গ্রাহক ধরে রাখতে সেবার মান বাড়ানোর বিকল্প নেই



স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, ঢাকা
'নেটওয়ার্ক উন্নয়নে অবকাঠামো ভাগাভাগির চ্যালেঞ্জ' শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক

'নেটওয়ার্ক উন্নয়নে অবকাঠামো ভাগাভাগির চ্যালেঞ্জ' শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক

  • Font increase
  • Font Decrease

প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে মোবাইল অপারেটররা তাদের নিজস্ব টাওয়ার শেয়ারিং এ অনাগ্রহী হওয়ায় এক যুগের বেশি সময় আগে অবকাঠামো ভাগাভাগি নীতিমালা করা হলেও এর উল্লেখযোগ্য কোন সুফল পাওয়া যায়নি।

এ নীতিমালা প্রতিপালনে বাধ্যবাধকতা থাকলে নেটওয়ার্ক সুবিধার সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করা যেত। এছাড়াও বিপুল পরিমাণ বিদ্যুৎ এবং বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় করা সম্ভব।

নীতিমালাটি কঠোরভাবে প্রতিপালন করা হলে সেবার মানও তুলনামূলক বৃদ্ধি পেত বলে জানান আলোচকরা।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) রাজধানীর মহাখালীর ব্র্যাক সেন্টার ইনে টেলিকম অ্যান্ড টেকনোলজি নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (টিআরএনবি) আয়োজিত 'নেটওয়ার্ক উন্নয়নে অবকাঠামো ভাগাভাগির চ্যালেঞ্জ' শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে আলোচকরা  একথা বলেন।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধে জানানো হয়, গত ২৫ বছরে মোবাইল অপারেটর টাওয়ার শেয়ারিং মাত্র ১৭% পৌঁছেছে।

টাওয়ার লাইসেন্সিং চালু পরবর্তী সময়ে ২০২১ সালের মে মাসে এ বিটিআরসি ত্রিপাক্ষিক চুক্তি (মোবাইল অপারেটর-টাওয়ার কোম্পানি- মোবাইল অপারেটর) সম্পাদনের নির্দেশ দিলেও কিছু মোবাইল অপারেটর অন্য মোবাইল অপারেটর নিজস্ব টাওয়ারের শেয়ারিং করতে চাইলেও গত প্রায় ৪ বছরে কোন শেয়ারিং হয়নি।

টাওয়ার নির্মাণ বাড়ছে যা টাওয়ার শেয়ারিং এর পরিপন্থী। এর কারণে টাওয়ার কোম্পানী গুলোর প্রচুর বিনিয়োগ প্রয়োজন হচ্ছে। 

আলোচকরা বলেন, এই অবস্থার মূল্য কারণ প্রতিযোগিতায় এগিয়ে থাকতে মোবাইল অপারেটররা তাদের নিজস্ব টাওয়ার শেয়ারিং এ অনাগ্রহী। মোবাইল অপারেটরদের প্রায় ২০ হাজার টাওয়ার এখনও শেয়ারিং এর বাইরে রয়েছে।

আলোচকরা বলছেন, নেটওয়ার্ক তৈরির প্রতিযোগিতায় অপরিকল্পিতভাবে বিটিএস স্থাপন করেছে সেলফোন অপারেটররা। গত দুই দশকে সারা দেশে অপারেটর নিজস্ব টাওয়ারে বিটিএস বসিয়েছে প্রায় ৩৫ হাজার।

বর্তমানে অপারেটরগুলোর মধ্যে রবি ৩০%, গ্রামীণফোন ১৮%, বাংলালিংক ১৭% শেয়ার করছে। অপারেটরেদের হাতে থাকা ২৪ হাজার ৪২৫ টাওয়ারেরর মাত্র ১৭ % টাওয়ার শেয়ার হচ্ছে।

সাম্প্রতিক সময়ে প্রধানমন্ত্রী বিদ্যুৎ এবং বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। 

