Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

কান কীভাবে রোজা রাখবে?

কান কীভাবে রোজা রাখবে?
রোজায় মন-মানসিকতা পূর্ণভাবে আল্লাহর আদেশের অনুসারী হওয়া দরকার, ছবি: সংগৃহীত
ড. মাহফুজ পারভেজ
কন্ট্রিবিউটিং এডিটর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

পানহার ও কাম রিপুকে দমন করে রোজা শরীরকে যেমন নিয়ন্ত্রণ করে, তেমনি দৃষ্টি সংযত করে চোখেরও নিয়ন্ত্রণ করে। পরিপূর্ণ রোজার জন্য একজন মানুষের শরীরের সকল অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ এবং মন-মানসিকতা পূর্ণভাবে আল্লাহর আদেশের অনুসারী হওয়া দরকার।

এজন্যই চোখের মতো কান বা শ্রবণ শক্তিকেও রোজার আওতায় আনা জরুরি। কেননা, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতায়ালা ইরশাদ করেছেন, ‘কান, চোখ ও অন্তর, এ সব কয়টির ব্যবহার সম্পর্কে জিজ্ঞাস করা হবে।’ -সূরা বনি ইসরাইল: ৩৬

ফলে মানুষের অমূল্য নেয়ামত, এসব অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সঠিক ও যথাযথভাবে ব্যবহার করার প্রয়োজন আছে। ভুল কাজে বা ভুল ভাবে এসব মূল্যবান অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের অপব্যবহার শুধু দুনিয়াতেই নয়, আখেরাতেও মারাত্মক পরিণতি ডেকে আনবে ও কঠিন জবাবদিহির সম্মুখীন করবে।

আল্লাহতায়ালা আরও ইরশাদ করেছেন যে, ‘বস্তুত বহু সংখ্যক মানুষ ও জিন আমি জাহান্নামের জন্যই সৃষ্টি করেছি। তাদের কাছে যদিও অন্তর আছে, কিন্তু তা দিয়ে তারা চিন্তা করে না। তাদের কাছে চোখ থাকলেও তারা তা দিয়ে দেখে না। আবার তাদের কাছে কান আছে, কিন্তু তাদের কান দিয়ে শোনে না। এরা জন্তু-জানোয়ারের মতো, বরং কোনও কোনও ক্ষেত্রে এরা তাদের চেয়েও বেশি পথভ্রষ্ট; এসব লোকেরাই মারাত্মক উদাসীন।’ –সূরা আরাফ: ১১৮৯

মানুষের কান বা শ্রবণ শক্তি শোনার জন্য। ভালো কথা, ভালো সুর, ভালো ধ্বনি শোনার জন্য কানের ব্যবহার শরীরে ইতিবাচক প্রভাব বিস্তার করে। নেককার মানুষ কান দিয়ে তা-ই করেন।

বিজ্ঞান আজকাল বলছে যে, ভালো ও পরিমিত শব্দ না শুনলে শ্রবণ শক্তি নষ্ট হয়ে যায়। শব্দ দুষণ ও হৈচৈ মানুষের কানকে খাটো করে এবং মনে চাপ সৃষ্টি করে হৃৎ ও মানসিক পীড়ার জন্ম দেয়।

অতএব কানে বা শ্রবণ শক্তিকে অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে এবং পরিমিত ও ভালো কিছু শোনার কাজে ব্যবহার করা অত্যাবশক। যার মাধ্যমে কানের কার্যক্ষমতা যেমন ঠিক থাকবে, শরীরও অহেতুক শব্দের কবলে নিপতিত হয়ে দুষিত না হয়ে সুস্থ্য, সবল ও ভারসাম্যপূর্ণ থাকবে।

আর যারা ভালো কথা ও সদুপদেশ না শোনে কান বা শ্রবণেন্দ্রিয়কে ভুল পথে পরিচালিত করে, তাদেরকে পশুর সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে। যে কান সৎ ও সঠিক কথা শুনতে অপারগ, সে কান ও কানের মালিক সত্য ও ন্যায়ের চেয়ে অনেক দূরে অবস্থান করে। যে কারণে পবিত্র কোরআনে সুস্পষ্ট ভাষায় বলা হয়েছে, ‘হে নবী! আপনি কি মনে করেন, তাদের অধিকাংশ লোক আপনার কথা শোনে কিংবা এর মর্ম বোঝে; আসলে এরা হচ্ছে পশুর মতো; বরং তারা আরও বেশি বিভ্রান্ত।’ –সূরা ফোরকান: ৪৪

