শয়তানের প্ররোচনা থেকে কোরআন মানুষকে নিরাপদ রাখে

শয়তানের প্ররোচনা থেকে কোরআন মানুষকে নিরাপদ রাখে, ছবি: সংগৃহীত

পবিত্র কোরআন মানুষের বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ দিকসমূহ পরিশুদ্ধ ও সংশোধন করে। এ আসমানি কিতাব মানুষকে শয়তানের যাবতীয় প্ররোচনা থেকে নিরাপদ রাখে। পবিত্র কোরআন হচ্ছে- এমনই এক আসমানি কিতাব, যা মানুষকে অজ্ঞতা ও মূর্খতার অভিশাপ থেকে মুক্তি দান করে এবং সব ধরনের গোমরাহি থেকে মুক্তি দিয়ে হেদায়েতের পথে পরিচালিত করে।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হলো- যারা পবিত্র কোরআনের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক গড়ে তুলবে, তারা নি:সন্দেহে দুনিয়া ও পরকালে সফলতার অধিকারী। পক্ষান্তরে যারা কোরআনে কারিম থেকে দূরত্ব বজায় রাখবে তারা শয়তানের ধোঁকার শিকার হবে এবং অহংকার ও অন্ধকারচ্ছন্নতা তাদেরকে ধ্বংস ও পতনের দিকে নিয়ে যাবে।

বস্তুত মানুষ সত্তাগতভাবে সত্য ও হকের প্রতি আকৃষ্ট থাকে; কিন্তু দুনিয়ার চাকচিক্য ও পার্থিব লোভ-লালসা তাকে বাতিলের দিকে প্ররোচিত করে। তাই প্রত্যেক ব্যক্তির ওপর ফরজ হচ্ছে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে পবিত্র কোরআনের আদেশাবলী মেনে চলা এবং কোরআনের ছায়ায় অবস্থান করা।

ইসলাম মানুষকে যে শিষ্টাচার শেখায়, সুন্দর-সুশৃঙ্খল পথের দিশা দেয়, সর্বপ্রকার জাহেলিয়াত ও খারাপ দিক থেকে মুক্তি দিয়ে অপার সৌন্দর্য আর প্রশান্ত জীবনের দিক-নির্দেশনা দেয়- এসবই কোরআনের শিক্ষা।

কোরআনের শিক্ষা হলো, সরাসরি আল্লাহ প্রদত্ত শিক্ষা। তাই এই শিক্ষা ও উপলব্ধিগুলো আত্মস্থ করার জন্য বেশি বেশি করে কোরআন তেলাওয়াত করা জরুরি। কোরআন যেহেতু মানুষকে জীবন চলার জন্য পথনির্দেশ প্রদান করে, সেজন্যে অর্থ ও ব্যাখ্যাসহ বুঝে কোরআন পড়ার চেষ্টা সাধ্যমতো করতে হবে।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হলো- কোরআনকে শুধু বুক শেলফে সাজিয়ে রাখলে চলবে না। কোরআন তেলাওয়াত করতে হবে, কোরআনের বিধান মতে জীবন পরিচালনা করতে হবে। এ প্রসঙ্গে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘যারা কোরআনের বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করে কোরআন তেলাওয়াত করবে তারা নৈকট্যপূর্ণ ফেরেশতাদের সঙ্গে জান্নাতে থাকবে।’

কোরআন তেলাওয়াত মানুষকে মানসিক প্রশান্তি দেয় ও আত্মিক রোগ থেকে মুক্ত করে। কোরআনের মাধ্যমে মানুষ বিভিন্নভাবে উপকৃত হয়। আল্লাহতায়ালা কোরআন দিয়েছেন মানুষের জীবন বিধান হিসেবে। মানুষের জীবনের যে কোনো সমস্যার সমাধান কোরআনে রয়েছে। তাই আমাদের কোরআন বুঝতে হবে। সে অনুযায়ী জীবন সাজাতে হবে।

মনে রাখতে হবে, মুসলমানদের জীবন দু’টি। একটি ইহকালীন, অপরটি পরকালীন। এই দুই জীবনেরই মুক্তির একমাত্র সনদ হচ্ছে কোরআন। তাই ইহকালীন শান্তি এবং পরকালীন মুক্তির জন্য আমাদের উচিত বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করা।

আমাদের সন্তানদের অনেকেই কোরআন পড়তে জানে না, এটা দুঃখজনক। কোরআন শিক্ষার প্রতি এমন উদাসীনতা কাম্য নয়। মুসলমানরা সব সময় আল্লাহর কোরআনের পাঠক, ধারক ও বাহক। মানুষের মাঝে এই উপলব্ধি অনুধাবনের জন্যই বলা হয়েছে, কোরআন হলো- মানুষের জন্য আলোকবর্তিকা।

ইসলাম এর আরও খবর