সাত দিনেও সন্ধান মেলেনি নির্যাতনের শিকার কিশোর মুন্নার



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, পটুয়াখালী
নির্যাতনের শিকার কিশোর মুন্না

নির্যাতনের শিকার কিশোর মুন্না

  • Font increase
  • Font Decrease

পটুয়াখালীর গলাচিপায় চুরির অপবাদ দিয়ে ১৪ বছরের এক কিশোরকে নির্যাতনের ঘটনার পর নিখোঁজ হওয়ায় কিশোর মুন্নাকে সাত দিনেও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

এ ঘটনার প্রধান অভিযুক্ত হজরত আলী এখনও পলাতক রয়েছেন। ঘটনার পর পুলিশ তিন জনকে গ্রেফতার করলেও তাদের মধ্যে দুই জনকে জামিন দিয়েছেন আদালত। তবে নির্যাতিত ওই কিশোর এখনও উদ্ধার না হওয়ায় তার পরিবারের সদস্যরা উদ্বেগ উৎকন্ঠার মধ্যে রয়েছেন।

গলাচিপা সদর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামের কিশোর মুন্না (১৪)। পরিবারের অন্য সদস্যরা ঢাকায় যাওয়ায় সাময়িকভাবে সে মামার বাড়িতে থাকতো। তবে গত ৯ মে টাকা চুরির অপবাদ এনে মামা বাড়ির লোকজন মুন্নাকে গাছের সাথে বেঁধে তিন দিন যাবত নির্যাতন করে। আর ১১ মে মধ্যরাত থেকে মুন্নাকে আর খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। মুন্নাকে নির্যাতনের একাধিক ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশিত হলে, এনিয়ে পুলিশের তৎপরতা শুরু হয়।

গত ১৩ মে মুন্নার মা হাসিনা বেগম বাদী হয়ে গলচিপা থানায় ৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করলে পুলিশ ওই দিনই নির্যাতিত মুন্নার মামি মমতাজ বেগম (৪৫), মামাতো বোন তানিয়া (৩০) ও প্রতিবেশী শামীমকে (৪০) গ্রেফতার করে। তবে আদালত মানবিক দিক বিবেচনা করে মমতাজ ও তানিয়াকে জামিন প্রদান করে। তবে এখনও মামলার প্রধান অভিযুক্ত হজরত আলীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। তাইতো ছেলের সন্ধানে আদালত আর থানার বারান্দায় ঘুরছেন নিখোঁজ মুন্নার বাবা-মা।

মুন্নার বাবা শাহজাহান কমান্ডার বলেন, আমার পোলাডারে গাছের লগে বাইন্দা দুই তিন জনে মিল্লা মারছে, আমি মোবাইলে দেখছি সজ্য করতে পারি নাই। এহন পোলাডার মুকটাও দেখতে পারি নাই। কই আছে কি করছে আল্লায় জানে। আমার পোলাডারে আমমেরা ফেরত দেন। পুলিশের কাছে গেছি হেরাও কিছু কইতে পারে না।

গলচিপা আদালতের সিনিয়র আইনজীবী এড. শামীম আহম্মেদ বলেন, এটি একটি অমানবিক কাজ হয়েছে। এভাবে কোন মানুষ কোন মানুষকে মারতে পারে না। আমরা চাই দ্রুত আসামিদের গ্রেফতার করে তাদের বিচারের মুখোমুখি করা হোক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গলচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ এম আর শওকত আনোয়ার ইসলাম বলেন, আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। পাশাপাশি ভিকটিমকেও উদ্ধারেও চেষ্টা চলছে।

পারিবারিক আদালত আইনের খসড়া অনুমোদন



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক

মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক

  • Font increase
  • Font Decrease

মামলার ফি বৃদ্ধি করে নতুন ‘পারিবারিক আদালত আইন, ২০২২’-এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

রোববার (৩ জুলাই) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা বৈঠকে আইন ও বিচার বিভাগের উপস্থাপন করা এ আইনের খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে এবং মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষ থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন। বৈঠক শেষে সচিবালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

খন্দকার আনোয়ারুল বলেন, আবার মামলার ক্ষেত্রে ফি যেটা ৫০ টাকা ছিল, সেটাকে ২০০ টাকা করা হয়েছে। কারণ ১৯৮৫ সালে কোর্টে মামলা করলে ৫০ টাকা দিতে হতো। যদিও বাড়িয়ে এখন যেটা করা হয়েছে, সেটাও অনেক কম। কারণ বেশির ভাগ ক্ষেত্রে একটু অসহায় মেয়েরা এসে মামলা দায়ের করে সেটা বিবেচনা করে ফি বাড়ানো হয়নি।

তিনি বলেন, আগের আইনটি সামরিক শাসনামলের। ১৯৮৫ সালে একটি ফ্যামিলি কোর্ট অর্ডিন্যান্স হয়, সেই অর্ডিন্যান্সে পারিবারিক বিষয়গুলো দাম্পত্য কলহ, তালাক, ম্যারিজ রেস্টোরেশন, শিশুদের ভরণপোষণ- এ বিষয়গুলো ছিলো। এরআগে এ বিষয়গুলো ফৌজদারি কার্যবিধির ৪(৮৮)-তে বিবেচ্য হতো। হাইকোর্টের বিধি-বিধান অনুযায়ী এটিকে (সামরিক শাসনামলের অধ্যাদেশ) আইনে পরিণত করতে হবে, তাই এ আইনের খসড়াটি নিয়ে আসা হয়েছে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, আগে যেটা ছিল মোটামুটি সেটাই আছে। এখানে ৩১টি ধারা আছে। বিবাহবিচ্ছেদ, দম্পত্য অধিকার পুনরুদ্ধার, দেনমোহর, ভরণপোষণ এবং শিশু সন্তানদের অভিভাবকত্ব ও তত্ত্বাবধান সংক্রান্ত বিষয়গুলো এ আদালত বিবেচনায় নেবে।

‘একটাই মূল পরিবর্তন আনা হয়েছে। সেটা হলো- আগে ছিল যে আদালতে রায় হবে সেটার আপিল কর্তৃপক্ষ ছিলেন জেলা জজ। এখান সংশোধন এনে বলা হচ্ছে, জেলাপর্যায়ে আরও জজ আছেন, নারী-শিশু বা শ্রম আদালত। শুধু জেলা জজ বললে ওনার ওপর একটু বেশি চাপ পড়ে যায়। সরকার যদি মনে করে কোনো জেলাতে আপিলের জন্য অতিরিক্ত মামলা আছে, সেক্ষেত্রে জেলা জজপর্যায়ের অন্যান্য যে জজরা রয়েছেন, তাদেরকেও আপিল আদালত হিসেবে বিবেচনা করা যাবে।’

;

রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে চুরি যাওয়া টিন খুলনায় উদ্ধার



উপজেলা করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, মোংলা (বাগেরহাট)
রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে চুরি যাওয়া টিন খুলনায় উদ্ধার

রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে চুরি যাওয়া টিন খুলনায় উদ্ধার

  • Font increase
  • Font Decrease

রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের চুরি যাওয়া ১৬ লাখ টাকা মূল্যের ভারতীয় মালামাল খুলনা থেকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব। উদ্ধার হওয়া মালামাল খুলনার বটিয়াঘাটা থানা পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে।

শনিবার (০২ জুলাই) রাত সাড়ে ১০টার দিকে খুলনার বটিয়াঘাটা এলাকায় অভিযান চালিয়ে এসব মালামাল উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব জানায়, বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান তাদের মালামাল চুরির ঘটনায় র‌্যাব-৬ এর কার্যালয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে গোয়েন্দা তৎপরতার মাধ্যমে শনিবার (০২ জুলাই) রাত সাড়ে ১০টার দিকে খুলনার বটিয়াঘাটা এলাকায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানকারীরা চোরাকারবারিদের লুকিয়ে রাখা এসব মালামাল উদ্ধার করতে সক্ষম হন। উদ্ধার হওয়া ২৮৭ পিস অ্যালুমিনিয়াম টিন সিট রাতেই বটিয়াঘাটা থানা পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে।

উদ্ধারকৃত মালামালের মূল্য ১৬ লাখ টাকা বলে জানায় র‌্যাব। র‌্যাব আরও জানায়, উদ্ধার হওয়া মালামাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের অবকাঠামো নির্মাণ কাজে ব্যবহারের জন্য ভারত থেকে আমদানি করা হয়েছিলো। যা সংঘবদ্ধ চোরচক্র চুরি করে নিয়ে বটিয়াঘাটা এলাকায় লুকিয়ে রাখে।

উল্লেখ্য, এর আগে রামপাল তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে বিভিন্ন সময়ে চুরি হওয়া জিআই পাইপ, বৈদ্যুতিক তার ও সকেট উদ্ধারসহ চুরির সাথে সম্পৃক্তদের আইনের আওতায় আনে র‌্যাব-৬।

;

ভোজ্যতেল আমদানিতে ভ্যাট প্রত্যাহারের মেয়াদ বাড়ল ৩ মাস



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ভোক্তাপর্যায়ে সয়াবিন ও পাম তেলের দাম সহনীয় রাখতে এ পণ্যের ওপর মূল্যসংযোজন কর প্রত্যাহারের মেয়াদ আরও তিন মাস বাড়ানো হয়েছে।

রোববার (৩ জুলাই) বিকেলে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। ভোজ্যতেলে বিদ্যমান এ ভ্যাট সুবিধার মেয়াদ ছিল গত ৩০ জুন পর্যন্ত।

প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের কাঁচামালের মূল্যবৃদ্ধি অব্যাহত থাকার পরিপ্রেক্ষিতে ভোক্তাদের স্বার্থ বিবেচনায় এ সুবিধার মেয়াদ ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

বর্তমানে ভোজ্যতেলে শুধু আমদানি পর্যায়ে ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ আছে। আর উৎপাদন ও সরবরাহ পর্যায়ে কোনো ভ্যাট দিতে হয় না ব্যবসায়ীদের। এ দুই স্তরে মোট ২০ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করা হয়েছে। চলতি বছরের মার্চে প্রজ্ঞাপন জারি করে এ সুবিধা দেওয়া হয়।

বিশ্ববাজারে ভোজ্যতেলের দাম বাড়তে থাকায় গত মার্চের মাঝামাঝি তিন ধাপে মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) কমায় সরকার।

;

ঈদের আগে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নয়



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র ঈদুল আজহার আগে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে মোটরসাইকেল চলাচলের সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

রোববার (৩ জুলাই) মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর সচিবালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা জানান।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতুতে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন ক্যামেরা বসবে, বসানো হবে স্পিডগানও। তারপর পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে মোটরসাইকেল চালুর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এর আগে, গত ২৭ জুন ভোর ৬টা থেকে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার। ২৫ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পরদিন সকাল থেকে সেতুটি যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়।

 

;