সর্ববৃহৎ গ্লোবাল সাইবার সিকিউরিটি সেন্টার উদ্বোধন করলো হুয়াওয়ে



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
হুয়াওয়ের রোটেটিং চেয়ারম্যান কেন হু

হুয়াওয়ের রোটেটিং চেয়ারম্যান কেন হু

  • Font increase
  • Font Decrease

চীনের ডংগুয়ানে নিজেদের সর্ববৃহৎ গ্লোবাল সাইবার সিকিউরিটি ও প্রাইভেসি প্রটেকশন ট্রান্সপারেন্সি সেন্টার উদ্বোধন করেছে হুয়াওয়ে।

বুধবার (০৯ জুন) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদান করেন জিএসএমএ, এসইউএসই, ব্রিটিশ স্ট্যান্ডার্ড ইন্সটিটিউশনের প্রতিনিধিগণ এবং সংযুক্ত আরব-আমিরাত ও ইন্দোনেশিয়ার নিয়ন্ত্রকরা।

নতুন সেন্টার চালু করার পাশাপাশি হুয়াওয়ে এর প্রোডাক্ট সিকিউরিটি বেজলাইন প্রকাশ করেছে। যার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি প্রথমবারের মতো এর প্রডাক্ট সিকিউরিটি বেজলাইন ফ্রেমওয়ার্ক ও ব্যবস্থাপনা অনুশীলন পুরো খাতের জন্য উন্মুক্ত করে হুয়াওয়ে। এ পদক্ষেপ প্রতিষ্ঠানটির খাতজুড়ে সাইবার নিরাপত্তা শক্তিশালী করতে ক্রেতা, সাপ্লায়ার, মানদণ্ড সংশ্লিষ্ট নির্ধারক সংস্থা এবং অন্যান্য অংশীদারদের সাথে যৌথভাবে কাজের প্রচেষ্টা গ্রহণের বিস্তৃত পদক্ষেপের অংশ।

হুয়াওয়ের রোটেটিং চেয়ারম্যান কেন হু বলেন, সাইবার নিরাপত্তা এখন যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন, একীভূত শিল্পখাত হিসেবে আমাদের একসাথে কাজ করা প্রয়োজন এবং শাসন ব্যবস্থা, মানদণ্ড, প্রযুক্তি ও যাচাইকরণে নিজেদের মধ্যে সর্বোত্তম অনুশীলনীগুলো আদান-প্রদান করতে হবে। সাধারণ মানুষ এবং নিয়ন্ত্রকরা যেনো প্রতিদিনকার ব্যবহৃত পণ্য ও সেবার নিরাপত্তার ব্যাপারে আস্থা রাখতে পারেন, আমাদের সে কারণ তৈরি করতে হবে। একসাথেই আমরা ক্রমবর্ধমান ডিজিটাল বিশ্বে নিরাপত্তা ও উন্নয়নের সঠিক ভারসাম্য বজায়ে কাজ করতে পারি।

বিগত বছরগুলোতে ইন্ডাস্ট্রি ডিজিটালাইজেশন এবং ফাইভজি ও এআই এর মতো নতুন প্রযুক্তি সাইবার ক্ষেত্রকে আগের চেয়ে বেশি জটিল করে তুলেছে। এক্ষেত্রে, আরও ভূমিকা রেখেছে কোভিড-১৯। এই পরিস্থিতিতে মানুষের অনলাইনে অনেক বেশি সময় কাটানো। এসব প্রবণতাই সাইবার নিরাপত্তার ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলেছে।

