প্রবাসী আয়ে বড় ধাক্কা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সদ্য সমাপ্ত সেপ্টেম্বরে প্রবাসী আয়ে বড় ধাক্কা লেগেছে। ২০২২-২৩ অর্থবছরের তৃতীয় মাস সেপ্টেম্বরে ১৫৪ কোটি ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। এই অঙ্ক গত ৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন।

রোববার (২ অক্টোবর) বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে জানানো হয়, সদ্য সমাপ্ত সেপ্টেম্বর মাসে ব্যাংকিং চ্যানেলে প্রবাসী বাংলাদেশিরা দেশে ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ (প্রায় ১.৫৪ বিলিয়ন) মার্কিন ডলার পাঠিয়েছেন। প্রবাসী আয়ের এ অঙ্ক গত বছরের একই সময়ের চেয়ে ১৮ কোটি ৭২ লাখ ডলার বা ১০ দশমিক ৮৪ শতাংশ কম।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৭২ কোটি ৬৭ লাখ ডলার। শুধু তাই নয়, সেপ্টেম্বরের প্রবাসী আয়ের এই অঙ্ক গত ৭ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। এর আগে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে দেশে ১৪৯ কোটি ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল। সেপ্টেম্বরের চেয়ে কেবল ওই মাসে কম এসেছে। মার্চ থেকে আগস্ট পর্যন্ত অন্য সব মাসে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে।

চলতি অর্থবছরের টানা দুই মাস ২ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স বৈধ পথে পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। আগস্ট মাসে ২০৩ কো‌টি ৭৮ লাখ (২ দশমিক ০৩ বিলিয়ন) ডলার রেমিট্যান্স এসেছে। তার আগের মাস জুলাইয়ে এসেছিল ২০৯ কোটি ৬৩ লাখ ডলার। জুলাই মাসে পবিত্র ঈদুল আজহার কারণে বেশি পরিমাণ প্রবাসী আয় এসেছিল। তবে আগস্টে বড় উৎসব ছিল না, তারপরও প্রবাসী আয় ২০০ কোটি ডলার ছাড়ায়।

সেপ্টেম্বরে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন পাঁচ বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে ২৪ কোটি ৬২ লাখ মার্কিন ডলার। বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১২৬ কোটি ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। বিদেশি ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ৬১ লাখ মার্কিন ডলার। আর বিশেষায়িত একটি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ২ কোটি ৪১ মার্কিন ডলার।

আলোচিত সময়ে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে বরাবরের মতো বেসরকারি ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে প্রবাসীরা ৩৩ কোটি ৪০ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন। এরপর সিটি ব্যাংকে এসেছে ১১ কোটি ২৮ লাখ ডলার, আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংকে ১০ কোটি ৭২ লাখ ডলার, অগ্রণী ব্যাংকে ৯ কোটি ৫৬ লাখ ডলার এবং ডাচ-বাংলা ব্যাংকে এসেছে ৭ কোটি ৯২ লাখ ডলার প্রবাসী আয়।

গণশুনানি ছাড়াই জ্বালানির দাম ঠিক করবে সরকার, অধ্যাদেশ জারি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিশেষ পরিস্থিতিতে গণশুনানি ছাড়া সরাসরি জ্বালানির দাম সমন্বয় করার ক্ষমতা সরকারের কাছে আনতে আইন সংশোধনে অধ্যাদেশ জারি করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (সংশোধন) অধ্যাদেশ, ২০২২ জারি করেন রাষ্ট্রপতি।

সংসদ অধিবেশন না থাকলে জরুরি কোনো প্রয়োজনে রাষ্ট্রপতি অধ্যাদেশ জারি করেন। অধ্যাদেশ জারির পর সংসদের প্রথম বৈঠকে তা উপস্থাপন করা হয়ে থাকে। আর স্বাভাবিকভাবে আগে সংসদে উপস্থাপন হয়। আইন সভায় পাস পেলে তা রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের মাধ্যমে কার্যকর হয়।

আগের আইনে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম বাড়ানোর এই ক্ষমতা ছিল বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি)। এ সংশোধনীর কারণে বিইআরসির পাশাপাশি সরকার ‘বিশেষ পরিস্থিতিতে’ সরকারি গেজেটে প্রজ্ঞাপন দিয়ে ট্যারিফ নির্ধারণ, পুনর্নির্ধারণ বা সমন্বয় করতে পারবে।

২০০৩ সালের প্রণীত আইনের ৩৪ ধারায় সংশোধনের পাশাপাশি নতুন ধারা যুক্ত করা হয়েছে।

আইনের নতুন ধারায় বলা হয়েছে, এই আইনের অন্যান্য বিধানে যাহা কিছুই থাকুক না কেন, বিশেষ ক্ষেত্রে সরকার, সরকারি গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা, ভর্তুকি সমন্বয়ের লক্ষ্যে, জনস্বার্থে, কৃষি, শিল্প, সার, ব্যবসা-বাণিজ্য ও গৃহস্থালী কাজের চাহিদা অনুযায়ী এনার্জির নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এর উৎপাদন বৃদ্ধি, সঞ্চালন, পরিবহন ও বিপণনের নিমিত্ত দ্রুত কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের সুবিধার্থে বিদ্যুৎ উৎপাদন, এনার্জি সঞ্চালন, মজুতকরণ, বিপণন, সরবরাহ, বিতরণ এবং ভোক্তা পর্যায়ে ট্যারিফ নির্ধারণ, পুনর্নির্ধারণ বা সমন্বয় করিতে পারবে।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গণশুনানি ছাড়া জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি বা সমন্বয়ের যে এক তরফা ক্ষমতা সরকার হাতে নিচ্ছে, তাতে অকার্যকর করা হলো বিইআরসিকে। আর ভোক্তার অধিকারও খর্ব হবে ।

