লকডাউনে টেক কোম্পানিগুলোর লাভ-ক্ষতি

হাসিবুল হাসান শান্ত, টেক ডেস্ক, বার্তা২৪.কম
ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

  • Font increase
  • Font Decrease

করোনাভাইরাস মহামারি ব্যবসার জন্য একটি খারাপ সময়। তবে এই সংকটময় মুহূর্তে কিছু টেক কোম্পানি হিমশিম খেলেও কিছু প্রতিষ্ঠান আবার লাভের মুখ দেখেছে।

কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবের ফলে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর লাভ ক্ষতির হিসাব খতিয়ে দেখেছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম বিবিসি।

বাসা থেকে কাজে যারা লাভবান
করোনা বিপর্যয়ের বেশিরভাগ প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কর্মীদের বাসা থেকে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছে। আর বাসা থেকে অফিসের কাজ সামলানো সম্ভব হয়েছে বেশকিছু অ্যাপভিত্তিক অনলাইন প্ল্যাটফর্মের জন্য।

ভিডিও কলের জন্য জনপ্রিয়
একটি প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে জুম। যার স্টক প্রাইজ গত ডিসেম্বর বেড়ে দ্বিগুণ হয়ে গেছে। আর দিনে ইউজার সংখ্যা ১ কোটি থেকে বেড়ে ২০০ কোটি হয়েছে।

এদিকে মাইক্রোসফট টিম জানায়, তাদের ভিডিও কনফারেন্সিং প্ল্যাটফর্মে ৪০ শতাংশ ইউজার বেড়েছে। দূর থেকে কম্পিউটার নিয়ন্ত্রণকারী জনপ্রিয় অ্যাপ টিম ভিউয়ারের ব্যাপক চাহিদা বেড়েছে।

গেমিংয়ে লাভ
লকডাউনে প্রতিদিনের অফিস টাইম বা কাজ শেষ হলেও ঘরের ভেতরেই থাকতে হচ্ছে। তাই উল্লেখযোগ্য হারে মানুষের মধ্যে গেম খেলার চাহিদা বেড়েছে। এরমধ্যে নিতেন্দো সুইচে অ্যানিম্যাল ক্রসিং গেমটি বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। আর অনলাইন গেমিং সাইটেও প্লেয়ারের সংখ্যা বেড়েছে। সম্প্রতি লঞ্চ হওয়া কল অব ডিউটি গেমটি এক কোটি প্লেয়ার খেলেছে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, লকডাউনে গেমিংয়ের বাজার বেড়ে গেছে এবং এবছরে ৩৫ শতাংশ বিক্রি বেড়েছে। এছাড়া হার্ডওয়্যার ভিত্তিক গেমসের চাহিদা ৬৩ শতাংশ বেড়েছে এবং বাজারে গেমিং কনসোলের ঘাটতি দেখে দিয়েছে। গেমিং কনসোল বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলোতে কনসোলের মজুদ শেষ হয়ে গেছে।

স্ট্রিমিংয়ে জয়জয়কার
অনলাইন সাইটে শুধু গেমিংই নয়। এই তালিকায় অনলাইন ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মগুলো ভালো অবস্থা রয়েছে। এই লকডাউনে জনপ্রিয় অনলাইন ভিত্তিক ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম নেটফ্লিক্সে নতুন করে এক কোটি ৬০ লাখ মানুষ সাবস্ক্রাইব করেছে।

এদিকে ডিজনি প্লাসের শক্ত অবস্থান রয়েছে ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে। এর আগে মার্চে ইউরোপসহ বেশকিছু অঞ্চলে লঞ্চিং করে ডিজনি প্লাস। বর্তমানে এই প্ল্যাটফর্মের সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা পাঁচ কোটি ৫০ লাখ। কোভিড-১৯ এর কারণে সিনেমাহলে ছবি মুক্তির কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকেই ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে নতুন ছবি রিলিজ করছে।

