Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার স্থান নেই ইসলামে

সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার স্থান নেই ইসলামে
শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত একটি চার্চ, ছবি: সংগৃহীত
ইসলাম ডেস্ক


  • Font increase
  • Font Decrease

সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় সিরিজ বোমা হামলায় প্রচুর মানুষ মারা গেছেন। গোটা শ্রীলঙ্কা এখন শোকে স্তব্ধ। শোকের ছায়া বিস্তৃত হয়ে পড়েছে দক্ষিণ এশিয়াসহ সারা বিশ্বে। দক্ষিণ এশিয়ায় এক দশকের মধ্যে এটাই সবচেয়ে প্রাণহানিকর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা।

হামলাকারী যারাই হোক, তারা যে মানবতাবিরোধী, সভ্যতাবিরোধী এবং ধর্মবিরোধী তাতে কোনো সন্দেহ নেই। মানবতার সকল মাপকাঠি, সভ্যতার ঐতিহ্য-সংস্কৃতি এবং সকল ধর্মের মূল্যবোধ মানুষ হত্যার বিরোধী। সুতরাং যারা এই সন্ত্রাসী হামলা ও হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে, তারা মনুষ্য পদবাচ্য হওয়ার সম্পূর্ণ অনুপযুক্ত। তারা পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট। তাদের নির্মূলকরণ ছাড়া বিকল্প নেই।

ইসলামকে হেয়প্রতিপন্ন করা এবং মুসলমানদের মধ্যে বিভেদ-সঙ্ঘাত সৃষ্টি ও অব্যাহত রাখাই সাম্রাজ্যবাদী শক্তিচক্রের মূল লক্ষ্য।

বলার অপেক্ষা রাখে না, আল কায়েদা ও আইএস প্রভৃতি সন্ত্রাসী সংগঠন ইসলাম ও মুসলমানদের যত ক্ষতি করেছে, সাম্প্রতিককালে আর কেউ তা করতে পারেনি। তাদের সন্ত্রাসী হামলায় যত মানুষ হতাহত হয়েছে, পরিসংখ্যান নিলে দেখা যাবে, তাদের মধ্যে মুসলমানদের সংখ্যায় বেশি।

ইসলাম অর্থই শান্তি। বিশ্বে শান্তি, শৃঙ্খলা, সৌহার্দ্য, সুষ্ঠু সহাবস্থান নিশ্চিত করা ইসলামের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য এবং মুসলমানদের দায়িত্ব ও কর্তব্য।

ইসলামে সন্ত্রাসবাদ ও চরমপন্থার কোনো স্থান নেই। বিশৃঙ্খলার কোনো প্রশ্রয় নেই। ইসলাম বিনা কারণে মানুষ হত্যা নিষিদ্ধ করেছে। পবিত্র কোরআনে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, ‘এই কারণেই বনি ইসরাইলিদের এই বিধান দিলাম, নরহত্যা অথবা পৃথিবীতে ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ করার কারণ ব্যতীত যদি কেউ কাউকে হত্যা করে তবে সে যেন দুনিয়ার সব মানুষকে হত্যা করল। যদি কেউ একটি প্রাণ রক্ষা করে তবে সে যেন সব মানুষের প্রাণ রক্ষা করল। অতঃপর যদিও তাদের কাছে আমার রাসূলগণ স্পষ্ট প্রমাণসহ এসেছিল, এরপরও তাদের মধ্যে অনেকেই সীমালঙ্ঘনকারী থেকে গেছে।’ -সূরা মায়েদা: ৩২

এই আয়াত থেকে এটা স্পষ্ট যে, হত্যাকাণ্ড সীমালঙ্ঘন করার মতো গুরুতর অপরাধ, যার শাস্তি জাহান্নাম; যা মুসলমানরা কোনোভাবেই করতে পারে না। স্বেচ্ছায় কোনো ঈমানদারকে হত্যা করার বিষয়ে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, যে ব্যক্তি স্বেচ্ছায় কোনো ঈমানদারকে হত্যা করে তার শাস্তি জাহান্নাম, যে চিরকাল সেখানেই থাকবে। আল্লাহ তার প্রতি ক্ষুব্ধ হয়েছেন, তাকে অভিসম্পাত করেছেন এবং তার জন্য কঠিন শাস্তি প্রস্তুত রেখেছেন। -সূরা নিসা: ৯৩

সূরা নিসার ২৯ নম্বর আয়াতে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, হে মুমিনগণ! তোমরা একে অন্যের সম্পত্তি অন্যায়ভাবে গ্রাস করো না এবং একে অন্যকে হত্যা করো না।