আগের আইনে বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম বিইআরসি ৯০ দিন সময় নিয়ে নির্ধারণ করে। এ সময়ের মধ্যে গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। মতামত নেওয়া হয় ভোক্তা প্রতিনিধিসহ সংশ্লিষ্টদের। সেখানে জ্বালানি সেক্টরের অপচয়, অনিয়ম, দুর্নীতি, অভিযোগ এবং করণীয় নির্ধারণের বিষয়ে গণমানুষ মতামত দিয়ে থাকে গণশুনানিতে। এই অধ্যাদেশ কার্যকর হওয়ার পর জ্বালানির দাম বৃদ্ধি করতে কোনো গণশুনানির প্রয়োজন পড়বে না।

;

রিটার্ন দাখিল ২৪ লাখ, রাজস্ব আয় ৩ হাজার কোটি টাকা



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চলতি ২০২২-২৩ করবর্ষে ব্যক্তিশ্রেণির করদাতাদের আয়কর বিবরণী (রিটার্ন) দাখিলের শেষ সময় ছিল ৩০ নভেম্বর। তবে বিশেষ বিবেচনায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) রিটার্ন দাখিলের সময় এক মাস বৃদ্ধি করেছে।

বুধবার পর্যন্ত ২৪ লাখ করদাতা আয়কর রিটার্ন দাখিল করেছেন এবং এর বিপরীতে রাজস্ব আয় হয়েছে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা।

এনবিআরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সৈয়দ এ মু’মেন এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গত ২০২১-২২ অর্থবছরে মোট রিটার্ন দাখিলের সংখ্যা ছিল ২৫ লাখ ৪৮ হাজার, সেখানে চলতি করবর্ষে গতকাল পর্যন্ত ২৪ লাখ রিটার্ন জমা পড়েছে। এর বিপরীতে রাজস্ব আয় হয়েছে ৩ হাজার কোটি টাকা।

করদাতাদের সুবিধার্থে আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত রিটার্ন দাখিলের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। অতিরিক্ত এই এক মাসে আরও ১১ লাখ রিটার্ন জমা পড়বে বলে আশা করছে এনবিআর।

সৈয়দ এ মু’মেন বলেন, আমরা আশা করছি-এবছর মোট রিটার্ন দাখিলের সংখ্যা ৩৫ লাখ ছাড়িয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশে কর সনাক্তকরণ নম্বরধারীর (ইটিআইএন) সংখ্যা প্রায় ৮২ লাখ।

;

রংপুরে চোর সন্দেহে মধ্যযুগীয় কায়দায় শিশু নির্যাতন, আটক ৩



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
রংপুরে চোর সন্দেহে মধ্যযুগীয় কায়দায় শিশু নির্যাতন

রংপুরে চোর সন্দেহে মধ্যযুগীয় কায়দায় শিশু নির্যাতন

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের পীরগঞ্জে চুরির অভিযোগে রিফাত (১১) নামের এক শিশুকে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আবু বক্কর সিদ্দিক সাজু নামে এক শিক্ষকসহ ৩ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় তাদেরকে আটক করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন পীরগঞ্জ থানার ওসি জাকির হোসের। সাজু স্থানীয় বাজেশিবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, আবু বক্কর সিদ্দিক সাজুর এক আত্মীয়ের গত ২৩ নভেম্বর সকাল ১০টার দিকে বাইসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। সেই চুরি যাওয়া বাইসাইকেলকে কেন্দ্র করে গত ২৪ নভেম্বর বিকেলে শিশু রিফাতকে ধরে এনে হাত পা বেঁধে জনসম্মুখে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করেন সাজু। এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও গত বুধবার (৩০ নভেম্বর) রাত থেকে সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে পীরগঞ্জ থানা পুলিশ সাজুসহ তিন জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেন।

রংপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (ডি-সার্কেল) কামরুজ্জামান বলেন, শিশুটিকে নির্যাতনের ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাজুসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। সাজু স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক। ভিকটিমসহ তার বাবা-মা থানায় অবস্থান করছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

;

নাশকতার মামলায় যুবদলের সভাপতি কারাগারে



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিরাজগঞ্জ
নাশকতার মামলায় যুবদলের সভাপতি কারাগারে

নাশকতার মামলায় যুবদলের সভাপতি কারাগারে

  • Font increase
  • Font Decrease

সিরাজগঞ্জে নাশকতার মামলায় ইসাহাক আলী (৪০) নামের ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ইসাহাক আলী সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি।

বুধবার রাতে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের শহীদ এম.মনসুর আলী ষ্টেশন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বিকালে সিরাজগঞ্জ সদর থানার অপারেশন কর্মকর্তা সুমন চন্দ্র দাস গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ইসাহাকের বিরুদ্ধে নাশকতার একটি মামলা ছিল। একারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সদর উপজেলার শিয়ালকোল ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক জিব্রাইল হোসেন বলেন, রাতে ইসাহাক আলী ট্রেনযোগে রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে আসার পথে মনসুর আলী ষ্টেশন এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

;