Barta24

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

বেড়েছে মাছের দাম, সরবরাহ স্বল্পতা বলছেন ব্যবসায়ীরা

বেড়েছে মাছের দাম, সরবরাহ স্বল্পতা বলছেন ব্যবসায়ীরা
কারওয়ান বাজারে মাছের দোকান
রাকিবুল ইসলাম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদের পর রমজান মাসের চেয়েও বাজারে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে মাছ। রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে সবজির দাম অপরিবর্তিত থাকলেও প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে মাছের দাম। পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতারা বাজারে মাছের স্বল্পতাকেই দাম বৃদ্ধির মূল কারণ বলে দায়ী করছেন।

বুধবার (১২ জুন) রাজধানীর কারওয়ান বাজার ঘুরে দেখা যায়, ঈদ শেষে পুরোপুরি জমে ওঠেনি কাঁচাবাজার। দামাদামি করেই মাছ কিনছেন ক্রেতারা। দামে না মিললে মন ভার করছেন। কেউ কেউ অতিরিক্ত দামের কারণে কিনতে পারছেন না পছন্দের মাছ। তবে বাজারজুড়ে দেশি-বিদেশি মাছের পর্যাপ্ত সরবরাহ দেখা যায়।

বাজারে মাছের আকার কিংবা ওজনের ওপর নির্ভর করে একই জাতীয় মাছের রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন দাম। রোজাতেও যে রুই পাইকারি বাজারে বিক্রি হয়েছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়, ঈদের পরে এসে এর দাম দাঁড়িয়েছে ২২০ থেকে ২৫০ টাকা। খুচরা বাজারে যার দাম ৩০০ থেকে ৩৫০টাকা পর্যন্ত। আর ভারতীয় বার্মিজ রুই আকার ভেদে কেজি প্রতি ৩৫০-৪৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

কারওয়ান বাজারে মাঝারি একটি ইলিশ ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা, ছোট আকারের তেলাপিয়া ১৪০-১৫০ টাকা, মাঝারি তেলাপিয়া ১৬০-১৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। পাঙ্গাশ ১৪০-১৭০ টাকা, মাঝারি আকারের বোয়াল প্রতিকেজি ৪০০ টাকা, ছোট টেংরা ও মলা মাছ ৪০০ টাকা, চাষের কই আকারভেদে ২০০-৩০০ ও মাঝারি গলদা ও বাগদা চিংড়ি ৬ থেকে ৭০০, পাবদা ৫০০ টাকা। মাঝারি আইড় ৬০০ টাকা, ৪ কেজি সাইজের মিরকা ৪০০ টাকা কেজি, বাইম মাছ ৭০০ টাকা কেজি, রূপচাঁদা ৭০০ টাকা, দেশি টেংরা ৪০০ টাকা, শোল মাছ ৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/12/1560327598659.jpg
মোহাম্মদ আলী নামে এক খুচরা বিক্রেতা চারটি ইলিশের দাম চেয়েছেন ৩৪০০ টাকা। ক্রেতা জাহানার বেগম বলেছেন ৩০০০ হাজার টাকা। অবশেষে চারটি ইলিশ তিনি কিনতে পেয়েছেন ৩২০০ টাকায়।

জাহানারা বার্তা২৪.কমকে বলেন, রোজায় মাছের দাম যতটা ছিল এখন তার চেয়েও অনেক বেশি। এভাবে দাম বাড়তে থাকলে মাছ কেনা কঠিন হয়ে যাবে। খুচরা বাজারের এমন নৈরাজ্যের দিকে প্রশাসনের নজর দেওয়া দরকার।

বিক্রেতা মোহাম্মদ আলী বার্তা২৪.কমকে বলেন, আমাদের কী করার আছে? আড়ৎ থেকে অতিরিক্ত মূল্যে মাছ নিতে হয়েছে। তারা কম দামে না দিতে পারলে আমাদেরও কম দামে দেওয়ার সুযোগ থাকে না। রোজার চেয়ে মাছের কেজি প্রতি দাম একটু বেশিই।

মাছের আড়তদাররা বলছেন দাম বৃদ্ধির অন্যতম কারণ বাজারজুড়ে মাছের আমদানি স্বল্পতা। একটি নির্দিষ্ট অঞ্চল থেকে মাছের আমদানি বন্ধ রয়েছে। সমুদ্রের মাছ আসছে না বাজারে। ফলে ব্যবসায়ীদের ভরসা কেবল মাছের খামারিরা। এতে ভরসা পাচ্ছেন না পাইকারি ব্যবসায়ীরা। কারণ মাছের পেটে ডিম আসায়, অনেক খামারিই মাছ ধরা কমিয়ে দিয়েছেন।

মাকসুদ আলম নামে এক পাইকারি মাছ ব্যবসায়ী বার্তা২৪.কমকে বলেন, চাহিদার তুলনায় মাছের আমদানি অনেক কম। আমদানি কম থাকলে দাম তো বাড়বেই। তবে জেলেদের থেকে সামুদ্রিক কিংবা নদীর মাছ আমদানি বাড়লে কমতে পারে মাছের দাম।

কারওয়ান বাজারের মাছের আড়তদার বিল্লাল হোসেন বলেন, আমরা এখন খামারিদের থেকে মাছ কিনছি। নদী বা সামুদ্রিক মাছ না আসা পর্যন্ত দাম কমবে না। মাছের দাম আরো বৃদ্ধি পেতে পারে।

আপনার মতামত লিখুন :

‘এমন গহনা তৈ‌রি করুন, যাতে কেউ বিদেশমুখী না হন'

‘এমন গহনা তৈ‌রি করুন, যাতে কেউ বিদেশমুখী না হন'
স্বর্ণমেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি/ ছবি: বার্তা২৪.কম

