হাসি নেই ‘শখের হাঁড়ি’র কারিগরদের মুখে

হাসান আদিব, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, রাজশাহী
শখের হাঁড়িতে আলপনা করছেন দক্ষ ও ক্ষুদে কারিগর, ছবি, বার্তা২৪.কম

শখের হাঁড়িতে আলপনা করছেন দক্ষ ও ক্ষুদে কারিগর, ছবি, বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

মাত্র পাঁচ দিন পরই বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। তবে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বৈশাখী অনুষ্ঠান বাতিল ঘোষণা করেছে সরকার। ফলে গ্রাম থেকে শহর, কোথাও বসবে না এবারের বৈশাখী মেলা। গগন কাঁপিয়ে বাজবে না ভেঁপু, নজর কাড়বে না রং-বেরঙের মাটির হাঁড়ি!

নিস্তব্ধ কুমারপাড়ার মৃৎশিল্পীদের কপালে কেবল-ই চিন্তার ভাঁজ! উৎসব ঘিরে রুটি-রুজির সব আয়োজন যে ভেস্তে গেছে তাদের! কেউ কেউ হাতে থাকা স্বল্প সঞ্চয় লগ্নিও করেছিলেন হাঁড়ি-পাতিল বানানোর কাজে।

হয়তো ইচ্ছে ছিল- লাভের মুখ দেখলে মেয়ের বিয়ে দিব। কেউ-বা তুলতে চেয়েছিলেন মাথা গোজার জন্য ছোট্ট ঘর। তবে এবারের লগ্নি জলেই যাচ্ছে অসহায় মৃৎশিল্পীদের। বেঁচে থাকার তাগিদে পহেলা বৈশাখের প্রস্তুতি ফেলে ত্রাণের আশায় ছুটছেন মৃৎশিল্পীরা।

শখের হাঁড়ি তৈরি করছেন গুণী কারুশিল্পী সুশান্ত পাল, ফাইল ছবি

তবে এখনো আশা দেখছেন ‘ঐতিহ্যবাহী শখের হাঁড়ি’ তৈরির প্রধান কারিগর সুশান্ত কুমার পাল। রাজশাহীর পবা উপজেলার বাগধানী বসন্তপুরে তার বাড়িতে চলছে পুরোদমে প্রস্তুতি। স্ত্রী, ছেলে, মেয়ে, নাতি-নাতনি সকলে মিলে ছোট ছোট মাটির হাঁড়িতে নিপুণভাবে ফুটিয়ে তুলছেন কারুকাজ।

কিন্তু তাদের মুখে নেই বৈশাখের আগমনে সেই চিরায়ত হাসি। তবে হতাশায় কুচকে যাওয়া কপালের ভাঁজের নিচে দু’চোখে এখনো জ্বল-জ্বলে স্বপ্ন। এই বুঝি হয়ে যাবে- সব ঠিকঠাক! সব জীর্ণতা-গ্লানি ধুয়ে-মুছে বৈশাখে নতুন রূপে সাজবে সোনার বাংলা।

তাইতো শখের হাঁড়ির খ্যাতিমান কারুশিল্পী ৫৯ বছর বয়সী সুশান্ত পাল সাবলীলভাবে জানালেন, ‘১০-১১ তারিখে হাঁড়ি নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার কথা রয়েছে।’

শখের হাঁড়ি

অথচ রাজশাহীতে চলছে অঘোষিত লকডাউন। খবরটি স্মরণ করিয়ে দিয়ে কীভাবে যাবেন- জিজ্ঞেস করতেই তিনি বলেন, ‘এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে তো আর যাওয়া হবে না। যদি পরিস্থিতি ভালো হয়, তবে অবশ্যই ঢাকা যাবে আমার শখের হাঁড়ি।’

মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) শখের হাঁড়ির কারিগর সুশান্ত পালের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির সামনেই সুশান্ত পাল তৈরি করছেন ছোট ছোট হাঁড়ি। পাশেই কাজ করছেন তার ছেলে সঞ্জয় কুমার পাল। তাকে সাহায্য করছেন তার স্ত্রী ও বাড়ির আরও দুই জন সদস্য।