এসব বিষয় চিহ্নিত এবং সাইবার গভর্নেন্স নিয়ে খাত-সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের দক্ষতার আদান-প্রদানে, পাশাপাশি প্রযুক্তিগত সমাধান নিয়ে একসাথে কাজ করার জন্য হুয়াওয়ে ডংগুয়ানের নতুন এই সেন্টার চালু করেছে। এর মাধ্যমে নানা সমাধান প্রদর্শন করা হবে ও অভিজ্ঞতার আদান-প্রদান করা হবে, যোগাযোগ ও যৌথ উদ্ভাবন বৃদ্ধিতে কাজ করা হবে এবং সিকিউরিটি টেস্টিং ও ভেরিফিকেশনে সহায়তা প্রদান করা হবে। সেন্টারটি নিয়ন্ত্রক সংস্থা, স্বাধীন তৃতীয় পক্ষ টেস্টিং প্রতিষ্ঠান, মানদণ্ড সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান এবং হুয়াওয়ের ক্রেতা, অংশীদার ও সাপ্লায়ারদের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

টেলিকম খাতে সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে একটি সমন্বিত পদ্ধতি জোরদারকরণে জিএসএমএ ও থ্রিজিপিপি খাতসংশ্লিষ্ট অংশীজনদের সাথে এনইএসএএস সিকিউরিটি অ্যাসুরেন্স স্পেসিফিকেশন ও ইন্ডিপেন্ডেন্ট সার্টিফিকেশন বিষয়ে উৎসাহিত করতে কাজ করছে। এ বেজলাইনগুলো সংশ্লিষ্ট খাতে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে এবং সুরক্ষিত নেটওয়ার্কের উন্নয়নে এটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

জিএসএমএ’র মহাপরিচালক ম্যাটস গ্র্যানরিড বলেন, ফাইভজি যুগে বিদ্যমান ও নতুন সেবা প্রদান বিশেষভাবে নির্ভর করবে মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠানগুলোর কানেক্টিভিটি সেবা এবং মূলত নির্ভর করবে এ প্রযুক্তি সুরক্ষা এবং এর ওপরে আস্থার ওপরে।

তিনি বলেন, অংশীজনদের সহায়তা করতে জিএসএমএ ফাইভজি সিকিউরিটি নলেজ বেসের মতো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে, যাতে তারা নেটওয়ার্কের ঝুঁকি বুঝতে পারেন এবং এ ঝুঁকি প্রশমনে কাজ করতে পারেন। অন্যদিকে, শিল্পখাতজুড়ে নেটওয়ার্ক সরঞ্জামের বিকাশ ও নিরাপত্তার উন্নয়নে শিল্পখাত সংশ্লিষ্ট সিকিউরিটি অ্যাসুরেন্স ফ্রেমওয়ার্ক ‘এনইএসএএস’ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে হুয়াওয়ে এর প্রডাক্ট সাইবার সিকিউরিটি বেজলাইন প্রকাশ করে। পণ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থাপনায় এক দশকেরও বেশি অভিজ্ঞতা, বিস্তৃত পরিসরের বাহ্যিক বিধিমালা অন্তর্ভুক্তিকরণ, কারিগরি মানদণ্ড এবং নিয়ন্ত্রক সংস্থার প্রয়োজনীয় বিষয় সমন্বিত করে প্রডাক্ট সাইবার সিকিউরিটি বেজলাইন তৈরি করা হয়েছে। এ বেজলাইন হুয়াওয়ের অন্যান্য গভর্নেন্স মেকানিজমের সাথে মিলে প্রতিষ্ঠানের পণ্যের মান, সুরক্ষা ও বিশ্বাসযোগ্যতা নিশ্চিতে সহায়তা করবে। বিগত বছরগুলোতে হুয়াওয়ে ১৫শ’র বেশি নেটওয়ার্ক তৈরি করেছে যা ১শ’ ৭০টি দেশে ৩শ’ কোটির বেশি মানুষকে যুক্ত করেছে। এর মধ্যে কোনও নেটওয়ার্কে বড় ধরনের কোনও সুরক্ষা সংক্রান্ত সমস্যা উদ্ভূত হয়নি।

