তামিমের মনোমালিন্য দূর করতে চান সুজন



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
তামিম ইকবাল

তামিম ইকবাল

  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আর খেলতে চান না তামিম ইকবাল। দেশসেরা এ ওপেনার এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকে। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে ফেরার জন্য জোর না করতেও বোর্ড প্রধানের কাছে অনুরোধ করেছেন বাংলাদেশের এ ক্রিকেট সুপারস্টার। তামিমের এ সিদ্ধান্ত অভিমান থেকে। সমস্যাটা বুঝেছেন টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন। এবার সমাধানের জন্য তামিমের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চান তিনি। 

ফরচুন বরিশালের অনুশীলনের ফাঁকে মিরপুরে আজ সুজন বলেন, ‘বায়ো বাবলের মধ্যে আছি। আমি চাই না ফোনে কথা বলতে। সামনাসামনি বললে ভালো হয়। তামিমের সঙ্গে নিশ্চয়ই কথা হবে। ওদের সাথে খেলা আছে। খেলা শেষে পারলে কথা বলব, আসলেই ওর সমস্যাটা কোথায়। মনোমালিন্যের ব্যাপার যেটা আছে, যেসব ছোটখাটো সমস্যা আছে, এটা ইম্পর্টেন্ট ব্যাপার। ইগোস্টিক থাকে, অনেক সময় হয়ে যায়। অনেক সময় ছোটোখাটো ব্যাখ্যাটা ভুল হয়। সেটাকে ঠিক করার চেষ্টা করব।’

লাল-সবুজের জার্সি গায়ে টি-টোয়েন্টিতে তামিমের না খেলার সিদ্ধান্তে অবাক বিপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি ফরচুন বরিশালের হেড কোচ সুজন।

তামিমের সিদ্ধান্ত নিয়ে সুজন বলেন, ‘একটু তো অবাকই আমি। নিউজিল্যান্ড যাওয়ার আগেও আমি তামিমের সঙ্গে কথা বলেছিলাম, কেন খেলবি না বা কারণ কী। তখন এত কথা হয়নি। আমি বলেছিলাম, আমি ফিরি আগে, তারপর কথা বলব। তার সঙ্গে কথাও হয়নি, তার আগেই পাপন ভাই অলরেডি বলে দিয়েছেন, তামিম পাপন ভাইকে বলেছে।’

তবে তামিমকে কোনো ধরনের চাপ দিতে চান না সুজন, ‘এটা অবশ্যই প্রত্যেকের ব্যক্তিগত ব্যাপার। ওর জায়গায় আমাদের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান কেউ রেডি আছে তা নয়। তারপরও এটা তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। কেউ যদি না চায় তাকে তো চাপ দেয়া যাবে না। আমাদের সামনে এগোতেই হবে। ক্রিকেট তো বসে থাকবে না।’

তামিম ২০ ওভারের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলছেন না ২০২০ সাল থেকে। ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ততম সংস্করণে নেই তিনি প্রায় ২ বছর ধরে। 

গত জুলাইয়ে জিম্বাবুয়ে সফরে তামিম খেলেননি টি-টোয়েন্টি সিরিজে। পরে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ছিলেন দর্শক হয়ে। নিজেকে প্রত্যাহার করেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকেও। ছিটকে যান পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি হোম সিরিজ থেকেও।

হেসে-খেলেই সিরিজ জিতল শ্রীলঙ্কা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস

সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস

  • Font increase
  • Font Decrease

লক্ষ্যটা ছিল মাত্র ২৯! সহজ লক্ষ্যটা হেসে-খেলেই ছুঁয়ে ফেললো শ্রীলঙ্কা। এবং কোনো উইকেট না হারিয়েই। সেটা হলো মাত্র তিন ওভারেই। ওপেনার ওশাদা ফার্নান্দোর ব্যাট থেকে আসে ২১* রান। তার ওপেনিং পার্টনার দিমুথ করুনারত্নে তোলেন ৭* রান।

মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টাইগারদের বিপক্ষে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট ১০ উইকেটে জিতল সফরকারীরা। সঙ্গে দুই টেস্টের সিরিজ ১-০ ব্যবধানে জিতল লঙ্কানরা। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে প্রথম টেস্ট ছিল অমীমাংসিত।

সাকিব-লিটনের ফিফটির পরও দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬৯ রানে গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা। লিড আসে মাত্র ২৮ রানের। শ্রীলঙ্কার সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ২৯ রান।