টাওয়ার শেয়ারিং না করা সরকারের নীতির সম্পূর্ণ বিরোধী বলে মন্তব্য করে আলোচকরা বলেন, টাওয়ার ব্যবস্থাপনায় প্রয়োজন হচ্ছে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বিদ্যুৎ, যা চাপ তৈরি করছে জ্বালানির ওপর। অপরিকল্পিত এসব বিটিএস পরিবেশের ওপর দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতিকর প্রভাব ফেলছে। অপচয় হচ্ছে জমিরও। এগুলো পরিচালনায় ব্যয় বাড়ছে অপারেটরদের।

 

অপারেটরদের ভাগাভাগির মাধ্যমে এ সংখ্যা কমিয়ে আনার সুযোগ রয়েছে জানিয়ে আলোচকরা বলেন, মোবাইল অপারেটররা তাদের নিজস্ব মালিকানাধীন টাওয়ার ধরে রেখেছে যার ফলে নতুন টাওয়ার তৈরি হচ্ছে কিন্তু শেয়ারিং বাড়ছে না । টাওয়ার নির্মাণ বাড়ছে যা টাওয়ার শেয়ারিং এর পরিপন্থী।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, অপ্রয়োজনে একই জায়গায় একাধিক অবকাঠামো গড়ে তোলা সমীচিন নয়। আমাদের দায়িত্ব হচ্ছে যে অবকাঠামো আমরা গড়ে তুলছি তা যেন একে অপেরর সাথে ভাগাভাগি করতে পারি। অ্যাকটিভ শেয়ারিংটা জরুরি।

মন্ত্রী বলেন, বিটিআরসি উন্নয়নের কাজ বেশি করে। যে সংকটগুলো বলা হয়েছে তা অবশ্যই সমাধানের উদে্যগ নেওয়া হবে। এমএনওগুলোর দায়িত্ব হচ্ছে তাদের হাতে যে টাওয়ারগুলো আছে তা দয়া করে টাওয়ার কোম্পানিগুলোকে দিয়ে দিন। কোম্পানিগুলো সেগুলো শেয়ার করুক, শেয়ার করার ক্ষেত্রে চারটি অপারেটরই যাতে নিতে পারে সে সুযোগ তৈরি করতে হবে। এরফলে এমএনওগুলোর বিনিয়োগ কম করতে হবে, যে অর্থটা তারা এভানে বিনিয়োগ করতো তা গুনগত মান উন্নয়নে ব্যয় করতে পারবে। আমাদের যে গাইডলাইন রয়েছে তা যেন মেনে চলা হয়। অ্যাকটিভ শেয়ারিং জরুরি বিষয়, এ নীতিমালা আপডেট করা হচ্ছে যা সময় নিয়ে করা হচ্ছে।

মন্ত্রী বলেন, কোন অবস্থাতেই গ্রাহক ধরে রাখতে পারবেন না যদি সেবার মান ধরে না রাখতে পারেন। সেবার বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই। ব্যবসা করেন বা গ্রাহক বাড়ান তাতে কোনো আপত্তি নেই। মানসম্মত সেবা দিতে না পারলে টিকে থাকা যাবে না।

বিটিআরি চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদার বলেন, আমাদের কোয়ালিটি অব সার্ভিস নিশ্চিত করতে হবে। অবকাঠামো ভাগাভাগিতে গ্যাপ কোথায় তা দেখতে হবে। আমােদর দেশে যারা টেলিকম সেবাদাতা তারা কেউ কেউ মাকের্ট সাইজটা বৃদ্ধি করতে মনেযাগী সেবার মান বৃদ্ধি করতে মনযোগী কম। শেয়ারিং এর ক্ষেত্রে অপারেটরদের অহীনা আছে, কিছুটা সমন্বয়হীনতাও আছে। বিটিআরসি এ বিষয়ে কাজ করছে । সরকার যে সাশ্রয়ের কথা বলছে জ্বালানি ও বিদু্‌্যত , এ সাশ্রয় করতে গেলে শেয়ারিংটা মাস্ট। অনেক কিছুই আছে নতুন কোন নীতিমালা দরকার নেই, কিছু কিছু জায়গায় ভুলবুঝাবুঝি আছে তা সমাধান করতে হবে যা রিভিউ করা দরকার।

