দেশের শ্যুটিংয়ে সুদিন ফেরাতে চায় নতুন কমিটি



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
শ্যুটারদের সঙ্গে ক্যামেরা বন্দী বিএসএসএফ‘র অ্যাডহক কমিটির সভাপতি

শ্যুটারদের সঙ্গে ক্যামেরা বন্দী বিএসএসএফ‘র অ্যাডহক কমিটির সভাপতি

  • Font increase
  • Font Decrease

ক্রিকেট-ফুটবলের আড়ালে থাকলেও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনেকবারই সাফল্য এসেছে শ্যুটারদের হাত ধরে। ধারাবাহিকতা না থাকলেও মিলেছে সাফল্য। তবে এই সময়টাতে এসে পথ হারিয়েছে শ্যুটিং। তখনই বাংলাদেশ শ্যুটিং স্পোর্টস ফেডারেশনের (বিএসএসএফ) দায়িত্ব পেয়েছে অ্যাডহক কমিটি। দ্রুততম সময়ের মধ্যে নির্বাচন দেওয়ার পাশাপাশি এই কমিটি শ্যুটিংয়ের সুদিন ফেরাতে চাইছে।

২০২১ সালের অলিম্পিকে খেলার টিকেট পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে সামনে এগিয়ে নিতে পরিকল্পনার কথা শোনালেন অ্যাডহক কমিটির সভাপতি মেজর জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান।

দায়িত্ব নেওয়ার পর মঙ্গলবার প্রথম সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, 'দেখুন, শ্যুটিং আমাদের জন্য একটা গর্বের জায়গা। এই ইভেন্ট থেকে বিদেশ থেকে সর্বোচ্চ সাফল্য এসেছে। এ অবস্থায় আমাদের শর্ট টার্ম প্ল্যান, অলিম্পিকের জন্য শ্যুটারদের তৈরি করতে যা যা প্রয়োজন, করব।'

যদিও কর সংক্রান্ত ঝামেলায় ছয় জন শ্যুটার তাদের অস্ত্র  ব্যবহার করতে পারছেন না। এ অবস্থায় বাকি-শাকিল-অর্নব-রাব্বী-দিশা ও রিসালাতকে রেঞ্জে ফেরাতে সভাপতি মেজর জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান বলেন, 'অস্ত্র নিয়ে যে সমস্যা ছিল, সেটা দ্রুততার মধ্যে সমাধান করব। শুটিং মনস্তাত্ত্বিক ব্যাপার। আন্তর্জাতিক মানে যেতে হলে প্রথাগত ধ্যান ধারণার বাইরে গিয়ে ভাবতে হবে। ট্যালেন্ট হান্ট করতে চাই আমরা। ক্লাবগুলোর উন্নতির এবং শ্যুটারদের জন্য উন্নত অস্ত্র আনার চেষ্টা করব। সরকারের সহায়তা পেলে শ্যুটিং নিয়ে আমাদের পরিকল্পনাগুলো বাস্তবায়ন করতে পারব।'

নতুন সভাপতি পেয়ে খুশি শ্যুটাররাও। গোল্ডকোস্ট কমনওয়েলথ গেমসে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে রুপা জেতা আব্দুল্লাহ হেল বাকি জানাচ্ছিলেন, 'আমরা যখন শ্যুটিংয়ে ছিলাম, তখন সভাপতি আমাদের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে কথা বলেছেন। বললেন, গতকালই তিনি লোক পাঠিয়েছেন, আজ-কালকের মধ্যে অস্ত্রগুলো ব্যবহারের অনুমতি পাওয়া যাবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন। এ অবস্থায় বিদেশি কোচের ৪-৫ জনের একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা করা হয়েছে। এর মধ্যে থেকে সম্ভবত দুই জনকেই বেছে নেওয়া হবে।'

সব মিলিয়ে দেশের শ্যুটিং অঙ্গন নতুন করে জেগে উঠার পথটাও প্রশস্ত হয়েছে।