আমরা হাল ছেড়ে দেয়নি: ফখরুল



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সবচেয়ে ভয়ঙ্কর এবং ভয়াবহ অবস্থা বর্তমানে বাংলাদেশে। নির্মম একটা রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিরাজমান করছে। এখানে মানুষকে হত্যা করতে কোন সময় লাগে না। মানুষকে নির্যাতন করতে কোন সময় লাগে না। এখান থেকে আমাদেরকে বেরিয়ে আসতে হবে। সেই চেষ্টা আমরা করছি। গত ১৪ বছর ধরে আমরা এই ফ্যাসিসের বিরুদ্ধে লড়াই করছি। আমাদের ৩৫ লাখ মানুষের ওপর মিথ্যা মামলা হয়েছে, গায়েবি মামলা হয়েছে, রাষ্ট্রদ্রোহের মামলা হয়েছে। আমাদের ৫০০ এর ওপর নেতাকর্মীকে গুম করে ফেলা হয়েছে, সহস্রাধিক মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। তারপরেও কিন্তু এখন পর্যন্ত আমরা হাল ছেড়ে দেয়নি, আমরা লড়ছি। আমরা সংগ্রাম করছি এবং যে পথে চলতে চাই, সে পথেই চলছি।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে অলি আহমদ স্মৃতি সংসদ আয়োজিত ভাষা আন্দোলনের সিপাহসালার ও দেশবরেণ্য জাতীয় নেতা অলি আহমেদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

ফখরুল ইসলাম বলেন, এরা বিভাজন এমন একটা জায়গায় নিয়ে চলে গেছে যেখানে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান মুসলমান সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়ে যায়। এই বিভাজন এত বেশি বৃদ্ধি পাচ্ছে যে এখন মানুষ একেবারে আইসোলেট করে ফেলেছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ এখন একটা গালিতে পরিণত হয়েছে।

সকল রাজনৈতিক দলকে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় ফিরে আসার দাবি জানিয়ে বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমরা লাড়ছি। আমরা তাদের কাছে এইটুকু আশা করবো, আপনার বলেছেন গণতন্ত্রের জন্য যে লড়াই, সেই লড়াইয়ে আসেন। আমরা সবাই একসাথে আসি, তারপর যার যেটা পাওনা সেটা বুঝে নিবেন।

গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি বলেন, আমরা কোরআন অবমাননার বিচার চাই। তবে একটাও মন্দিরে কেউ হামলা করতে পারবে না, হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরে কেউ আগুন দিতে পারবে না। এই কথা কি আমরা বলতে পেরেছি, পারি নাই। না পারার অর্থ হচ্ছে ভারত এখানে যেভাবে রাজনীতি চায়, সেভাবে রাজনীতি হচ্ছে। আমরা পরিষ্কার বুঝতে পারছি, সরকার আগুন নিয়ে খেলতে চায়। এই খেলা আপনার খেলবেন না। বাংলাদেশকে আপনারা বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছেন।

নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, ইতিহাস বিক্রি করে খায় আওয়ামী লীগ। এদের ইতিহাস কুর্মিটোলার ধর্ষকের ইতিহাস, কুমিল্লার ইকবালের ইতিহাস। ভবঘুরে ও উদ্ভ্রান্তের ইতিহাস। ইকবালের মা বলেছেন, এই ছেলে নয়-দশ বছর থেকে নেশা-ভাঙ্গ করে। এমন একটা ছেলেকে মিডিয়ার সামনে এনে দিল। এই ছেলের সব ভিডিও ফুটেজ আছে। কিন্তু কোরআন রাখা আর গদা নেওয়ার ফুটেজ নাই। এইটা কিছু হইল?

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক প্রমুখ।