৫ আসনে উপ-নির্বাচন: জাপার প্রার্থীতা ঘোষণা



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

বিএনপির ছেড়ে দেওয়া জাতীয় সংসদের ৫ আসনের উপ-নির্বাচনের জন্য প্রার্থীতা ঘোষণা করেছে জাতীয় পার্টির মনোনয়ন বোর্ড।

মঙ্গলবার (২৭ ডিসেম্বর ) প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়।

জাতীয় পার্টি মনোনয়ন বোর্ড কর্তৃক চূড়ান্তভাবে মনোনীত প্রার্থীরা হলেন- ঠাকুরগাঁও -৩ হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, বগুড়া-৬ মো. নূরুল ইসলাম ওমর, বগুড়া-৪ শাহীন মোস্তফা কামাল ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে মো. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া।

বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্যগণ পদত্যাগ করলে আসনগুলো শূন্য হয়ে পড়ে। এসব আসনে আগামী ১ ফেব্রুয়ারি ভোটের তারিখ নির্ধারণ করেছে নির্বাচন কমিশন।

গত ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সংসদ সদস্যরা সংসদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। এর পরের দিন বিএনপির ৭ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে ৫ জন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর কাছে পদত্যাগপত্র জমা দেন।

তারা হচ্ছেন: বগুড়া-৬ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ, বগুড়া-৪ আসনের সংসদ সদস্য মোশারফ হোসেন, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের জাহিদুর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের আমিনুল ইসলাম ও সংরক্ষিত নারী আসনের রুমিন ফারহানা।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ দেশের বাইরে থাকায় এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের আবদুস সাত্তার ভূঞা অসুস্থ থাকায় সশরীরে পদত্যাগপত্র জমা দিতে পারেননি। তবে, তারা ইমেলে পদত্যাগপত্র জমা দেন।

জেলা ও মহানগরে বিএনপির অবস্থান কর্মসূচি শনিবার



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

সরকারের পদত্যাগসহ ১০ দফা দাবিতে শনিবার সারাদেশে মহানগর ও জেলা পর্যায়ে বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠন এবং সমমনা দলগুলো দুই ঘণ্টার অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে।

কর্মসূচির অংশ হিসেবে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দুপুর ২টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর মহানগর বিএনপি যৌথভাবে অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে।

একই সময়ে অন্যান্য মহানগরী ও জেলা শহরেও একই কর্মসূচি পালন করবেন দলের নেতাকর্মীরা।

বিএনপি ছাড়াও জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট, গণফোরাম ও পিপলস পার্টি, পেশাজীবি গণতান্ত্রিক জোট, ১২ দলীয় জোট, লেবার পার্টি, বাম গণতান্ত্রিক ঐক্য এবং এলডিপিও রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পৃথকভাবে কর্মসূচি পালন করবে।

তবে দীর্ঘদিন ধরে যুগপৎ কর্মসূচি পালন করে আসা গণতন্ত্র মঞ্চ শনিবার অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে না।

গণতন্ত্র মঞ্চের নেতারা জানান, রোববার বিএনপির সঙ্গে তাদের বৈঠকের কথা রয়েছে এবং বিএনপি নেতাদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে তারা পরবর্তী কর্মপন্থা নির্ধারণ করবেন।

গত বছরের ডিসেম্বরে বিএনপি ও সমমনা দল ও জোট বর্তমান সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগামী নির্বাচন অনুষ্ঠানের অভিন্ন লক্ষ্যে একযোগে আন্দোলন শুরু করে।

এ পর্যন্ত তারা ১০ দফা দাবি আদায়ে দেশের সব ইউনিয়ন, জেলা ও বিভাগীয় শহরে সমাবেশ, মানববন্ধন, অবস্থান কর্মসূচি ও পদযাত্রা কর্মসূচির আয়োজন করেছে।

এছাড়া গত ২৮ জানুয়ারি থেকে রাজধানীর পাঁচটি এলাকায় পদযাত্রা কর্মসূচি পালন করেন বিএনপির ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ মহানগর শাখার নেতাকর্মীরা।

;

আগে আন্দোলন করতো ডাল-ভাতের, এখন মাছ-মাংসের: তথ্যমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ

তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ

  • Font increase
  • Font Decrease

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, দেশ এখন বদলে গেছে, মানুষের ভাগ্যও পরিবর্তন হয়েছে। গ্রাম এখন শহরে পরিণত হয়েছে। আগে মানুষ আন্দোলন করতো ডাল-ভাতের জন্য। আর এখন মানুষের জীবন মানের উন্নয়ন হওয়ায় এখন মাছ-মাংসের দাম কমানোর জন্য দাবি তুলে।

তিনি বলেন, তৃণমূলের নেতারাই হচ্ছে আওয়ামী লীগের প্রাণ। গ্রামে গঞ্জে মহল্লায় আমাদের দলকে এই নেতারাই ধরে রেখেছেন। তাই নিজেরাই নিজেদের সমালোচনা না করে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। গ্রামে-গঞ্জে, হাটে-ঘাটে মাঠে সাধারণ মানুষের কাছে সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরতে হবে।

শুক্রবার (৩১ মার্চ) বিকালে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার শিলক এম শাহ আলম চৌধুরী ডিগ্রি কলেজ মাঠে রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত চার ইউনিয়নের তৃণমূল প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, দেশের প্রতিটি গ্রাম-মহল্লায় পর্যন্ত যে উন্নয়ন হয়েছে তা সবার কাছে বলতে হবে। যারা ভোট আসলে লাফালাফি করে, লুকিয়ে লুকিয়ে শহরে গিয়ে খালেদা জিয়ার নামে স্লোগান দেই, তারা যে সড়ক কিংবা ব্রিজের ওপর দিয়ে যায় সেটিও আওয়ামী লীগের করা। করোনাসহ কোন দুর্যোগ-দুর্বিপাকে তাদের পাওয়া যায়নি, তাদের বয়কট করে আগামীতেও সাংগঠনিকভাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে হবে।

তিনি বলেন, রাঙ্গুনিয়াসহ সারাদেশে সরকারের অভুতপূর্ব উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের কারণে। তৃণমূলের নেতারাও সরকারের এসব উন্নয়নের দাবিদার। আমাদের দলের নাম বিক্রি করে কেউ যদি অপকর্ম করে তাদের ছাড় দেওয়া হবে না। তাদের প্রকাশ্যে শায়েস্তা করতে হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি চেয়ারম্যান আবু জাফরের সভাপতিত্বে এবং এমরুল করিম রাশেদ ও মাহমুদুল হাসান বাদশার যৌথ সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগ নেতা স্বজন কুমার তালুকদার, আবুল কাশেম চিশতি, নজরুল ইসলাম তালুকদার, মুহাম্মদ আলী শাহ, ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদার, আকতার হোসেন খান, জাহাঙ্গীর আলম বাদশা, নিজাম উদ্দিন বাদশা, এম এ মান্নান চৌধুরী, শামসুদ্দোহা সিকদার আরজু, শেখ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী, আবদুর রউফ মাস্টার, আহসান হাবীব প্রমুখ।

;

সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে: তথ্যমন্ত্রী



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘সরকার গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছে। অব্যাহতভাবে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে, দারিদ্র্যতা কমছে, দেশের সমৃদ্ধির সঙ্গে সব মানুষের সমৃদ্ধি এবং স্বচ্ছলতা এসেছে। বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে বাংলাদেশের এই অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অনেকের পছন্দ হয় না।’

শুক্রবার চট্টগ্রামের দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের বাসায় সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কূটনীতিকদের আমাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো সমীচীন নয়। প্রয়োজনে কূটনীতিকদের আচরণ সম্পর্কিত ভিয়েনা কনভেনশন তাদের স্মরণ করিয়ে দেওয়া হবে। আমাদের বাজেটের জন্য ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে কারও দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াতে হয় না। বরং আমাদের সাহায্য দেওয়ার জন্য তারা অর্থের ঝুলি নিয়ে আমাদের কাছে আসে এখন। আমাদের খাটো করার সময় চলে গেছে।’
তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আজ করোনা মহামারি এবং বিশ্বমন্দা পরিস্থিতির মধ্যেও দেশ যেভাবে এগিয়ে চলেছে, অর্থনীতিক সমৃদ্ধি যেভাবে অব্যাহত আছে, এটি পৃথিবীর বিভিন্ন পত্রপত্রিকা প্রশংসা করছে। সম্প্রতি ব্লুমবার্গ একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে, সেখানে তারা বলেছে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এবং করোনার মধ্যেও অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার কারণে আগামী নির্বাচনেও শেখ হাসিনা জয়লাভের সম্ভাবনা রয়েছে। শেখ হাসিনা চতুর্থ মেয়াদের মতো নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ব্লুমবার্গ এর কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেভাবে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এসেছে এবং অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা যেভাবে তিনি ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছেন, সেই কারণেই তিনি চতুর্থ বারের মতো নির্বাচিত হওয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে।