এছাড়া অনলাইনে টিভি সিরিজ, মুভি ও গান দেখার প্ল্যাটফর্ম স্পটিফাই তে নতুন করে ১৩০ মিলিয়ন পেইড সাবস্ক্রাইবার যুক্ত হয়েছে।

মাঝামাঝি পর্যায়ে যারা
ব্যায়ামের জন্য সরঞ্জামাদি সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ক্লাসপাস লকডাউনে কারণে তাদের সব কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে। তাই তারা অনলাইনে ক্লাসের মাধ্যমে শরীর চর্চা বিষয়ে শিক্ষা দিচ্ছে। তবে এরফলে তাদের কর্মী ছাটাই এবং ৯৫ শতাংশ রাজস্ব কমে গেছে।

পিলিটন নামের একটি ফিটনেস কোম্পানি তাদের ফিটনেস বাইকের প্রচারণার জন্য আগে থেকে অনলাইনে সরব। তবে প্রতিষ্ঠানে কোভিড-১৯ সংক্রমণের পর করোনাভাইরাসের তাদের স্টুডিওগুলোও বন্ধ করা হয়। তবে সম্প্রতি প্রকাশিত এর আর্থিক প্রতিবেদনে দেখা যায়, অনলাইনে বিক্রির পরিমাণ ৬০ শতাংশ বেড়েছে।

এদিকে বাসায় বসে দীর্ঘ সময়ব্যাপী শরীর চর্চার ভিডিও ইউটিউব স্ট্রিমিং করে গিনেস বুকে রেকর্ড করেছে ইউটিউবার জো উইক্স।

মাঝামাঝি আমাজন
এ মহামারিতে বর্তমানে কঠিন সময় পার করছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম আমাজন। সম্প্রতি এক প্রতিবেদনে জানা যায়, আমাজনে ৬০০ কর্মী করোনা আক্রান্ত এবং ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানের গুদামে যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি মানা হয় না বলে কর্মীদের অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে নিরাপত্তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে আমাজন থেকে অপ্রয়োজনীয় বিক্রয় নিষিদ্ধ করেছে ফ্রান্স।

তবে এসব কিছু সত্ত্বেও বিশ্বের সর্বোচ্চ ধনীর তালিকায় আমাজনের নির্বাহী প্রধান জেফ বেজোস রয়েছেন। এই লকডাউনেও তার সম্পত্তির ২৪০০ কোটি ডলার বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া আমাজনের স্টক প্রাইজও বেড়েছে।

পরিবহন খাতে ক্ষতি
যেহেতু লকডাউনের কারণে আমরা বাসায় বসে আছি তাই বিনা প্রয়োজনে বাইরে তেমন একটা যাওয়া হচ্ছে না। এজন্য পরিবহন খাতে ক্ষতি হচ্ছে। বিশ্ব বাজারে তেলের মজুদ করার জায়গা হচ্ছে না আর, মানুষকে তেল কিনলে বরং টাকা দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া যুক্তরাজ্যে গাড়ি বিক্রি পরিমাণ কমে গেছে।

এদিকে জনপ্রিয় অ্যাপ ভিত্তিক রাইড শেয়ারিং সার্ভিস উবার এক হাজারের বেশি কর্মী ছাঁটাই করে। তবে বিশ্বব্যাপী মুদি দোকানগুলোতে বিক্রি বেড়েছে কয়েক গুণ।

এয়ার বিএনবির ক্ষতি
মধ্যস্থতাকারী কোম্পানিগুলোতেও করোনার প্রভাব পড়েছে। অনলাইনে বাড়ি ভাড়া করার জনপ্রিয় প্ল্যাটফর্ম এয়ার বিএনবি করোনা বিপর্যয়ের কারণে তাদের ১৯০০ কর্মী ছাটাই করেছে।

এছাড়া বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, বেশির ভাগ সফট ব্যাংক স্টার্টআপ কোম্পানির তহবিলে সাইবার হামলা চালানো হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :