Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

পাসপোর্ট বিড়ম্বনায় হজের চূড়ান্ত নিবন্ধনে ধীরগতি

পাসপোর্ট বিড়ম্বনায় হজের চূড়ান্ত নিবন্ধনে ধীরগতি
পাসপোর্ট বিড়ম্বনায় হজের চূড়ান্ত নিবন্ধনে ধীরগতি, দরকার প্রয়োজনীয় উদ্যোগ, ছবি: সংগৃহীত
মুফতি এনায়েতুল্লাহ
বিভাগীয় সম্পাদক
ইসলাম


  • Font increase
  • Font Decrease

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১০ আগস্ট হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে। চলতি বছর পবিত্র হজ পালন করতে বাংলাদেশ থেকে ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন হজযাত্রী সৌদি আরব যাবেন। তার মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৭ হাজার ১৯৮ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১ লাখ ২০ হাজার হজযাত্রী যাবেন।

বাংলাদেশ থেকে হজপালনে আগ্রহীদের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার কারণে ই-হজ পদ্ধতিতে প্রাক-নিবন্ধন থেকে চূড়ান্ত নিবন্ধন পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। প্রাক-নিবন্ধিতদের মধ্য থেকে নির্দিষ্ট টাকা ব্যাংকে জমা দিয়ে চূড়ান্ত নিবন্ধন করতে হয়। কিন্তু তা চলছে খুব ধীরগতিতে। ধীরগতির পেছনে অনেকগুলো কারণ বিদ্যমান। এর অন্যতম হলো- পাসপোর্টের সঙ্কট ও যথাযথ প্রচারের অভাব।

বাংলাদেশি হজযাত্রীদের হজযাত্রা নিষ্কণ্টক করতে সরকার দ্বিতীয় বারের মতো হজ ক্যালেন্ডার প্রকাশ করেছে। এমতাবস্থায় যথাযথ প্রচারের অভাব আর হজযাত্রীদের যথাসময়ে পাসপোর্ট না পাওয়ার কারণে হজের চূড়ান্ত নিবন্ধন কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। বেসরকারি হজ এজেন্সিসহ হজ পালনেচ্ছুদের প্রত্যাশা, হজযাত্রীদের পাসপোর্ট সহজে ও দ্রুত পাওয়ার ব্যবস্থা করতে যথাযথ কর্তৃপক্ষ উদ্যোগ নেবেন।

১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধন শুরু হওয়ার পর গত ১৯ দিনে মাত্র অর্ধেক কোটা পূরণ হয়েছে। এ কারণে নিবন্ধনের সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের নিবন্ধন আগামী ১২ মার্চ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। সোমবার (৪ মার্চ) ধর্ম মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বার্তা২৪.কমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধনের সময়সীমা ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে ৫ মার্চ পর্যন্ত ছিল।

সরকারি নিবন্ধনের মতো ১৭ ফেব্রুয়ারি বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজ নিবন্ধন চলছে আরও ধীরগতিতে। গত ১৬ দিনে মাত্র চার হাজার জন নিবন্ধন করেছেন। নির্দিষ্ট সময় আগামী ১০ মার্চ পূরণ হতে আর মাত্র ছয় দিন বাকি আছে। এ সময়ের মধ্যে প্রাক-নিবন্ধনের ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৮১৫ নম্বর ক্রমিক পর্যন্ত হজযাত্রীরা নিবন্ধনের সুযোগ পাবেন। এই ৬ দিনে নিবন্ধন করতে হবে আরও প্রায় এক লাখ ১৬ হাজার ব্যক্তিকে। অর্থাৎ প্রতিদিন নিবন্ধন করতে হবে ১৯ হাজার ৩২৬ জনকে; যা প্রায় অসম্ভব।

সুতরাং সরকারি ব্যবস্থাপনার মতো বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজ নিবন্ধনে যে সময় বাড়ানো হবে, এটা প্রায় নিশ্চিত। তবে এ ক্ষেত্রে প্রাক-নিবন্ধনের ৪ লাখ ৭৯ হাজার ৮১৫ নম্বর ক্রমিকের মধ্যে থাকা হজযাত্রীরা আর সুযোগ পাবেন না।

