প্রশিকার কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বেহাল দশা



তরিকুল ইসলাম সুমন, মানিকগঞ্জ থেকে ফিরে
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা প্রশিকার মানিকগঞ্জের কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বেহাল দশা। অথচ এক সময় এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ছিল জাতীয় ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি।

এদিকে কর্মচারীদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। বেতন চাইতে গেলে করা হয় নাজেহাল। তারপরও অনেকে চাকরিতে ছিলেন নতুন কিছুর আশায়। কিন্তু হঠাৎ করেই স্থায়ী ১০৫ জন এবং অস্থায়ী ৩০০ জনকে পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই চাকরিচ্যুত করা হয়।

সরেজমিনে প্রশিকার কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, দীর্ঘদিন ধরে পরিষ্কার করা হয় না। অভ্যর্থনা কেন্দ্র যেন ময়লার ভাগাড়। নেই কোনো আসবাবপত্র। সর্বত্র ছড়িয়ে রয়েছে আবর্জনা। বিশাল পুকুর ও খেলার মাঠ। ফসলি জমির উপরের মাটি নেই। আগে যেখানে সব জায়গা ছিল শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত এখন সেখানে পড়ে আছে শুধুই খাঁচা। বিক্রি করে দেয়া হয়েছে মূল্যবান যন্ত্রাংশ।

কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের বেহাল দশা

কৈট্টাস্থ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এখন কাজ করছেন হাতেগোনা ৫-৭ জন কর্মচারী। কর্মরত গেটম্যান ও কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানাগেছে, এখানে কাজী ফারুক অনেকদিন আসেন না। এখানকার সকল কিছু দেখভালের দায়িত্বে রয়েছেন শহিদুল ইসলাম (জিএম)। তিনি তার খেয়াল খুশি মতো যা ইচ্ছে তাই করছেন। এখানে যারা রয়েছেন তারাও ১০ মাস ধরে বেতন পান না।

কর্মচারীরা বলেন, জিএম যখন যা ইচ্ছে তাই করছেন। বিক্রি করে দিয়েছেন পুকুরের অনেক টাকার মাছ, এসি, মাটি, গাছ, বিদ্যুতের তার, ফ্যান, টিভি, তাঁত মেশিন, টিস্যু কালচার ল্যাবের মূল্যবান যন্ত্রপাতিও।

মূল্যবান মালামাল বিক্রি প্রসঙ্গে প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের জিএম শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রশিকাকে ধ্বংস করছে কাজী ফারুক আহম্মদের একটি বিরোধী চক্র। তারা নানাভাবে মিথ্যাচার করছেন। তারা এখন এটি দখল নেওয়ার চেষ্টা করছেন। এজন্য আমার ও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চালাচ্ছে অপপ্রচার।

কর্মচারীদের বেতন বন্ধ থাকার বিষয়ে বলেন, এখন কর্মসূচি অনেক কমে গেছে। এ কারণে বেতন দিতে সমস্যা হচ্ছে। দ্রুত এর সমাধান হবে বলে আশা করেন।

কর্মচারীদের বেতন বন্ধ করে দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি

প্রশিকার বর্তমান প্রধান নির্বাহী সিরাজুল ইসলাম বলেন, একটা সময় কৈট্টার এ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের আন্তর্জাতিক সুনাম ছিল। কিন্তু যখন থেকে এটির অবৈধ দখল নিয়েছেন কাজী ফারুক আহম্মদ ও তার সহযোগীরা, তখন থেকেই এর দুরবস্থা শুরু হয়েছে। কারণ তারা কোনো কাজতো করছেই না বরং নষ্ট করছেন। তারা এখন পর্যন্ত প্রায় ৬ কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট করেছেন। দামি দামি আসবাপত্র ও মেশিনারীজ নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করেছেন। অবৈধভাবে প্রায় ৪০০ কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করে তাদের নামে মামলা দেয়া হয়েছে। আমরা শুনেছি প্রতিদিন তারা এখণ দুঘণ্টা করে কেন্দ্রের সামনে হাজিরা হিসেবে অবস্থান করে। অনেক সময়ে তাদের ওপর চালানো হয় সন্ত্রাসী হামলাও।

