Barta24

শুক্রবার, ২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

English

বই পরিচিতি

ইয়াসমীন: শুধু গল্প নয়, জীবনচিত্র

ইয়াসমীন: শুধু গল্প নয়, জীবনচিত্র
ইয়াসমীন: শুধু গল্প নয়, জীবনচিত্র, ছবি: বার্তা২৪.কম
মাজিদা রিফা
অতিথি লেখক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ইয়াসমীন। একটি গল্প সংকলন। তরতাজা সাতটি গল্প নিয়ে বইটি সাজানো হয়েছে। গল্পগুলো পড়লে মনে হবে এটা জীবনের গল্প। আর নিজের জীবন নিয়ে না ভাবলে মনে হবে, পাশের বাড়ির কারো গল্প। অর্থাৎ আপনার-আমার অথবা কারো না কারো জীবনের গল্প। যদিও লেখিকা আফিফা মারজানা বলেছেন, ‘বইয়ের গল্পগুলোতে আমি আসলে মোটাদাগে তেমন কোনো ম্যাসেজ দিতে চাইনি। আমি শুধু গল্প বলেছি, জীবনের গল্প। এখন জীবন থেকে পাঠক যদি কোনো ম্যাসেজ নিতে চান, নিতে পারেন।’ আসলে পাঠক হিসেবেই বলছি, গল্পগুলো জীবনের।

অবশ্য লেখিকা তার বইয়ের ভূমিকায় বলেছেন, ‘এগুলো শুধুই গল্প। খুব বেশি কোনো বার্তা নেই, শিক্ষণীয় কিছু নয়। সেরেফ কিছু মানুষের গল্প। সমাজ সংসারে কোনো বিল্পবী বার্তা বা সংগতি-অসংগতি নয়, কিছু জীবন ঘনিষ্ঠ কথাবার্তামাত্র। কোনো মোটিভেশন নেই, আশা-হতাশা নেই, নিশ্চুপ নিরবতা আছে। যেন কিছু সময় নিজের সাথে কথা বলা।’

‘ইয়াসমীন’ পড়ার আগে ভাবছিলাম, প্রিয় বন্ধুর প্রথম বই। যদি ভালো না লাগে কী করে বানিয়ে প্রশংসা করব! অবশ্য দু’টো গল্প পড়া ছিল এবং দু’টোই আমার প্রিয় গল্পের তালিকায় স্থান পেয়েছিল। দুরুদুরু মনে কালো হরফের মিছিলে প্রবেশ করতেই, এক অমোঘ আকর্ষণে সূচি ফলো না করে 'তাহিরা' গল্পটা আবারও পড়লাম। কথা প্রসঙ্গে লেখিকাকে যখন বললাম, গল্পটা পড়ে আমার আবারও মন খারাপ হলো, তিনি বললেন, মন খারাপের কী আছে!
তিনি জানালেন, তিনি বরং সুপারস্টার পড়ে কেঁদেছেন।
লেখক নিজে যখন নিজের গল্প পড়ে কাঁদেন, তখন ধরে নিতে হবে সেটা নিশ্চয়ই দারুণ কিছু।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/26/1558865369403.jpg
আমি 'সুপারস্টার' পড়লাম। সত্যিই খুব খারাপ লাগলো। আহারে জীবন!

এবার একটু ভেতরে যাওয়া যাক।

বইয়ের প্রথম গল্প: ইয়াসমীন। সেটাও দ্বিতীয়বার পড়লাম। রহস্যজনক এক রমণীর কথা লেখিকা যেরকম অবলীলায় বলে গেলেন, যেন ঘটনা একদম সত্যি! আবার সত্যি বলেও বিশ্বাস হয় না। জোর করে লেখিকার কাছ থেকে সত্যিটা আদায় করা যায়, কিন্তু তাতে আর গল্পের মজা থাকবে কই। তার চেয়ে থাকুক না, কিছু কাহিনী রহস্যময়!

