‘রাজধানীতে আর অপরিকল্পিত নগরায়ন করতে দেওয়া হবে না’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজধানীতে আর কোথাও কোনো অপরিকল্পিত নগরায়ন নয়। এক ইঞ্চি জায়গাতেও অপরিকল্পিতভাবে কিছু করতে দেওয়া হবে না। অবৈধভাবে সিটি করপোরেশনের জায়গায় গড়ে উঠা সব স্থাপনা ভেঙে ফেলা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম।

তিনি বলেন, রাজউককে চিঠি দেওয়া হয়েছে, নগরে যাদের অংশীদারত্ব রয়েছে সবাইকে জানানো হয়েছে। আমরা রাজউকের কাছে জানতে চেয়েছি কারা কারা কোন নকশায় বিল্ডিং বানানোর কথা বলে এখন কীভাবে বানিয়েছে তা জানানোর জন্য।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) রাজধানী পান্থপথের প্লায়ার্স টাওয়ারে আয়োজিত '১৫তম কার্যনির্বাহী পরিষদের অভিষেক ও জ্যেষ্ঠ পরিকল্পনাবিদের সংবর্ধনা' অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মেয়র আতিক বলেন, রাজধানীর বছিলায় খাল দখল করে বহুতল ভবন গড়ে উঠেছে। এটা কী কেউ দেখেনি? যতবড় শক্তিই অবৈধ দখলের পেছনে থাকুক না কেনো, তাদের কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না ৷

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উন্নয়নের যে মহাযজ্ঞ শুরু করেছেন সব কিছু করা হচ্ছে পরিকল্পিতভাবে। ২০৪১ সালের বাংলাদেশ, এমন কী ২১০০ সালের বাংলাদেশ কেমন হবে তার রূপরেখাও তিনি প্রণয়ন করে দিয়েছেন।

মেয়র অবৈধ দখলদারদের উদ্দেশ্যে বলেন, সিটি করপোরেশন অবৈধ দখলের জন্য কাউকে বৈধ নোটিশ দেবে না।

তিনি হাউজিং ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, পাসকৃত নকশার বাইরে কোনো কাজ করার চেষ্টা করবেন না। ১/২ কাঠা জায়গা কাউকে বরাদ্দ দেবেন না। এই জায়গা আমাদের দিন, আমরা সাজিয়ে দেব। এতে ওই এলাকার পরিবেশ সুন্দর হবে।

তিনি আরও বলেন, অপরিকল্পনা আর অবস্থাপনার কারণেই কিন্তু শহর নোংরা হচ্ছে, যেখানে সেখানে ময়লা ফেলা হচ্ছে। এ ব্যাপারে সবাইকে সচেতন হতে হবে বলে তিনি জানান।

এ সময় মেয়র আতিকুল ইসলাম সুস্থ সচল আধুনিক ঢাকা নির্মাণের জন্য সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

স্বর্ণ উদ্ধার করে চেপে যাওয়ায় চাকরি হারালেন এসপি আলতাফ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
স্বর্ণ উদ্ধার করে চেপে যাওয়ায় চাকরি হারালেন এসপি আলতাফ

স্বর্ণ উদ্ধার করে চেপে যাওয়ায় চাকরি হারালেন এসপি আলতাফ

  • Font increase
  • Font Decrease

১২০ ভরি স্বর্ণ উদ্ধারের পর বিষয়টি চেপে গিয়ে স্বর্ণ কারবারির বিরুদ্ধে মাদকের মামলা করেছিল পুলিশ। সাড়ে পাঁচ বছর আগে সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা থানার এ ঘটনায় চাকরি হারিয়েছেন পুলিশ সুপার (এসপি) আলতাফ হোসেন।

বুধবার ট্যুরিস্ট পুলিশের সিলেট অঞ্চলে দায়িত্বরত আলতাফ হোসেনকে চাকরি থেকে অপসারণের তথ্য জানিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ।

আলতাফ হোসেন ২০১৬ সালের ২৩ জুলাই থেকে পরের বছর ডিসেম্বর পর্যন্ত সাতক্ষীরার পুলিশ সুপার ছিলেন। তার দায়িত্ব পালনের সময় ২০১৬ সালের ৬ অক্টোবর বিপ্লব চ্যাটার্জি নামে এক স্বর্ণ চোরাকারবারি আটক হন। তার কাছ থেকে ১২০ ভরি স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছিল। পাটকেলঘাটা থানায় উদ্ধার করা সোনার জব্দ তালিকাও করা হয়েছিল। কিন্তু সোনা চোরাচালানের মামলা না হয়ে এ ঘটনায় মাদকের মামলা রেকর্ড করা হয়।

বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আখতার হোসেনের সই করা ওই প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা ২০১৮ এর (খ) অনুযায়ী আনীত ‘অসদাচরণের’ অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এই বিধিমালার ৪(৩) গ বিধি মোতাবেক গুরুতর দণ্ড হিসেবে প্রজ্ঞাপন জারির তারিখ থেকে পুলিশ সুপার আলতাফ হোসেনকে চাকরি থেকে অপসারণ করা হলো।

পুলিশের পক্ষ থেকে ঘটনাটি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়ায় ২০১৯ সালে আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়। এরপর আলতাফ হোসেনের ব্যাখ্যাও নেওয়া হয়। পরে পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি আতাউল কিবরিয়া এ বিষয়ে অধিকতর তদন্ত করেন। সেখানে আলতাফ হোসেনের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণিত হয়। পরে দ্বিতীয় দফায় আলতাফ হোসেনের ব্যাখ্যা চাওয়া হয়।

;

খাদ্য-আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠতে সু-সমন্বিত প্রচেষ্টার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
খাদ্য-বিদ্যুৎ-আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠতে সু-সমন্বিত প্রচেষ্টা আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

খাদ্য-বিদ্যুৎ-আর্থিক সংকট কাটিয়ে ওঠতে সু-সমন্বিত প্রচেষ্টা আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বব্যাপী সংহতি জোরদার করার এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ ও কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে খাদ্য, বিদ্যুত ও আর্থিক সংকট মোকাবেলায় সু-সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বৈশ্বিক সংকট কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে ৪টি প্রস্তাব উত্থাপন করেছেন যার জন্য দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

তিনি বলেন, ‘ইউক্রেনের যুদ্ধ এমন এক সময়ে এসেছে যখন বিশ্ব কোভিড-১৯ মহামারী থেকে উদ্ধার পেতে লড়াই করে চলেছে। এ যুদ্ধ ইতিমধ্যে নাজুক বিশ্ব অর্থনীতিতে গুরুতর চাপ যুক্ত করেছে।’

প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে যুক্ত হয়ে ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে শুক্রবার (২০ মে) অনুষ্ঠিত ‘গ্লোবাল ক্রাইসিস রেসপন্স গ্রুপ (জিসিআরজি) এর প্রথম উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে দেয়া ভাষণে একথা বলেন।

শেখ হাসিনা কার্যকরভাবে সংকট মোকাবিলায় উন্নত অর্থনীতি ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কার্যকর ভূমিকা কামনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বর্তমান পরিস্থিতিকে অত্যন্ত অস্থিতিশীল করে তুলেছে, যেখানে খাদ্য, জ্বালানি ও অন্যান্য পণ্যের স্বল্প সরবরাহ এবং অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ইতিমধ্যেই সাধারণ মানুষের জীবনে মারাত্মক চাপ সৃষ্টি করেছে। স্বল্পোন্নত দেশ এবং এসআইডিগুলি সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে এবং এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য তাদের অবিলম্বে এবং লক্ষ্যমাত্রা ভিত্তিক সহায়তা ব্যবস্থার প্রয়োজন।

এ বিষয়ে তিনি উন্নত দেশসমূহ ও বহুপাক্ষিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শুল্কমুক্ত-কোটামুক্ত বাজারে প্রবেশাধিকার এবং আরও সহজলভ্য অর্থায়নের জন্য এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ এবং কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে সৃষ্ট চলমান বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলার লক্ষ্যে এই গ্রুপটি গঠন করেছেন।

বৈশ্বিক সংকটের প্রেক্ষাপটে শেখ হাসিনা পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য চারটি প্রস্তাব রেখেছেন।

প্রথম প্রস্তাবে তিনি বলেন, ‘প্রথমত, আমাদের অবশ্যই বিশ্বব্যাপী সংহতি জোরদার করতে হবে এবং একটি সু-সমন্বিত প্রচেষ্টা গ্রহণ করতে হবে। জি-৭, জি-২০, ওইসিডি, এবং আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলির একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই গ্রুপের স্টিয়ারিং কমিটি সব বড় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়ে গঠন করায় তিনি খুশি।

