ময়মনসিংহে ক্রিকেট লীগ নিয়ে অনিশ্চয়তা, আন্দোলনে খেলোয়াড়েরা 



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ময়মনসিংহ
ছবি: বার্তা২৪.কম

ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রয়াত রাম চাঁদ গোয়ালা, আজাহার, বেলাল, লিটন, জাকির, সাইফুল, সানোয়ার হোসেন, প্লাবন ও সুমিতসহ হাল আমলের শুভাগত হোম, মোসাদ্দেক ও বর্তমান টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহরা উঠে এসেছেন ক্রিকেটের জন্য ঐতিহ্যবাহী ময়মনসিংহ শহর থেকে।

কিন্তু গত বেশ কয়েক বছর ধরে ময়মনসিংহে ক্রিকেট লিগ শুরু হলেও বিভিন্ন কারণে সমাপ্তি হয়নি। গত বছর জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারের উদ্যোগে মেয়র ও সব ক্লাব কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিদের সহযোগিতায় লিগের সফল সমাপ্তি হয়েছিল।

এরপর গেল মাসে ময়মনসিংহ মাস্টার্স ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক ওয়ালটন ময়মনসিংহ প্রিমিয়ার লিগ। এই আসরের মাধ্যমে ময়মনসিংহের অতীত ক্রিকেট ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার কথা বলেছিলেন আয়োজকরা।

স্থানীয় ক্রিকেটারদের মূল চাওয়াই হচ্ছে ময়মনসিংহ জেলা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ দ্রুত মাঠে গড়ানো। কিন্তু এটি না হওয়া কিং বারবার বন্ধ হওয়ার পেছেনে কিন্তু অভিযোগের তীর ক্রিকেট সংগঠক ও ক্লাব কর্তাদের বিরুদ্ধেই।

জানা গেছে, মুজিব বর্ষে প্রিমিয়ার লীগে ১২টি দল গঠন হবার কথা ছিল। কিন্তু ক্লাবগুলোর দলীয় কোন্দলের কারণে এই লীগ এখন অনেকটাই অনিশ্চিত। তাই এবার লীগ আয়োজনের দাবিতে খেলার মাঠ ছেড়ে সবাই আন্দোলনে রাজপথে।

মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) দুপুরে ‘ক্রিকেট বাঁচাও, ময়মনসিংহের ক্রিকেট বাঁচাও’! মুজিববর্ষে ময়মনসিংহে ক্রিকেট লীগ নেই কেন? এমন স্লোগান নিয়ে রাস্তায় নেমেছে ময়মনসিংহের ক্রিকেটাররা। পালন করেছে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন কর্মসূচি।

সার্কিট হাউস মাঠ থেকে খেলোয়াড় ও ক্রীড়ামোদীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেয়। সেখানে কিছুক্ষণ অবস্থান শেষে সিটি করপোরেশনে এসে অবস্থান নেয় বিক্ষোভকারীরা। পরে সিটি মেয়র ইকরামুল হক টিটুর সাথে সাক্ষাত করলে শিগগিরই আলোচনার মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলে বিক্ষোভকারীরা স্থান ত্যাগ করে।

ক্ষোভ প্রকাশ করে সামিউল আলম নামের এক স্থানীয় ক্রিকেটার বলেন, ‘আমরা সারাবছর অনুশীলন করি একটি লীগ খেলার জন্য। প্রতিবারই লীগ অজানা ‘অজুহাতে’ অনুষ্ঠিত হয়না। এবারও ব্যাতিক্রম নয়। তাই লীগের দাবিতে আমারা খেলার মাঠ ছেড়ে আন্দোলনের মাঠে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গত সোমবার ক্লাবগুলোর পরিচালক এবং জেলা প্রশাসকের মধ্যে মতবিনিময় হয়। সেখানে হঠাৎ করেই ক্লাব কর্তৃপক্ষ লীগ শুরু করার সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসে।’

ক্লাব কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তে হতাশা ব্যক্ত করেছেন জাতীয় দলের ক্রিকেট তারকা মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও। বলেন, ‘সারাবছর অনুশীলন করে যদি লীগ না খেলা যায় তাহলে খেলোয়াড়দের মাঠে আসার কী দরকার? ক্রিকেটকে নিয়ে আমাদের ময়মনসিংহের যে ঐতিহ্য তা এখন নেই। নতুন প্রজন্ম আমাদেরকে প্রশ্ন করলে উত্তর দেবারও কিছু থাকবেনা।’

জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান বলেন, সরকারি পর্যায়ে লীগ পরিচালনার জন্য কোনো অনুদানের ব্যবস্থা নেই। তবে বেসরকারি পর্যায়ে কীভাবে লীগ পরিচালনার জন্য অর্থের যোগান দেয়া যায় সে বিষয়টি চিন্তা করা হচ্ছে। সেইসাথে ক্লাব কর্তৃপক্ষের সাথে আবারও আলোচনায় বসে লীগ আয়োজনের চেষ্টা করা হবে।’

তবে এ নিয়ে একাধিক ক্লাব কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করা হলেও সংবাদকর্মীদের সাথে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।