ধর্ম মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নির্দিষ্ট ক্রমিকের মধ্যে থাকা প্রাক-নিবন্ধিতরা যথাসময়ে হজ নিবন্ধন সম্পন্ন না করলে তারা এ বছর হজ পালনে আগ্রহী নন মর্মে বিবেচনা করে পরবর্তী ক্রমিকের প্রাক-নিবন্ধিত ব্যক্তিদের নিবন্ধনের জন্য আহ্বান জানানো হবে।

তবে বেসরকারি হজ এজেন্সির মালিকরা আশা করছেন, সময়মতো কোটা পূরণ হয়ে যাবে। তারা বলছেন, নিবন্ধনের শুরুতে গতি কিছুটা কম থাকে। নিবন্ধনের ঘোষণার পর হজযাত্রীদের টাকা সংগ্রহ করতে কিছুটা সময় লাগে। এরপর শেষ দিকে গতি অনেক বেড়ে যায়। আশা করছি, সময়মতো হজযাত্রীরা নিবন্ধন সম্পন্ন করবেন।

এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্যাকেজ-১ এ চার লাখ ১৮ হাজার ৫০০ টাকা এবং প্যাকেজ-২ তে তিন লাখ ৪৪ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় সর্বনিম্ন প্যাকেজ নির্ধারণ করা হয়েছে তিন লাখ ৪৫ হাজার ৮০০ টাকা নির্ধারণ করেছে।

নিবন্ধনের জন্য যোগ্যতা অর্জনকারী হজ এজেন্সির সংখ্যা ৪১৩টি। এর বাইরে কোনো এজেন্সির সঙ্গে হজের লেনদেন করতে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।

সরকারি ও বেসিরকারি উভয় ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের নিবন্ধনের জন্য এমআরপি পাসপোর্ট থাকতে হবে এবং পাসপোর্টের মেয়াদ হজের দিন থেকে পরবর্তী ৬ মাস অর্থাৎ ২০২০ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

এদিকে আসন্ন হজকে সামনে রেখে হজযাত্রী নিবন্ধন সংক্রান্ত বুলেটিন প্রকাশনা শুরু করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার (৫ মার্চ) থেকে প্রতিদিন নিয়মিতভাবে এ বুলেটিন প্রকাশিত হবে। বুলেটিনে হজ নিবন্ধনের সর্বশেষ তথ্য থাকবে।

আপনার মতামত লিখুন :

মদিনা যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু

মদিনা যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি হাজির মৃত্যু
মদিনা হাইওয়ে, ছবি: সংগৃহীত

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: পবিত্র হজপালন শেষে হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের রওজা জিয়ারতের উদ্দেশ্যে মক্কা থেকে মদিনা যাওয়ার পথে বাংলাদেশি হাজি বহনকারী বাস দুর্ঘটনায় ১ জন হাজি ঘটনাস্থলে ইন্তেকাল ও ২২ জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া হাজির নাম নুরুল ইসলাম (৭০)। তার গ্রামের বাড়ি ফেনী সদরে।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাত সোয়া ১১টার দিকে মদিনা থেকে একশ' মাইল আগে ওয়াদি ফারা নামক স্থান বাসের চাকা বিস্ফোরণ হয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় বাসটি উল্টে যায়। ওই বাসটিতে ৩৫ জন হাজি ছিলেন। আহতদের মধ্যে ৭ জনের অবস্থা গুরুতর। বাসের যাত্রীরা স্কাই ট্রাভেলসের মাধ্যমে সৌদি আরবে হজপালনের উদ্দেশ্যে আসেন।

আহতদের মদিনার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে একজন নারী ছাড়া বাকিদের অবস্থা উন্নতির দিকে। গুরুতর আহতদের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে।

