‘টাকা জমাচ্ছি, আল্লাহর কাছ থেকে বাবাকে কিনে আনবো’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

'টাকা জমাচ্ছি, আল্লাহর কাছ থেকে বাবাকে কিনে আনবো' কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন ২৮ অক্টোবর নিহত কনস্টেবল আমিরুল পারভেজের ৫ বছরের অবুঝ শিশু তানহা।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) সকালে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা অডিটোরিয়ামে 'মায়ের কান্না ও অগ্নি-সন্ত্রাসের আর্তনাদ' এর যৌথ উদ্যোগে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও এর বিচারের দাবিতে আয়োজিত আলোচনা সভা হয়ে উঠে এমনই নানা দুঃসহ ঘটনার সাক্ষী। পুরো পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে বিএনপি-জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসে নিহত পরিবারের স্বজনদের কান্না ও আহাজারিতে।

নিহত কনস্টেবলের স্ত্রী বলেন, যদি আমার মেয়েকে কেউ টাকা দেয়, সে টাকা জমায়। আমি যদি জিজ্ঞেস করি, এই টাকা দিয়ে কী করবে? মেয়ে বলে, এ টাকা দিয়ে আমি বাবাকে আল্লাহর কাছ থেকে কিনে আনবো। এই কথার পরে আমি তাকে কী উত্তর দিব? আমার কাছে তো কোনো উত্তর নেই।

গত ২৮ অক্টোবর রাজধানীর ফকিরাপুল এলাকায় বিএনপির সঙ্গে সংঘর্ষে পুলিশ সদস্য কনস্টেবল আমিরুল পারভেজ নিহত হন। এছাড়াও ২০১৩/১৪ সালে বিএনপি জামায়াতের আগুন সন্ত্রাসে নিহত পরিবারের স্বজন ও ভিক্টিমরাও ছিলেন এ আলোচনা অনুষ্ঠানে। উপস্থিত হয়েছিলেন, ১৯৭৭ সালে সামরিক আদালতে বিচার হওয়া বিমান ও সেনাবাহিনীর সদস্যদের স্বজনরা। ২১ এ আগস্টের গ্রেনেড হামলার স্বীকার মানুষজনও তাদের কষ্টের কথা বলে কাঁদিয়েছেন উপস্থিত দর্শনার্থীদের।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি গাড়ি নিয়ে যাবার সময় দিনাজপুরে জামায়াত-বিএনপির লোকজন পেট্রোল বোমা মেরে পুরো শরীরে আগুন ধরে যায় জানিয়ে গাড়ি চালক বিল্লাল হোসেন বলেন, আমি তো কোনো রাজনৈতিক ব্যক্তি ছিলাম না। আমি তো কোনো রাজনৈতিক দলের সাথেও যুক্ত ছিলাম না। আমি আমার সংসার চালানোর জন্য গাড়ি চালায়। গাড়ি না চালালে আমার পরিবার খাবে কী? তাহলে কি আমি না খেয়ে থাকবো? আমি এখনো সুস্থ হয়ে হাঁটতে পারি না। আমার হাত, পা'সহ শারা শরীরে ব্যথা। আমার কী দোষ ছিল? আমাকে কেন পুড়তে হলো পেট্রোল বোমায়? এটাই আমার জানতে চাওয়া। 

আমাকে কেন পুড়তে হলো পেট্রোল বোমায়? 

উপস্থিত দর্শনার্থীদের প্রতি প্রশ্ন রেখে বেসরকারি চাকরিজীবী নোমান বলেন, আমার কী দোষ ছিল? ২০১৫ সালে অফিস শেষে বাসা যাবার পথে যাত্রাবাড়ীতে আমাদের গাড়ির উপর জামায়াত-বিএনপির সন্ত্রাসীরা পেট্রোল বোমা মারে। এতে পুরো গাড়িতে আগুন ধরে যায়। আমার পুরো শরীরেও আগুন লেগে যায়। আমি তো সাধারণ মানুষ। তাহলে আমাকে কেন পুড়তে হলো? শরীর পুড়ে যাবার অসহ্য যন্ত্রণা আজও বেড়াতে হচ্ছে আমাকে।