এছাড়া অনুষ্ঠানে রিকি স্টেইন, কান্ট্রি ম্যানেজিং ডিরেক্টর, ইডটকো বাংলাদেশ

হোসেন সাদাত, হেড অব রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স, গ্রামীণফোন, তাইমুর রহমান, চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার, বাংলালিংক, সাহাব উদ্দিন আহমেদ, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, টেলিটক ,রফিকুল মতিন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিটিসিএল, এমদাদুল হক, সভাপতি, আইএসপিএবি, মইনুল হক সিদ্দিকী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও চেয়ারম্যান, ফাইবার অ্যাট হোম

অনামিকা ভক্ত, এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট, স্পেকট্রাম অ্যান্ড টেকনিক্যাল রেগুলেশন, রবি আজিয়াটা লিমিটেড বক্তব্য রাখেন।

শনিবার সারাদেশে থাকতে পারে ইন্টারনেটে ধীরগতি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
শনিবার সারাদেশে ১২ ঘণ্টা থাকতে পারে ইন্টারনেটে ধীরগতি

শনিবার সারাদেশে ১২ ঘণ্টা থাকতে পারে ইন্টারনেটে ধীরগতি

  • Font increase
  • Font Decrease

সাবমেরিন ক্যাবল রক্ষণাবেক্ষণ কাজের জন্য শনিবার (১৩ জুলাই) সারাদেশে ১২ ঘণ্টা ধীরগতিতে থাকতে পারে ইন্টারনেট। এদিন সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ইন্টারনেটের নিরবিচ্ছিন্ন সেবা ব্যাহত হতে পারে বলে জানানো হয়েছে। 

শুক্রবার (১২ জুলাই) বিকেলে বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস কোম্পানি লিমিটেড পিএলসি (বিএসসিপিএলসি) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

এতে বলা হয়, সাবমেরিন ক্যাবল (সিমিইউ-৪) সিস্টেমের সিঙ্গাপুর প্রান্তে কনসোর্টিয়াম কর্তৃক গৃহীত রক্ষণাবেক্ষণ কাজ করার জন্য ১৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত প্রায় ১২ ঘণ্টা এ ক্যাবলের মাধ্যমে সংযুক্ত সার্কিটগুলো আংশিক বন্ধ থাকবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও উল্লেখ করা হয়, এ কারণে দেশের বিভিন্ন জায়গায় নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সেবা ব্যাহত হতে পারে। সাময়িক এ অসুবিধার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বিএসসিপিএলসি।

তবে কুয়াকাটায় স্থাপিত দেশের দ্বিতীয় সাবমেরিন (সিমিউই-৫) ক্যাবলের মাধ্যমে সংযুক্ত সার্কিটগুলো যথারীতি চালু থাকবে।

;

মাসে দুই কোটি সক্রিয় গ্রাহকের মাইলফলক অর্জন করলো মাইজিপি



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম
মাসে দুই কোটি সক্রিয় গ্রাহকের মাইলফলক অর্জন করলো মাইজিপি