হুয়াওয়ের গ্লোবাল সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রাইভেসি প্রটেকশন অফিসের পরিচালক শন ইয়াং বলেন, আমরা ক্রেতা, নিয়ন্ত্রক সংস্থা, মানদণ্ড সংশ্লিষ্ট সংস্থা, প্রযুক্তি সেবা দাতা এবং টেস্টিং প্রতিষ্ঠান সহ সকল অংশীজনদের আমন্ত্রণ জানাই আমাদের সাথে কাজ যুক্ত হয়ে একসাথে সাইবার সিকিউরিটি বেজলাইন নিয়ে আলোচনা করার ও প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণের জন্য। একসাথে আমরা ধারাবাহিকভাবে এ শিল্পখাতে পণ্যের নিরাপত্তার উন্নয়নে কাজ করতে পারি।

বর্তমানে মানদণ্ডের ভিত্তির ক্ষেত্রে এ খাতে এখনও অনেক কাজ করার সুযোগ রয়েছে; বিশেষত, গভর্নেন্স, কারিগরি সক্ষমতা, সার্টিফিকেশন ও যৌথ প্রচেষ্টার ক্ষেত্রে।

‘সাইবার নিরাপত্তা ঝুঁকির ক্ষেত্রে সবার দায়িত্ব রয়েছে, উদ্বোধনী বক্তব্যের শেষে বলেন কেন হু। সাইবার নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ শনাক্তে সমন্বিত পদ্ধতি নিয়ে সরকার, মানদণ্ড সংশ্লিষ্ট সংস্থা এবং প্রযুক্তি সেবা দাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর একসাথে কাজ করতে হবে। এটা অবশ্যই আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টা হতে হবে। আমাদের সবার সমন্বিত লক্ষ্য থাকতে হবে, দায়িত্বের ব্যাপারে একসাথে হতে হবে এবং বিশ্বাসযোগ্য ডিজিটাল পরিবেশ তৈরিতে একসাথে কাজ করতে হবে, যা বর্তমান এবং ভবিষ্যতের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহায়তা করবে।

অ্যাপল-গুগলকে টিকটক সরাতে বলল এফসিসি



টেক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

অ্যাপল ও গুগলকে তাদের অ্যাপ স্টোর থেকে টিকটক সরানোর আহ্বান জানিয়েছে মার্কিন ফেডারেল কমিউনিকেশন কমিশন (এফসিসি)।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) অ্যাপল ও গুগলকে এ বিষয়ে চিঠি লিখেছেন এফসিসি কমিশনার ব্রেন্ডন কার।

চিঠিতে তিনি লিখেছেন, ক্ষুদ্র ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম টিকটক যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকি। প্রতিষ্ঠানের কাছে কোটি কোটি মার্কিন গ্রাহকের ব্যক্তিগত ডেটা থাকায়, চীন সরকার তা হাতিয়ে নিতে পারে বলেও শঙ্কা এফসিসি’র।

চীনে তৈরি সামাজিক মাধ্যমের এই অ্যাপটির যাত্রা শুরু হয় ২০১৬ সালে। এরপরই এর জনপ্রিয়তা হু হু করে বেড়ে যায়। ২০১৮-র অক্টোবরে যুক্তরাষ্ট্রে সব থেকে বেশি ডাউনলোড করা অ্যাপ ছিল এই টিকটক।

জনপ্রিয় ভিডিও অ্যাপ টিকটকের মালিক, চীনা প্রতিষ্ঠান 'বাইটড্যান্স। এটি এমন একটি সংস্থা যা চীনের কমিউনিস্ট পার্টি নজরদারি করে।

টিকটক দেশের নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকি থাকায় ২০২০ সালে ভারত এটি নিষিদ্ধ করেছিল। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন টিকটক কীভাবে মার্কিন ব্যবহারকারীদের তথ্যকে প্রভাবিত করে সে সম্পর্কে প্রশ্ন তুলেছেন। যদিও ট্রাম্প টিকটক-এর ওপর সরাসরি নিষেধাজ্ঞা বা স্থানীয় ক্রেতার কাছে তার মার্কিন ব্যবসা বিক্রি করার বিকল্প প্রস্তাব করেছিলেন।

;

গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

মানসম্মত সেবা দিতে না পারায় দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের সিম বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা-বিটিআরসি। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত অপারেটরটি নতুন সিম বিক্রি করতে পারবে না।

বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

বুধবার (২৯ জুন) বিটিআরসি এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা গ্রামীণফোনে পাঠিয়েছে। গ্রাহকদের মানসম্মত সেবা নিশ্চিত করতে পারলেই নতুন সিম বিক্রি করতে পারবে অপারেটরটি।

নিষেজ্ঞাধা প্রসঙ্গে মোস্তাফা জব্বার বলেন, বার বার বলার পরও গ্রামীণফোনের সেবার মান ভালো করার কোনো উদ্যোগ নেয়নি। তারা গ্রাহক বাড়াবে, কিন্তু সেবার মান বাড়াবে না- এটা হতে দেওয়া যাবে না। যতদিন না তারা সেবার মান ভালো করবে এবং তা সন্তোষজনক পর্যায়ে উন্নীত না হবে ততদিন গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

বিটিআরসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, গ্রামীণফোনের বর্তমান গ্রাহক সংখ্যা চলতি বছরের মে পর্যন্ত ৮ কোটি ৪৯ লাখ ৫০ হাজার।

;

ঈদকে সামনে রেখে স্যামসাংয়ের ‘মিট দ্য ঈদ’ ক্যাম্পেইন চালু



নিউজ ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ঈদকে সামনে রেখে স্যামসাংয়ের ‘মিট দ্য ঈদ’ ক্যাম্পেইন চালু

ঈদকে সামনে রেখে স্যামসাংয়ের ‘মিট দ্য ঈদ’ ক্যাম্পেইন চালু

  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদুল আজহার আনন্দে নতুন মাত্রা যোগ করতে আকর্ষণীয় অফার নিয়ে স্যামসাং কনজ্যুমার ইলেকট্রনিকস চালু করেছে ‘মিট দ্য ঈদ’ ক্যাম্পেইন। স্যামসাংয়ের এই ক্যাম্পেইনটি চলবে ঈদের আগের রাত অর্থাৎ ‘চাঁদ রাত’ পর্যন্ত।

ক্যাম্পেইন চলাকালীন গ্রাহকরা উপভোগ করতে পারবেন আকর্ষনীয় ক্যাশব্যাক অফার। স্যামসাংয়ের এই অফারের মধ্যে থাকছে রেফ্রিজারেটরে ৯,০০০ টাকা ও টেলিভিশনে ১০,০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক। আর, স্যামসাং এয়ার কন্ডিশনার এবং ওয়াশিং মেশিনে থাকছে ৩,০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক। এছাড়া, স্যামসাং মাইক্রোওয়েভ ওভেনে রয়েছে ৪,০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক অফার। 

ক্রেতাদের ঈদের খুশি বহুগুণে বাড়িয়ে দিতে স্যামসাং দিচ্ছে আকর্ষণীয় এক্সচেঞ্জ অফার। ২৩,০০০ টাকা পর্যন্ত এক্সচেঞ্জ অফারে গ্রাহকরা খুব সহজেই এখন রেফ্রিজারেটর কিনতে পারবেন। আর, ৪০,০০০ টাকা পর্যন্ত এক্সচেঞ্জ অফারে ৪৩ থেকে ৭৫ ইঞ্চি ও এর চেয়ে বড় সাইজের ফোরকে ইউএইচডি ও কিউএলইডি টিভি কেনা যাবে। এছাড়াও, গ্রাহকরা ৫,৫০০ টাকা পর্যন্ত এক্সচেঞ্জ অফারে ওয়াশিং মেশিন ও ৪,০০০ টাকা পর্যন্ত এক্সচেঞ্জ অফারে মাইক্রোওয়েভ ওভেন কিনতে পারবেন। 

