শীতে কাঁপছে চুয়াডাঙ্গা, সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬.৫ ডিগ্রি



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চুয়াডাঙ্গা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

ঘন কুয়াশার সঙ্গে উত্তরের হিমেল হাওয়ায় চুয়াডাঙ্গায় জেঁকে বসেছে শীত। বইছে মৃদু শৈতপ্রবাহ।

বৃহস্পতিবার (১২ জানুয়ারি) সকাল ৬টায় চুয়াডাঙ্গায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষক জাহিদুল হক জানান, আজ বৃহস্পতিবার দেশের সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস চুয়াডাঙ্গায় রেকর্ড করা হয়েছে। চুয়াডাঙ্গার ওপর দিয়ে মৃদু শৈত্য প্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। যা আরো কয়েকদিন অব্যাাহত থাকতে পারে।

সবচেয়ে কষ্ট আছে খেটে খাওয়া মানুষ। যাদের প্রতিদিন রুটি-রুজির সন্ধানে সকাল বেলায় কাজে বের হতে হয় তারা প্রচন্ড শীতে কাবু হয়ে যাচ্ছে। দিন-মজুর, রিকশা-ভ্যান চালক সবাই শীতে জবুথবু। বিভিন্ন স্থানে মানুষ আগুন জ্বালিয়ে শীত নির্বারণ করার চেষ্টা করছে। এদিকে এসব শীতার্ত মানুষের মাঝে প্রতিদিন জেলা প্রশাসন ও বিভিন্ন ব্যক্তি এবং সংস্থার পক্ষ থেকে শীতবস্ত্র বিশেষ করে কম্বল বিতরণ করা হচ্ছে।

চুয়াডাঙ্গা সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাৎ জানান বলেন, হাসপাতালে শয্যা সংকট। তবে পর্যাপ্ত স্যালাইন ঔষুধ আছে। রোগীদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। তবে এই তীব্র শীতে সবাইকে একটু সচেতন হতে হবে। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্কদের একটু বাড়তি যত্ন নিতে হবে। সব সময় শীতের পোশাক পরিধান করে থাকতে হবে। সমস্যা হলেই নিকটস্থ ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। প্রয়োজনে হাসপাতালে আসতে হবে।

হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছ সংরক্ষণের নির্দেশ পরিবেশমন্ত্রীর



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছ সংরক্ষণের নির্দেশ পরিবেশমন্ত্রীর

হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছ সংরক্ষণের নির্দেশ পরিবেশমন্ত্রীর

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকার অনুমোদিত ‘ন্যাশনাল কনজারভেশন স্ট্রাটেজি এন্ড প্ল্যান অব একশন ফর শার্ক এন্ড রেজ ইন বাংলাদেশ ২০২৩-২০৩৩’ এর আলোকে হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছ সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সুফল প্রকল্পের আওতায় প্রণীত ২টি হাঙ্গর প্রজাতি ও ২টি শাপলা পাতা মাছ প্রজাতির ‘নন ডেট্রিমেন্ট ফাইন্ডিংস’ এবং ‘ন্যাশনাল কনজারভেশন স্ট্রাটেজি এন্ড প্ল্যান অব একশন ফর শার্ক এন্ড রেজ ইন বাংলাদেশ ২০২৩-২০৩৩’ এর অনুমোদন সংক্রান্ত সভায় পরিবেশমন্ত্রী এ নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, উন্নত ব্যবস্থাপনা, নিয়মিত মনিটরিং, আইনের প্রয়োগ এবং স্টেকহোল্ডারদের সম্পৃক্ততার মাধ্যমে কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছ সংরক্ষণ নিশ্চিত করা হবে।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছ আমাদের উপকূলীয় এবং সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রের স্বাস্থ্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। তবে অতিরিক্ত মাছ ধরা এবং এদের দেহাংশের অবৈধ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য এদের অস্তিত্বকে হুমকির মুখে ফেলছে। বিলুপ্তির উচ্চ ঝুঁকিতে থাকা হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছের প্রজাতি আমাদের জাতীয় আইন দ্বারা কঠোরভাবে সুরক্ষিত। সমস্ত আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে এসকল প্রজাতিকে সুরক্ষা দিতে কার্যকরভাবে আইন প্রয়োগ করতে হবে। এসকল প্রজাতিকে বিলুপ্তি রোধে ও অবৈধ বন্যপ্রাণী বাণিজ্য বন্ধ করার জন্য কাস্টমস, পুলিশ, বর্ডার গার্ড, নৌবাহিনী, উপকূলরক্ষী এবং নৌ পুলিশের সহায়তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

বনমন্ত্রী বলেন, হাঙ্গর ও শাপলাপাতা সম্পর্কিত এই কৌশলগত পরিকল্পনাটি বিভিন্ন সংস্থা, অধিদপ্তর, মন্ত্রণালয়, ব্যবসায়ী, সম্প্রদায় এবং বিদেশী পরামর্শক এর সাথে আলোচনার মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে। বাংলাদেশে হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছের জন্য প্রস্তুতকৃত ন্যাশনাল কনজারভেশন স্ট্রাটেজি এন্ড প্ল্যান অব অ্যাকশন শুধুমাত্র এদের সংরক্ষণের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিতে গৃহীত পদক্ষপের কৌশলগত দিকনির্দেশিকা নয়। বরং, এদের অবস্থার উন্নতির জন্য অনুকরণীয় গাইডলাইন। হাঙ্গর ও শাপলাপাতা মাছের সুরক্ষা নিশ্চিতে আমাদের এখনই সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে।