দে‌শের স্বর্ণ কা‌রিগরদের উদ্দেশে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি ব‌লে‌ছেন, ‘আপনা‌দের দক্ষতা কা‌জে লা‌গি‌য়ে এমন গহনা তৈ‌রি করুন, যাতে ক্রেতা‌রা ভারতের কলকাতাসহ বিদেশের বিভিন্ন শহরমুখী না হন।’

মঙ্গলবার (২৫ জুন) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে স্বর্ণমেলার সমাপনী অনুষ্ঠা‌নে তিনি এসব কথা ব‌লেন।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এন‌বিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার সভাপ‌তি‌ত্বে অনুষ্ঠা‌নে আ‌রও উপ‌স্থিত ছি‌লেন এনবিআর-এর সদস্য (আয়কর) কানন কুমার রায়, বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) সভাপ‌তি গঙ্গা চরণ মালাকার, সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা সহ স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও রাজস্ব কর্মকর্তারা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/25/1561473259556.jpg

বা‌ণিজ্যমন্ত্রী ব‌লেন, ‘আমা‌দের অনেক ধনী মানুষ আছেন, যারা ভারতের কলকাতা, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর থেকে স্বর্ণের গহনা কেনেন। দেশে অনেক দক্ষ কারিগর রয়েছেন, তা‌দের হা‌তের কাজ অনেক সুন্দর। তারা যদি ভালো মানের গহনা তৈরি করতে পারেন, তাহলে কেউ আর গহনার জন্য বিদেশমুখী হবেন না।’

‘বরং দেশের গহনা বিদেশে রফতানি করা যাবে। আমরা বিদেশে রফতানির জন্য বিশেষ প্রণোদনারও চিন্তা করব।’

স্বর্ণ কারিগরদের আন্তর্জাতিক মানের প্রশিক্ষণ প্রয়োজন উল্লেখ ক‌রে বা‌ণিজ্যমন্ত্রী ব‌লেন, ‘কারিগরদের প্রশিক্ষণের জন্য একটি ট্রেনিং ইনস্টিটিউশন খুব দরকার। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্র‌য়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ঢাকার আশপা‌শে একটি জুয়েলারি পল্লী স্থাপনের জন্য সহযোগিতা কর‌বে।’ আগামী এক মা‌সের ম‌ধ্যে এ বিষ‌য়ে সং‌শ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ‌কে চি‌ঠি দেওয়া হ‌বে ব‌লে তি‌নি জানান।

অনুষ্ঠা‌নে এন‌বিআর চেয়ারম্যান ও বাংলা‌দেশ অর্থ‌নৈ‌তিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ‌কে জমি বরা‌দ্দের জন্য চি‌ঠি দেওয়া হবে ব‌লে জানানো হয়।

সোনা বৈধ বাবদ মেলায় ১৭৫ কোটি টাকার কর আদায়

সোনা বৈধ বাবদ মেলায় ১৭৫ কোটি টাকার কর আদায়
হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে স্বর্ণ মেলার সমাপনী অনুষ্ঠান/ছবি: বার্তা২৪.কম

 

দেশে প্রথমবার অনুষ্ঠিত ‘স্বর্ণ মেলায়’ ঢাকা বিভাগে অবৈধ রুপা, সোনা এবং ডায়মন্ড বৈধ করতে ১৭৫ কোটি টাকার কর দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) তিনদিন ব্যাপী স্বর্ণ মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান বাংলাদেশ জুয়েলারি অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়াল। তবে কত কোটি টাকার সোনা, রুপা এবং ডায়মন্ড বৈধ করা হয়েছে তার দেননি তিনি।

তিনদিন ব্যাপী এই মেলা রাজধানী ঢাকার ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটলসহ দেশের ৮ টি বিভাগে অনুষ্ঠিত হয়। এনবিআর ও বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) যৌথভাবে মেলার আয়োজন করে।

দিলীপ কুমার আগারওয়াল বলেন, স্বর্ণ মেলায় এখন ( সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা ) পর্যন্ত এক হাজার ২০০ মানুষ তাদের ডায়মন্ড, সোনা ও রুপা বৈধ করতে এসেছেন। আজকে মেলার শেষ দিনে এক হাজার লোক ডায়মন্ড, সোনা ও রুপা বৈধ করান। মেলায় এখন পর্যন্ত ১৭৫ কোটি টাকার কর দিয়ে সোনা বৈধ করা হয়েছে।

এর আগে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডর (এনবিআরের) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বার্তা২৪.কম-কে বলেন, আগামী ৩০ জুনের মধ্যে ৩০০ কোটি টাকার কর আদায় হবে বলে আশা করছি।

গত ২৩ জুন সকাল ১০টায় মেলা উদ্বোধন করেন এনবিআর চেয়ারম্যান। মেলার সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেছেন এনবিআরের সদস্য (কর ও প্রশাসন) কানন কুমার রায়।

মেলায় ব্যবসায়ীরা ভরিপ্রতি রুপা ৫০ টাকা, স্বর্ণ ভরপ্রতি ১ হাজার এবং ডায়মন্ড ভরিপ্রতি ৬ হাজার টাকা দিয়ে ব্যবসায়ীরা স্বর্ণ, রুপা এবং ডায়মন্ড বৈধ করেছেন। ৪০০ কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে মেলার আয়োজন করে এনবিআর ও বাজুস।

তিন দিনব্যাপী ‘স্বর্ণ মেলা-২০১৯'র প্রথম দুদিনে মোট ৫১ কোটি টাকার দিয়ে সোনা, রূপা ও ডায়মন্ড বৈধ করেছেন ২১০ জন ব্যবসায়ী।

 

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র