ডেবিট-ক্রেডিট কার্ড কারসাজি, কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে চক্রটি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

গত পাঁচ থেকে ছয় বছর ধরে মানুষের ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ড কারসাজির মাধ্যমে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া চক্রের মূলহোতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। তার নাম মো. খোকন ব্যাপারী ওরফে জুনায়েদ (৩০)।

সোমবার (১ আগস্ট) দুপুরে মালিবাগ সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন সংস্থাটির এলআইসি শাখার বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর।

তিনি বলেন, সম্প্রতি একটি প্রতারক চক্র বিকাশ, নগদ কিংবা রকেটের কর্মকর্তা পরিচয় দিয়ে আর্থিক লেনদেনের প্লাটফর্ম ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড থেকে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। এমন একজন ভুক্তভোগীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সিআইডি অভিযান পরিচালনা করে সোমবার (৩১ জুলাই) নারায়ণগঞ্জ এলাকা থেকে খোকন ব্যাপারী ওরফে জুনায়েদকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতার খোকনের নেতৃত্বে তিন থেকে চার সদস্যের একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র মোবাইলে আর্থিক লেনদেনের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে নিজেদের বিকাশ, নগদ বা রকেটের কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রায় পাঁচ থেকে ছয় বছর ধরে প্রতারণা করে আসছিল। চক্রের সকল সদস্যের সম্মিলিত প্রয়াসে বিকাশ, নগদ বা রকেটের কর্মকর্তা পরিচয়ে প্রতারণার কাজটি তারা বিভিন্ন ধাপে অত্যন্ত সুনিপুণভাবে করতো।

প্রতারণার ধাপগুলো উল্লেখ করে সিআইডির এই কর্মকর্তা বলেন, প্রথম ধাপে, প্রতারক বিকাশ কর্মকর্তা হিসেবে ভিকটিমকে ফোন দিয়ে অ্যাকাউন্ট আপডেট করতে বলে। আর অ্যাকাউন্টটি আপডেট না করলে স্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানায়।

দ্বিতীয় ধাপে, প্রতারক ভিকটিমের ব্যবহৃত বিকাশ একাউন্টটিতে ভুল পাসওয়ার্ড তিন বারের অধিক দিলে অ্যাকাউন্টটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে সাসপেন্ড হয়ে যায়। তৃতীয় ধাপে, ভিকটিমকে জানানো হয়, তার অ্যাকাউন্টটি সাময়িকভাবে সাসপেন্ড করা হয়েছে এবং একাউন্টে থাকা টাকা ব্লক হয়েছে। তবে এই টাকা ডেবিট/ক্রেডিট কার্ডে ট্রান্সফার করা সম্ভব।

চতুর্থ ধাপে, প্রতারক ভিকটিমের ডেবিট/ক্রেডিট কার্ডের নম্বর এবং সিভিএন জানতে চায়। পঞ্চম ধাপে, ভিকটিম এসব তথ্য সরবরাহ করলে ডেবিট/ক্রেডিট কার্ডের সংশ্লিষ্ট ব্যাংককে যে মোবাইল নম্বর সরবরাহ করে সেই মোবাইল নম্বরে একটা ওটিপি (OTP) কোড সম্বলিত একটি ম্যাসেজ যায়।

সর্বশেষ ষষ্ঠ ধাপে, ভিকটিম ম্যাসেজটি রিসিভ করার পর সেই কোডটি প্রতারককে জানায়। কোডটি পাওয়ার পর ভিকটিমের ডেবিট/ক্রেডিট কার্ড থেকে সর্বোচ্চ পরিমাণ টাকা প্রতারক তার নিজের বিকাশ অ্যাকাউন্টে ট্রান্সফার করে।

মুক্তা ধর আরও বলেন, ভুক্তভোগীর কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের পরপরই তারা নিজেদের আইডেন্টিটি গোপন করে রাখে। গ্রেফতার খোকন এ পর্যন্ত তার সহযোগীদের নিয়ে প্রায় এক কোটিরও বেশি টাকা প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছে।

বাস ও মিনিবাসের সর্বোচ্চ ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বাস ও মিনিবাসের সর্বোচ্চ ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন

বাস ও মিনিবাসের সর্বোচ্চ ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন

  • Font increase
  • Font Decrease

জ্বালানি তেলে মূল্যবৃদ্ধির কারণে ডিজেল চালিত বাস ও মিনিবাসের সর্বোচ্চ ভাড়া পুনঃনির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সরকার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। সড়ক পরিবহন আইন- ২০১৮ এর ৩৪ (২) ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার।

