বদলে যাচ্ছে চরাঞ্চলের কৃষি ব্যবস্থা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম গাইবান্ধা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নদী বিধৌত জেলা গাইবান্ধা। এ জেলার নদ-নদীর বুকে জেগে উঠেছে অসংখ্য বালুচর। এসব চরে অনেকে জমি পতিত রাখতো। এখানকার কৃষকরা ফসল ফলিয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতেন। এরই মধ্যে চরাঞ্চলের কৃষকদের লাভবান করতে এমফোরসি নামের একটি প্রকল্প কাজ শুরু করে। ইতোমধ্যে এ প্রকল্পের আওতায় বদলে যাচ্ছে  চরাঞ্চলের কৃষি ব্যবস্থা।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে গাইবান্ধার রাধাকৃষ্ণপুরে এসকেএস ইন্ এর জলধারা মিলনায়তনে এক সম্মেলন এমন তথ্য তুলে ধরা হয়।

এসকেএস ফাউণ্ডেশনের সহযোগিতায় মেকিং মার্কেটস্ ওয়ার্ক ফর দি চরস্ (এমফোরসি) প্রকল্পের উদ্যোগে  চরাঞ্চলের ফসল ব্যবসায়ীদের নিয়ে সম্মেলনটি অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাংলাদেশের স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং সুইজারল্যান্ডের সুইস এজেন্সি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড কোঅপারেশনের আর্থিক সহায়তায় এমফোরসি প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা সুইস কন্টাক্ট বাংলাদেশ ও বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমি। এতে সহযোগি সংস্থা হিসেবে কাজ করছে এসকেএস ফাউণ্ডেশন।

সম্মেলনে গাইবান্ধা সদর, সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার চরাঞ্চলের ২৭ জন ব্যবসায়ী এবং এগ্রো প্রসেসিং কোম্পানি, এসকেএস  ফাউণ্ডেশন ও গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। সম্মেলনের উদ্বোধন করেন ও প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন গাইবান্ধা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. বেলাল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি জেলা মার্কেটিং কর্মকর্তা মো. শাহ্ মোয়াজ্জেম হোসেন।

সম্মেলনে বক্তারা বলেন, এমফোরসি প্রকল্প শুরুর আগে চরাঞ্চলে যেমন ভালোমানের বীজ ও কীটনাশক ব্যবহার করা হতো না তেমনি ভালো ফলনও পেতনা কৃষক। ফলে কৃষকরা ফসল ফলিয়ে আর্থিকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হতো। অনেকে জমি পতিত রাখতো। কিন্তু প্রকল্পটি চালু হওয়ার পর থেকে বদলে যেতে থাকে চরাঞ্চলের কৃষি ব্যবস্থা। মানুষ এখন জমি পতিত রাখার পরিবর্তে ইজারা নিয়ে চাষাবাদও করছেন। ফলে কৃষকরা এখন ফসল ফলিয়ে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। প্রকল্পটির উদ্যোগে উৎপাদিত ফসল ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করার জন্য বাণিজ্যিক সেবাপ্রদানকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করে দেওয়া হচ্ছে। ফলন বৃদ্ধি করতে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন পরামর্শ ও কারিগরী সহযোগিতা।

এমফোরসি প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পটি গাইবান্ধা সদর উপজেলার কামারজানী ও মোল্লারচর ইউনিয়ন, সুন্দরগঞ্জের বেলকা, কাপাশিয়া, হরিপুর ও তারাপুর, ফুলছড়ির গজারিয়া, ফুলছড়ি, ফজলুপুর, এরেন্ডাবাড়ী, উড়িয়া ও কঞ্চিপাড়া এবং সাঘাটা উপজেলার সাঘাটা ও হলদিয়া ইউনিয়নের ১২৯টি চরে কাজ করছে। এতে সুবিধাভোগী রয়েছে ওইসব চরের ৫৪ হাজার ২০০ পরিবার।

চরাঞ্চলে ধান, পাট, বাদাম, সরিষা, ভুট্টা, মরিচ, মাসকালাই বেশি চাষাবাদ হয়ে থাকে।এই প্রকল্প বাস্তবায়নের ফলে চরাঞ্চলে অত্যাধুনিক কৃষি প্রযুক্তির প্রয়োগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়া কৃষকরা কৃষি উপকরণ ও অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহারের মাধ্যমে প্রতিটি ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে সাফল্যজনক অবদান রাখছে। এতে চরাঞ্চলে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে। যা রাষ্ট্রীয় প্রবৃদ্ধি অর্জনে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে।