সময়: সময়ের গল্প সবসময় অদ্ভুত! পৃথিবী সময়ের ছোবলে অদ্ভুতভাবে বদলে যায়। কুকুরের মন না বদলেও 'সময়' নামের চমৎকার এই গল্পে পৃথিবীর নিয়ম মেনে বদলে গেছে মানুষের জীবন।

রক্তভাগ্য: ছোট্ট একটি গল্প। কিন্তু এই গল্পটাও প্রত্যেকটা গল্পের মতোই ভালো লাগলো।

একজন মাজেদার গল্প: নাম দেখে ভাবলাম, ধ্যাৎ কী করতে যে লোকে সবসময় মাজেদা লিখে! কিন্তু গল্প পড়ে ভাবলাম, যাক বাবা, আল্লাহ বাঁচিয়েছেন আমি মাজিদা, মাজেদা নই। তবে মাজেদার জন্য মনে একটা ব্যথা লেগে রইলো অনেকক্ষণ।

দিলরুবা: কিছু জীবন অন্যরকম। দিলরুবাদের জীবনের সঙ্গে আমাদের দেখা হয় না। তাদের গল্প পড়ে ভাবি এ তো শুধু গল্পই; কিন্তু রব জানেন, না জানি কত দিলরুবা গুমরে কাঁদে সমাজের মুখোশপরা চেহারার আড়ালে।

মোট সাতটি গল্প। গল্প তো নয়; জীবন। না, প্রিয় মানুষের বই বলে বলছি না, সত্যিই আমি মুগ্ধ! আমার মনে আছে দুয়েক বছর আগে সবাই যখন পাগলের মতো লেখক সাদাত হোসাইনের বই আরশিনগর কিনছিল, তখন আমিও নিয়েছিলাম। যখন পড়তে বসলাম, কয়েকপাতা পড়ে রেখে দেই। নতুন লেখকের ছাপ স্পষ্ট। কিন্তু 'ইয়াসমীন' পড়ে মনে হয় না তিনি নতুন লেখক। চাইলেই তিনি বহুদূর যেতে পারেন। 'ইয়াসমীন' ভক্ত হিসেবে লেখিকার কাছে অনুরোধ- পরবর্তী বইটিও যেন আসে অচিরেই- ইনশাআল্লাহ।

ইয়াসমীন
লেখিকা: আফিফা মারজানা
প্রকাশক: সিগনেচার পাবলিকেশন
প্রকাশকাল: মে ২০১৯
পরিবেশক: রকমারি
মূল্য: ১২০ টাকা।
পৃষ্ঠা: ১৬০
প্রচ্ছদ: কাজী যুবাইর মাহমুদ

আপনার মতামত লিখুন :

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা

হাজিদের ভিড়ে জাগ্রত থাকে মসজিদে আয়েশা
মসজিদে হারামে নামাজ আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করছেন হাজিরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: হজপালন শেষে মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা মক্কার বিভিন্ন ঐতিহাসিক স্থান পরিদর্শন, ৫ ওয়াক্ত নামাজ মসজিদে হারামে আদায়, নফল তাওয়াফ ও সুযোগ বুঝে নফল উমরা আদায় করে কাটাচ্ছেন।

মক্কায় অবস্থানরত হাজিরা উমরার নিয়ত করলে তাদের ইহরাম বাধার জন্য যেতে হয় আয়েশা মসজিদে। সেখানে যেয়ে (ইহরাম আগেও পড়া যায় মসজিদে আয়েশাতে যেয়েও অনেকে পরিধান করেন) দুই রাকাত নামাজ পড়ে তালবিয়া (লাব্বাইক .... ) পড়ে কাবা শরিফে এসে উমরার সব নিয়মনীতি পালন করেন।

মসজিদটি মক্কার তানঈম এলাকায় অবস্থিত। এটাকে মসজিদে তানঈমও বলা হয়। হেরেম এলাকার বাইরে এটি মক্কা থেকে সর্বাধিক নিকটবর্তী স্থান। মক্কা থেকে ৬ কিলোমিটার উত্তরে মক্কা-মদিনা রোডে আল হিজরা এলাকায় অবস্থিত এই মসজিদ। রাতদিন ২৪ ঘণ্টা এখানে মুসল্লিদের উপস্থিতি থাকে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392961853.jpg

উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.) এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে উমরা করেছিলেন। পরে সেখানে একটি বিশাল মসজিদ গড়ে উঠে। মসজিদটি ইসলামি শিল্পনৈপুণ্যের এক অনুপম নিদর্শন।

বিদায় হজের সময় হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) উম্মুল মুমিনিন হজরত আয়েশা (রা.)কে তার ভাই হজরত আবদুর রহমান (রা.)-এর সঙ্গে হারামের বাইরে এখান থেকে উমরার ইহরাম বাঁধার জন্য পাঠিয়েছিলেন।

