'সামাজিক দূরত্ব রক্ষার শপথই হোক বাংলা নববর্ষের অঙ্গীকার'



সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

পহেলা বৈশাখ বাঙালির প্রাণের উৎসব। আবহমান বাঙালি জাতির একান্তই স্বকীয়তা। বাংলা নববর্ষ বাঙালি জাতির জীবনে সর্ববৃহৎ সার্বজনীন সাংস্কৃতিক উৎসব। বাঙালির চিরায়ত অসাম্প্রদায়িক সাংস্কৃতিক চেতনা উদ্ভাবিত করার দিন পহেলা বৈশাখ। পহেলা বৈশাখে নতুন করে আহ্বানের মধ্য দিয়ে জাতি ধর্ম নির্বিশেষে বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধভাবে বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নেয়। এবারের পহেলা বৈশাখে সামাজিক দূরত্ব রক্ষার শপথই হোক বাংলা নববর্ষে আমাদের সকলের সম্মিলিত অঙ্গীকার।

মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে তার সরকারি বাসভবন থেকে পাঠানো এক ভিডিও বার্তায় একথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, পহেলা বৈশাখ উদযাপনের ঐতিহ্য আনন্দের জাতিগত ঐক্য সংহতি ভ্রাতৃত্ব ও সামাজিক সম্প্রীতির মেলবন্ধন সুদৃঢ় করে। বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দেশের সকল মানুষের স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলা, শতভাগ সচেতনতা, সামাজিক দূরত্ব রক্ষার শপথই হোক এবারের বাংলা নববর্ষের আমাদের সকলের সম্মিলিত অঙ্গীকার। সকলেই ঘরে থাকুন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন সুস্থ থাকুন। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে বীরের জাতি বাঙালির জয় হবেই।

তিনি বলেন, প্রতিবছরই দেশবাসী ঐক্যবদ্ধভাবে চিরায়ত বাঙালি সাজে বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করে। কিন্তু এবছর বাংলা নববর্ষ এমন একটি সময়ে আমাদের সামনে হাজির হয়েছে যখন ভয়ানক প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মানবিক বিপর্যয়ের মুখে সমগ্র পৃথিবী সমগ্র বাংলাদেশ। বাংলাদেশেও বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস প্রতিরোধে প্রাণান্তর সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্ব।

করোনা একটি অতিমাত্রার সংক্রামক ভাইরাস এবং এই মহামারির কোনো প্রতিষেধক প্রতিকার না থাকায় শারীরিক দূরত্ব, সামাজিক দূরত্ব এবং ঘরে থাকার শৃঙ্খলা মেনে চলাই হচ্ছে প্রতিরোধের উত্তম পন্থা। কাজেই জনসমাগম এড়িয়ে ঘরে বসেই চিরায়ত বাঙালির চেতনা এবারের বাংলা নববর্ষ উদযাপন করার জন্য আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সর্বস্তরের জনগণকে আহ্বান জানাচ্ছি।