বগুড়ায় বিএনপি-আ.লীগ সংর্ঘষে আহত ২০



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, বগুড়া
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বগুড়ার গাবতলীতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে দফায় দফায় সংর্ঘষ হয়েছে। প্রায় আড়াই ঘণ্টা ব্যাপী সংর্ঘষে দুই পক্ষের কমপক্ষে ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ দু’পক্ষকেই লাঠিচার্জ করে ব্যর্থ হয়। একপর্যায় টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে বেলা আড়াইটার দিকে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আনে। সংর্ঘষের পর একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে সেখানে দাঙ্গা পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

রোববার (২৯ মে) বেলা ১২টার দিকে গাবতলী পৌর এলাকার পুর্বপাড়া থেকে সংর্ঘষের সূত্রপাত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে গাবতলীর বিএনপি নেত্রী সুরাইয়া জেরিন রনি ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য রাখেন দুইদিন আগে। এর প্রতিবাদে গাবতলী উপজেলা আওয়ামী লীগ রোববার বিক্ষোভ সমাবেশ আহবান করেন। বেলা ১২ টায়  উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে থেকে নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি তিনমাথা মোড় পার হয়ে গাবতলী পুর্বপাড়া এলাকায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি মোর্শেদ মিলটনের বাড়ির সামনে পৌঁছে। এ সময় মোর্শেদ মিলটনের বাড়িতে অবস্থানরত শতাধিক বিএনপি নেতাকর্মী আওয়ামী লীগের মিছিলে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। এতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা পিছু হটে গাবতলী থানার সামনে অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সংঘবদ্ধ হয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের ধাওয়া করলে দুই পক্ষের মধ্যে সংর্ঘষ বেঁধে যায়। আধাঘণ্টা ব্যাপী সংর্ঘষে দুইপক্ষের কমপক্ষে ২০ জন নেতাকর্মী আহত হয়।

বিএনপির একটি সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগের পুর্ব ঘোষিত কর্মসূচি বিক্ষোভ মিছিল থেকে বিএনপির সভাপতি মোর্শেদ মিলটনের বাড়িতে হামলা হতে পারে এমন আশংকায় রোববার সকাল থেকেই বিএনপির শতাধিক নেতাকর্মী মোর্শেদ মিলটনের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

সংর্ঘষ চলাকালে পুলিশ অবস্থান নিয়ে দুইপক্ষকে নিবৃত করেন। এর কিছুক্ষণ পর গাবতলী পশ্চিম পাড়ায় পৌর মেয়র ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে বিএনপি নেতাকর্মীরা সংগঠিত হয়ে আওয়ামী লীগ অফিসের পিছন থেকে হামলা করে। এ সময় আওয়ামী লীগ অফিসে দলীয় নেতাকর্মীরা অবস্থান করছিলেন। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা হামলার পাল্টা জবাব দিতে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করলে দুই পক্ষের মধ্যে শুরু হয় আবারো সংর্ঘষ। এ সময় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপি অফিসে হামলা করে এবং অগ্নিসংযোগ করে। 

পুলিশ টিয়ার সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে বেলা আড়াইটার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

সংর্ঘষে গুরুতর আহতরা হলেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সুমন, মৎস্যজীবী লীগের লেমন, শ্রমিক লীগের মানিক সরকার, সাইফুল ইসলাম, যুবলীগের মনির ইসলাম, যুবদল নেতা হারুনার রশিদ, ছাত্রদল নেতা জাকিরুল ইসলাম, জালাল, সোহাগ, আলিম জুয়েল আহম্মেদ। তাদেরকে বিভিন্ন ক্লিনিক ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গাবতলী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

৮ মাস পর দেশে ফিরলেন রওশন এরশাদ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
রওশন এরশাদ

রওশন এরশাদ

  • Font increase
  • Font Decrease

দীর্ঘ ৮ মাস থাইল্যান্ডে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরছেন সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ।

সোমবার (২৭ জুন) বেলা ১২টা ১০ মিনিটের দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বন্দরে অবরতণ করেন তিনি।

বিরোধী নেতা সরাসরি রাজধানীর গুলশানে হোটেল ওয়েস্টিনে চলে যাবেন। ঢাকায় অবস্থানকালে রওশন এরশাদ সেখানেই থাকবেন। আগামী ৩০ জুন বাজেট অধিবেশনের সমাপনী দিনে উপস্থিত থাকবেন। পরে আগামী ৪ জুলাই চিকিৎসার জন্য আবারও থাইল্যান্ড চলে যাবেন বলে সূত্র জানিয়েছে।