এ কারণে এখান থেকে মক্কাবাসীরা উমরার জন্য এখান থেকে ইহরাম বেঁধে থাকেন। বিদেশি হাজিরা এখান থেকে উমরার ইহরাম বেঁধে থাকেন। অবশ্য এটা নিয়ে ইসলামি স্কলারদের মাঝে বিতর্ক আছে।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/21/1566392972633.jpg

মক্কা থেকে এখানে আসতে বাস ভাড়া ৩ রিয়াল, আর ট্যাক্সি ভাড়া ৫ রিয়াল। সারাক্ষণ নফল উমরার ইহরামের জন্য আসা হাজিদের ভিড় থাকে মসজিদটিতে। বিশাল এই মসজিদের দু’টি মিনার ও একটি গম্বুজ অনেক দূর থেকে দেখা যায়। মসজিদটি খেজুর গাছ দ্বারা পরিবেষ্টিত। মসজিদের সামনে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্য বিশাল জায়গা রয়েছে। রয়েছেন অজু ও নারীদের নামাজের জন্য আলাদা ব্যবস্থা।

হজ বা উমরাপালন করতে যারা বিমানযোগে সৌদি আরব আসেন তারা নিজ দেশ থেকে কিংবা নির্দিষ্ট মিকাত থেকে নিয়ত করেন। কিন্তু হজের পর উমরা করতে চাইলে উত্তম হলো- নির্দিষ্ট মিকাতে যেয়ে উমরার নিয়ত করা। এজন্য তায়েফ, রাবেক, মদিনা, আস-সাইরুল খাবির, আস-সাদিয়াত যেতে পারেন। এসব জায়গা থেকে আসার পথে মিকাত পড়বে। সেখান যথা নিয়মে উমরার নিয়ত করে উমরা আদায় করতে পারেন।

ইসলামি স্কলারদের অভিমত হচ্ছে, হজে গিয়ে বেশি বেশি তাওয়াফ করা। এটি সুন্নত এবং সবচেয়ে উত্তম কাজ। কাজেই যারা মক্কায় অবস্থান করেন, তারা বেশি করে তাওয়াফ করবেন এবং আল্লাহর ঘরে গিয়ে বেশি করে নফল নামাজ আদায় করবেন।

আরও পড়ুন: হজপালনে শীর্ষ ইন্দোনেশিয়া, বাংলাদেশ চতুর্থ

আরও পড়ুন: হজ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে কিছু প্রস্তাবনা

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে

বাংলাদেশি আলেমরা উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন মসজিদে নববীতে
ছবি: সংগৃহীত

মক্কা (সৌদি আরব) থেকে: সৌদি আরবে আসা হজযাত্রীদের হজপালন বিষয়ে ধর্মীয় পরামর্শ ও দিক-নির্দেশনা প্রদানের জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে আসা ৫৮ আলেমকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন মদিনার মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) সকালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এডভোকেট শেখ মুহাম্মদ আবদুল্লাহর নেতৃত্বে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখ দল হজপালন শেষে মদিনার মসজিদে নববী পরিদর্শনে গেলে তারা এ অভ্যর্থনা জানান। এ সময় মসজিদে নববীর প্রধান কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল খুদায়েরি বলেন, অতীতে বাংলাদেশের এতো বড় আলেম প্রতিনিধি দল সৌদি আরব বিশেষ করে মদিনায় আসেনি। একসঙ্গে বাংলাদেশের শীর্ষ আলেমদের কাছে পেয়ে তারা গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315408680.jpg

এ সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সৌদি আরবের সঙ্গেও তিনি সুসম্পর্ক বজায় রাখছেন। তিনি আরও বলেন, মুসলিম বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সৌদি আরবের নেতৃত্বকে সমর্থন জানাবে বাংলাদেশ।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/20/1566315426944.jpg

পরে বাংলাদেশের আলেম ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রীকে মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মোবারকে সালাম ও দরুদ পেশ এবং রিয়াজুল জান্নাতে নামাজ পড়ার ব্যবস্থা করেন মসজিদে নববী কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য যে, হজযাত্রীদের পরামর্শ দিতে ৫৮ সদস্যের ওলামা-মাশায়েখের একটি দল রাষ্ট্রীয় খরচে সৌদি আরব অবস্থান করছেন। ২১ আগস্ট তাদের দেশে ফিরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র