এসময় ভুক্তভোগীরা বিএনপি-জামায়াতের এই নৈরাজ্য বন্ধে সরকারকে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান। তারা বলেন, আমরা যে অসহ্য যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি তা যেন আর কোনো মানুষ ভোগ না করে। আমরা এর অবসান চাই। আমরা চাই এই আগুন-সন্ত্রাসীদের কঠিন থেকে কঠিনভাবে বিচার করা হউক। এই বাংলাদেশে এমন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করে কেউ যেন কোনো মায়ের বুক খালি করতে না পারে। স্ত্রী যেন তার স্বামীকে না হারায়। সন্তান যেন পিতা হারিয়ে এতিম না হয়। 

কেউ যেন কোনো মায়ের বুক খালি করতে না পারে 

সামরিক শাসক জিয়াউর রহমানের শাসনামলে স্বামী হারানো এক স্ত্রী বলেন, আমি জানতেও পারলাম না আমার স্বামীর কী দোষ। কেন আমার স্বামীকে বিচারের নামে প্রহসন করে হত্যা করা হলো? আমার স্বামীর লাশটা পর্যন্ত আমি দেখতে পারিনি। আমার শিশু সন্তানকে তার বাবার একটা ছবি দেখাবো, সে ছবিটি পর্যন্ত আমাকে দেয়া হয়নি। কত কান্না করলাম, কিন্তু আমার স্বামীর একটা ছবিও পেলাম না।

ভুক্তভোগীদের অসীম দুঃখের এমন অবর্ণনীয় দুঃখগাথায় ভারী হয়ে উঠে পুরো অডিটোরিয়াম। চোখের কোনায় জল নিয়ে হতবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে দর্শনার্থীরা। এ যেন কষ্টের সাথে কাঁধ মেলানো। দুঃখ তাড়িয়ে একে অপরকে সান্ত্বনা দেয়ার অপচেষ্টা। তবুও একটুখানি দুঃখ তাড়ানোর উপায় পেয়ে, সেটাকেই সম্বল করে সমাপ্তি আসে অনুষ্ঠানের।

   

রংপুরে টয়লেটের কূপ খুঁড়তে গিয়ে মাটি চাপায় শ্রমিকের মৃত্যু



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রংপুর
ছবি: বার্তা ২৪.কম

ছবি: বার্তা ২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

রংপুরের পীরগাছায় টয়লেটের কূপ খননের সময় বালু ধসে সাইফুল ইসলাম (৪০) নামে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (৪ মার্চ) দুপুরে উপজেলার ছাওলা ইউনিয়নেরর মাস্টার পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত সাইফুল ইসলাম একই উপজেলার তাম্বুলপুর ইউনিয়ন কানিপাড় গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, মাস্টার পাড়া গ্রামের সাইদুল ইসলামের বাড়িতে টয়লেটের কূপ খুঁড়তে পাঁচজন শ্রমিক কাজ করছিলেন। প্রায় ২০ ফিট খননের পর আকস্মিক বালু ধসে সাইফুল ইসলাম নিচে চাপা পড়েন। বিষয়টি ফায়ার সার্ভিসকে জানানো হলে তারা এসে দীর্ঘ সময় চেষ্টা করেও সাইফুলকে জীবিত উদ্ধার করতে পারেনি। একপর্যায়ে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় স্কেভেটর দিয়ে মাটি সরিয়ে সাইফুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান বলেন, বালু ভরাট করা একটি জায়গায় কূপ খননের সময় ধসে যায়। এতে চাপা পড়ে সাইফুলের মৃত্যু হয়।

পীরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মবর্তা (ওসি) সুশান্ত কুমার সরকার জানান, কূপের ভিতর থেকে সাইফুল ইসলামের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় কোনো অভিযোগ না থাকায় স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

;

ছাগল খেতে এসে প্রাণ গেলো মেছো বাঘের!



ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বরগুনা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আমতলীর গুলিশাখালী ইউনিয়নের খেকুয়ানি গ্রামে রাতে ছাগল খেতে এসে প্রান গেলো এক মেছো বাঘের। ঘটনা ঘটেছে রেজাউল করিমের বাড়িতে। মেছো বাঘটি প্রায় সাড়ে ৩ ফুট লম্বা।