মাসে দুই কোটি সক্রিয় গ্রাহকের মাইলফলক অর্জন করলো মাইজিপি

  • Font increase
  • Font Decrease

মাসে দুই কোটি সক্রিয় ব্যবহারকারীর মাইলফলক ছুঁয়ে দেশের শীর্ষস্থানীয় অ্যাপ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পেল গ্রামীণফোনের ফ্ল্যাগশিপ অ্যাপ মাইজিপি। এই অর্জন দেশের শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে মাইজিপি'র অবস্থানকে আরও দৃঢ় করেছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে অনন্য ও নিরবচ্ছিন্ন সব ডিজিটাল সেবা উপভোগ করছেন দেশের কোটি কোটি মোবাইল ফোন ব্যবহারকারী। অনন্য এই অর্জন উপলক্ষ্যে গতকাল রাজধানীর জিপি হাউজে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে গ্রামীণফোনের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার ইয়াসির আজমান, চিফ ডিজিটাল অফিসার সোলায়মান আলম সহ অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গ্রামীণফোনের গ্রাহকদের জন্য 'ওয়ান-স্টপ' সল্যুশন হিসেবে ২০১৬ সালে যাত্রা শুরু হয়েছিল মাইজিপি অ্যাপের; যাতে গ্রাহকরা সহজে কোম্পানিটির বিভিন্ন ধরণের সেবা উপভোগ করতে পারেন। সময়ের সাথে সাথে অ্যাপটি একটি সমন্বিত ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে পরিণত হয়েছে; যোগ হয়েছে নতুন নতুন সুবিধা ও উদ্ভাবনী ফিচার, যাতে ক্রমবর্ধমান গ্রাহকদের বৈচিত্র্যময় চাহিদা পূরণ হয়।

মাইজিপি গ্রাহকদের মোবাইল নেটওয়ার্কের সাথে যোগাযোগের ধারাকে বদলে দিয়েছে। গ্রাহক অভিজ্ঞতা হয়েছে সহজ ও সমৃদ্ধ, যা অ্যাপটিকে দেশের শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে পরিণত করেছে। প্রতিটি গ্রাহকের অ্যাপ অভিজ্ঞতাকে তাদের নিজস্ব প্রয়োজন ও সুবিধা উপযোগী করা এবং সহজ রিচার্জ ও পেমেন্ট সলিউশন সহ এআই-সক্ষম অফার প্রদান করে অ্যাপটি। ফলে বাজারের সেরা মিনিট ও ইন্টারনেটের আস্থার অপর নাম হয়ে উঠেছে মাইজিপি। মাইজিপি এখন দেশের সবচেয়ে বড় সেল্ফ-সার্ভিস অ্যাপ যেখান থেকে ব্যবহার-বান্ধব ইন্টারফেসের মাধ্যমে গ্রাহক তার নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী ও সুবিধামতো গ্রামীণফোনের ৯৯ শতাংশ সেবা এবং বিক্রয়-পরবর্তী সেবা গ্রহণ করতে পারেন। অ্যাপটির অনন্য বৈশিষ্ট্য, যেমন: অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্সের রিয়েল-টাইম আপডেট, ভ্যালিডিটি, রোমিং সেবাসহ আরো অনেক কিছু অ্যাপটিকে কোটি কোটি গ্রাহকের কাছে একটি আবশ্যক টুলে পরিণত করেছে।

টেলিযোগাযোগ সেবার পাশাপাশি বিনোদন, খেলা, শিক্ষা, সহজ মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবা এবং জিপি-স্টার ডিসকাউন্টের মতো বিভিন্ন সেবার সহযোগে একটি সমন্বিত সেবা প্রদান করে অ্যাপটি। মাইজিপির মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্নভাবে জনপ্রিয় সব খেলা উপভোগ এবং শীর্ষস্থানীয় কনটেন্ট প্ল্যাটফর্মগুলো সহজে ব্যবহারের সুযোগ পান গ্রাহকরা। এছাড়া অ্যাপটিতে বিভিন্ন লাইফস্টাইল -ভিত্তিক কনটেন্ট যেমন: সংবাদ প্ল্যাটফর্ম, জিপি’র প্রিমিয়ার ইসলামিক কনটেন্ট, নামাজের সময়সূচী, ইত্যাদি যোগ করা হয়েছে। ফলে মাইজিপি হয়ে উঠেছে দৈনন্দিন জীবনে নিত্য ব্যবহার্য এক অনুষঙ্গ।