বাড়ির ভেতরে ঢুকতেই চোখে পড়ে চারদিকে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে হাঁড়িগুলোর গায়ে সুনিপুণভাবে আলপনার কাজ। পরম মমতায় রঙ-তুলির শেষ আঁচড়ে নকশা সাজাচ্ছেন সুশান্ত পালের স্ত্রী ও ছোট্ট নাতনি সঞ্জিতা রাণী পাল। কখনো দাদা-দাদির দেখানো আঁচড়ে, কখনো নিজের মনমতো এঁকে চলেছে শিশুটি।

সুশান্ত পালের ছেলে সঞ্জয় পাল বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে এবার অধিকাংশ মৃৎশিল্পী কাজ আর করছেন না। তবে আমরা হাল ছাড়িনি। কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। কিন্তু বিগত বছরগুলোর মতো না, এবার অনেক কম।’

শখের হাঁড়িতে রঙ করতে ব্যস্ত এক নারী, ফাইল ছবি

তিনি আরও বলেন, ‘নতুন করে হাঁড়ি বানাচ্ছি না, বানানোগুলোতে রঙ করা হচ্ছে। কাজ যা হাতে নিয়েছি, তাও যদি বিক্রি করা যেত তবে আসল টাকাটা উঠতো। তবে সেই আশা আস্তে আস্তে কমে আসছে। মনে হচ্ছে না- এবার হাঁড়ি নিয়ে বাইরে যেতে পারব।’

এদিকে, রাজশাহী নগরীর মিয়াপাড়া, গণকপাড়া, ঘোড়ামারা, শেখেরচক ও কুমারপাড়ায় ঘুরে দেখা গেছে ভিন্নচিত্র। সেখানে অধিকাংশ মৃৎশিল্পীরা আর কাজ করছেন না। তারা পহেলা বৈশাখে বেচা-বিক্রির আশা ছেড়েই দিয়েছেন। জানালেন- বেঁচে থাকার তাগিদে জেলা প্রশাসন, সিটি করপোরেশনসহ বিভিন্ন সংগঠন, সংস্থা এবং রাজনৈতিক নেতাদের কাছে ত্রাণ সহায়তার জন্য ধরনা দিচ্ছেন তারা।

২৫ বছর ধরে মৃৎশিল্পী হিসেবে কাজ করেন কুমারপাড়ার সুধীর পাল। তিনি বলেন, ‘এক মাস আগে থেকে প্রস্তুতি শুরু করেছিলাম। হাড়ি-পাতিল বানানো শেষ। এখন শুধু কিছু পোড়ানো এবং রঙ করার কাজ বাকি। কিন্তু বৈশাখ হবে না, তাই শ্রমিকদের ছুটি দিয়ে দিয়েছি। কাজ পুরোপুরি বন্ধ।’

শখের হাঁড়িতে আলপনা করছে এক শিশু কারুশিল্পী

আরেক কারিগর গণেষ পাল বলেন, ‘বাবা-দাদাদের পেশায় আমি ২৭ বছর। দুর্গাপূজার পর বৈশাখে কিছুটা আয় রোজগার হয়। কিন্তু এবারই প্রথম পহেলা বৈশাখে কোথাও মেলা হচ্ছে না। মেলা না হলে, মানুষ না জমলে মাটির হাঁড়ি-পাতিলসহ তৈজসপত্র কিনবে কারা? বৈশাখ বাতিল শোনার পর থেকে সব কাজ বন্ধ করে দিয়েছি।’

শ্রমিক অরবিন্দ বলেন, ‘দুই সপ্তাহ ধরে কাজ করছি। মালিক সপ্তাহে তিনদিন মজুরি দেয়। আর বাকিটা বৈশাখে বিক্রির পর দেওয়ার কথা। এখন কাজ বন্ধ, বকেয়া টাকাও দিতে পারছে না। তাদেরকে চাপই বা দেব কীভাবে? তারাও খুব লসের মধ্যে আছে।’

আপনার মতামত লিখুন :