'ঢাকাকে ক্যাসিনোর শহর বানিয়েছে আ.লীগ'

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, রংপুর
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে মসজিদের শহর ঢাকা ক্যাসিনোর শহরে পরিণত হয়েছে বলেও মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু। তিনি বলেন, ‘ঢাকা এক সময় মসজিদের শহর ছিল। এখন সেটা ক্যাসিনোর শহরে পরিণত হয়েছে। এই ঢাকাকে জুয়ার শহর বানিয়েছে আওয়ামী লীগ।

শনিবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে রংপুর মহানগরীর গ্র্যান্ড হোটেল মোড়ের দলীয় কার্যালয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বরকত উল্লাহ্ বুলু অভিযোগ করেন, 'আওয়ামী লীগ ও যুবলীগর যে সব নেতা-কর্মীদের ধরা হয়। তাদের ব্যাংক হিসাবে এখন শত শত কোটি টাকা। যাদের এর আগে ১০ হাজার টাকাও ছিল না, তারাও এখন কয়েক শত কোটি টাকার মালিক।'

তিনি বলেন, দেশের বিচার ব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে। দেশে কোন বিচার ব্যবস্থা নেই। একজনের নীতিতে বিচার চলছে। শেখ হাসিনার নীতির বাইরে দেশে কোন বিচার হয় না। প্রতিনিয়ত মানুষ খুন গুম হচ্ছে। সারা দেশে বিএনপির সাড়ে ৫ শত নেতাকর্মী গুম হয়েছে। হত্যা করা হয়েছে অসংখ্য নেতাকর্মীকে। হাজার হাজার মামলা হয়েছে। শত শত নেতাকর্মী শুধু বিএনপির রাজনীতি করার কারণে জেলে আছেন। কে কখন খুন হবে, গুম হবে তা কেউ বলতে পারছে না। এটা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ নয়।

বিএনপির সিনিয়র এই নেতা বলেন, গত এগারো বছরের যত লুট-খুন-গুম হয়েছে, তার জবাব একদিন এই অবৈধ সরকারকে দিতে হবে। জনতার আদালতে বিচার করা হবে। সেই দিন বেশি দূরে নয়। জনগণ সত্যিকারের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বিএনপিকে ক্ষমতায় আনার মাধ্যমে সরকারের পতন নিশ্চিত করবে।

এ সময় কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হলে সকলকে এক যোগে আন্দোলন করার জন্য প্রস্তুত হবার আহ্বান জানিয়ে বুলু বলেন, কোনো মামলা না থাকার পরেও মিথ্যা মামলা সাজিয়ে সরকারের ইচ্ছের প্রতিফলনের রায়ে খালেদা জিয়াকে জেলে রাখা হয়েছে। সরকার বিচার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করছে। ২০ মাস ধরে আন্দোলন সংগ্রাম করেও বেগম খালেদা জিয়াকে আমরা মুক্ত করতে পারছি না।

সমাবেশে রংপুর জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, রংপুর মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু, রংপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক রইচ আহমেদসহ জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

আপনার মতামত লিখুন :