তিনি বলেন, আমরা সংকট মোকাবেলায় কার্যকর সুপারিশ প্রণয়নের জন্য তাদের প্রচেষ্টায় আমাদের পূর্ণ সমর্থন দেব। দ্বিতীয়ত, অবিলম্বে বিশ্বব্যাপী লজিস্টিক এবং সরবরাহ শৃঙ্খলে বাধাগুলো মোকাবিলা করা প্রয়োজন। এ প্রয়াস পণ্যের ক্রমবর্ধমান মূল্য নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করবে। বিশেষ করে স্বল্পোন্নত দেশ ও অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলির বৈশ্বিক বাণিজ্য ও রপ্তানি আয় পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক সমর্থনও থাকতে হবে। 

তিনি বলেন, উন্নত অর্থনীতি এবং বহুপাক্ষিক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এগিয়ে আসতে হবে এবং শুল্ক-মুক্ত-কোটা-মুক্ত বাজারে প্রবেশাধিকার এবং আরও সহজলভ্য অর্থায়ন প্রদান করতে হবে।

তৃতীয় প্রস্তাবে, তিনি বলেন, কার্যকর খাদ্য সঞ্চয় ও বিতরণ ব্যবস্থার জন্য কৃষি খাতের জন্য প্রযুক্তি সহায়তা এবং বিনিয়োগের উপর আরও বেশি গুরুত্ব প্রদান করা অপরিহার্য। নবায়নযোগ্য জ্বালানি ক্ষেত্রে বিশেষ করে এলডিসিতে অনেক সম্ভাব্য ব্যবসার সুযোগ রয়েছে।

তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন, ‘এই এজেন্ডাকে এগিয়ে নিতে আমরা বিদ্যমান উত্তর-দক্ষিণ, দক্ষিণ-দক্ষিণ এবং ট্রায়াঙ্গুলার সহযোগিতার সুবিধা নিতে পারি। এই বিষয়ে বেসরকারি খাতের সাথে সম্পৃক্ততাও গুরুত্বপূর্ণ বিবেচিত হবে।’ 

পরিশেষে, তিনি ৪৮-সদস্যের জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ ফোরামের সভাপতি হিসেবে উল্লেখ করেন, আমরা অনেক এসআইডি এবং নিম্নাঞ্চলীয় জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশের সাথে কাজ করার সুযোগ পেয়েছি। এসব দেশে কৃষি-খাদ্য ব্যবস্থা গুরুতর চাপের মধ্যে রয়েছে। 

বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ মহাসচিবকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশ বহুপাক্ষিকতায় দৃঢ় বিশ্বাসী।

তিনি বলেন ‘আমরা সর্বদা বিশ্ব শান্তি, স্থিতিশীলতা এবং উন্নয়নে অবদান রাখার জন্য জাতিসংঘের আহ্বানে সাড়া দিয়েছি। এই গোষ্ঠীকে সমর্থন করার জন্য আমাদের প্রতিশ্রুতি সেই প্রত্যয় থেকে উদ্ভূত।’

জাতি হিসাবে আমরা সবচেয়ে ভয়ঙ্কর চ্যালেঞ্জগুলির বিরুদ্ধে সহিষ্ণুতার জন্য পরিচিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারী তার সর্বশেষ উদাহরণ। মহামারী কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যে আমাদের প্রচেষ্টায় জীবন ও জীবিকার সুরক্ষার মধ্যে সতর্ক ভারসাম্য বজায় রাখা হয়েছে। আমরা আমাদের প্রচেষ্টায় সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার প্রদান করেছি। যারা সবচেয়ে পিছনে রয়েছে তাদের সহায়তা দেয়ার আমরা সামাজিক সুরক্ষার কভারেজ প্রসারিত করেছি।

তিনি উল্লেখ করেন, ভ্যাকসিন সংগ্রহের জন্য সময়মত ব্যবস্থা গ্রহণ আমাদের একটি বড় স্বাস্থ্য সঙ্কট এড়াতে এবং জীবন বাঁচাতে সাহায্য করেছে।

তিনি বলেন, আমরা আমাদের রপ্তানি খাত এবং এসএমইকে সমর্থন করার জন্য বাস্তবসম্মত উদ্যোগ নিয়েছি। ২৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের প্রণোদনা প্যাকেজ চালু করা হয়েছে। আর এই পদক্ষেপগুলি আমাদের গত অর্থবছরে ৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার অর্জনে সহায়তা করেছে। বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে এবং জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছে।

