ভোট চুরির জন্যই সিসি ক্যামেরা সরানোর নির্দেশ দিয়েছে ইসি: তৈমূর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনে হঠকারিতা ও ভোট চুরি করার জন্যই কেন্দ্রগুলোতে থাকা সিসি ক্যামেরা সরিয়ে ফেলার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার।

তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জের প্রতিটি স্কুলে সিসি ক্যামেরা দিয়েছেন। অথচ ভোটকে কেন্দ্র করে নির্বাচন কমিশন থেকে বলা হয়েছে, সব সিসি ক্যামেরা সরিয়ে নিতে। হঠকারিতা, ভোট চুরি, আমার নেতাকর্মীদের ওপর হামলা ও পুলিশি নির্যাতনের জন্যই সিসি ক্যামরা তুলে নেয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’

বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) রাত ১০টায় তার বাসভবনে জরুরি সংবাদ সম্মেলন ডেকে এসব কথা বলেন তৈমূর আলম খন্দকার।

পুলিশি হয়রানির অভিযোগ করে তৈমূর আলম বলেন, রেশমা নামের একটা মেয়েকে পোস্টার লাগনোর সময় পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে। স্বপন নামের একজনকেও ধরে নিয়ে গেছে। এছাড়া মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি জসিমের বাড়িতে তালা ভেঙে তাকে ধরতে গিয়েছিল। তিনি এক ছাদ থেকে আরেক ছাদে লাফ দিতে গিয়ে পা ভেঙে ফেলেছেন। পুলিশ অধিকাংশ নেতাকর্মীর বাড়িতে তল্লাশির নামে গিয়ে ভয়ভীতি ও হয়রানি করছে।

তিনি বলেন, আজ সর্বশেষ বন্দরে নির্বাচনী প্রচারণা করতে গিয়েছি, আমার সাথে কোনো বহিরাগত লোক ছিল না। সবাই ছিল নারায়ণগঞ্জের ভোটার। অথচ সেখানে আমার প্রতিদ্বন্দ্বি যখন প্রচারণায় গিয়েছেন, সেখানে নেতৃত্ব দিয়েছেন বাইরের মেহমানরা। আমরা এখন খুব আতঙ্কের মধ্যে আছি।

তৈমূর বলেন, শুনেছি কেন্দ্রে একজন অপারেটর দেয়া হবে, মেশিনে কোন সমস্যা হলে ঠিক করার জন্য। তবে সেই অপারেটর যা করুক আমাদের এজেন্ট এর সামনে করতে হবে। আমাদের এজেন্ট এবং নেতাকর্মীরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তারা কেন্দ্র ছেড়ে যাবে না। কিন্তু নির্বাচন কমিশনকে এজেন্ট বের করে দেয়া হবে না এবং তাদের ওপর কোন আক্রমণ হবে না সে নিশ্চয়তা দিতে হবে।

তিনি বলেন, বিভিন্ন কেন্দ্রে লোক সেট করা হয়ে গেছে, জয় তাদের পক্ষে নেয়ার জন্য। নারায়ণগঞ্জের সার্কিট হাউজসহ সব জায়গায় এখন বহিরাগত লোক দিয়ে ভরা। তারা উস্কানিমূলক কাজ এবং বক্তব্য দেয়ার জন্য আসছে। ভোটের দিনে তাদের কোনো কাজ নেই। তারা যেন রাস্তাঘাটে চলাফেরা করতে না পারে। এছাড়া ভোটার ছাড়া যারা রাস্তায় চলাফেরা করবে, তারা যেন আইডি কার্ড ব্যবহার করে। আইডি কার্ডের বাইরে কোনো বহিরাগত লোক যেন নির্বাচনের দিন নারায়ণঞ্জে প্রবেশ করতে না পারে, সেজন্য আমি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

ভোটের দিনের রেজাল্ট নিয়ে তিনি বলেন, ভোটের দিনে ‍এক কেন্দ্রে ৫-৭ টা করে বুথ থাকতে পারে। ভোট শেষ হওয়া মাত্রই আমদের এজেন্টের উপস্থিতিতে গণনা করে প্রিন্ট দিতে হবে।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৭৩ চেয়ারম্যান!



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম ঢাকা
বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৭৩ চেয়ারম্যান!

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ৩৭৩ চেয়ারম্যান!