রোববার (৭ আগস্ট) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের উপসচিব মো. মনিরুল আলম ওই প্রজ্ঞাপনে স্বাক্ষর করেছেন।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, আন্তঃজেলা ও দূরপাল্লার রুটে চলাচলকারী বাস ও মিনিবাসের ক্ষেত্রে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের প্রতি কিলোমিটারে যাত্রীপ্রতি সর্বোচ্চ ভাড়া ১ টাকা ৮০ পয়সার জায়গায় ২ টাকা ২০ পয়সা; ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে চলাচলকারী বাসের ক্ষেত্রে প্রতি কিলোমিটার যাত্রীপ্রতি ভাড়া ২ টাকা ১৫ পয়সার স্থলে ২ টাকা ৫০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে চলাচলকারী মিনিবাস এবং ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) আওতাধীন জেলার (নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নরসিংদী, গাজীপুর, মানিকগঞ্জ ও ঢাকা) অভ্যন্তরে চলাচলকারী বাস ও মিনিবাসের ক্ষেত্রে প্রতি কিলোমিটারে যাত্রীপ্রতি ভাড়া ২ টাকা ০৫ পয়সার স্থলে ২ টাকা ৪০ পয়সা; ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরীতে চলাচলকারী বাস ও মিনিবাসের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ভাড়া যথাক্রমে ১০ টাকা ও ৮ টাকা নির্ধারিত হলো।

বিআরটিএ কর্তৃক অনুমোদিত আসন সংখ্যা কমিয়ে আরামদায়ক ভ্রমণের জন্য বাস/মিনিবাসের আসন সংখ্যা পুনর্বিন্যাস করা হলে উপরিউক্ত অনুচ্ছেদ ক অনুযায়ী আনুপাতিকভাবে ভাড়ার হার নির্ধারিত হবে। সেক্ষেত্রে রুট পারমিট অনুমোদনকারী কর্তৃপক্ষ বিআরটিএ কিংবা যাত্রী ও পণ্য পরিবহন কমিটি থেকে আনুপাতিকভাবে ভাড়ার হার অনুমোদন করিয়ে নিতে হবে।

ভাড়া বৃদ্ধি গ্যাস চালিত মোটরযানের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না। ডিজেল চালিত বাস ও মিনিবাসের ভাড়া নির্ধারণ সংক্রান্ত ইতোপূর্বে জারিকৃত সকল প্রজ্ঞাপন ও আদেশ রহিত করা হলো। ভাড়ার হার প্রতিটি বাস ও মিনিবাসের দৃশ্যমান স্থানে আবশ্যিকভাবে টানিয়ে রাখতে হবে। জনস্বার্থে জারিকৃত এ ভাড়ার হার ৭ আগস্ট থেকে কার্যকর হবে।

;

টাঙ্গাইলে ধর্ষণ মামলায় এক যুবকের যাবজ্জীবন



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, টাঙ্গাইল
টাঙ্গাইলে ধর্ষণ মামলায় এক যুবকের যাবজ্জীবন

টাঙ্গাইলে ধর্ষণ মামলায় এক যুবকের যাবজ্জীবন

  • Font increase
  • Font Decrease

টাঙ্গাইলে ধর্ষণ মামলায় এক যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। সেই সাথে এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় এই মামলার অন্য আসামি দীপ্তি আক্তারকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

রোববার (৭ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১১টায় টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় ঘোষণা দেন।

দণ্ডিত ওই যুবকের নাম রবিন মিয়া (২৬)। সে সখীপুর উপজেলার সদরের গজারচালা এলাকার শাহজাহান মিয়ার ছেলে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের সহকারী সরকারি কৌশুলী মোহাম্মদ আব্দুল কদ্দুস জানান, ২০১৬ সালের ৭ জুলাই সখীপুরের একটি মাদ্রাসার দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে রবিন তাদের বাড়িতে কৌশলে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন। ওই দিনই ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রীর মা বাদি হয়ে সখীপুর থানায় ৫ জনকে আসামি করে মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) দেলোয়ার হোসেন ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর রবিন মিয়া ও দীপ্তি আক্তারের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন। রায় ঘোষণার সময় রবিন মিয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন। পরে তাকে টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

;

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে বারভিডা নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা নিবেদন 



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে বারভিডা নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা নিবেদন 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতিতে বারভিডা নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা নিবেদন 

  • Font increase
  • Font Decrease

বারভিডার (বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিক্যালস ইম্পোর্টার্স অ্যান্ড ডিলার্স এসোসিয়েশন) নবনির্বাচিত কার্যনির্বাহী কমিটি গতকাল বিকেলে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

বারভিডা প্রেসিডেন্ট  মোঃ হাবিব উল্লাহ ডন এর নেতৃত্বে এসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ শোকাবহ আগস্ট মাসে ধানমন্ডি ৩২ এ দেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে শ্রদ্ধা জানান এবং তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।

