Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে শুকরানা মাহফিল: জনসমাগমের রেকর্ড গড়বেন আলেমরা

প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে শুকরানা মাহফিল: জনসমাগমের রেকর্ড গড়বেন আলেমরা
প্রস্তুত শুকরানা মাহফিলের মঞ্চ, ছবি: সৈয়দ মেহেদি, বার্তা২৪.কম
রেজা-উদ্-দৌলাহ প্রধান
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের উদ্যোগে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে শুকরানা মাহফিল রোববার (৪ নভেম্বর)। সকাল ১০টার এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কওমি শিক্ষার সর্বোচ্চ স্তর দাওরায়ে হাদিসকে স্নাতকোত্তরের সমমান দেওয়ায় আল্লামা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেবেন আলেম-উলামারা। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে বঙ্গবন্ধুকন্যাকে আলেম-উলামাদের এই সংবর্ধনা বিশেষ গুরুত্ব বহন করছে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানকে স্মরণীয় করতে সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ করেছে সংবর্ধনা বাস্তবায়ন কমিটি। এ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের দক্ষিণ-পূর্বপাশে বিশালাকারের প্যান্ডেল করা হয়েছে। মঞ্চ ও বিশাল জায়গাজুড়ে সামিয়ানা টানানো হয়েছে। এখন চলছে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ডেকোরেশনের কর্মীরা কেউ মঞ্চের চেয়ার, ফুলদানি সাজনোর কাজে ব্যস্ত, কেউবা সামিয়ানার নিচে চেয়ার সাজাচ্ছে। কেউ আবার ব্যস্ত জায়ান্ট এলইডি পর্দা বাসানোরা ব্যবস্থা করছে। ঢাকা ওয়াসার পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত সুপেয় পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে আগতদের জন্য।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/03/1541246861232.jpg

২০১৩ সালে যখন দেশের যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবীতে গণজাগরণ মঞ্চ গঠিত হয়। তখন কিছু মুক্তমনা ব্লগার ও প্রগতিশীল মানুষের লেখা ও বক্তব্য নিয়ে আপত্তি জানায় আল্লামা আহমদ শফী। এরপর গণজাগরণ মঞ্চের কাউন্টারে ঢাকার মতিঝিলে বিশাল জমায়েত করে আলেম-উলামারা। এরপরই সবমহলে আলোচিত হয়ে ওঠে হেফাজত ইসলাম। সেসময় কঠোর হাতে হেফাজত ইসলামকে সরকার দমন করলেও পরবর্তীতে সরকার ও হেফাজতের সম্পর্কে আকস্মিক ‘উষ্ণতা’ লক্ষ্য করা যায়। ধীরে ধীরে সখ্যতা গড়ে ওঠে ধর্মভিত্তিক হেফাজত ইসলামের সঙ্গে আওয়ামী লীগের। এর পেছনে রয়েছে হেফাজতে ইসলামে বেশ কিছু দাবী-দাওয়া মেনে নেওয়ার ঘটনা।

টানা দুইবারের শাসনামলে বর্তমান সরকার হেফাজতের দাবীতে সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল রাখে, প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠ্যসূচি পরিবর্তন করে, সুপ্রীম কোর্ট ভবনের সামনে থেকে গ্রীকদেবীর ভাস্কর্য সড়ানোর ব্যবস্থা করে, ফতোয়া সংক্রান্ত সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগের রায়ে মুফতিদের ফতোয়া প্রদানের বৈধতা, নারী উন্নয়ন নীতিমালায় ওআইসির অবজারভেশন বহাল রাখা, ধর্ম অবমাননা ইস্যুতে মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর পদত্যাগ, চলমান তাবলিগ ইস্যুতে মাওলানা সাদের ব্যাপারে আলেমসমাজের আপত্তিকে গ্রাহ্য করা ও সর্বশেষ কওমি মাদ্রাসার সনদের স্বীকৃতি প্রদান করে। কওমি সনদের স্বীকৃতি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী লাখ-লাখ শিক্ষার্থীর সামাজিক মর্যাদা দিয়েছেন এবং তাদের ভবিষ্যতকে সুরক্ষিত করার ব্যবস্থা করেছেন।