পুলিশের পিকআপ ভ্যানের চাকা ফেটে দুর্ঘটনা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ফরিদপুর
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার মনসুরাবাদ বাসস্ট্যান্ডে পুলিশের দায়িত্বরত একটি পিকআপ ভ্যান দুর্ঘটনার শিকার হয়। এসময় ভাঙ্গা থানা পুলিশের এক সদস্য আহত হয়েছেন।

জানা যায়, শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে সামনের ডান পাশের চাকা ফেটে হলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুলিশের পিকআপ ভ্যান সামনে থাকা ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে হয়, এতে পিক-আপ ভ্যানের সামনের অংশ দুমড়ে মুচড়ে যায় ।

দুর্ঘটনার শিকার ফরিদপুরের ভাঙ্গা হাইওয়ে থানা পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর সোহানুর রহমান জানান, ভাঙ্গা থানা পুলিশের পিক-আপ ভ্যান টির সামনের ডান পাশের চাকা হঠাৎ ফেটে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এসময় রাস্তার পাশে দাড়িয়ে থাকা ট্রাকে গিয়ে সজোরে আঘাত করে। পিক-আপ ভ্যানটি সামনের অংশ কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয় ও একজন পুলিশ সদস্য সামান্য আহত হন। দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এই ব্যাপারে ফরিদপুরের ভাঙ্গা হাইওয়ে থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আরিফ জানান, ভাঙ্গা থানা পুলিশের একটি পিক-আপ ভ্যান দুর্ঘটনায় পরার সংবাদ পাওয়া মাত্রই আমদের একটি টিম পাঠাই। পরবর্তীতে পুলিশের পিকআপ ভ্যান টি উদ্ধার করে ফরিদপুর পুলিশ লাইনে পাঠিয়ে দেই এবং ক্ষতিগ্রস্থ ট্রাকটিকে তার মালিকের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

এই বিষয়ে ভাঙা থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ সেলিম রেজা শনিবার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আমাদের একটি পিক-আপ ভ্যান মনসুরাবাদ এলাকায় দুর্ঘটনায় পরে। আমাদের একজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন।

;

‘নির্বাচন কমিশন গঠনের খসড়া আইনে অপূর্ণতা আছে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এ.টি.এম. শামসুল হুদা

সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এ.টি.এম. শামসুল হুদা

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এ.টি.এম. শামসুল হুদা বলেছেন, নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য প্রস্তাবিত খসড়া আইনে মনে হচ্ছে অনেক অপূর্ণতা রয়েছে। আপাতত দৃষ্টিতে মনে হয় এটি শুধু সার্চ কমিটি গঠনের জন্য। সত্যিকার অর্থে বর্তমান সংসদে জনপ্রতিনিধিত্ব নেই, তাই প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোকে এই প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত করতে হবে। সংশ্লিষ্ট সকলের মতামতের ভিত্তিতে খসড়া আইনটি চূড়ান্ত করা উচিত।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন আইনটি যাতে জনগণের নিকট গ্রহণযোগ্য হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। একটি ভালো আইনের জন্য প্রয়োজনে সময় নেওয়া যেতে পারে। তাড়াহুড়া করে ত্রুটিপূর্ণ আইন প্রণয়ন কারো জন্যই কল্যাণকর হবে না।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির আয়োজনে এফডিসিতে ‘গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন গঠন রাজনৈতিক দলের সদিচ্ছার ওপর নির্ভর করছে’ শীর্ষক ছায়া সংসদে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। সভাপতির বক্তব্যে তিনি নির্বাচনকালীন সরকারে অন্তর্ভূক্তির জন্য অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সাইয়িদ এবং ড. এ.টি.এম. শামসুল হুদার নাম প্রস্তাব করেন।