টেলকো সুবিধার বাইরে মাইজিপির মাধ্যমে সহজেই বেশ কয়েকটি অত্যাধুনিক আইওটি ডিভাইস ব্যবহার করতে পারেন গ্রামীণফোনের গ্রাহক যা ডিজিটাল জীবনধারার ভবিষ্যতকে নতুন করে সংজ্ঞায়িত করছে। অ্যাপটির মাধ্যমে যানবাহন ট্র্যাকিং সিস্টেম এবং অ্যাডভান্সড সেফটি মনিটরের মতো ডিভাইস কিনে গ্রাহকরা উপভোগ করতে পারেন ইন্টারকানেক্টেড ইনটেলিজেন্স ও সেবা; যা গ্রাহকদের দেবে একটি নিরাপদ, স্বাস্থ্যকর ও সুখী জীবন। গ্রাহকরা অ্যাপ থেকে প্রতিযোগিতামূলক আকর্ষণীয় দামে এবং স্বাচ্ছন্দ্যে এই ডিভাইসগুলো কিনতে পারবেন। এসব সুবিধাই অ্যাপটিকে দেশের শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

গ্রামীণফোনের চিফ ডিজিটাল অফিসার সোলায়মান আলম বলেন, "মাইজিপি অ্যাপে মাসে দুই কোটির বেশি ব্যবহারকারীর সংখ্যা আমাদের প্রতি গ্রাহকদের অবিচল আস্থা ও ভালোবাসার প্রতিফলন।

উদ্ভাবন, গ্রাহক-কেন্দ্রিকতা এবং গ্রাহকের বাস্তব সমস্যার সমাধানে আমাদের একনিষ্ঠতা মাইজিপিকে একটি সাধারণ সেল্ফ-সার্ভিস অ্যাপ থেকে অল-ইন-ওয়ান সল্যুশনে রূপান্তরিত করতে সক্ষম করেছে। এতে গ্রামীণফোনের সকল টেলিযোগাযোগ সংক্রান্ত সুবিধাসহ জীবনধারা, বিনোদন ও অন্যান্য অফার প্রদান করা হয়। ফলে অ্যাপটি হয়ে উঠেছে গ্রাহকদের অন্যতম ডিজিটাল সহযোগী।”

তিনি আরও বলেন, “আমরা মাইজিপির মাধ্যমে এমন একটি ডিজিটাল ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে চাই যা গ্রাহকদের প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল ডিজিটাল চাহিদাগুলো মেটাবে এবং গ্রাহকদের আরো ডিজিটাল-বান্ধব ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত করে তুলবে। মাইজিপি হবে এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে সহজে ও দ্রুত সব কিছু করা যাবে যা অ্যাপটিকে দেশের অন্যতম শীর্ষ প্ল্যাটফর্ম হিসেবে এর অবস্থানকে আরো দৃঢ় করবে।”

গুগল প্লেস্টোর বা আইওএস অ্যাপ স্টোর থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করে মাইজিপির সুযোগ ও সুবিধাগুলো উপভোগ করতে পারবেন গ্রাহকরা।

;

কলড্রপ কমিয়ে বিশ্বমানের টেলিকম সেবা নিশ্চিত করতে চাই: পলক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
কক্সবাজার রেলওয়ে স্টেশন এলাকার নেটওয়ার্ক কোয়ালিটি টেস্টে কথা বলছেন পলক, ছবি: বার্তা২৪.কম

কক্সবাজার রেলওয়ে স্টেশন এলাকার নেটওয়ার্ক কোয়ালিটি টেস্টে কথা বলছেন পলক, ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, সারাদেশে কলড্রপ কমিয়ে এনে বিশ্বমানের টেলিকম সেবা আমরা জনগণকে নিশ্চিত করতে চাই।