ওয়ানডে স্টাইলে খেলে। ৭২ বলে ৭ বাউন্ডারিতে ৫৮ রানের অসাধারণ এক ক্রিকেটীয় ইনিংস খেলেন সাকিব। লিটন ১৩৫ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ৫২ রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলে সাকিবকে সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছেন। ২৩ রান করে ফিরে গেছেন মুশফিক।

শ্রীলঙ্কার হয়ে দুটি উইকেট নিয়েছেন কাসুন রাজিথা। তবে একাই ৬ উইকেট শিকার করেন ম্যাচসেরা আসিথা ফার্নান্দো। বাকি উইকেটটি পান রমেশ মেন্ডিস।

তার আগে ৪ উইকেটে ৩৪ রান নিয়ে পঞ্চম ও শেষ দিনের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। ১৪ রান নিয়ে দিন শেষে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক। ১ রান নিয়ে তাকে সঙ্গ দিচ্ছিলেন লিটন।

মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের দুরন্ত সেঞ্চুরিতে প্রথম বাংলাদেশ গড়েছে ৩৬৫ রানের পুঁজি। জবাবে সিরিজসেরা অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ও দিনেশ চান্দিমালের জোড়া সেঞ্চুরির সুবাদে সবকটি উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ৫০৬ রান সংগ্রহ করে শ্রীলঙ্কা। এতে সফরকারীরা লিড পায় ১৪১ রানের

;

হারের দ্বারপ্রান্তে টাইগাররা, ২৯ রান করলেই সিরিজ শ্রীলঙ্কার



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
লিটন দাস

লিটন দাস

  • Font increase
  • Font Decrease

হারের দ্বারপ্রান্তে এখন টাইগাররা। সাকিব-লিটনের ফিফটির পরও দ্বিতীয় ইনিংসে ১৬৯ রানে গুটিয়ে গেছে স্বাগতিকরা। লিড বলতে ২৮ রান। ২৯ রান করলেই ম্যাচের সঙ্গে সিরিজও পেয়ে যাবে শ্রীলঙ্কা।

ওয়ানডে স্টাইলে খেলে? ৭২ বলে ৭ বাউন্ডারিতে ৫৮ রানের অসাধারণ এক ক্রিকেটীয় ইনিংস খেলেন সাকিব। লিটন ১৩৫ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ৫২ রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলে সাকিবকে সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছেন। ২৩ রান করে ফিরে গেছেন মুশফিক।

শ্রীলঙ্কার হয়ে দুটি উইকেট নিয়েছেন কাসুন রাজিথা। তবে একাই ৬ উইকেট শিকার করেন আসিথা ফার্নান্দো। বাকি উইকেটটি পান রমেশ মেন্ডিস।

তার আগে ৪ উইকেটে ৩৪ রান নিয়ে পঞ্চম ও শেষ দিনের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। ১৪ রান নিয়ে দিন শেষে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক। ১ রান নিয়ে তাকে সঙ্গ দিচ্ছিলেন লিটন। 

;

সাকিবের পর লিটনের ফিফটি, লড়ছে টাইগাররা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
সাকিব আল হাসান

সাকিব আল হাসান

  • Font increase
  • Font Decrease

চতুর্থ দিনের শেষ দিকে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে যায় বাংলাদেশ। ২৩ রানে চার উইকেট হারিয়ে ইনিংস হারের শঙ্কায় পড়ে যায় দল। পরে মুশফিকুর রহিম বিদায় নিলে শঙ্কাটা বেড়ে যায়। 

তবে সাকিব আল হাসান ও লিটন দাসের দুরন্ত জুটিতে ইনিংস হারের শঙ্কা কেটে গেলেও হারের শঙ্কা এখনো কাটেনি। 

ম্যাচ বাঁচাতে ব্যাটিং ঝলক দেখিয়ে যাচ্ছেন সাকিব। বিশ্বসেরা এ অলরাউন্ডার ফিফটি হাঁকিয়ে ছুটছেন সেঞ্চুরির পথে। ফিফটির ছোঁয়ার স্বাদ পেয়েছেন লিটনও।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত সাকিব-লিটনের ব্যাটিং দৃঢ়তায় ৫ উইকেট হারিয়ে ১৫২ রান তুলেছে টাইগাররা। মিরপুরের দ্বিতীয় টেস্টে দ্বিতীয় ইনিংসে ১১ রানের লিড পেয়েছে স্বাগতিকরা। ওয়ানডে স্টাইলে খেলে ৬২ বলে ৭ বাউন্ডারিতে ৫৩* রানের অসাধারণ এক ক্রিকেটীয় ইনিংস খেলে ব্যাটিং লড়াইটা চালিয়ে যাচ্ছেন সাকিব। লিটন ১৩০ বলে ৩ বাউন্ডারিতে ৫০* রানের ধৈর্যশীল ইনিংস খেলে সাকিবকে সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছেন। এর আগে ২৩ রান করে ফিরে গেছেন মুশফিক।