বারভিডা প্রেসিডেন্ট মোঃ হাবিব উল্লাহ ডন, সেক্রেটারি জেনারেল জনাব মোহাম্মদ শহীদুল ইসলাম, ভাইস প্রেসিডেন্ট ১ মোঃ আসলাম সেরনিয়াবাত, ভাইস প্রেসিডেন্ট ২ রিয়াজ রহমান, ভাইস প্রেসিডেন্ট ৩ মোঃ গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, জয়েন্ট ট্রেজারার মোঃ সাইফুল আলম, অর্গানাইজিং সেক্রেটারি ডা. হাবিবুর রহমান খান, পাবলিকেশন অ্যান্ড পাবলিসিটি সেক্রেটারি মোঃ জসিম উদ্দিন, প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সেক্রেটারি  মোঃ আব্দুল আউয়াল এবং কালচারাল সেক্রেটারি জোবায়ের রহমান জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করেন এবং শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

কার্যনির্বাহী সদস্য আলহাজ্ব জাফর আহমেদ, এ. বি. সিদ্দিক (আবু), আবু হোসেন ভূইয়া রানু, মোঃ রায়হান আজাদ (টিটো) এবং মাহবুবুল হক চৌধুরী বাবরও বারভিডা প্রতিনিধিদলে ছিলেন।

;

মোংলায় মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর, আটক ৩



উপজেলা করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম মোংলা (বাগেরহাট)
মোংলায় মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর, আটক ৩

মোংলায় মন্দিরে প্রতিমা ভাংচুর, আটক ৩

  • Font increase
  • Font Decrease

মোংলায় একটি মন্দিরের প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। মন্দিরের সামনের মাঠে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে শনিবারের হট্টগোল থেকে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, শনিবার দিবাগত গভীর রাতে মোংলা উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের কানাইনগর সার্বজনীন মন্দিরে থাকা দুইটি প্রতিমার অঙ্গপ্রত্যঙ্গের আংশিক ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। তবে মন্দির মাঠে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে বিরোধের জেরে এ ঘটনা ঘটে। ওই মন্দিরটির সামনের মাঠে ফুটবল খেলাকে কেন্দ্র করে মন্দির সংশ্লিষ্ট লোকজনের সাথে খেলতে আসা শিশু কিশোরদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়ে আসছিলো কয়েকদিন ধরেই। মন্দির কমিটির লোকজন মন্দিরের সামনের মাঠে ফুটবল খেলতে নিষেধ করে এলাকার ছেলেদেরকে।

শনিবার বিকেল ৪টার দিকে স্থানীয় ছেলেরা ওই মাঠে খেলতে গেলে তাদের উপর চড়াও হয় মন্দির সংশ্লিষ্টরা। এনিয়ে সেখানে অনেক উচ্চবাক্য ও বাকবিতণ্ডা হয়। এ সময় উভয়পক্ষই একে অপরকে হুমকি ধামকি দেন। পরে খেলতে আসা ছেলেরা সেখান থেকে চলে যায়। এরপর গত গভীর রাতে ওই মন্দিরটিতে থাকা কালি ও গণেশ মূর্তির অঙ্গপ্রত্যঙ্গের আংশিক অংশ ভাংচুর হয়েছে। খেলা ছাড়াও অন্য কোন কারণে এ ঘটনা ঘটেছে কিনা তার অনুসন্ধান চলছে।

উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি পিযুষ মজুমদার বলেন, শুনেছি শনিবার বিকেলে কানাইনগর মন্দিরের সামনের মাঠে ফুটবল খেলা নিয়ে মন্দির কমিটি ও খেলাতে আসা ছেলেদের মাঝে ঝগড়াঝাটি হয়েছিলো। সেই কারণে কিংবা অন্য কারণেও এ প্রতিমা ভাংচুরের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। এ এলাকায় এমন ঘটনা এই প্রথম বলেও জানান তিনি।

মোংলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, খবর পেয়ে রবিবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল পরিদর্শনে ছিলেন মোংলা-রামপাল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আসিফ ইকবালও। ওসি মনিরুল আরো বলেন, মন্দিরের সামনের মাঠে ফুটবল খেলতে নিষেধ করলে শনিবার বিকেলে দুইপক্ষ বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। খেলতে গিয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়ানো তিনজনকে জিজ্ঞেসাবাদের পর আটক দেখানো হয়েছে। তারা হলেন কানাইনগর গ্রামের শহিদ চৌধুরীর ছেলে রাহাত চৌধুরী (২০), মৃত হাবিব মুন্সীর ছেলে নয়ন মল্লিক (২৪) ও জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে আসিফ খান (২২) । প্রতিমা ভাংচুরের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি। তাছাড়া অন্য কোন কারণ থাকতে পারে কিনা তা নিয়েও পুলিশের অনুসন্ধান চলছে।

;