দীর্ঘদিনের এই দাবী পূরণে আলেমসমাজের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর এমন ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি তাদেরকে কৃতজ্ঞতার বন্ধনে আবদ্ধ করেছে। আর তাই এদেশের কওমি শিক্ষার অভিভাবকরা প্রধানমন্ত্রীর ‘অনিচ্ছাসত্ত্বেও’তাকে গণ সংবর্ধনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন- শুকরানা মাহফিল নামে।

আয়োজক সূত্রে জানা গেছে, শুকরানা মাহফিলে জনসমাগমের নতুন রেকর্ড গড়ে ইতিহাস রচনা করতে সারাদেশের কওমি মাদরাসায় ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। দেশের ছয়টি কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অন্তর্ভুক্ত হিসেবে ছোট বড় ১৫ হাজার মাদরাসা আছে। প্রত্যেক মাদ্রাসায় সংবর্ধনার চিঠি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

আয়োজকরা আশা করছেন, কাল ঢাকার বাইরে থেকে মাদ্রারাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে কমপক্ষে ১০ হাজার বাস ঢাকায় আসবে। এছাড়া ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ প্রতিটি উপজেলা থেকে কমপক্ষে দুই গাড়ি মানুষ আনার নির্দেশ দিয়েছে। ট্রেন, লঞ্চযোগে ওই দিন ভোর হতেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জমায়েত হবেন সমাবেশে যোগদানকারীরা। এছাড়া ঢাকা বিভাগের অন্তর্গত মাদ্রারাসাগুলোর শিক্ষার্থীদের স্বত:স্ফূর্ত উপস্থিতি আশা করা হচ্ছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2018/Nov/03/1541246897928.jpg

এসব বিষয়ে নিয়ে জানতে চাইলে কওমি মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড ঢাকার পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মাওলানা আবু ইউসুফ বার্তা২৪.কমকে বলেন, শুকরানা মাহফিলের আমন্ত্রণ জানিয়ে আমারা সব মাদরাসায় দাওয়াতনামার চিঠি পাঠিয়ে দিয়েছি। পত্রিকাতেও বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীকে স্বত:স্ফূর্ত সংবর্ধনা দিয়ে জনসমাগমের নতুন রেকর্ডই হবে- ইনশাল্লাহ।

ইতোমধ্যে শুকরানা মাহফিলে যোগ দিতে হাইয়াতুল উলইয়ার চেয়ারম্যান ও হাটজাহারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফী ঢাকায় পৌঁছেছেন। রাতে তিনি ফরিদাবাদ মাদ্রাসায় অবস্থান করবেন। তিনি শুকরিয়া মাহফিলে সর্বশেষ যাবতীয় প্রস্তুতি বিষয়ে খোঁজ-খবর নিচ্ছেন।

শুকরানা মাহফিল উপলক্ষে রাজধানীতে যান চলাচলে কিছু নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ। এর মধ্যে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠানস্থল এবং এর আশপাশের এলাকা দিয়ে ভারী অথবা হালকা যানবাহনসহ আসা-যাওয়া এড়াতে বলা হয়েছে। রোববারের পাবলিক পরীক্ষাগুলো স্থগিত করা হয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা
মসজিদে হারামে নামাজ আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করছেন হাজিরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: হজপালন শেষে মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা মক্কার বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান পরিদর্শন, ৫ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে হারামে আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করে কাটাচ্ছেন।

মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা উমরার নিয়ত করলে তাদের ইহরাম বাধার জন্য যেতে হয় আয়েশা মসজিদে। সেখানে যেয়ে (ইহরাম আগেও পড়া যায় মসজিদে আয়েশাতে যেয়েও অনেকে পরিধান করেন) দুই রাকাত নামাজ পড়ে তালবিয়া (লাব্বাইক .... ) পড়ে কাবা শরিফে এসে উমরার সব নিয়মনীতি পালন করেন।

মসজিদটি মক্কার তানঈম এলাকায় অবস্থিত। এটাকে মসজিদে তানঈমও বলা হয়। হেরেম এলাকার বাইরে এটি মক্কা থেকে সর্বাধিক নিকটবর্তী স্থান। মক্কা থেকে ৬ কিলোমিটার উত্তরে মক্কা-মদিনা রোডে আল হিজরা এলাকায় অবস্থিত এই মসজিদ। রাতদিন ২৪ ঘণ্টা এখানে মুসল্লিদের উপস্থিতি থাকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392961853.jpg

উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.) এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে উমরা করেছিলেন। পরে সেখানে একটি বিশাল মসজিদ গড়ে উঠে। মসজিদটি ইসলামি শিল্পনৈপুণ্যের এক অনুপম নিদর্শন।

বিদায় হজের সময় হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.)কে তার ভাই হজরত আবদুর রহমান (রা.)-এর সঙ্গে হারামের বাইরে এখান থেকে উমরার ইহরাম বাঁধার জন্য পাঠিয়েছিলেন।

এ কারণে এখান থেকে মক্কাবাসীরা উমরার জন্য এখান থেকে ইহরাম বেঁধে থাকেন। বিদেশি হাজিরা এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে থাকেন। অবশ্য এটা নিয়ে ইসলামি স্কলারদের মাঝে বিতর্ক আছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392972633.jpg

মক্কা থেকে এখানে আসতে বাস ভাড়া ৩ রিয়াল, আর ট্যাক্সি ভাড়া ৫ রিয়াল। সারাক্ষণ নফল উমরার ইহরামের জন্য আসা হাজিদের ভিড় থাকে মসজিদটিতে। বিশাল এই মসজিদের দু’টি মিনার ও একটি গম্বুজ অনেক দূর থেকে দেখা যায়। মসজিদটি খেজুর গাছ দ্বারা পরিবেষ্টিত। মসজিদের সামনে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য বিশাল জায়গা রয়েছে। রয়েছেন অজু ও নারীদের নামাজের জন্য আলাদা ব্যবস্থা।

হজ বা উমরাপালন করতে যারা বিমানযোগে সৌদি আরব আসেন তারা নিজ দেশ থেকে কিংবা নির্দিষ্ট মিকাত থেকে নিয়ত করেন। কিন্তু হজের পর উমরা করতে চাইলে উত্তম হলো- নির্দিষ্ট মিকাতে যেয়ে উমরার নিয়ত করা। এজন্য তায়েফ, রাবেক, মদিনা, আস-সাইরুল খাবির, আস-সাদিয়াত যেতে পারেন। এসব জায়গা থেকে আসার পথে মিকাত পড়বে। সেখান যথা নিয়মে উমরার নিয়ত করে উমরা আদায় করতে পারেন।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হচ্ছে, হজে গিয়ে বেশি বেশি তাওয়াফ করা। এটি সুন্নত এবং সবচেয়ে উত্তম কাজ। কাজেই যারা মক্কায় অবস্থান করেন, তারা বেশি করে তাওয়াফ করবেন এবং আল্লাহর ঘরে গিয়ে বেশি করে নফল নামাজ আদায় করবেন।

আরও পড়ুন: হজপালনে শীর্ষ ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশ চতুর্থ

আরও পড়ুন: হজ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে কিছু প্রস্তাবনা

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে
ছবি: সংগৃহীত

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: সৌদি আরবে আসা হজযাত্রীদের হজপালন বিষয়ে ধর্মীয় পরামর্শ ও দিক-নির্দেশনা প্রদানের জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আসা ৫৮ আলেমকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন মদিনার মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সকালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ মুহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখ দল হজপালন শেষে মদিনার মসজিদে নববী পরিদর্শনে গেলে তারা এ অভ্যর্থনা জানান। এ সময় মসজিদে নববীর প্রধান কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল খুদায়েরি বলেন, অতীতে বাংলাদেশের এতো বড় আলেম প্রতিনিধি দল সৌদি আরব বিশেষ করে মদিনায় আসেনি। একসঙ্গে বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমদের কাছে পেয়ে তারা গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315408680.jpg

এ সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি আরবের সঙ্গেও তিনি সুসম্পর্ক বজায় রাখছেন। তিনি আরও বলেন, মুসলিম বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সৌদি আরবের নেতৃত্বকে সমর্থন জানাবে বাংলাদেশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315426944.jpg

পরে বাংলাদেশের আলেম ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রীকে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মোবারকে সালাম ও দরুদ পেশ এবং রিয়াজুল জান্নাতে নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করেন মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য যে, হজযাত্রীদের পরামর্শ দিতে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখের একটি দল রাষ্ট্রীয় খরচে সৌদি আরব অবস্থান করছেন। ২১ আগস্ট তাদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র