পবিত্র কোরআনে আরও বলা হয়েছে, (ঈমানদার বান্দা তারাই) যারা আল্লাহ ছাড়া অন্য উপাস্যের ইবাদত করে না এবং অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করে না। -সূরা ফুরকান: ৬৮

মহান আল্লাহ ফেতনা-ফাসাদ হত্যার চেয়েও গুরুতর অপরাধ বলে ঘোষণা দিয়েছেন। বলেছেন, ...বস্তুত ফেতনা-ফাসাদ বা দাঙ্গা-হাঙ্গামা সৃষ্টি করা হত্যার চেয়েও কঠিন অপরাধ। -সূরা বাকারা: ১৯১

হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, দুনিয়া ধ্বংস করে দেওয়ার চেয়েও আল্লাহর কাছে ঘৃণিত কাজ হলো মানুষ হত্যা করা। -তিরমিজি

হজরত আনাস বিন মালেক (রা.) বর্ণিত এক হাদিসে আছে, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কবিরা গোনাহগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় গোনাহ হলো আল্লাহতায়ালার সঙ্গে শিরক করা, নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করা, পিতামাতার অবাধ্য হওয়া ও মিথ্যা কথা বলা। -সহিহ বোখারি

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কিয়ামতের দিন মানুষের প্রথম বিচার করা হবে রক্তপাত সম্পর্কে। বিদায় হজের ভাষণে রাসূলে কারিম (সা.) বলেন, হে মানুষ! ঈমানদাররা পরস্পরের ভাই। সাবধান, তোমরা একজন আরেকজনের হত্যা করার মতো কুফরি কাজে লিপ্ত হয়ো না।

পবিত্র কোরআন ও হাদিসের আলোক আমরা সন্দেহাতীতভাবে বলতে পারি, ইসলাম এসেছে শান্তির জন্য, শান্তি বিঘ্নিত করার জন্য নয়। যারা ইসলামের নামে সন্ত্রাস করে, মানুষ হত্যা করে, বিশৃঙ্খলা-হানাহানি সৃষ্টি করে তারা মুসলমান হওয়ার অযোগ্য। তারা ঘাতক-সন্ত্রাসী, তাদের কোনো ধর্ম থাকতে পারে না। তাদের সম্পর্কে তাই সতর্ক ও সাবধান হতে হবে। তাদের থেকে দূরে থাকতে হবে। তাদের প্রতিরোধ বা প্রতিহত করার দায়িত্বও মুসলমানরা এড়িয়ে যেতে পারে না।

আপনার মতামত লিখুন :

নবীর রওজার গিলাফ উপহার পেলেন ব্রিটিশ বক্সার

নবীর রওজার গিলাফ উপহার পেলেন ব্রিটিশ বক্সার
নবীর রওজার গিলাফের টুকরা দেখাচ্ছেন আমির খান, ছবি: সংগৃহীত

পাকিস্তানী বংশোদ্ভূত জনপ্রিয় ব্রিটিশ বক্সার আমির ইকবাল খান এক বক্সিং প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে সৌদি আরব সফরে রয়েছেন। তিনি জেদ্দায় অস্ট্রেলিয়ান বক্সার বিলি ডিবের বিপক্ষে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবেন। সৌদি আরব যেয়ে তিনি বিশেষ ব্যবস্থায় ওমরা পালন করেছেন। সেই সঙ্গে নবী করিম (সা.)-এর রওজা শরিফের অভ্যন্তরে ব্যবহৃত গিলাফের একটি টুকরা পেয়েছেন উপহার হিসেবে।

মাত্র ১৭ বছর বয়সে ব্রিটেনের হয়ে অলিম্পিক পদকজয়ী এই বক্সিং চ্যাম্পিয়ন স্ত্রী ফারিয়াল মাকদুমকে নিয়ে কাবা চত্ত্বরে দাঁড়িয়ে ইহরাম পরিহিত ও রওজার গিলাফের একটি ছবি ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করেছেন। গিলাফের ওই টুকরাটি সবুজ কাপড়ের। সেখানে সাদা রংয়ের ক্যালিগ্রাফিতে কালেমা লেখা রয়েছে।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/16/1563289158690.jpg

আমির খান সম্মাননা পাওয়া রওজার গিলাফের ছবি ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আমি বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পবিত্র রওজা শরিফের এক টুকরো কাপড় পেয়ে সম্মানিত ও খুব সৌভাগ্যবান। এটা আমার পুরো জীবনের জন্য উপভোগের বিষয়।’

