খুলনায় কর্মবিরতি, পাম্পে তেল বিক্র‌ি বন্ধ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, খুলনা
খুলনায় কর্মবিরতি, পাম্পে তেল বিক্র‌ি বন্ধ

খুলনায় কর্মবিরতি, পাম্পে তেল বিক্র‌ি বন্ধ

  • Font increase
  • Font Decrease

জ্বালানি তেল বিক্রয়ের প্রচলিত কমিশন বৃদ্ধিসহ ১৫ দফার দাবিতে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেছে ট্যাংকলরি মালিক ও শ্রমিকরা।

রোববার (০১ ডিসেম্বর) সকাল থেকে ট্যাংকলরি মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ, জ্বালানি তেল পরিবেশক সমিতি, পেট্রোল পাম্প মালিক সমিতিসহ জ্বালানি ব্যবসায়ীদের ডাকে এ কর্মবিরতি শুরু হয়।

মালিক-শ্রমিকদের ১৫ দফা দাবির মধ্য‌ে উল্লেখযোগ্যগুলো হলো, জ্বালানি তেল বিক্রয়ের কমিশন বৃদ্ধি করে ৭.৫ উন্নতি করা, পেট্রোল পাম্প নির্মাণে কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান অধিদফতরের লাইসেন্স গ্রহণ বাতিল, জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীদের কমিশন এজেন্ট নির্দিষ্ট করা, নতুন পেট্রোল পাম্প নির্মাণে বিভাগীয় জ্বালানি মালিক সমিতির ছাড়পত্র বিধান চালু, খুলনা, মোংলা, নড়াইল, বেনাপোলসহ বিভিন্ন জেলায় ট্যাংকলরি থেকে জোরপূর্বক পৌরসভা চাঁদা গ্রহণ বন্ধ ও ট্যাংকলরি শ্রমিকদের ৫ লাখ টাকা দুর্ঘটনা বীমা প্রণয়ন করা, ট্যাংকলরি ভাড়া বৃদ্ধি।

জানা যায়, খুলনার সকল পাম্পে তেল বিক্রি বন্ধ আছে। কর্মবিরতি চলাকালে পদ্মা, মেঘনা, যমুনা তেল ডিপো থেকে তেল উত্তোলন ও বিপণন বন্ধ আছে। একই সাথে বন্ধ আছে ট্যাংকলরির সকল বিপণন গাড়িও।

এছাড়া শনিবার (৩০ নভেম্বর) কর্মবিরতির খবরে রাতভর পাম্পগুলোতে গাড়ির ভিড় করে তেল নিতে দেখা যায়।

বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ডিলার ডিস্ট্রিবিউটর ওনার্স এসোসিয়েশনের যুগ্ম-মহাসচিব ও খুলনা বিভাগীয় ট্যাংকলরি ওনার্স এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফরহাদ হোসেন জানান, দীর্ঘদিন ধরে জ্বালানি তেল ব্যবসায়ীদের যৌক্তিক দাবি নিয়ে সংশ্লিষ্টরা তালবাহানা করছে।  প্রতিশ্রুতি দিয়ে বার বার তা ভঙ্গ করেছে। আর কোনো প্রতিশ্রুতি নয়। ফিলিং স্টেশন তথা জ্বালানি ব্যবসায়ীদের উপর অযথা চাপিয়ে দেয়া বিধান আমরা আর মানবো না। এভাবে জ্বালানি ব্যবসা করা আদৌ সম্ভব নয়। তাই বাধ্য হয়ে জ্বালানি ব্যবসায়ীরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি ঘোষণা দিয়েছে।

তিনি আরো বলেন, জনজীবনে জটিলতা সৃষ্টি করা কাম্য নয়, সমাধানের পদক্ষেপ গ্রহণ করলেই এ কর্মবিরতি থাকবেনা।

আপনার মতামত লিখুন :