মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটসের জন্মদিন আজ



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। ছবি: সংগৃহীত

মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস। ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

উইলিয়াম হেনরী গেটস বা বিল গেটস (জন্ম অক্টোবর ২৮, ১৯৫৫) মাইক্রোসফটের প্রতিষ্ঠাতা, চেয়ারম্যান, সাবেক প্রধান সফটওয়্যার নির্মাতা এবং সাবেক সিইও। একাধারে ১৩ বছর যাবৎ তিনি পৃথিবীর সর্বোচ্চ ধনী ব্যক্তি ছিলেন। তিনি ১৯৯৪ সালের ১লা জানুয়ারি তারিখে মেলিন্ডা ফ্রেঞ্চ- কে বিয়ে করেন।

১৯৭৫ সালে বিল গেটস এবং পল এলেন একসাথে ‘‘মাইক্রোসফট’’ কোম্পানির প্রতিষ্ঠা করেন, যেটা পরবর্তীতে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পিসি কোম্পানির মর্যাদা পায়।

১৯৯৫ থেকে ২০০৭ এবং ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত তিনি পৃথিবীর সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি ছিলেন, ২০০৯-২০১৪ এর মধ্যে তার মোট সম্পত্তি $৪০০০ কোটি থেকে $৮২০০ কোটি এ পৌছায়। ২০১৩ থেকে ২০১৪ এর মধ্যে তার মোট সম্পত্তিতে $১৫০০ কোটি যোগ হয়।

২০০০ সালে তিনি ‘‘বিল এবং মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন’’ প্রতিষ্ঠা করেন। জানুয়ারি,২০০০ সালে তিনি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে পদত্যাগ করেন।

বিল গেটস প্রথম বাংলাদেশ সফর করেন ২০০৫ সালে ডিসেম্বর মাসে ৫ তারিখে (সোমবার)। সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাত করে ১২ ঘণ্টা সফর শেষে ভারতে গিয়েছিলেন। আগস্ট ২০২০ অনুযায়ী তার বর্তমান সম্পদ ইউএস $১১৩.৬ বিলিয়ন।

১৯৫৫ সালের ২৮ অক্টোবর বিল গেটস সিয়াটল, ওয়াশিংটনে জন্ম গ্রহণ করে। তার পিতার নাম উইলিয়াম হেন্‌রী গেটস সিনিয়র, যিনি একজন প্রসিদ্ধ আইনজীবী (অবসরপ্রাপ্ত)। মাতার নাম মেরি ম্যাক্সয়েল গেটস। গেটসের ক্রিস্টিয়েন নামে এক বড় বোন আর লিব্বি নামের এক ছোট বোন আছে। শৈশবে বাবা-মা তাকে আইনজীবী বানাতে চেয়েছিলেন। ১৩ বছর বয়সে তিনি লেকসাইড স্কুলে ভর্তি হন। এখান থেকে ১৯৭৩ সালে পাশ করেন। তিনি স্যাট পরীক্ষায় ১৬০০ এর মধ্যে ১৫৯০ পান এবং ১৯৭৩ এর শরতে হার্ভার্ড কলেজে ভর্তি হন।

১৯৮৫ সালের ২০ নভেম্বর মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ১.০ সংস্করণ প্রকাশ করে। বর্তমানে উইন্ডোজ পৃথিবীর একটি বিখ্যাত কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম। সে সময়ে মাইক্রোসফট উইন্ডোজ খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠে এবং বাজারে বেশির ভাগ অংশ তাদের দখলে চলে যায়।

বিল গেইস ২০০৪ সালে জনসাধারণের জন্য কাজ করতে নিজের পরো সময় দিয়ে দেন এবং বলা হয় যে বিল গেইস এবং তার স্ত্রী (মেলিন্ডা গেইস) দুজনে মিলে আনুমানিক ২৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার তাদের দাতব্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে ব্যয় করেন। এছাড়া বিশ্বব্যাপী আরও ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ করেন স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য।