অতএব যে কান বা শ্রবণ শক্তিকে সঠিক, সত্য, হেদায়েতের কথা শোনার জন্য সৃষ্টি করা হয়েছে, রমজান মাসে রোজার আওতায় সে কানকে আরও সতর্কতার সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে। কোনও মিথ্যা, অশ্লীলতা, ভুল ও বিভ্রান্তিকর বিষয় দিয়ে কান/শ্রবণকে মোটেও কলুষিত করা যাবে না। শ্রবণকে কলুষিত করার মাধ্যমে শরীর ও মনকে দুষিত করার বিপদ থেকে বাঁচতে হলে সর্বাগ্রে কান বা শ্রবণকে সতর্কতার সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে।

অতএব, কানের রোজা হলো, হারাম, মিথ্যা, ভুল, বিভ্রান্তিকর কথা থেকে হেফাজত থাকা। উদ্দেশ্যমূলক, অপবাদমূলক, হিংসা ও বিদ্বেষমূলক কথা ও প্রচারণা থেকেও সযত্নে দূরে সরে থাকা।মূল কথায়, দ্বীন ও হকের বাইরে শ্রবণকে নিয়ে না যাওয়া।

কান ও শ্রবণ শক্তির সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে মুসলিমদের হতে হবে সত্যের শ্রবণকারী বা সঠিক শ্রোতা। যে দিক-নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে পবিত্র কোরআনুল কারীমে, ‘ রাসূলের ওপর যা নাজিল হয়েছে তা যখন এরা শোনে, তখন সত্য চেনার কারণে আপনি এদের অনেকেরই চোখকে দেখতে পাবেন অশ্রুসজল।’ –সূরা মায়েদা: ৮৪

এ কারণেই ইসলামি স্কলাররা কান বা শ্রবণ শক্তিকে কেবলমাত্র সত্যবাদিতার কথা শোনায় নিয়োজিত করতে তাগিদ দিয়েছেন এবং নিরর্থক কথা শোনা থেকে সরে আসতে বলেছেন। কারণ, কান বা শ্রবণ ক্ষমতা হলো জ্ঞান ও ভালো ভালো কথা/উপদেশ/নির্দেশ/প্রজ্ঞার জানালা স্বরূপ। কানের মাধ্যমে সেই আলোচনা ও যিকির হৃদয়ে সংরক্ষিত করে নেওয়া উচিত, যা হলো ‘আফজালুজ জিকির’ বা সর্বোত্তম জিকির/আলোচনা/কথা। আর সতঃসিদ্ধভাবে ‘আফজালুল জিকির’ হলো ‘জিকরুল্লাহ’ (আল্লাহর জিকির বা আলোচনা) এবং ‘কালামুল্লাহ’ (আল্লাহর কালাম বা কথা তথা আল কোরআন)।

আল্লাহ ও আল্লাহর কথা, উপদেশ, আদেশ, নিষেধ আলোচনার মাধ্যমে কানকে যেমন সঠিকভাবে ব্যবহার করা যায়, তেমনি ক্বলব বা মনকে আলোকিত করা যায়। আবার বাজে, বেফুজুল, বেহুদা, বেশরম ও অসার কথা-বার্তার মাধ্যমে কান বা শ্রবণ শক্তির অপব্যবহার হয় এবং মন ও হৃদয় এই অপব্যবহারের দ্বারা কালিমালিপ্ত ও কলুষিত হয়।

ফলে তাকওয়া ও পরহেজগারি লাভের উদ্দেশ্যে রোজা রাখবো আর কানকে ভুল ব্যবহার করে হৃদয়-মন কলুষিত, অপবিত্র ও অন্ধকারাচ্ছন্ন করবো, তা কোনও কাজের কাজ হতে পারে না। বরং এতে রোজার যে মূল লক্ষ্য-উদ্দেশ্য, সেটাই নস্যাৎ হয়ে যেতে পারে। অতএব পরিপূর্ণভাবে রোজার হক আদায় করার জন্য শরীরের সকল অঙ্গ-প্রত্যক্ষ, বিশেষত কান বা শ্রবণ শক্তিকেও সংযমের মাধ্যমে রোজায় শরিক করা অত্যাবশ্যক।

আপনার মতামত লিখুন :

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা
মসজিদে হারামে নামাজ আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করছেন হাজিরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: হজপালন শেষে মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা মক্কার বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান পরিদর্শন, ৫ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে হারামে আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করে কাটাচ্ছেন।

মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা উমরার নিয়ত করলে তাদের ইহরাম বাধার জন্য যেতে হয় আয়েশা মসজিদে। সেখানে যেয়ে (ইহরাম আগেও পড়া যায় মসজিদে আয়েশাতে যেয়েও অনেকে পরিধান করেন) দুই রাকাত নামাজ পড়ে তালবিয়া (লাব্বাইক .... ) পড়ে কাবা শরিফে এসে উমরার সব নিয়মনীতি পালন করেন।