ড. এ.টি.এম. শামসুল হুদা বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যান্য নির্বাচন কমিশনারদের নিয়োগের ক্ষেত্রে যোগ্যতা ও অযগ্যোতা সুস্পষ্ট রূপরেখা থাকতে হবে। যাদের সম্পর্কে অভিযোগ রয়েছে তাদেরকে বিবেচনায় না নেওয়া উচিত। প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য কমিশনাররা কোন দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়লে তাদের আইনানুগ বিচার হওয়া উচিত। কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়, তাই কোন বিশেষ পদধারী ব্যক্তির অপরাধের বিচারের জন্য ইনডেমনিটি থাকা উচিত নয়। বর্তমান নির্বাচন কমিশন সদিচ্ছা থাকলে ভালো নির্বাচন করতে পারতো। তাদের পারফরমেন্স সন্তোষজনক নয়। তত্ত্বাবধায়ক সরকার রাজনৈতিক ব্যবস্থার জন্য সুখকর না হলেও তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচন অধিকতর গ্রহণযোগ্য হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, গণতন্ত্র ও সুশাসনের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন খুবই জরুরি। রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবে গত ৫০ বছরে দেশে নির্বাচন কমিশন গঠনের জন্য কোন আইন তৈরি হয়নি। প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা বৃদ্ধিতে রাজনৈতিক সদিচ্ছা না থাকলে সুশাসন ব্যাহত হয়। দুর্নীতির কারণে সরকারি কর্মকর্তাদের শাস্তির ঘটনা খুবই কম। অথচ পাকিস্তান আমলেও সিভিল সার্ভিসে অনিয়ম ও দুর্নীতির জন্য সরকারি কর্মকর্তাদের শাস্তি হতো।

প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনলোজির বিতার্কিকদের পরাজিত করে ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের বিতার্কিকরা বিজয়ী হয়। প্রতিযোগিতা শেষে অংশগ্রহণকারী দলের মাঝে ট্রফি ও সনদপত্র বিতরণ করা হয়।

;

সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ আইসিইউতে



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ

সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছে। লিভারজনিত সমস্যার কারণে সুপ্রিমকোর্টের সিনিয়র আইনজীবীকে ল্যাবএইড হাসপাতালে অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীলের তত্ত্বাবধানে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

গত ১৮ জানুয়ারি রাতে ব্যারিস্টার শফিক আহমেদেকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি লিভারজনিত জটিলতায় ভুগছেন। তার চারবার করোনা টেস্ট করানো হয়েছে। কিন্তু রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছে বলে জানান তার ছেলে ব্যারিস্টার মাহবুব শফিক।

ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। এছাড়া তিনি সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি।

;

মসিকে ৪ সড়ক উদ্বোধন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম,ময়মনসিংহ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন (মসিক) এর সম্প্রসারিত এলাকা ৩১ নং ওয়ার্ডে ১৫ কোটি টাকা ব্যায়ে ৪ টি রাস্তার নির্মাণকাজ উদ্বোধন করেন মেয়র মো. ইকরামুল হক টিটু

শনিবার (২২ জানুয়ারি) সকাল ১১ টায়। উদ্বোধনকৃত সড়কসমূহ হল শম্ভুগঞ্জ ব্রিজ সড়ক ও জনপদের রাস্তা থেকে পাওয়ার হাউজ হয়ে জয়বাংলা বাজার পর্যন্ত বিসি রোড, চর ঈশ্বরদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে জোড়াপুল সাহেব খালি পর্যন্ত বিসি রোড, চর ঈশ্বরদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে সুলতানের মোড় পর্যন্ত বিসি রোড এবং চর ঈশ্বরদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে বকুল মেম্বারের বাড়ি পর্যন্ত বিসি রোড।এসব সড়কসমূহের মোট দৈর্ঘ্য প্রায় সাড়ে ৭ কিলোমিটার।

ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশন এর সম্প্রসারিত ওয়ার্ডসমূহের উন্নয়নে দ্রুত এগিয়ে চলেছে সড়ক, ড্রেন ও অবকাঠামো নির্মাণ কাজ। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সিটি কর্পোরেশনে অন্তর্ভুক্ত ২২ থেকে ৩৩ নং ওয়ার্ডের এসব এলাকায় ইতোমধ্যে প্রায় ৩০০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান আছে।

এ বিষয়ে মেয়র বলেন, করোনার কারনে সারা বিশ্বের মত আমাদের উন্নয়ন কার্যক্রমও কিছুটা ব্যাহত হয়েছে। আমরা করোনার ক্ষতিকে পুষিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছি। নতুন অন্তর্ভুক্ত ওয়ার্ডসমূহের উন্নয়নকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিচ্ছি।

উদ্বোধনকালে ৩১ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোঃ আসাদুজ্জামান, ৩১,৩২,৩৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর ফারজানা ববি কাকলি, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জহিরুল হক, নির্বাহী প্রকৌশলী বিদ্যুৎ মো. জিল্লুর রহমান, সহকারী প্রকৌশলী মো. আজাহারুল হক, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

;