  • Font increase
  • Font Decrease

চলমান দশম ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে পঞ্চম ধাপ পর্যন্ত ৩৫২ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হয়েছেন। এছাড়াও ষষ্ঠ ধাপে ১২ জন এবং সপ্তম ধাপে আরো ৯ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান হতে চলেছেন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত চেয়ারম্যানের সংখ্যা হচ্ছে ৩৭৩ জন। একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এত বেশিসংখ্যক প্রার্থীর নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা দেশের ইউপি নির্বাচনের ইতিহাসে আগে কখনো ঘটেনি।

ইসি সচিবালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এবারের ইউপি নির্বাচনে প্রথম ধাপে ৭১ জন, দ্বিতীয় ধাপে ৮১ জন, তৃতীয় ধাপে ১০০ জন, চতুর্থ ধাপে ৪৮ জন এবং পঞ্চম ধাপে ৫২ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া গতকাল শনিবার সপ্তম ধাপের নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিনে একক প্রার্থী হিসেবে ৯ জনের বিনা ভোটে জয়ী হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর আগে আগামী ৩১ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় ষষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনে ভোটের আগেই ১২ জনকে চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী হিসেবে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়। ষষ্ঠ ধাপে ২১৯ ইউপিতে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল ১৩ জানুয়ারি।

সপ্তম ধাপে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাওয়া ৯ জন চেয়ারম্যান হচ্ছেন—পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার দাসপাড়া ইউপির জাহাঙ্গীর হোসেন; চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার কেওচিয়া ইউপির মো. ওচমান আলী, সাতকানিয়া সদর ইউপির মোহাম্মদ সেলিম উদ্দিন, পুরানগড় ইউপির আ ফ ম মাহবুবুল হক সিকদার ও মাদার্শা ইউপির আবু নাঈম মোহাম্মদ সেলিম; বান্দরবান সদর ইউপির অংচাহ্লা মারমা, জামছড়ি ইউপির ক্যচিং শৈ মারমা; রাঙামাটির বাঘাইছড়ি সদর ইউপির অলিভ চাকমা ও রুপকারী ইউপির জেসমিন চাকমা ধনেশ্বর (স্বতন্ত্র)।

এদিকে আগামী ৩১ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় ষষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাওয়া ১২ জনের মধ্যে ১১ জনই কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলার। কিন্তু তাদের মধ্যে তিনজনের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার পথে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়েছে। ঝলম উত্তর, লক্ষ্মণপুর ও সরসপুর ইউপির চেয়ারম্যান পদে চারজন প্রার্থী সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং অফিসারের কাছ থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহে ব্যর্থ হয়ে উচ্চ আদালতে রিট করেন। আদালত তাদের মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ করতে রিটার্নিং অফিসারকে নির্দেশ দিয়েছেন। এই চারজন প্রার্থী হিসেবে বৈধতা পেলে ষষ্ঠ ধাপে বিনা ভোটের চেয়ারম্যানদের সংখ্যা ৯ জনে নেমে আসবে। এক্ষেত্রে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া চেয়ারম্যানের সংখ্যা দাঁড়াবে ৩৭০ জন।

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত নবম ইউপি নির্বাচনে ২১২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়ী হয়েছিলেন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়। পাশাপাশি সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের সদস্য পদেও বিনা ভোটে জয়ের রেকর্ড হচ্ছে এবার। এ ধরনের বিজয়কে গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয় বলে মন্তব্য করছেন অনেকেই।

সুশাসনের জন্য নাগরিক সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার গণমাধ্যমকে বলেছেন, জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে স্থানীয় সরকারের খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এখন এই প্রতিষ্ঠানটিকে ব্যবসায়িক লেনদেনের জায়গায় দাঁড় করানো হয়েছে। স্থানীয় সরকারকে কলুষিত করা হয়েছে। এর ফল মঙ্গলজনক হবে না।

;

বরগুনায় যাত্রীবাহী বাস উল্টে আহত ১২



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম,বরগুনা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ঢাকা থেকে বরগুনার উদ্দেশে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাস মহাসড়কে উল্টে ১২ জন যাত্রী আহত হয়েছে। 

রবিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল ছয়টায় বরগুনা সদর উপজেলার ৩ নম্বর ইউনিয়নের গলাচিপা বাজারে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এখন পর্যন্ত কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। 

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যায় ঢাকা থেকে বরগুনার উদ্দেশ্যে সোনার তরী যাত্রীবাহী সকালে ১৫ জন যাত্রী নিয়ে সদর উপজেলার ৩ নম্বর ইউনিয়নের গলাচিপা বাজারে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার খাদে উল্টে পড়ে যায়। এতে ১২ জন যাত্রী আহত হওয়ার খবর জানা যায়। আহত ব্যক্তিদের বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। 

বরগুনা ফায়ার সার্ভিসের উপসহকারী পরিচালক(চঃদাঃ) জাহাঙ্গীর আহমেদ বলেন, আমাদের উদ্ধার অভিযান চলমান রয়েছে। এখনো কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

;

জাতীয় প্রশিক্ষণ দিবস আজ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
জাতীয় প্রশিক্ষণ দিবস আজ