সভায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মিজানুল হক চৌধুরী, অতিরিক্ত সচিব (জলবায়ু পরিবর্তন) মোঃ মনিরুজ্জামান; অতিরিক্ত সচিব (পদূনি) মোঃ মিজানুর রহমান, প্রধান বন সংরক্ষক মোঃ আমীর হোসাইন চৌধুরী; টেকসই বন ও জীবিকা (সুফল) প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক গোবিন্দ রায়; ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটির সিনিয়র ম্যানেজার এলিজাবেথ ফার্নি মনসুর, প্রোগ্রাম এডভাইজারসহ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

;

কমেছে পাসের হার ও জিপিএ-৫



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

২০২২ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। ফলাফলে ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে কমেছে পাসের হার ও জিপিএ-৫ প্রাপ্তের সংখ্যা।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে প্রকাশিত ফলে এই তথ্য জানা গেছে।

এবার মোট ১১ লাখ ৭৭ হাজার ৩৮৭ জন এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেন। গড় পাসের হার ৮৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ। যার মধ্যে ছাত্রীর পাসের হার ৮৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ এবং ছাত্রের পাসের হার ৮৪ দশমিক ৫৩ শতাংশ। সে হিসেবে ২০২১ সালের তুলনায় কমেছে পাসের হার। ২০২১ সালে পাসের হার ছিল ৯৫ দশমিক ২৬ শতাংশ। ২০২২ সালে এইচএসসি ও সমমানের ফলে পাসের হার কমেছে ৯ দশমিক ৩১ শতাংশ।

এছাড়াও ২০২১ সালের তুলনায় ২০২২ সালে জিপিএ-৫ প্রাপ্তের সংখ্যাও কমেছে। ২০২১ সালে জিপিএ-৫ ছিল ১ লাখ ৮৯ হাজার ১৬৯ জন। এবছর কমে তা হয়েছে ১ লাখ ৭৬ হাজার ২৮২ জন। সে হিসেবে জিপিএ-৫ কমেছে ১২ হাজার ৮৮৭ জন।

এর আগে দুপুর পৌনে ১২টার দিকে কম্পিউটারের বোতাম চেপে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পরীক্ষার ফল প্রকাশ করেন। বেলা সোয়া ১১টার দিকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে এই পরীক্ষার ফলাফলের অনুলিপি প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। পরে বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যানেরা ফলাফলের অনুলিপি প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন।

;

বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম: জিএম কাদের



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম: জিএম কাদের

বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম: জিএম কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের চিফ অব পলিটিক্যাল মিঃ স্কট ব্রান্ডন এবং পলিটিক্যাল অফিসার ম্যাথুইউ বে।

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি ) বেলা ১২টায় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান এর বনানীস্থ কার্যালয়ে মার্কিন দূতাবাসের কর্মকর্তাদ্বয় এলে তাদের স্বাগত জানান জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান।

এ সময় জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ও বিশেষ দূত মাসরুর মওলা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে দুই দেশের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আলোচনা করেন তারা।

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেন, বাংলাদেশ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধুত্ব অকৃত্রিম। আগামী দিনেও অভিন্ন ইস্যুতে দুটি দেশ এক যোগে কাজ করবে।

;

পড়াশোনায় ছেলেদের আরও মনোযোগী হওয়া দরকার: প্রধানমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমি দেখলাম পাসের হারে মেয়েদের সংখ্যা বেশি। তার মানে, ছেলেদের পড়াশোনায় আরও মনোযোগী হওয়া দরকার।’

বুধবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার পর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় চামেলী হলে এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ ও পরিসংখ্যান হস্তান্তর অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০২২ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন জানাচ্ছি। এছাড়া যারা পাস করতে পারেনি, তারা যেন মন খারাপ না করে। সামনে ভালো করার জন্য নতুন করে যেন উদ্যোগ নেয়। আমাদের ছেলে-মেয়েরা কেন ফেল করবে?’

প্রধানমন্ত্রী এসময় বলেন, ‘দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে চাই। আর এর জন্য প্রধান হাতিয়ার শিক্ষিত জনগোষ্ঠী। শিক্ষাকে আমরা সবসময় গুরুত্ব দিয়ে থাকি। আমাদের উদ্যোগের ফলে শিক্ষার হার বেড়েছে। বহুমুখী শিক্ষাব্যবস্থা করেছি। যুগোপযোগী শিক্ষা বা বিষয়ভিত্তিক শিক্ষার উদ্যোগ নিই। অনেকগুলো কৃষি ও বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করি।’ তিনি বলেন, ’আমরা নিয়ম করেছিলাম, ফলাফল ৬০ দিনের মধ্যে দিতে হবে। এবার আপনারা ৬০ দিনের আগেই ফল দিতে পেরেছেন। এজন্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির জনক সোনার বাংলা গড়ার জন্য সোনার মানুষ চেয়েছেন। আজকের ছেলে-মেয়েরাই তো সোনার মানুষ।’ তিনি বলেন, ‘আমরা গবেষণায় গুরুত্ব দিচ্ছি। বিজ্ঞান, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যে গবেষণা হচ্ছে। কৃষির গবেষণায় খুব ভালো হচ্ছে। গবেষণার মাধ্যমে নতুন নতুন উদ্ভাবন হয়। সব সেক্টরকে গবেষণায় এগিয়ে আসতে হবে। বিশেষ করে, তথ্যপ্রযুক্তিতে আরও বেশি উদ্যোগ নেওয়া উচিত।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘মাদরাসা শিক্ষাকে আরও বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। তাদের ভোকেশনাল ট্রেনিং নিতে আরও সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে। তাতে তাদের কর্মসংস্থান তৈরি হবে।’

এসময় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলসহ সচিব ও শিক্ষা বোর্ডগুলোর চেয়ারম্যান এবং পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

;