শ্রীলঙ্কার হয়ে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন কাসুন রাজিথা ও আসিথা ফার্নান্দো।

তার আগে ৪ উইকেটে ৩৪ রান নিয়ে পঞ্চম ও শেষ দিনের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। ১৪ রান নিয়ে দিন শেষে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক। ১ রান নিয়ে তাকে সঙ্গ দিচ্ছিলেন লিটন।

মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের দুরন্ত সেঞ্চুরিতে প্রথম বাংলাদেশ গড়েছে ৩৬৫ রানের পুঁজি। জবাবে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ও দিনেশ চান্দিমালের জোড়া সেঞ্চুরির সুবাদে সবকটি উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ৫০৬ রান সংগ্রহ করে শ্রীলঙ্কা। এতে সফরকারীরা লিড পায় ১৪১ রানের।

;

চার উইকেট হারিয়ে দিন শেষে বিপদে টাইগাররা



স্পোর্টস ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
নাজমুল হোসেন শান্ত

নাজমুল হোসেন শান্ত

  • Font increase
  • Font Decrease

চতুর্থ দিনের শেষ দিকে মাঠে নেমেই ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়েছে টাইগাররা। দিন শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৪ রান তুলতেই ৪ উইকেট হারিয়ে ফেলেছে বাংলাদেশ। এখনো ১০৭ রানে পিছিয়ে স্বাগতিকরা।

মাহমুদুল হাসান জয় ১৫, তামিম ইকবাল ০, নাজমুল হোসেন শান্ত ২ ও মুমিনুল হক ০ রান নিয়ে ফিরে গেছেন। এখন ব্যাটিংয়ে আছেন প্রথম ইনিংসের দুই সেঞ্চুরিয়ান মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাস। ১৪* রান নিয়ে এখন ব্যাটিং করে যাচ্ছেন মুশফিকুর রহিম। ১* রান নিয়ে তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন লিটন দাস। আসিথা ফার্নান্দো দুটি ও কাসুন রাজিথা একটি উইকেট পেয়েছেন।

তৃতীয় দিনে বল হাতে ঝলক দেখালেও আজ প্রথম দুই সেশন থেকে উইকেট পাননি সাকিব আল হাসান। কিন্তু চা বিরতির পর জ্বলে উঠেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। কেড়ে নেন আরও দুটি উইকেট। সব মিলিয়ে তার উইকেট দাঁড়াল পাঁচটি। টেস্টের এক ইনিংসে এনিয়ে ১৯বারের মতো পাঁচ উইকেট পেলেন এ বাঁ-হাতি স্পিনার। 

তবে শ্রীলঙ্কা তাদের কাজের কাজ আগেই সেরে ফেলেছে। অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ও দিনেশ চান্দিমালের জোড়া সেঞ্চুরির সুবাদে সবকটি উইকেট হারিয়ে প্রথম ইনিংসে ৫০৬ রান সংগ্রহ করেছে শ্রীলঙ্কা। সুবাদে সফরকারীরা লিড পায় ১৪১ রানের।

দুরন্ত ব্যাটিং করে যাচ্ছিলেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস ও চান্দিমাল। বেশ দাপটের সঙ্গেই দুজনে হাঁকিয়েছেন সেঞ্চুরি। ম্যাথুস ৩৪২ বলে ১২ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ১৪৫* রানের দুরন্ত এক ইনিংস খেলে অপরাজিত রয়ে গেছেন। আর চান্দিমাল ২১৯ বলে ১১ বাউন্ডার ও ১ ছক্কায় ১২৪ রান নিয়ে এবাদতের বলে ফিরে গেছেন সাজঘরে। 

বাংলাদেশের হয়ে ৪০.১ ওভারে ৯৬ রান খরচ করে পাঁচটি উইকেট নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। আর ৩৮ ওভারে ১৪৮ রান দিয়ে এবাদত হোসেন পেয়েছেন চারটি উইকেট।

মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের দুরন্ত সেঞ্চুরিতে প্রথম বাংলাদেশ গড়েছে ৩৬৫ রান। 

;