মসজিদটি মক্কার তানঈম এলাকায় অবস্থিত। এটাকে মসজিদে তানঈমও বলা হয়। হেরেম এলাকার বাইরে এটি মক্কা থেকে সর্বাধিক নিকটবর্তী স্থান। মক্কা থেকে ৬ কিলোমিটার উত্তরে মক্কা-মদিনা রোডে আল হিজরা এলাকায় অবস্থিত এই মসজিদ। রাতদিন ২৪ ঘণ্টা এখানে মুসল্লিদের উপস্থিতি থাকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392961853.jpg

উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.) এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে উমরা করেছিলেন। পরে সেখানে একটি বিশাল মসজিদ গড়ে উঠে। মসজিদটি ইসলামি শিল্পনৈপুণ্যের এক অনুপম নিদর্শন।

বিদায় হজের সময় হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.)কে তার ভাই হজরত আবদুর রহমান (রা.)-এর সঙ্গে হারামের বাইরে এখান থেকে উমরার ইহরাম বাঁধার জন্য পাঠিয়েছিলেন।

এ কারণে এখান থেকে মক্কাবাসীরা উমরার জন্য এখান থেকে ইহরাম বেঁধে থাকেন। বিদেশি হাজিরা এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে থাকেন। অবশ্য এটা নিয়ে ইসলামি স্কলারদের মাঝে বিতর্ক আছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392972633.jpg

মক্কা থেকে এখানে আসতে বাস ভাড়া ৩ রিয়াল, আর ট্যাক্সি ভাড়া ৫ রিয়াল। সারাক্ষণ নফল উমরার ইহরামের জন্য আসা হাজিদের ভিড় থাকে মসজিদটিতে। বিশাল এই মসজিদের দু’টি মিনার ও একটি গম্বুজ অনেক দূর থেকে দেখা যায়। মসজিদটি খেজুর গাছ দ্বারা পরিবেষ্টিত। মসজিদের সামনে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য বিশাল জায়গা রয়েছে। রয়েছেন অজু ও নারীদের নামাজের জন্য আলাদা ব্যবস্থা।

হজ বা উমরাপালন করতে যারা বিমানযোগে সৌদি আরব আসেন তারা নিজ দেশ থেকে কিংবা নির্দিষ্ট মিকাত থেকে নিয়ত করেন। কিন্তু হজের পর উমরা করতে চাইলে উত্তম হলো- নির্দিষ্ট মিকাতে যেয়ে উমরার নিয়ত করা। এজন্য তায়েফ, রাবেক, মদিনা, আস-সাইরুল খাবির, আস-সাদিয়াত যেতে পারেন। এসব জায়গা থেকে আসার পথে মিকাত পড়বে। সেখান যথা নিয়মে উমরার নিয়ত করে উমরা আদায় করতে পারেন।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হচ্ছে, হজে গিয়ে বেশি বেশি তাওয়াফ করা। এটি সুন্নত এবং সবচেয়ে উত্তম কাজ। কাজেই যারা মক্কায় অবস্থান করেন, তারা বেশি করে তাওয়াফ করবেন এবং আল্লাহর ঘরে গিয়ে বেশি করে নফল নামাজ আদায় করবেন।

আরও পড়ুন: হজপালনে শীর্ষ ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশ চতুর্থ

আরও পড়ুন: হজ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে কিছু প্রস্তাবনা

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে
ছবি: সংগৃহীত

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: সৌদি আরবে আসা হজযাত্রীদের হজপালন বিষয়ে ধর্মীয় পরামর্শ ও দিক-নির্দেশনা প্রদানের জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আসা ৫৮ আলেমকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন মদিনার মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সকালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ মুহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখ দল হজপালন শেষে মদিনার মসজিদে নববী পরিদর্শনে গেলে তারা এ অভ্যর্থনা জানান। এ সময় মসজিদে নববীর প্রধান কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল খুদায়েরি বলেন, অতীতে বাংলাদেশের এতো বড় আলেম প্রতিনিধি দল সৌদি আরব বিশেষ করে মদিনায় আসেনি। একসঙ্গে বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমদের কাছে পেয়ে তারা গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315408680.jpg

এ সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি আরবের সঙ্গেও তিনি সুসম্পর্ক বজায় রাখছেন। তিনি আরও বলেন, মুসলিম বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সৌদি আরবের নেতৃত্বকে সমর্থন জানাবে বাংলাদেশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315426944.jpg

পরে বাংলাদেশের আলেম ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রীকে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মোবারকে সালাম ও দরুদ পেশ এবং রিয়াজুল জান্নাতে নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করেন মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য যে, হজযাত্রীদের পরামর্শ দিতে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখের একটি দল রাষ্ট্রীয় খরচে সৌদি আরব অবস্থান করছেন। ২১ আগস্ট তাদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র