জাতীয় প্রশিক্ষণ দিবস আজ

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় প্রশিক্ষণ দিবস আজ। প্রশিক্ষিত মানবসম্পদ গড়ে তোলার প্রত্যয়ে দিনটি পালিত হয়। দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাণী দিয়েছেন। বাংলাদেশ প্রশিক্ষণ ও উন্নয়ন সমিতি (বিএসটিডি) এ দিবসে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

রাষ্ট্রপতি বাণীতে বলেছেন, বাংলাদেশ প্রশিক্ষণ ও উন্নয়ন সমিতি দেশের প্রশিক্ষক ও প্রশিক্ষণ সেক্টরের সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য গত চার দশকের অধিককাল ধরে উন্নয়ন ও প্রশিক্ষণ বিষয়ক গবেষণা এবং প্রশিক্ষণ কর্মসূচি পরিচালনা করছে। তাদের এ প্রয়াস সরকারের মানবসম্পদ উন্নয়ন প্রচেষ্টাকে সচল করতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে।

প্রধানমন্ত্রী তার বাণীতে বলেন, সরকার প্রশিক্ষণের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা অনুধাবন করে প্রশিক্ষণ সেক্টরের উন্নয়ন ও সংস্থার কার্যক্রম অব্যাহত গতিতে চালিয়ে যাচ্ছে।

বিএসটিডি সভাপতি জানিবুল হক বাণীতে বলেন, প্রশিক্ষণকে অধিকতর ফলপ্রসূ এবং কার্যকর করতে তাদের সমিতি বিভিন্ন সেমিনার ও ওয়ার্কশপের আয়োজনসহ জার্নাল ও সংযোগপত্র প্রকাশ এবং অন্যান্য কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে।

;

নওগাঁয় বিটকয়েন ক্রয়-বিক্রয় চক্রের মূল হোতাসহ আটক ২



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, নওগাঁ
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

নওগাঁয় অবৈধ বিটকয়েন ক্রয়-বিক্রয় চক্রের মূল হোতাসহ দুইজনকে আটক করেছে জেলা গোয়েন্দা সংস্থা ডিবি পুলিশ এবং জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই)।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) শহরের গোস্তহাটির মোড় ও আত্রাই উপজেলার চৌড়বাড়ী গ্ৰামে যৌথ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, আত্রাই উপজেলার চৌড়বাড়ী গ্রামের আব্দুস শুকুর ছেলে সারোয়ার হোসেন ডলার (৩০) এবং একই গ্রামের সামসুল আলম খন্দকার এর ছেলে রাকিবুল ইসলাম খন্দকার রকি (২৫)।

রোববার (২২ জানুয়ারি) সকালে জেলা গোয়েন্দা সংস্থা ডিবি পুলিশ কার্যালয় থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানানো হয়।

প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়-রাকিবুল ইসলাম খন্দকার রকি এবং সারোয়ার হোসেন ডলার দীর্ঘদিন যাবৎ অবৈধ বিটকয়েন ক্রয় বিক্রয়ের সাথে জড়িত থাকার তথ্য জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার নিকট আসে। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে এনএসআই এবং ডিবি পুলিশ অভিযান চালিয়ে আত্রাই উপজেলার চৌড়বাড়ী গ্রামের নিজ বাসা থেকে বিটকয়েন চক্রের মূলহোতা রাকিবুল ইসলাম খন্দকার রকিকে আটক করে। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বিটকয়েন চক্রের সমন্বয়কারী সারোয়ার হোসেন ডলারকে নওগাঁ শহরের গোস্তহাটির মোড় থেকে আটক করে।

প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়-সর্বশেষ বিটকয়েন বিক্রির ১ লাখ ৮২ হাজার ইউএস ডলার যার মূল্যমান প্রায় ১ কোটি ৫৬ লাখ টাকা লেনদেনের জন্য সারোয়ার হোসেন ডলারের ব্যাংক এশিয়া এর স্বাধীন মাস্টার কার্ড (নম্বর- ৫৪১১৭৩০১০০৩১২৮৬১) ব্যবহার করে। বিটকয়েন বিক্রয় হলে একাউন্টে অনেক টাকা জমা হবে লোভ দেখিয়ে তারা অনেকের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নেয়ার বিষয়টি প্রাথমিক ভাবে জানা যায়।

এছাড়াও একটি বিটকয়েনের মূল্য ৩৫ লাখ টাকা বলে প্রচারণা করে আসতেছিল। এবং এই বিটকয়েন ক্রয়ের জন্য তাদের টাকার প্রয়োজন বলে লোকজনদের প্রলোভন দেখিয়ে টাকা নেয়। এতে ভুক্তভোগীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এবং প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে দীর্ঘদিন যাবৎ বিটকয়েন ক্রয় বিক্রয়ের সাথে জড়িত বলে তারা স্বীকার করে।

তাদের বিরুদ্ধে আত্রাই থানায় প্রতারনার মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেও প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

;