;

‘আওয়ামী লীগ কখনোই খালি মাঠে গোল দিতে চায় না’



মো আরমান আলী, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন

আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন

  • Font increase
  • Font Decrease

আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে অংশগ্রহণের আহবান জানিয়ে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন বলেছেন আমরা তো অবশ্যই চাই বিএনপি নির্বাচনে আসুক, আওয়ামী লীগ তো কখনোই খালি মাঠে গোল দিতে চায় না।

আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপির অংশগ্রহণ এবং সমসাময়িক রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট নিয়ে ধানমন্ডিতে তার নিজের বাসায় বার্তা২৪.কমকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন তিনি।

আওয়ামী লীগ কিন্তু বন্দুকের নলের মধ্যে ক্ষমতা দখল করে গঠিত হওয়া কোন রাজনৈতিক দল না উল্লেখ করে আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, আমরা তো ক্ষমতার বাইরে থেকে রাজনৈতিক দল গঠন করেছি, কি রকম ক্ষমতার বাইরে? তখন মুসলিম লীগ ছিল রাষ্ট্র ক্ষমতায়, মুসলিম লীগ কারা করতেন? এই সমাজের সবচেয়ে প্রভাবশালী অভিজাত জোতদার তারাই, তাদের বিরুদ্ধে বঙ্গবন্ধু প্রজাদের নিয়ে একটি রাজনৈতিক দল গঠন করলেন নাম দিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। সেই প্রজাদেরকেই বঙ্গবন্ধু পরবর্তীতে তাদের অধিকার আদায়ের মাধ্যমে রাজায় পরিণত করে সেই তথাকথিত সামন্ত প্রভুদের ভৃত্য বানিয়ে আওয়ামী লীগ প্রমাণ করেছে আওয়ামী লীগ সত্যিকারের দল। সুতরাং আমি মনে করি বিএনপি যদি মনে করে তারা মানুষের ওই আস্থার জায়গায় আছে তাহলে তারা নির্বাচনে আসুক, এটা ভাবার কোন কারণ নাই যে ওরা আসলে আমরা ভয় পাবো।

২০০৮ সালের ইলেকশন তো আওয়ামী লীগের নিয়ন্ত্রণে হয়নি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নিয়ন্ত্রণে হয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে যে নির্বাচন সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নির্বাচনে বিএনপি জামায়াত এক ছিল এবং জামায়াতের নেতা যারা মানবতা বিরোধী অপরাধে দণ্ডিত হয়েছে ফাঁসিতে ঝুলেছে তারাও জীবিত ছিল তাওতো আওয়ামী লীগ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ রেখে ২০০৮ সালের নির্বাচনে মহাজোটকে সাথে নিয়ে ৩০০ আসনে ২৬২ আসনে জয়লাভ করেছিল। তারা পেয়েছে মাত্র ২৯টা আসন জামায়াত পেয়েছিল দুটি আসন। তাহলে সে আওয়ামী লীগ আজকে গত ১৪ বছরের বাংলাদেশের অর্থনৈতিক কৃষি সামাজিক সূচক প্রতিটি ক্ষেত্রেই অভূত-পূর্ব উন্নয়ন করার পরে আমরা তাদেরকে ভয় পাওয়ার কোন কারণ আছে বলে মনে করি না। বরং আমি মনে করি আমরা আরো ভালো রেজাল্ট করব।

মানুষের দুঃখে ছিলাম সুখে ছিলাম সাথে ছিলাম উল্লেখ করে দলের সাবেক এই প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বলেন, আমরা বাংলাদেশটাকে শুধু অবকাঠামোগত উন্নয়নেই না বাংলাদেশের ইকোনমি থেকে শুরু করে ধরুন ২০০৯ সালের আগে শুধু ৪১ ভাগ মানুষই বিদ্যুতের আওতায় ছিল এখন শতভাগ মানুষ বিদ্যুতের আওতায় আছে। যদিও বা শতভাগ মানুষ ২৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ পাচ্ছে না মাঝে মাঝে একটু লোডশেডিং হচ্ছে বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে

একসময় এ দেশের সন্তানদের গার্ডিয়ানরা তাদের স্কুলে পাঠাতো না বই কেনার টাকার অভাবে এখন কিন্তু সে জায়গায় বিনা পয়সায় বই পাচ্ছে এবং উপবৃত্তির টাকা পাচ্ছে কোন সন্তানকে তার স্কুলে গেলে চিন্তা করতে হচ্ছে না। যে কারণে শিক্ষিতের হার আজকে ৭৪ ভাগ। 

দেশের সাধারণ মানুষের জীবন মানের লক্ষ্যণীয় উন্নয়ন সাধিত হয়েছে দাবি করে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বলেন, এক সময় আমাদের সোসাইটিতে যারা একটু নিম্নবিত্ত তাদের মায়েরা ছিল পরিবারের বোঝা, কারণ তারা নিজেরাই নুন আনতে পান্তা ফুরায় নিজের বউ-বাচ্চাকেই পেটে খাবার দিতে পারে না মাকে কোথায় থেকে দিবে? বঙ্গবন্ধু কন্যা সেই অবহেলিত মায়েদের জন্য বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, স্বামী পরিত্যাক্ত ভাতা নানা সোশ্যাল সেফটিনেস এর মাধ্যমে তাদেরকে এই সমাজের সম্পদে পরিণত করেছে। কারণ ওরা যখন সোশ্যাল ভাতাটা পায় ওরা কিন্তু ওই টাকা দিয়ে স্নো পাউডারও কেনে না, সিনেমা দেখতেও যায় না । তারা চিন্তা করে আমি টাকা দিয়ে কি করব? তারা ওই টাকা দিয়ে একটি মুরগি কিনছে, সে মুরগি বাচ্চা দিচ্ছে, একটা খাসি কিনতেছে ওই ছাগল আরেকটা ছাগল বাচ্চা দিচ্ছে, ওর মধ্যে একটা আর্থিক স্বচ্ছলতা আসছে, বরং কি সে আমাদের সমাজে একটা সম্পদে পরিণত হচ্ছে, তার যে সন্তান আগে নিজের সন্তানকে খাওয়ানোর জন্য মাকে অবহেলা করত সে সন্তান মনে করে যে না আমার মায়ের সাথে একটু খাতির করলে আমার মায়ের তো একটা মুরগির ডিম আমার ছেলেকে দিত তাহলে আমার ছেলে পুষ্টি পাবে এভাবে কিন্তু সামাজিক পরিবর্তন হচ্ছে। এই মানুষগুলো কিন্তু অকৃতজ্ঞ নয় দেশের মানুষ।

দ্রব্যমূল্যের বর্তমান চিত্র আরও সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসবে আশা রেখে তিনি বলেন, শহরে থেকে অনেক কথা বলা যায়, আপনি স্বপ্নতে গিয়ে, মিনা বাজারে গিয়ে বাজার দর যাচাই করেন আর বাস্তবে বাজার দর যাচাই করেন ভিন্ন একটা চিত্র পাবেন। আমি বলছি না আমরা বাজার নিয়ন্ত্রণ করে ফেলেছি। বিশ্বব্যাপী নানা সমস্যায় অন্যান্য দেশের তুলনায় আমরা ভালো আছি। ভালো থাকার চেষ্টা করছি।

দেশের মানুষ অকৃতজ্ঞ নয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এই কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, আমি কখনোই এই দেশের মানুষকে অকৃতজ্ঞ মনে করি না। এই দেশের মানুষ অকৃতজ্ঞ হলে ৭৫ এর পরে বঙ্গবন্ধু একটা নিষিদ্ধ নাম ছিল সরকারি জায়গায় ১৯৯৬ সালে এদেশের মানুষ আবার বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে ভোট দিয়েছে। কেন? বঙ্গবন্ধুর জন্যই। এটা কেন? যেহেতু এদেশের মানুষকে বঙ্গবন্ধু প্রাণ দিয়ে ভালোবেসে ছিলেন। ঠিক তাঁর মত তাঁর কন্যা এদেশের মানুষের জন্য করে যাচ্ছেন, সুতরাং আমি মনে করি আগামী নির্বাচনে এই মানুষগুলো শেখ হাসিনার প্রতি, শেখ হাসিনার দয়ার প্রতি, ভালোবাসার প্রতি, তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে ঋণশোধ করবে।

এসময় আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ের জন্য আওয়ামী লীগ মোটেই চিন্তিত না বলেও জানান তিনি।

;