঠিকভাবে পালন করা হচ্ছে কিনা তা নিয়ে হোটেলগুলোতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। কোন বিষয়ে অসঙ্গতি পেলে জরিমানাও করা হচ্ছে।

বিশেষ করে পর্যটকদের মাস্ক ছাড়া সমুদ্র সৈকতে ঘুরাফেরা করতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। পাশাপাশি সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মাস্ক বিতরণ করা হচ্ছে। মাস্ক পড়া নিশ্চিত করতে নিয়মিত মাইকিং করা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।

;