প্রতি বছরই নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রওজা শরিফের গিলাফ এবং কাবা শরিফের গিলাফ পরিবর্তন করা হয়। পরে গিলাফের অংশ বিশ্বের খ্যাতনামা আলেম ও রাষ্ট্রপ্রধানসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরকে সম্মাননা হিসেবে উপঢৌকন দেওয়া হয়। এরই অংশ হিসেবে কিংবদন্তি বক্সার মোহাম্মাদ আলীর পর মুসলিম বক্সার হিসেবে পরিচিত ও জনপ্রিয় মুষ্টিযোদ্ধা আমির ইকবাল খান এ উপহার পেলেন।

আরও ৫ শতাংশ রিপ্লেসমেন্ট সুবিধা চায় হজ এজেন্সিগুলো

আরও ৫ শতাংশ রিপ্লেসমেন্ট সুবিধা চায় হজ এজেন্সিগুলো
কাবা প্রাঙ্গণে হজযাত্রীদের একাংশ, ছবি: সংগৃহীত

পবিত্র হজযাত্রার জন্য প্রাক-নিবন্ধনের পর মৃত্যু ও অসুস্থতাসহ নানা কারণে যারা হজপালনে সৌদি আরব যেতে পারেন না, তাদের পরিবর্তে অন্যদের হজপালনের সুযোগকে রিপ্লেসমেন্ট বা প্রতিস্থাপন বলে। জাতীয় হজ ও ওমরা নীতিমালা অনুযায়ী মৃত্যু বা মারাত্মক অসুস্থতাজনিত কারণে নিবন্ধিত কেউ হজে যেতে না পারলে তার পরিবর্তে অন্য কাউকে হজে পাঠানোর জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয় অনুমতি দিতে পারে। সে ক্ষেত্রে এজেন্সিকে ওই হজযাত্রীর অসুস্থতার পক্ষে চিকিৎসকের সনদপত্র অথবা মৃত্যুর ক্ষেত্রে মৃত্যুর সনদপত্র জমা দিতে হবে। সৌদি দূতাবাস কর্তৃক হজ ভিসা দেওয়া বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত ফ্লাইট চালু সাপেক্ষে যাত্রীদের রিপ্লেসমেন্টের সুযোগ রয়েছে।

তবে হজ সেবা সংশ্লিষ্ট অনেকেই বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে জানিয়েছেন, নীতিমালায় যাই থাকুক, রিপ্লেসমেন্টের ক্ষেত্রে হজ এজেন্সিগুলোকে বাড়তি কিছু সুবিধা দেওয়া হয়। এটা অনেকটা ওপেন সিক্রেট। যেমন নীতিমালায় ৫ শতাংশ হারে প্রতিস্থাপনের কথা বলা হলেও মন্ত্রণালয় বিশেষ সার্কুলার জারি করে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ হারে এই সুবিধা দিয়ে থাকে। চলতি বছরও ১০ শতাংশ হারে সুবিধা দেওয়া হয়েছে। তার পরও কিছু এজেন্সি দাবি করছেন আরও ৫ শতাংশ সুবিধার।

চলতি হজ মৌসুমে ইতোমধ্যে এজেন্সিগুলোকে প্রতি ১০ শতাংশ হারে প্রতিস্থাপনের সুবিধা দেওয়া হয়েছে। তবে তা নির্ধারিত সময়ের জন্য হওয়ার কারণে কিছু এজেন্সি তখন এই সুবিধা নিতে পারেনি। এখন এজেন্সিগুলো আরেক দফায় এই সুযোগ চায়। প্রতিস্থাপনের সুবধিা না পাওয়ার কারণে অনেক এজেন্সি এখনও সৌদি আরবে বাড়ি ভাড়া করে তাসরিয়ার অনুমোদন নিতে পারছে না। এ জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয়ও গত কয়েক দিন কয়েক দফায় এজেন্সিগুলোকে তলব করে তাদের সর্বশেষ অবস্থান জানার চেষ্টা করছে। সর্বশেষ প্রায় ৪০টি এজেন্সিকে ধর্ম মন্ত্রণালয় ডেকেছিল।