তিনি আরও বলেন, এ বিষয়ে আমরা মানিকগঞ্জের এসপি, ডিসি এবং সাটুরিয়া থানায় লিখিতভাবে দিয়েছি। প্রশিকার এ কেন্দ্র থেকে যাতে করে কোনো মালামাল বিক্রি করা না হয়। এবং অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান ওবায়দুল্লাহ বলেন, একটা সময় কৈট্টার এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ছিল জমজমাট। ৩-৪ শ কর্মচারী কাজ করতেন। কিন্তু ২০০৯ সালের পর থেকেই শুরু হয় ভাটা। ৩-৪শ কর্মচারীকে কোনো কিছুই না জানিয়ে চাকরি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। এখনও তারা প্রায় দিনই হাজিরার জন্য আসেন কেন্দ্রের সামনে। বেতনভাতা চাইতে গেলে চালানো হয় হামলা। দেয়া হচ্ছে মামলা। আমি দায়িত্ব থাকাকালে অনেক কর্মচারীকে সরকারি সহায়তা দিয়েছি। তাদের কষ্ট সহ্য করা যায় না। পেটে ভাত নাই অন্যদিকে থাকতে হচ্ছে পুলিশের ভয়ে।

বিক্রি করা হয়েছে মূল্যবান জিনিসপত্র

কৈট্টার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে চাকরিচ্যুত মিহির কাঞ্চন (হাউস কিপার), নূরুল ইসলাম (বাবুর্চি), রাশেদা বেগম, (হাউস কিপিং), মাজেদা বেগম (হাউস কিপিং), জমিলা বেগম, মো. আক্তার হোসেন (প্রশাসনিক কর্মকর্তা) জানান, কাজী ফারুক দখল নেওয়া পর থেকে এই কেন্দ্রের ওপর নানা সমস্যা তৈরি হয়। আমাদের ২৩ মাসের বেতন বকেয়া রেখে চাকরিচ্যুতি করা হয়েছে। বেতন চাইতে গেলে সন্ত্রাসী দিয়ে হামলা চালানো হয়। এতে আমাদের অনেক সদস্য আহত হয়েছিল। আমরা আমাদের চাকরি ফেরতসহ বকেয়া বেতন চাই। পাশাপাশি আমাদের বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে, তা প্রত্যাহার চাই।

ভুক্তভোগীরা আরও জানান, চাকরি হারিয়ে অনেকে এখন দিনমজুর ও অন্যের বাসায় কাজ করেন, কেউ চায়ের দোকান দিয়ে দিন চলাচ্ছেন। অনেকে আবার এলাকা ছেড়েও চলে গেছেন।

উল্লেখ্য, প্রশিকার বর্তমান পরিচালনা পর্ষদ মনে করে, প্রশিকাকে ভঙ্গুর অবস্থা থেকে যেভাবে দেশের সকল শাখা অফিস চালু করা হয়েছে। সেভাবে প্রশিকার কৈট্টাস্থ প্রশক্ষণ কেন্দ্র পরিচালনা করা হলে, একদিকে সম্পদ রক্ষা, অন্যদিকে চাকরিচ্যুতদের চাকরিতে পুনঃনিয়োগও সম্ভব হবে।

   

আজ পবিত্র শবে বরাত



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র শবে বরাত আজ রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি)। ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা যথাযোগ্য ধর্মীয় মর্যাদায় রাতে মহান রাব্বুল আলামিনের রহমত কামনায় ‘নফল ইবাদত-বন্দেগীর’ মধ্যদিয়ে পবিত্র শবে বরাত পালন করবে।

