শ্রমবাজারে সুদিন আসবে শিগগিরই: প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাস মহামারি ও বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার কারণে বিশ্বব্যাপী শ্রমবাজার হুমকির সম্মুখীন হয়েছে। অন্যতম কর্মী প্রেরণকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ দেখা দিয়েছে। এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ একটি চ্যালেঞ্জ। তারপরেও আমরা আশাবাদী। আমরা জানি রাতের পর দিন আসে এবং ওই দিনটা খুব শিগগিরই আসবে।

বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে কার্যপ্রণালী বিধির ৩০০ বিধিতে বিবৃতি প্রদানকালে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, আমরা দক্ষ শ্রমশক্তি প্রস্তুত রাখতে নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছি। যাতে অর্থনৈতিক মন্দা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এবং বাজার খোলার সাথে সাথে ওদেরকে বিদেশে পাঠাতে পারি। এই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। যদি কোভিড-১৯ পরবর্তী বাজারের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে পারি, তাহলে আমাদের বৈদেশিক প্রবাসী আয় প্রবাহ অব্যাহত থাকবে।

তিনি বলেন, শ্রমবাজার নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে নানা ধরনের সংবাদ পরিবেশন হওয়ায় এই সম্পর্কিত বিভ্রান্তি দূর করতে এবং শ্রমবাজারের সর্বশেষ তথ্য তুলে ধরতে এই বিবৃতি।

শ্রমবাজারের সর্বশেষ পরিসংখ্যান তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, বিগত বছরগুলোর হিসাব অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে প্রায় প্রতি মাসে ৬০ হাজার কর্মী বিদেশে গিয়েছেন। ২০১৯ সালের জানুয়ারি হতে আগস্ট মাস পর্যন্ত ৪ লাখ ৬০ হাজার কর্মী বিদেশে গিয়েছেন। কিন্তু ২০২০ সালের জানুয়ারি হতে আগস্ট পর্যন্ত মাত্র ১ লাখ ৭০ হাজার কর্মী বিদেশে গেছে। এর কারণ এ বছর এপ্রিল থেকে আগস্ট পর্যন্ত কোনো কর্মী বিদেশে যেতে পারেন নাই বললেই চলে। অন্যদিকে করোনার কারণে বিভিন্ন দেশের অভিবাসন সেক্টরের টাকা অনিয়মিত হওয়ায় নিজ নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর কারণে আমাদের কর্মীদের একটি ক্ষুদ্র অংশ দেশে ফিরে এসেছে।

প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের তথ্যানুযায়ী গত ১ এপ্রিল হতে ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ লাখ ১১ হাজার ১১১ জন প্রবাসী কর্মী দেশে ফেরত এসেছেন। তাদের অনেকে কাজের মেয়াদ শেষে বা কাজ না থাকায় দেশে ফেরত এসেছেন। যদিও আশঙ্কা করা হয়েছিল অর্থনৈতিক মন্দা এবং করোনার প্রভাবে প্রধানকর্মী নিয়োগকারী দেশ সমূহের শ্রমবাজার বিপর্যস্ত হবে, যার কারণে অনেক বিদেশি কর্মী বেকার হয়ে পড়বেন। আশার কথা এই যে এখন পর্যন্ত ফেরত আসা কর্মীর সংখ্যা আশঙ্কাজনক হয়ে ওঠে নাই। এক্ষেত্রে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিদেশে মিশন ও দূতাবাসে একযোগে ইতিবাচক ভূমিকা পালন করার কারণে এই অবস্থা হয়েছে।

করোনাকালে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের কর্মকাণ্ড তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, যে সকল কর্মী ফেরত এসেছেন বা আসবেন তাদের অর্থনৈতিকভাবে পুনর্বাসন এবং পুনঃকর্মসংস্থানের প্রয়োজনী উদ্যোগ গ্রহণ করেছে সরকার। করোনা সংকট মোকাবিলায় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে বিদেশে অবস্থানগত বাংলাদেশিদের জন্য ১৩ কোটি টাকা জরুরি ত্রাণ ও আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। তাছাড়া বিপদগ্রস্ত কর্মীদের দেশে আনা এবং বিদেশ ফেরত কর্মীদের পুনর্বাসনের জন্য এবং কর্ম সময়পযোগী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত কর্মীদের অথবা মৃত কর্মীদের পরিবারের সদস্যদের নিজ জেলা থেকে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের মাধ্যমে সহজ শর্তে মাত্র ৪ শতাংশ সরল সুদে ৫ বছর মেয়াদি ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করা হচ্ছে। বিদেশ ফেরত কর্মীদের ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী আরও ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এছাড়াও বিদেশ ফেরত কর্মীদের সামগ্রিক কল্যাণ ও বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় ৪২৫ কোটি টাকার প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সের হার তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি রাজস্ব। ২০১৮-২০১৯ সালে রেমিটেন্স ছিল ১৬ দশমিক ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০১৯-২০২০ সালে রেমিটেন্স ছিল ১৮ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার। যা বিগত বছরের তুলনায় ১১ শতাংশ বেশি। কিন্তু ২০২০-২০২১ সালে জুলাই-আগস্ট মাসে রেমিটেন্স এসেছে ৪ দশমিক ৫৬ বিলিয়ন ডলার। যা গত অর্থবছরের তুলনায় ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার বেশি। রেমিটেন্স পাঠানোর ওপর ২ শতাংশ প্রণোদনা দেওয়ায় এই প্রবাহ বৃদ্ধি পেয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমাদের আন্তরিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও সাম্প্রতিকালে কয়েকটি দেশের কিছু কিছু কর্মী অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই বৈধপথে বিদেশে যান নাই। এক্ষেত্রে অনিয়মের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা এবং তার সাথে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। প্রতারণা থেকে রক্ষা এবং সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সংসদ সদস্যদের সম্পৃক্ত করে সর্বস্তরের জনগণের অংশগ্রহণে সেমিনার আয়োজন করা হচ্ছে। মুজিব বর্ষে আমাদের মন্ত্রণালয়ের স্লোগান ‘মুজিব বর্ষের আহ্বান দক্ষ হয়ে বিদেশ যা’। দক্ষকর্মী গড়ার লক্ষ্যে সারা দেশে ৬৪টি টিটিসি ও ৬টি মেরিন টেকনলোজি ইনস্টিটিউট চালু আছে। উপজেলা পর্যায়ে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে টিটিসি স্থাপন করব। এই লক্ষ্যে ৪০টি টিটিসি নির্মাণাধীন আছে, আরও ৭১টি টিটিসি ডিপিপি জমা হতে যাচ্ছে।

প্রবাসীদের ১০০ টাকায় করোনা টেস্ট সুবিধা প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন মন্ত্রী। সরকারের লক্ষ্য প্রতিটি উপজেলা থেকে ১ হাজার করে কর্মী পাঠানো। সেজন্য দক্ষ জনশক্তি গড়া হচ্ছে।