শুক্রবার (৫ জুলাই) সকালে কক্সবাজার রেলওয়ে স্টেশন এলাকার নেটওয়ার্ক কোয়ালিটি টেস্ট শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, কক্সবাজার পৃথিবীর দীর্ঘতম বালুকাময় সমুদ্র সৈকত। প্রতিবছর লক্ষ লক্ষ দেশি-বিদেশি পর্যটকরা এখানে ঘুরতে আসেন। এই পর্যটন কেন্দ্রকে বিশ্বমানের হিসেবে গড়ে তোলার জন্যই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এখানে একটি ট্রেন স্টেশন, আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর তৈরি করে দিয়েছেন। কক্সবাজারে একটি হাইটেক পার্ক নির্মাণ করার জন্য ১৭০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন।


প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, কক্সবাজারকে বিশ্বমানের আকর্ষণীয় পর্যটনকেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার জন্য অবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ, উচ্চগতির ইন্টারনেট, সড়ক-রেল-আকাশপথের মাধ্যমে যুক্ত করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ১৫ বছরে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ এবং ইন্টারনেট পৌঁছে দিয়েছেন। আমরা এখন চাই এগুলোর মান বৃদ্ধি করতে। ইন্টারনেট, কলসহ মোবাইল অপারেটরদের সব ধরনের সেবার মান নিশ্চিত করার জন্য সারাদেশে আমরা ড্রাইভ টেস্ট করছি। কক্সবাজারে আসা পর্যটকদের ভালো গতির ইন্টারনেটসহ মানসম্পন্ন মোবাইল সেবা নিশ্চিত করার জন্য কক্সবাজার রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় নেটওয়ার্ক কোয়ালিটি টেস্ট করছি। 

এছাড়াও কক্সবাজার জেলা পর্যায়ের ‘আইটি/হাই-টেক পার্ক স্থাপন’ শীর্ষক প্রকল্প স্থাপনের চলমান কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন তথ্য প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী।

;

১০ লাখ তরুণ-তরুণীকে আইটি সেক্টরের জন্য তৈরি করা হবে: পলক



স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, বার্তা২৪.কম, কক্সবাজার
শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব কাম হার পাওয়ার প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন পলক/ছবি: বার্তা২৪.কম

শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব কাম হার পাওয়ার প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন পলক/ছবি: বার্তা২৪.কম

  • Font increase
  • Font Decrease

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, প্রযুক্তি ক্ষেত্রে নারীদের ক্ষমতায়ন এবং কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার জন্য হার পাওয়ার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। যেখানে সারাদেশে ২৫ হাজার নারী উদ্যোক্তা তৈরি করা হবে। ৪ মাস প্রশিক্ষণ এবং ১ মাস ইন্টার্নশিপের পর প্রত্যেক নারীকে একটি করে ল্যাপটপ দেওয়া হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (০৪ জুলাই) বিকেলে কক্সবাজার শহরের সৈকত বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে শেখ রাসেল কম্পিউটার ল্যাব কাম হার পাওয়ার প্রকল্প পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

এসময় তিনি বলেন, আগামী ৫ বছরে সরকারের বর্তমান মেয়াদে সারাদেশে ১০ লাখ তরুণ-তরুণীকে আইটি সেক্টরের জন্য তৈরি করা হবে।

হার পাওয়ার প্রকল্পের উপ-প্রকল্প পরিচালক নিলুফা ইয়াছমিন জানান, কক্সবাজার জেলা ৩টি উপজেলায় ৩ পর্যায়ে ৫৬০ জন নারীকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে।

এই প্রকল্পের প্রশিক্ষণার্থীরা জানান, হার পাওয়ার প্রকল্পে প্রশিক্ষণের ফলে আইটি সেক্টরে দক্ষতার মাধ্যমে আয় করার সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) তাপ্তি চাকমা, কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারজানা রহমান প্রমুখ।

;