হিজরি বর্ষের শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাত ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কাছে সৌভাগ্যের রজনী। মহিমান্বিত এ রাতে মহান রাব্বুল আলামিন তার বান্দাদের ভাগ্য নির্ধারণ করেন। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা এ রাতে মহান আল্লাহর রহমত ও নৈকট্য লাভের আশায় নফল নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত, জিকির-আজগারসহ বিভিন্ন ইবাদত বন্দেগী করে থাকেন।

পবিত্র শবেবরাত উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মোঃ সাহাবুদ্দিন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। শবেবরাত সবার জন্য ক্ষমা, বরকত, সমৃদ্ধি ও কল্যাণ বয়ে আনবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তারা।
শবেবরাত রমজানের আগমনী বার্তা। প্রস্তুতি হিসেবে অনেকে আজ রোজা রাখবেন। সন্ধ্যায় প্রতিবেশীর বাড়িতে ইফতার বিতরণের রেওয়াজও রয়েছে। অনেক পরিবারে শবেবরাত উপলক্ষে হালুয়া-রুটি খাওয়ার প্রচলন রয়েছে। বিশেষত পুরান ঢাকায় রুটি-মাংস বিতরণের ধুম পড়ে শবেবরাতের সন্ধ্যায়।

শবেবরাত উপলক্ষে আজ বাদ মাগরিব জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমসহ দেশের প্রতিটি মসজিদে বিশেষ ওয়াজ মাহফিল ও জিকির-আসকার অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিবছরের মতো এবারও ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মোকাররম মসজিদে রাতে ওয়াজ মাহফিল ও দোয়ার আয়োজন করেছে। বিশিষ্ট আলেমরা বায়তুল মোকাররমে রাতভর বয়ান করবেন। ফজরের পর হবে দোয়া। পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক ও ধর্মীয় সংগঠন আলোচনা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেছে।

শবেবরাত উপলক্ষে আগামীকাল সোমবার সরকারি ছুটি। এদিন সংবাদপত্র প্রকাশিত হবে না। এ উপলক্ষে সংবাদপত্রগুলোতে আজ প্রকাশিত হয়েছে বিশেষ নিবন্ধ। সরকারি-বেসরকারি টিভি ও রেডিও চ্যানেলে প্রচার হবে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা।
শবেবরাতের পবিত্রতা রক্ষায় রাজধানীতে বিস্ফোরক দ্রব্য, আতশবাজি, পটকা ও অন্যান্য ক্ষতিকারক দ্রব্য বহন এবং ফাটানো নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

;

রাঙামাটিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ইউপিডিএফ’র কালেক্টর নিহত



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাঙামাটি
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

রাঙামাটির বাঘাইছড়িতে পার্বত্য চুক্তি বিরোধী সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) মূল দলের অন্যতম প্রধান চাঁদা কালেক্টর সোগা ওরফে নিপুন চাকমাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় অপর সহকারী কালেক্টর সোহেল চাকমাও গুলিতে আহত হয়েছেন।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ১০টার দিকে বাঘাইছড়ি উপজেলাধীন ৩৫নং বঙ্গলতলী ইউনিয়নের বোধিপুর বনবিহার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি সার্কেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল আউয়াল জানিয়েছেন, আমরা ঘটনাটি শুনেছি এবং পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। কে বা কারা এই সশস্ত্র হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে এই মুহুর্তে সেটি আমরা নিশ্চিত হতে পারিনি।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, বঙ্গলতলী ইউনিয়নের বোধিপুর বনবিহার নামক এলাকায় একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সেখানে গিয়েছিলেন নিপুন চাকমা ও তার সহকর্মী সোহেল চাকমা।

বিষয়টি আগে থেকেই জেনে যায় ইউপিডিএফ এর প্রতিপক্ষ আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস। পরবর্তীতে রাতের অন্ধকারে সশস্ত্র হামলা চালিয়ে নিপুণ চাকমাকে ব্রাশ ফায়ারে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু নিশ্চিত করা হয়।

এই ঘটনায় সোহেল চাকমা পায়ে গুলিবিদ্ধ হলেও পালিয়ে প্রাণে রক্ষা পায়। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে ভূয়াছড়ির অজ্ঞাত স্থানের দিকে নিয়ে গেছে বলে জানা গেছে।

ইউপিডিএফ প্রসিত দলের বঙ্গলতলী এলাকার সমন্বয়ক আর্জেন্ট চাকমা হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ইউপিডিএফ এর বেশ কয়েকজন সদস্য দাঁড়িয়ে কথা বলার সময় জেএসএস সন্তু দলের  দুই সন্ত্রাসি অতর্কিত ব্রাশ ফায়ার করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনা স্থলে নিপুণ চাকমা চোগা মৃত্যুবরণ করে। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে খুনিদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন তিনি। এদিকে জেএসএস সন্তু দলের উপজেলা সমন্বয়ক ত্রিদিপ চাকমা এই হত্যাকাণ্ড ইউপিডিএফ এর অভ্যন্তরিন কোন্দলে কারণে ঘটেছে বলে দাবি করেছেন।

;

সিলেটে হোটেল থেকে ১০ নারী-পুরুষ আটক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, সিলেট
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

সিলেটের অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত থাকার অভিযোগ ১০ নারী-পুরুষকে আটক করেছে সিলেট মহানগর ডিবি পুলিশ।

শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার হুমায়ুন রশিদ চত্বরের তিতাস আবাসিক হোটেল থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে ৭ জন পুরুষ ও ৩ জন নারী রয়েছেন।

আটকের বিষয়টি শনিবার রাতে নিশ্চিত করেছেন সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি (মিডিয়া) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম।

এ ব্যাপারে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের এডিসি (মিডিয়া) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত থাকায় ১০ নারী-পুরুষকে আটক করা হয়। আটককৃতদের বিজ্ঞ আদালতে সোর্পদ করা হয়েছে।

;

আশুলিয়ায় গণধর্ষণের শিকার পোশাক শ্রমিক: গ্রেফতার ৫



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা ২৪.কম, সাভার (ঢাকা)
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সাভারের আশুলিয়ায় নারী পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত ৫ আসামিকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব- ৪)। এ ঘটনায় পলাতক রয়েছে আরও ২ আসামি।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে গ্রেফতারকৃতদের আশুলিয়া থানায় হস্তান্তর করে র‍্যাব ৪। এর আগে শুক্রবার ( ২৩ ফেব্রুয়ারি) আশুলিয়ার নিশ্চিন্তপুর এলাকায় এ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটে। তাদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী নারী। পরে আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) ভোরে ৫ আসামিকে গ্রেফতার করে র‍্যাব ৪।

গ্রেফতারকৃতরা হল, মনিরুল ইসলাম ওরফে পাপ্পু (২৫), আহসান আহম্মেদ রায়হান (২২), রফিকুল মিয়া (২২), আরাবি হুসাইন শান্ত (১৯), মো. জুয়েল (২২)। পলাতক আসামিরা হল, সাগর ওরফে লিটন (২২) ও মো. তুহিন (২৩)।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২৩ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় ভুক্তভোগী নারী ও তার এক বান্ধবীকে নিশ্চিন্তপুর স্কুল মাঠে কৌশলে ডেকে নিয়ে যায় সাগর ওরফে লিটন। সেখানে তাকে কুপ্রস্তাব দেয় পাপ্পু। পরে পাপ্পু ও রায়হান তাকে ধর্ষণ করে এবং বাকিরা সহায়তা করে। পরে রফিকুল মিয়া ধর্ষণের চেষ্টা করলে ভুক্তভোগীর ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে ভুক্তভোগী নারীকে উদ্ধার করে। পরে র‍্যাবের কাছে অভিযোগ দিলে অভিযান চালিয়ে ৫ আসামিকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন্স) নির্মল কুমার দাস বলেন, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলমান আছে। অভিযুক্ত ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। বাকিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। গ্রেফতারকৃতদের আগামীকাল আদালতে পাঠানো হবে।

 

;