আহতদের ৮ জন মদিনা কিং ফাহাদ হাসপাতালে, মিকাত হাসপাতালে ৪ জন, উহুদ হাসপাতালে ২ জন, সৌদি-জার্মান হাসপাতালে ২ জন ও ইয়াতামা হাসপাতালে ২ জন চিকিতসাধীন রয়েছেন।

এদিকে হজপালনে সৌদি আরবে এসে শনিবার (১৬ আগস্ট) রাত পর্যন্ত ৮১ জন হাজি ইন্তেকাল করেছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ৭১ জন, নারী ১০ জন। মারা যাওয়া হাজিদের ৭২ জন মক্কায়, ৮ জন মদিনায় ও ১ জন জেদ্দায় ইন্তেকাল করেছেন।

আগামীতে হজ কার্যক্রম আরও সহজ করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

আগামীতে হজ কার্যক্রম আরও সহজ করা হবে: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
সবার মাঝে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: এবারের হজের ভুল-ক্রটি সংশোধন করে আগামীতে হজ কার্যক্রম আরও সহজ করা হবে বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।

শুক্রবার (১৬ আগস্ট) রাতে মক্কায় সৌদি সরকারের দক্ষিণ এশিয়া হজ সেবা সংস্থা মোয়াসসাসার সঙ্গে হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর মতবিনিময় ও নৈশভোজে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, 'আগামীতে হাজিদের আরও সুবিধা নিশ্চিতের জন্য বাংলাদেশের হজ ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িত হাবসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে দেশে ফিরে আলোচনা অব্যাহত রাখা হবে। কোনো অবস্থাতেই হাজিদের কষ্ট হয় এমন কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে না বলেও জানান ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।'

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মোয়াসসাসা চেয়ারম্যান ড. রাফাত ইসমাইল বদর। তিনি বাংলাদেশি হাজিদের সুবিধায় সৌদি আরব সরকারের নানা উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে বলেন, 'হাজিদের সুবিধা দেওয়ার ধারা অব্যাহত থাকবে। ভবিষ্যতে আরও সুবিধা নিশ্চিত করা হবে। হাজিদের আল্লাহর মেহমান উল্লেখ করে ড. রাফাত বলেন, ই-ভিসা সিস্টেম ও মক্কা রুট ইনিশিয়েটিভ প্রকল্পের মতো সুযোগ-সুবিধা আরও কীভাবে বাড়ানো যায়, এটা নিয়ে কাজ চলছে।'

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/17/1566052174957.jpg

হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (হাব)-এর সভাপতি এম শাহাদত হোসাইন তসলিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় হজ এজেন্সিগুলোর মালিক, প্রতিনিধি ও ধর্মীয় পরামর্শক হিসেবে হজে আসা বাংলাদেশের বিশিষ্ট আলেম-উলামারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে মোয়াসসাসার ডিরেক্টর জেনারেল ওমর সিরাজ আকবর নিজেকে বাংলাদেশি বলে উল্লেখ করে বলেন, 'আমি গর্ববোধ করি বাংলাদেশি হাজিদের সেবা দিতে পেরে।'

সৌদি আরব ধর্ম মন্ত্রণালয়ের (দক্ষিণ এশিয়া) জনসংযোগ কর্মকর্তা আবদুল আজিজ ফাহাদ রাহমা, হাব মহাসচিব ফারুক আহমদ সরদারসহ হাব নেতৃবৃন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে হাবের পক্ষ থেকে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ও মোয়াসসারার উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

উল্লেখ্য, সৌদি আরবে পৌঁছার পর বিমান বন্দর থেকে হোটেল, হোটেল থেকে হজের আনুষ্ঠানিকতার জায়গা মিনা, আরাফাত, মুজদালিফা ও কংকর নিক্ষেপের স্থান জামারার হাজিদের থাকা-খাওয়া ও যাতায়াতের ব্যবস্থা করে মোয়াসসাসা অফিস। মোয়াসসাসার অধীনে প্রায় শতাধিক মুয়াল্লিম রয়েছে। এই মুয়াল্লিমদের মাধ্যমে সৌদি আরবে হাজিদের বিভিন্ন সেবা দেওয়া হয়।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র