জানা গেছে, রবিবার (৩ মার্চ) গভীর রাতে আমতলী উপজেলা গুলিশাখালী গ্রামের রেজাউল করিমের বাড়িতে ছাগলের খোয়ারে একটি মেছো বাঘ প্রবেশ করে ছাগল উপর আক্রমণ করেন। এসময় ছাগলের ডাক চিৎকার শুনে গৃহকর্তা রেজাউল করিম বাহিরে এসে ছাগলের খোয়ারে প্রবেশ করে দেখেন একটি ছোট আকারের বাঘ ছাগলের ঘার মটকে ধরে আছেন।

এসময় তিনি ডাক চিৎকার শুরু করলে মেছো বাঘটি ছাগল ছেড়ে তার উপর আক্রমণ করে। তার ডাক শুনে বাড়ির অন্যরা এগিয়ে আসেন এবং মেছো বাঘটির মাথায় ভারী কাঠের গুড়ি দিয়ে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায় ওই বাঘটি।

রেজাউল করিম বলেন, বাঘের আক্রমনে আমার প্রায় ৩ হাজার টাকা মূল্যের ১টি ছাগল মারা গেছে। সোমবার (৪ মার্চ) সকাল ১০টার দিকে মৃত্যু ওই বাঘটি স্থানীয় খেকুয়ানি খালে ভাসিয়ে দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আমতলী উপজেলা বন কর্মকর্তা মো. হারুন অর রশিদ বলেন, আমাদের এই অঞ্চলে বাঘ থাকার কথা নয়। এটি মূলত মাছ খেকো প্রানী। দেখতে অনেকটা বাঘের মত। তাই এটির নাম মেছো বাঘ। এটি মারা বেআইনী। জীবিত পাওয়া গেলে এটি বনে অবমুক্ত করা যেত।

;

আঙুর-খেজুরের বদলে বরই পেয়ারা দিয়ে ইফতার করুন: শিল্পমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র রমজানে আঙুর, খেজুরের পরিবর্তে বরই-পেয়ারা দিয়ে ইফতার করার পরামর্শ দিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

সোমবার (৪ মার্চ) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এই পরামর্শ দেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, ইফতারে আপেল-আঙুর লাগে কেন? আর কিছু কি নেই আমাদের। বরই খান, পেয়ারা খান, আমাদের যা আছে সেগুলো খান। ইফতারের প্লেট সেভাবে সাজান।

আমাদের অভাব-অভিযোগ আছে উল্লেখ্য করে মন্ত্রী বলেন, অনেক পণ্য আমাদের আমদানি করতে হয়। দাম বেশি পরে। প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন ইফতার পার্টি হবে না। আপনারা যেমন পরিবারের সমস্যাগুলো দেখেন, সেভাবে দেশের সমস্যাগুলো নিজেদের মনে করে দেখতে হবে।

তিনি বলেন, আমাদের পণ্যগুলো বিশ্বমানের করতে হবে। মন্ত্রণালয় কাজ করছে। জেলা প্রশাসকেরা গুরুত্বের সঙ্গে কাজ করেছেন। প্রতিটি এলাকার জেলা প্রশাসকদের গুরুত্বপূর্ণ পণ্যগুলো জিআই করার জন্য আবেদন করতে বলা হয়েছে। তারা আন্তরিকভাবে কাজ করছেন।

;

চট্টগ্রামে অনিয়মের অভিযোগে সেন্ট্রাল সি‌টি হাসপাতাল বন্ধ



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, চট্টগ্রাম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

চট্টগ্রাম নগরীতে নানা অনিয়মের কারণে সেন্ট্রাল সি‌টি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করে‌ দিয়েছে জেলা সি‌ভিল সার্জন।

সোমবার (৪ মার্চ) নগরীর পাঁচলাইশে প্রবর্তক মো‌ড় এলাকায় অব‌স্থিত এ হাসপাতালে পরিচালিত অভিযানে নেতৃত্ব দেন সি‌ভিল সার্জন মোহাম্মদ ই‌লিয়াছ চৌধুরী।

তিনি জানান, নিয়ম অনুযায়ী যে প‌রিমাণ ডাক্তার থাকার কথা সে প‌রিমাণ ডাক্তারের উপ‌স্থি‌তি আমরা দেখতে পাই‌নি। তাদের ল্যাবেও অযোগ্য লোক কাজ করছে। পর্যাপ্ত প‌রিমাণ নার্স নেই। এসব অ‌ভিযোগে সেন্ট্রাল সি‌টি হাসপাতাল নামে এক হাসপাতাল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আমাদের অ‌ভিযান অব্যাহত থাকবে।

;