বিমানবন্দরে তাকে স্বাগত জানাতে নেতাকর্মীদের উপচেপড়া ভীড় লক্ষ্যণীয়। ঢাকা জেলার পাশাপাশি বিভিন্ন জেলার নেতাদের উপস্থিতি দেখা গেছে। পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদেরসহ বেশিরভাগ শীর্ষনেতা ও সংসদ সদস্য সেখানে উপস্থিত হন।

;

‘বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতি এখন পদ্মার গহীন অতলে নিমজ্জিত’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, শেখ হাসিনার উন্নয়নের রাজনীতির কারণে বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতি এখন পদ্মার গহীন অতলে নিমজ্জিত।

সোমবার (২৭ জুন) তার সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

;

বানবাসী মানুষের পাশে নেই সরকার: আমান



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
বানবাসী মানুষের পাশে নেই সরকার

বানবাসী মানুষের পাশে নেই সরকার

  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যা কবলিত অসহায় বানবাসী মানুষের পাশে সরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহবায়ক আমান উল্লাহ আমান।

শনিবার (২৫ জুন) নেত্রকোনা জেলা বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এদিন সকালে আমান উল্লাহ আমান ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব আমিনুল হকসহ কয়েকজন নেতৃবৃন্দ ত্রাণ নিয়ে নেত্রকোনায় পৌঁছান। সেখানকার দলীয় নেতৃবৃন্দরা স্বাগতম জানান।

নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলার পদমশ্রী এ ইউ খান হাইস্কুল মাঠ, গোবিন্দশ্রী ইউনিয়ন; খালিয়াজুরী উপজেলার খালিয়াজুরী কলেজ ও হাইস্কুল মাঠ; মোহনগঞ্জ উপজেলার পাইকুড়া বাজার, তেতুলিয়া ইউনিয়ন; বারহাট্টা উপজেলা বালীজুরী প্রাইমারী স্কুল, সাওতা ইউনিয়ন এবং নেত্রকোণা সদর উপজেলার মানিকপুর ঈদগাহ মাঠ, আমতলা ইউনিয়নের বন্যা কবলিত মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করছে ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি।

এ সময় আমান বলেন, ভয়াবহ বন্যায় লাখো মানুষ কষ্টে আছেন। অর্ধাহারে, অনাহারে, বিনা চিকিৎসায় তারা কাতর হয়ে আছেন। অথচ সরকারের সেদিকে কোনো নজর নাই। একদিকে বন্যার্তদের চোখের পানি অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মেতে উঠেছেন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন নিয়ে। কোটি কোটি টাকা এই উৎসবের নামে অপচয় করা হলেও বন্যার্তদের পাশে নেই তারা।

;

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী এড়াতে ব্যাংককে জিএম কাদের!



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা জিএম কাদের

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা জিএম কাদের

  • Font increase
  • Font Decrease

জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের এমপি পদ্মা সেতুর উদ্বোধনীয় অনুষ্ঠান এড়াতে বিদেশ সফরে গেছেন বলে দলীয় একাধিক সূত্র দাবি করেছেন। দেশে থাকলে নানা রকম প্রশ্ন উঠতে পারে তাই এই কৌশল বলে অনেকে মনে করছেন।

তারা মনে করছেন, জিএম কাদের আর সরকারের সঙ্গে মাখামাখা সম্পর্ক দেখাতে চান না। আবার এই মুহূর্তে পুরোপুরি বয়কট করতেও সিনিয়র নেতাদের সমর্থন পাচ্ছেন না।

দলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ব্যাংককে চিকিৎসাধীন বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদকে দেখার জন্যই এই সফর। তবে পার্টির এই বক্তব্য ধোপে ঠিকছে না। কারণ সোমবার (২৭ জুন) দেশে ফিরতে যাচ্ছেন রওশন এরশাদ। দুই দিন পর যিনি দেশে ফিরছেন তাকে দেখতে যাওয়া হাস্যরসের জন্ম দিয়েছে। গত নভেম্বরে মুমূর্ষ অবস্থায় রওশন এরশাদকে চিকিৎসার জন্য বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে নেওয়া হয়। এতদিন দেখতে না গিয়ে যখন সুস্থ হয়ে দেশের ফেরার প্রস্তুতি নিয়েছেন তখন দেখতে যাওয়াকে লোক দেখানো বলে মনে করছেন অনেকেই।

দলীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান প্রকাশ্য কোন ঘোষণা না দিলেও গোপনে স্পষ্ট করেই বলে দিয়েছেন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান না করার জন্য। এমনকি পদ্মা সেতুর প্রস্তুতি সভায় যোগদান থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দিয়েছিলের বরিশাল থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য রত্না আমিন হাওলাদারকে। আওয়ামী লীগ নেতা আবু হাসনাত আব্দুল্যাহ উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সফল করতে বসেছিলেন বরিশাল অঞ্চলের সংসদ সদস্যদের সঙ্গে।বরিশাল-৬ আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় পার্টির এমপি রতনা আমিন হাওলাদকেও সেই সভায় ডাকা হয়। জাপার ওই এমপি ফোনে জিএম কাদের’র পরামর্শ ও যোগদানের অনুমতি চেয়েছিলেন। জিএম কাদের তাকে সাফ জানিয়ে দেন, কোনভাবেই অংশ নেওয়া যাবে না। এক পর্যায়ে সাফ জানিয়ে দেন, আবু হাসনাত আব্দুল্যাহ’র ডাকা সভায় যোগ দিলে তাকে দল থেকে বহিস্কার করা হবে। পরে ওই সভায় যোগদান থেকে বিরত থাকেন রতনা আমিন হাওলাদার।

শুধু তাই নয়, বিদেশ সফরের আগে ঢাকা বিভাগের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড ৭ দিনের জন্য স্থগিত করার মধ্যেও কেউ কেউ কৌশল হিসেবে দেখছেন। জিএম কাদের ২৩ জুন থাইল্যান্ড সফরে যাওয়ার আগে ঢাকা, সিলেট ও রংপুর বিভাগের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়ে যান। নির্দেশনায় বলা হয়েছে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণের জন্য ৭ দিনের জন্য এই সিদ্ধান্ত। এখানেও কেউ কেউ ষড়যন্ত্রের গন্ধ খুজে পাচ্ছেন। তারা বলছেন সিলেট ও রংপুর বিভাগে বন্যা থাকলেও ঢাকা বিভাগের বিষয়টি রহস্যবৃত।

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মূলত সেতুর দুই প্রান্তে থাকা ঢাকা বিভাগের লোকজন অংশ নেওয়ার কথা। যাতে ঢাকা বিভাগের নেতারা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান করার জন্য সাংগঠনিক তৎপরতা চালাতে না পারেন। সে জন্যেই এই অবস্থান বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা বিভাগে কয়েকজন সংসদ সদস্য রয়েছেন যারা আওয়ামী ঘেষা বলে পরিচিত। তারা অতীতে আওয়ামী লীগের অনেক অনুষ্ঠানে মিছিল নিয়ে জমায়েত হয়েছেন। এমনও হয়েছে কেন্দ্রের নির্দেশনা অমান্য করে কেউ কেউ ভূমিকা রেখেছেন। তাদের ঠেকাতে জিএম কাদের’র বিশেষ কৌশল বলে মনে করেন খোদ দলের লোকজনেই।

জাতীয় পার্টির দফতর সম্পাদক সুলতান মাহমুদ বার্তা২৪.কম-কে জানিয়েছে, পদ্মা সেতু উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগদান করা বা না করার বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। পার্টির চেয়ার‌ম্যান, মহাসচিব দেশের বাইরে রয়েছেন। সে কারণে তারা অংশ নিতে পারছেন না। দলীয় সংসদ সদস্যরা চিঠি পেয়েছেন, তারা চাইলে অংশ নিতে পারবেন।

কেউ অংশ নিয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, এই মুহূর্তে আমার জানা নেই।

জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও পার্টির চেয়ারম্যানের প্রেস ও পলিটিক্যাল সেক্রেটারি সুনীল শুভরায় বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আমি যতটুকু জানি দলীয় সংসদ সদস্যসহ যারা আমন্ত্রণপত্র পেয়েছেন তারা অনেকেই অংশ নিয়েছেন।

;