এসব অফারের পাশাপাশি স্যামসাং রেফ্রিজারেটর কিনলে গ্রাহকরা উপহার হিসেবে পাবেন ৯টি ফুড স্টোরেজ বক্সের একটি সেট। এছাড়া, স্যামসাং কিউএলইডি টিভি কিনলে গ্রাহকরা সাউন্ড বারে ৬৩ শতাংশ ছাড় পাবেন। আর, স্যামসাং ওয়াশিং মেশিন কিনলে গ্রাহকরা বিনামূল্যে পেয়ে যাবেন ৪ বোতল লিকুইড ডিটারজেন্ট।

এই ক্যাম্পেইন প্রসঙ্গে স্যামসাং বাংলাদেশের কনজ্যুমার ইলেকট্রনিকসের হেড অব বিজনেস শাহরিয়ার বিন লুৎফর বলেন, “সর্বাধুনিক প্রযুক্তি গ্রাহকদের কাছে পৌঁছে দিতে বদ্ধপরিকর স্যামসাং। মুখরোচক খাবার আর বিনোদনধর্মী কনটেন্টের সাথে প্রিয়জনদের নিয়ে উৎসব উদযাপনের বিশেষ উপলক্ষ ঈদুল আজহা। আর এই উৎসব উদযাপন গ্রাহকদের জন্য আরও স্বাচ্ছন্দ্যদায়ক করে তোলে আমাদের হোম অ্যাপ্লায়েন্সসমূহ। এই ঈদ ক্যাম্পেইন অফারের সাথে গ্রাহকরা তাদের কাঙ্ক্ষিত পণ্য আরও সহজে কিনতে পারবেন বলে আমার বিশ্বাস।”

স্যামসাংয়ের যেকোনো অথরাইজড ডিস্ট্রিবিউটর বা অনলাইনে অর্ডার করে গ্রাহকরা তাদের পছন্দের অ্যাপলায়েন্সটি কিনতে পারবেন, আর কোনো প্রকার ডেলিভারি ফি ছাড়াই বাড়ির দোরগোড়ায় পেয়ে যাবেন অর্ডারকৃত পণ্যটি। আরও বিস্তারিত জানতে আগ্রহী ক্রেতারা কল করুন স্যামসাংয়ের ২৪x৭ কাস্টমার সার্ভিস নম্বরে - ০৮০০০৩০০৩০০।

;

‘এখন টিকটক নামে নতুন একটা রোগ দেখা দিয়েছে’



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার

  • Font increase
  • Font Decrease

এখন নতুন একটা রোগ দেখা দিয়েছে সেটার নাম টিকটক বলে মন্তব্য করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। তিনি বলেছেন, আপনারা দেখেছেন টিকটকের কী পরিমাণ অপব্যবহার হয়। আমাদের পদ্মা সেতু নিয়ে ভাইরাল হয়ে গেছে। পুরো দেশ কাঁপিয়ে দেয়ার মতো অবস্থা।

সোমবার (২৭ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে সাংবাদিক জহুর হোসেন চৌধুরীর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন ও ‘দরবার-ই-জহুর কলাম’ গ্রন্থের প্রকাশনা উৎসবে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না জানিয়ে মোস্তাফা জব্বার বলেন, অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টালের ওয়েবসাইট বন্ধ করলে তারা ফেসবুকে তাদের কার্যক্রম চালায়। ফেসবুকে ভিডিও প্রচারণা বন্ধ করলে ইউটিউবে প্রচার করে।

জহুর হোসেন চৌধুরী স্মরণে মন্ত্রী বলেন, নতুন যন্ত্র আসবে প্রযুক্তি আসবে। কিন্তু জহুর হোসেন চৌধুরী যে পথ তৈরি করে দিয়ে গেছেন এইটা যন্ত্র দিয়ে রিপ্লেস হবে না, প্রযুক্তি দিয়ে রিপ্লেস হবে না। এই মেধা, মনন, সৃজনশীলতা, এর যে মাহাত্ম্য আমরা সমৃদ্ধ জাতি হিসেবে তাকে স্মরণ করবো।

প্রকাশনা উৎসবে জাতীয় অধ্যাপক ডা. এ কে আজাদ খানের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসিন, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান প্রমুখ।

;