এ বিষয়ে হাবের সভাপতি এম শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেছেন, আমরা শুরুতেই প্রয়োজনীয় সংখ্যক হজযাত্রীকে রিপ্লেসমেন্টের সুযোগ দেওয়ার জন্য ধর্ম মন্ত্রণালয়কে লিখিতভাবে অনুরোধ জানিয়েছি। মন্ত্রণালয় দুই দফায় আমাদের হজযাত্রীদের ১০ শতাংশ করে রিপ্লেমেন্টের সুযোগ দিয়েছে। এখন যারা হজযাত্রীদের পাঠানোর ব্যাপারে তথ্য দিতে পারছে না তাদেরকে ডেকে প্রকৃত অবস্থা জানার চেষ্টা করছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। তিনি বলেন, রিপ্লেমেন্টের জন্য নতুন করে অনুরোধ করার কিছু নেই। আমরা আগেই অনুরোধ করে রেখেছি সেটি বিবেচনায় রেখে ধর্ম মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নেবে বলে আমরা আশা করি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন এজেন্সি মালিক রিপ্লেসমেন্ট সুবিধার বিষয়ে বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, আসলে আগের বছর ১৫ শতাংশের বেশি রিপ্লেসমেন্ট দেওয়া হয়েছে তিন দফায়। এবারও দুই দফায় সুবিধা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সময় নির্ধারিত থাকা কারণে পরে যাদের রিপ্লেসমেন্টের প্রয়োজন হয়ে পড়েছে তাদের জন্য আবার সুযোগ দেওয়া দরকার। এ ছাড়া দেখা গেছে, অনেকে শতকরা হারে সে সংখ্যায় রিপ্লেসমেন্টের সুবিধা পেয়েছে তার প্রকৃত রিপ্লেসযোগ্য হজযাত্রীর সংখ্যা তার চেয়ে বেশি। ফলে সে আরেক দফায় সুবিধার জন্য অপেক্ষমাণ রয়েছে।

তাদের দাবি, যারা হজের জন্য প্রাক-নিবন্ধন করেছেন তাদেরই তো রিপ্লেসমেন্ট দেওয়া হবে। এতে কোটা খালি থাকা বা সরকারের লাভ-লোকসানের কিছু নেই। বরং কোনো এজেন্সি তার হজযাত্রী পাঠাতে না পারলে তার বাড়ি ভাড়ার টাকা এমনকি বিমানের টিকিটের টাকাসহ ব্যবসায়িক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। আর ওই সব হজযাত্রীর কোটাও খালি যাবে। ফলে সব কিছু বিবেচনা করে সর্বশেষ রিপ্লেসমেন্টের সুযোগ দেওয়া উচিত।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, হজ ব্যবস্থাপনাকে সুষ্ঠু ও সুন্দর করার জন্য এবার সরকার যেসব পদক্ষেপ নিয়েছে তার কারণে হজ ফ্লাইট নিয়ে কোনো ঝামেলা এখন পর্যন্ত হয়নি। আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে হজযাত্রীদের নামে বিমানের টিকিট নিশ্চিত করাসহ হজ অফিসে পাসপোর্ট জমা দিয়ে ভিসা নিশ্চিত করার বিষয়টি আগেই নিশ্চিত করার অংশ হিসেবেই দফায় দফায় এজেন্সিগুলোকে ডেকে তাদের সর্বশেষ তথ্য জানছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। এখনও কিছু এজেন্সির সৌদি আরবের বাড়ি ভাড়া ও তাসরিয়ার ব্যাপারে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে তথ্য না থাকায় প্রকৃত অবস্থা জেনে ধর্ম মন্ত্রণালয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে বলে জানা গেছে মন্ত্রণালয় সূত্রে।

উল্লেখ্য, সরকারি-বেসরকারি মিলে এ বছর বাংলাদেশের হজযাত্রীর কোটা এক লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন। এর মধ্যে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় এক লাখ ২০ হাজার হজযাত্রী যাওয়ার কথা। ৫৯৮টি বেসরকারি এজেন্সি এ বছর হজ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। গতকাল পর্যন্ত প্রায় ৫৩ হাজার হজযাত্রী সৌদি আরব গেছেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও সৌদি এয়ারলাইন্স হজযাত্রীদের পরিবহন করছে। চাঁদ দেখাসাপেক্ষে আগামী ১০ আগস্ট পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে। হজযাত্রীদের প্রথম ফিরতি ফ্লাইট ১৭ আগস্ট এবং শেষ ফিরতি ফ্লাইট ১৫ সেপ্টেম্বর।

ধর্ম মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, হজপালনের জন্য সৌদিতে যাওয়া বাংলাদেশি মধ্যে চার পুরুষ ও একজন নারী ইন্তেকাল করেছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র