গ্লোবাল সাউথের প্রতিনিধি হিসাবে তিনি বলেন, ‘আমি এই সঙ্কটের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ লাখ লাখ মানুষের কণ্ঠস্বর টেবিলে নিয়ে এসেছি। আমাদের জাতীয় উন্নয়ন যাত্রা অনেক উদ্ভাবনী জলবায়ু কর্মের নেতৃত্ব দিয়েছে। আমরা অন্যদের সুবিধার জন্য জলবায়ু পরিবর্তন, জীব-বৈচিত্রের ক্ষতি এবং পরিবেশগত অবনতির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের জ্ঞান, বোঝাপড়া এবং অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চাই।’

;

বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলআরোহী দুই যুবক নিহত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলআরোহী দুই যুবক নিহত

বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেলআরোহী দুই যুবক নিহত

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ায় ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই যুবক নিহত হয়েছেন। গুরুতর আহত হয়েছেন আরো এক যুবক।

শুক্রবার (২০ মে) রাত ৯টায় বগুড়া -নওগাঁ মহাসড়কে কাহালু উপজেলার বারমাইল নামক স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

নিহতদের মধ্যে আব্দুল্লাহ (২৫) নামের একজনের নাম জানাগেছে। তিনি নওগাঁ সদর উপজেলার শিকারপুর গ্রামের বাসিন্দা। অপর জনের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

বেলাল হোসেন নামের একজন প্রত্যক্ষদর্শী বলেন তিন যুবক মোটরসাইকেল যোগে নওগাঁর দিকে যাচ্ছিলেন। বারমাইল এলাকায় গার্ডেন ভিউ হোটেলের সামনে মোটরসাইকেলটি নওগাঁ গামী একটি ধান বোঝাই ট্রাককে ওভারটেক করে। এ সময় বগুড়াগামী একটি কোচের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী তিন যুবক মহাসড়কে পড়ে গেলে নওগাঁগামী ট্রাক তাদেরকে চাপা দিয়ে মহাসড়কে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুই যুবক মারা যান। গুরুতর আহত অপর এক যুবককে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে দেন। ট্রাকটি মহাসড়কে আড়াআড়ি ভাবে উল্টে থাকায় বগুড়া-নওগাঁ মহাসড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ট্রাকটি মহাসড়ক থেকে সরিয়ে নিলে আধাঘণ্টা পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

কাহালু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আমবার হোসেন বলেন নিহত দুইজনের মধ্যে একজনের পকেটে থাকা কাগজ অনুযায়ী তার নাম আব্দুল্লাহ বলে জানাগেছে। মরদেহ দুইটি পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।

;

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: রাজবাড়ীতে প্রশ্ন জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজবাড়ী
প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: রাজবাড়ীতে প্রশ্ন জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ: রাজবাড়ীতে প্রশ্ন জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক

  • Font increase
  • Font Decrease

রাজবাড়ীতে প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার(২য় পর্যায়ের) প্রশ্নপত্র জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্যকে আটক করেছে রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) পুলিশ। শুক্রবার (২০ মে) দুপুরে রাজবাড়ী পৌর শহরের নতুনবাজার এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

এ সময় তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে প্রশ্নের ফটোকপি, ২০টি মোবাইল ফোন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম।

শুক্রবার (২০ মে) বিকেল সাড়ে ৫টার সময় রাজবাড়ী জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখায় এক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত(ওসি) প্রানবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস।

আটককৃতরা হলেন, ইব্রাহীম হোসেন, সাগর আহম্মেদ, বিজয় বালা, মোঃ নুরুল হক হাওলাদার, মোঃ হারুন সরদার, রেজাউল করিম, আবু সালাম, মুনছুর মন্ডল, রুবেল মাহমুদ, মিজানুর রহমান, রুমান হাসান, মাইনুল ইসলাম, ও ফরিদা বেগম। আটককৃতদের মধ্যে পাচঁ জন প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষক রয়েছে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) প্রানবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস জানান, রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামানের নির্দেশনায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার দুপুরে জেলা শহরের নতুন বাজার এলাকার আবুল খায়েরের ছেলে মিজানুর রহমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। সে সময় তাদের কাছ থেকে জব্দ করা হয়েছে প্রশ্নের ফটোকপি, ২০ টি মোবাইল ফোন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম। । এ ব্যপারে একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

;